Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/06/chulkani-dur-korar-upay.html

এলার্জি চুলকানি দূর করার উপায়

এলার্জি চুলকানি দূর করার উপায় - চুলকানি দূর করার ঘরোয়া উপায়  — চুলকানির সমস্যা খুবই সাধারণ ব্যাপার বা চুলকানি, যদিও এটি একটি সাধারণ রোগ। যেকোনো সময় এটি যেকারোরই হতে পারে। সাধারণত যাদের ত্বক খুব শুষ্ক, তাদের প্রায়ই চুলকানির সমস্যা হয়। কখনও কখনও ইনফেকশন ও ব্যাকটেরিয়ার কারণেও এটি হতে পারে। কিন্তু সত্য যে যখনই কোনো ব্যক্তির এই চুলকানি রোগ হয়, তখনই সেই ব্যক্তি অসুস্থ ত্বকে আঁচড় দিয়ে বিরক্ত হন। চুলকানির অনেক কারণ থাকতে পারে। অনেক সময় চুলকানি অনেক রোগের উপসর্গও হতে পারে। 

এলার্জি চুলকানি দূর করার উপায়

আপনিও কি চুলকানিতে ভুগছেন এবং চুলকানি দূর করার উপায় খুঁজছেন? আজ আমরা আপনাকে এমনই কিছু এলার্জি চুলকানি দূর করার ঘরোয়া উপায় জানাতে যাচ্ছি, যা ত্বকের অ্যালার্জির মতো সমস্যা একেবারেই দূর করবে। এর পাশাপাশি এটি আপনার ত্বককে সুন্দর করতেও সাহায্য করবে। তাহলে জেনে নিন সেই ব্যবস্থাগুলো সম্পর্কে। অর্থাৎ কারো যদি চুলকানি হয় তবে তাদের জন্য এই সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। নিচে দেওয়া কিছু প্রতিকার এলার্জি চুলকানি দূর করতে সহায়ক হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

পেজ সূচীপত্রঃ এলার্জি চুলকানি দূর করার উপায়

চুলকানি কি?

চুলকানি হল ত্বকের জ্বালাপোড়া, যার কারণে ত্বকে ঘামাচি লেগে আছে বলে মনে হয়। অনেক সময় ত্বকে অ্যালার্জির কারণে চুলকানি হয়। এই অবস্থায় দরকার হয় শুধু আঁচড় দেওয়ার তাগিদ। একে এক ধরনের চর্মরোগও বলা যেতে পারে। বয়স্কদের ক্ষেত্রে এই সমস্যাটি খুবই সাধারণ, কারণ বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ত্বক আলগা ও পাতলা হয়ে যায় এবং ত্বকের আর্দ্রতা কমতে শুরু করে। 

এতে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় এবং এতে চুলকানি হয়। যার কারণে ত্বকে ফোলা ও ফোসকা হয়। চুলকানি শরীরের যেকোনো একটি অংশে এবং পুরো শরীরে, এমনকি শরীরের বিভিন্ন অংশে হতে পারে। সাধারণত শুষ্ক ত্বকে চুলকানির সমস্যা বেশি দেখা যায়। এছাড়াও, এটি গর্ভাবস্থায়ও হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ কি খেলে চুল পড়া বন্ধ হয়

চুলকানি কত প্রকার - ত্বকে চুলকানি ধরন

সাধারণত চুলকানি ৪ ধরনের হয়ে থাকে বলে জানা যায়, যা মানুষের ত্বককে প্রভাবিত করে। এই চার ধরনের চুলকানি গুলো হলোঃ

১। নিউরোজেনিক: কিডনি, লিভার, ব্লাড এবং ক্যান্সারের মতো রোগের কারণে এই ধরনের চুলকানি হয়।এটি শুধুমাত্র ত্বক নয় শরীরের অন্যান্য অংশকেও প্রভাবিত করে। মূলত নিউরোজেনিক চুলকানি কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

২। সাইকোজেনিক: এই ধরনের চুলকানি আসলে কম হয়, কিন্তু ব্যক্তি শুধু অনুভব করেন যে তিনি বারবার চুলকাচ্ছেন। এর কারণে তার ত্বকে আঁচড় দেওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। এটি সাধারণত বিষণ্নতা, উদ্বেগ মত ক্ষেত্রে.

৩। নিউরোপ্যাথিক: এটি চুলকানি এবং ব্যাথার সাথে হতে পারে। এটি হাতে হাত ছিঁড়ে যাওয়ার ক্রমাগত অনুভূতির কারণে হয়, যা স্নায়ুতন্ত্রের সাথে সম্পর্কিত বলে মনে করা হয়।

৪। Pruritoseptic: বার্ধক্যজনিত কারণে বা ত্বকের কোনো ধরনের সংক্রমণের কারণে চুলকানি হয়। এই ধরনের চুলকানি প্রদাহ বা ত্বকের যেকোনো ধরনের ক্ষতির কারণে হতে পারে। এর জন্য চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

এগুলো ছাড়াও ত্বকে আরো ২ ধরনের চুলকানি হতে পারে। চুলকানি দুই ধরনের হয়, যেগুলো হলঃ ১। ফুসকুড়ি ছাড়া চুলকানি - এটি ধুলো-মাটি, দূষণ, গরম কাপড়, দীর্ঘক্ষণ সূর্যের সংস্পর্শে থাকা বা কোনও অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে হতে পারে ২। চুলকানি ফুসকুড়ি - এটি বেশিরভাগ সংক্রমণের কারণে হয়।

চুলকানির উপসর্গঃ চুলকানির আলাদা কোনো লক্ষণ নেই, হ্যাঁ আপনার ত্বক যদি শুষ্ক থাকে তাহলে চুলকানির সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

আরো পড়ুনঃ কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

চুলকানি কেন হয় - চুলকানি কি কারনে হয়

চুলকানির সমস্যার অনেক কারণ থাকতে পারে, যেগুলো হলঃ ১। বায়ু দূষণ এবং ধুলাবালি ও মাটির সংস্পর্শে আসার কারণে চুলকানি হতে পারে ২। কিছু লোকের নির্দিষ্ট ধরণের খাবারে অ্যালার্জি থাকে। এমতাবস্থায় ওই ব্যক্তিরা এ ধরনের খাবার খেলে চুলকানি হতে পারে ৩। ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে চুলকানি হতে পারে ৪। শুষ্ক ত্বকও চুলকানির একটি প্রধান কারণ।

৫। কেমিক্যালযুক্ত বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহারের কারণেও চুলকানি হয় ৬। কেমিক্যাল ভিত্তিক হেয়ার ডাই বা চুলের রং ব্যবহার করলেও চুলকানি হতে পারে ৭। আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে ৮। যে কোন ধরনের পোকামাকড়ের কামড় ৯। ঠান্ডা আবহাওয়ায় ত্বকের আর্দ্রতা শুকিয়ে যায়। এতে চুলকানির সমস্যা হতে পারে ১০। খাবারে পর্যাপ্ত চর্বি না থাকলে ত্বকে চুলকানির সমস্যা হতে পারে।

১১। ধূমপায়ীদের চুলকানির সমস্যা বেশি দেখা যায়। এতে থাকা নিকোটিন শরীরের ক্ষতি করে ১২। শীতকালে, ইনডোর গরম করার কারণে, ঘরের আর্দ্রতা নষ্ট হয়ে যায় এবং ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। এতে চুলকানি হয় ১৩। ত্বকে অতিরিক্ত পারফিউম (সুগন্ধি) ব্যবহারও চুলকানির একটি কারণ ১৪। ত্বকের জন্য কঠোর ডিটারজেন্টযুক্ত সাবান ব্যবহার করা।

১৫। অনেকক্ষণ রোদে থাকা ১৬। শরীর বা অন্যান্য অংশে উকুন উপস্থিতি ১৭। কিডনির অসুখ, আয়রনের ঘাটতি বা থাইরয়েডের সমস্যা থাকলে চুলকানি হতে পারে ১৮। মোটা পোশাক, অতিরিক্ত গরম পোশাক, খুব গরম পানিতে গোসলের কারণেও এটি হতে পারে ১৯। এ ছাড়া একজিমা, চিকেন পক্স, আমবাত, খোসপাঁচড়ার মতো রোগেও চুলকানি হয় ২০। বিশেষ করে গয়নাতেও একজনের অ্যালার্জি হতে পারে এবং এটি চুলকানির কারণ হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায়

চুলকানির কারণে ত্বকে যেসকল রোগ হয়

চুলকানির কারণে মানুষের এই রোগ হতে পারেঃ ১। ত্বকের প্রদাহ সমস্যা (ডার্মাটাইটিস): এতে ত্বকে ফোলাভাব দেখা দেয় ২। একজিমাঃ এটি একটি মারাত্মক চর্মরোগ। এতে ত্বকে চুলকানি ও লাল ফুসকুড়ি হয় ৩। সোরিয়াসিসঃ এটি একটি অটোইমিউন ডিসঅর্ডার। এতেও চুলকানি হয় ৪। জন্ডিসঃ এতে চুলকানির সমস্যাও দেখা যায় ৫। থাইরয়েডিজমঃ এতে চুলকানির সমস্যাও দেখা যায়। থাইরয়েড গ্রন্থির ব্যাধির কারণেও চুলকানি হয়।

এলার্জি চুলকানি দূর করার উপায় - ত্বকের চুলকানি দূর করার উপায়

অনেক সময় তথ্যের অভাবে আমরা এমন স্কিন প্রোডাক্ট ব্যবহার করি যা ত্বকের জন্য খুবই ক্ষতিকর। অনেক সময় নারীরা চিন্তা না করেই অনেক মেকআপ পণ্য ব্যবহার করেন। এটি ত্বকের অ্যালার্জির মতো সমস্যার কারণ হতে পারে। এর পাশাপাশি আবহাওয়ার কারণে অনেক সময় আমাদের ত্বকে অ্যালার্জির সমস্যা হতে পারে। 

অ্যালার্জির কারণে, আপনার ত্বকে লাল ফুসকুড়ি, চুলকানি বা ফুসকুড়ির মতো সমস্যা হতে পারে। আপনিও যদি এমন সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে আজ আমরা আপনাকে এমন কিছু ঘরোয়া উপায় বলতে যাচ্ছি, যা এই সমস্যাগুলিকে সম্পূর্ণরূপে দূর করবে। এর পাশাপাশি এটি আপনার ত্বককে সুন্দর করতেও সাহায্য করবে। তাহলে চলুন জেনে নেই সেই ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে-

১। মধু - এলার্জি চুলকানি দূর করতে সাহায্য করে

মধুতে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদান পাওয়া যায়, যা ত্বকে যেকোনো ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধ করে। এটি ত্বকের অ্যালার্জি দূর করে এবং আপনার ত্বককে করে তোলে সুস্থ ও উজ্জ্বল। ত্বকে অ্যালার্জি থাকলে এক চামচ মধু নিয়ে তাতে অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। ভালো করে মিশিয়ে মুখে ও ঘাড়ে লাগান। ১ ঘণ্টা ত্বকে রেখে তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কিছুক্ষণ পর অ্যালার্জির সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

আরো পড়ুনঃ কি খেলে গায়ের রং ফর্সা হয়

২। অ্যালোভেরা - চুলকানি প্রতিরোধের উপায়

অ্যালোভেরাতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান রয়েছে। এটি আপনাকে ত্বকের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করবে। এর জেল বের করে অ্যালার্জির জায়গায় লাগান। কিছুদিনের মধ্যেই অনেক আরাম পাবেন। এছাড়া এই পদ্ধতি প্রয়োগ করুনঃ ১। সকালে খালি পেটে 20-25 মিলি। অ্যালোভেরার জুস পান করলে সব ধরনের ত্বকের রোগ এবং চুলকানি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। অ্যালোভেরার পাল্প বের করে ত্বকে লাগান এবং ১৫ মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে আপনার এলার্জি বা চুলকানি দূর হয়ে যাবে।

অ্যালোভেরায় রয়েছে অ্যান্টি-এজিং প্রপার্টি সমৃদ্ধ ময়েশ্চারাইজার, যা চুলকানিতে উপকারী। শুষ্ক ত্বকে এটি খুবই উপকারী। চুলকানিতে ত্বক শুষ্ক হয়ে গেলে তা জাদুকরী কাজ করে।

ব্যবহারের পদ্ধতিঃ ১। আপনার বাড়িতে যদি অ্যালোভেরার গাছ থাকে তবে এর চেয়ে ভালো আর কিছু নেই। একটি ডাল ভেঙে খোসা ছাড়ুন ২। এবার সেখান থেকে বেরিয়ে আসা জেলটি সরাসরি আক্রান্ত স্থানে লাগান। আপনি প্রতিদিন এটি করতে পারেন, আপনার চুলকানি কয়েক দিনের মধ্যে চলে যাবে।

৩। ক্যাস্টর অয়েল - এলার্জি চুলকানি দূর করতে ব্যবহার করুন

ক্যাস্টর অয়েল ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। আপনি এটি যেকোনো মেডিকেল স্টোর বা মুদি দোকানে পাবেন। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে রিসিনোলিক অ্যাসিড যা ত্বকে যেকোনো ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধ করে। এটি ব্যবহার করতে, আপনার হাতে এই তেলের কয়েক ফোঁটা নিন এবং এটি অ্যালার্জিযুক্ত জায়গায় লাগান। এরপর সারারাত রেখে দিন। কিছুদিনের মধ্যেই অনেক আরাম পাবেন।

৪। নিমের তেল ব্যবহার করুন - এলার্জি চুলকানি দূর করার উপায়

আপনি বাজারে যেকোন জায়গায় নিম তেল খুব সহজেই পেয়ে যাবেন। নিমের তেলকে চর্মরোগের জন্য একটি অলৌকিক ওষুধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। নিমের তেলে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান রয়েছে যা ত্বকের সমস্ত সমস্যা দূর করতে সহায়ক। আপনি প্রতিদিন নারকেল তেলের সাথে নিম তেল মিশিয়ে অ্যালার্জির জায়গায় লাগান এবং প্রায় এক ঘণ্টা পর পরিষ্কার করুন। সম্ভব হলে প্রতিদিন পানিতে নিম পাতা দিয়ে স্নান করুন এবং কিছু পাতা পানির সাথে খান। এতে করে সহজেই আপনার এলার্জি চুলকানি দূর হয়ে যাবে। এছাড়া আপনারা নিম পাতা পিষে আক্রান্ত স্থানে লাগান। এটি এলার্জি চুলকানি থেকে পরিত্রাণ পেতে একটি কার্যকর উপায়।

আরো পড়ুনঃ থাইরয়েড কমানোর উপায়

৫। বেকিং সোডা দিয়ে চুলকানির ঘরোয়া প্রতিকার

বেকিং সোডা আসলে সোডিয়াম বাইকার্বোনেট যা চুলকানি উপশম করে। এতে রয়েছে অ্যান্টি-ফাঙ্গাল উপাদান যা সংক্রমণ দূর করে। ব্যবহারের নিয়মঃ ১। গোসল করার সময় একটি বড় টবে আধা কাপ বেকিং সোডা দিন ২। এবার এতে ১৫-২০ মিনিট বসুন ৩। টব থেকে বের হলে সাধারণ পানি দিয়ে গোসল করুন।

৬। চুলকানিতে নারিকেল তেল ব্যবহার করুন

নারকেল তেল ত্বকে লাগালে ত্বকের আর্দ্রতা অনেকক্ষণ ধরে থাকে। এটি স্বস্তি দেয়। এলার্জি চুলকানি দূর করার জন্য এই পদ্ধতি আপনাকে বারবার করতে হবে। নারকেল তেলের ময়েশ্চারাইজিং উপাদান রয়েছে, যা শুষ্ক ত্বকে জাদুকরী প্রভাব ফেলে এবং আপনার ত্বককে দ্বিগুণ করে তোলে। চুলকানির ক্ষেত্রে এটি খুবই উপকারী। সম্ভব হলে ঠান্ডা চাপা বা ভার্জিন নারকেল তেল ব্যবহার করুন। করুন, এতে রাসায়নিক কোনো উপাদান নেই। 

ব্যবহারের নিয়মঃ ১। গোসলের পর সারা ত্বকে নারকেল তেল লাগান ২। হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন যাতে তেল ভালোভাবে শুষে নেয়।

৭। লেবু দিয়ে চুলকানির চিকিৎসা

অনেক রোগ নিরাময়ে লেবু ব্যবহার করা হয়। চুলকানির জায়গায় লেবুর রস লাগানোর পর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি চুলকানি থেকে মুক্তি দেয়।

আরো পড়ুনঃ কোন খাবারে কত ক্যালরি

৮। সবজি এবং ফল

এলার্জি চুলকানি দূর করার জন্য সবুজ শাকসবজি ও ফলমূল বেশি বেশি খান। এতে করে অনেক উপকার পাওয়া যায়।

চুলকানির ঝুঁকি ও জটিলতা

চুলকানির ঝুঁকি এবং জটিলতাগুলি সাধারণত চুলকানির কারণে হয়ে থাকে। শুষ্ক ত্বকের লোকেরা চুলকানির প্রবণ হয়। কখনও কখনও অন্য কোনও রোগের কারণে চুলকানি হতে পারে। হ্যাঁ, কখনও কখনও আঘাত বা অন্য সংক্রমণের কারণেও চুলকানি হয়। ঘরোয়া প্রতিকারে প্রায়ই চুলকানি সেরে যায়। কিন্তু যদি আপনার চুলকানি ভালো হওয়ার নাম না নেয়, ক্রমাগত খারাপ হতে থাকে বা অন্যান্য লক্ষণও দেখা যায়, তাহলে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান।

চুলকানির সময় যে কাজগুলো এড়িয়ে চলা উচিত?

চুলকানির ক্ষেত্রে কিছু জিনিস এড়িয়ে চলা খুবই জরুরি। সেগুলো হলোঃ ১। খুব গরম পানি দিয়ে গোসল করবেন না ২। খুব মোটা কাপড় বা সিন্থেটিক কাপড় পরা উচিত নয় ৩। যেখানে অতিরিক্ত চুলকানি হয়, ত্বকের সেই অংশ ঢেকে রাখতে হবে ৪। মানসিক চাপ থাকলে তা থেকে নিজেকে বের করার চেষ্টা করা উচিত ৫। দূষণ ও ধুলায় ত্বক ঢেকে হাঁটুন 

৬। রোদে বের হওয়ার আগে সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন ৭। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নিন, প্রতিদিন গোসল করুন ৮। জাঙ্ক ফুড এবং বাসি খাবার একেবারেই খাবেন না। এতে শরীরে ত্রুটি দেখা দেয়। এটি ভাটা, পিট্টা এবং কফের ভারসাম্যকে ব্যাহত করে।

আরো পড়ুনঃ কিভাবে বুঝব দোয়া কবুল হয়েছে

চুলকানির সময় কি খাবেন?

যদি কোন ব্যক্তির চুলকানি হয় তবে তার খাদ্যের বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত যাতে তিনি দ্রুত চুলকানি থেকে মুক্তি পান। কারণ কখনও কখনও অ্যালার্জির কারণে চুলকানি হতে পারে। নিরামিষ ভোজীরা ভিটামিন সি সমৃদ্ধ পটাসিয়াম সমৃদ্ধ কলা খেতে পারেন। তিসি, কুমড়া, তিল, ফ্যাটি অ্যাসিডযুক্ত সূর্যমুখী বীজের ব্যবহার চুলকানি কমাতে সাহায্য করে। সবুজ শাক সবজিতে প্রদাহরোধী থাকায় সব ক্ষেত্রেই প্রয়োজনীয়। অক্সিডেন্ট আমাদের শরীরকে পুষ্টি জোগায়।

আপনি যদি আমিষভোজী হোন তবে মুরগির মাংস খান। মুরগির স্যুপে অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে, যা ত্বককে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া আপনার মাছের তেল যেমন স্যামন, ম্যাকেরেল এবং ওমেগা 3 সমৃদ্ধ সার্ডিন খাওয়া উচিত যা ভিটামিনের চমৎকার উৎস। ডি এবং প্রোটিন।

চুলকানি প্রতিরোধের উপায়

চুলকানি থেকে নিজেকে রক্ষা করা খুব একটা কঠিন কাজ নয়, শুধু বিশেষ কিছু বিষয়ের যত্ন নিলেই আপনি নিজেকে চুলকানি থেকে দূরে রাখতে পারেন।

১। প্রতিদিন পরিষ্কার জল দিয়ে গোসল করতে ভুলবেন না ২। বেশিরভাগ তুলো কাপড় থেকে কাপড় নির্বাচন করুন, যা ত্বকে হালকা লাগবে ৩। সিন্থেটিক জাতীয় কাপড়ের কাপড় একেবারেই পরবেন না। এগুলো ত্বকে ঘষে এবং চুলকানির কারণ হয় ৪। ঠাণ্ডা আবহাওয়া থাকলেও খুব গরম পানি দিয়ে গোসল করা উচিত নয়, [ শুধুমাত্র ত্বকের ধরনের জন্য উপযোগী পণ্য ব্যবহার করা উচিত। যে পণ্যগুলিতে প্রচুর রাসায়নিক থাকে সেগুলি ত্বকের ক্ষতি করতে পারে।

কখন চুলকানিতে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করবেন?

সাধারণত ধুলাবালি, মাটি, দূষণ বা পশমী কাপড় পরার কারণে চুলকানি হলে তা কিছু সময় পর বা ঘরোয়া প্রতিকারে দু-একদিন পর ভালো হয়ে যায়। যদি দুই-তিন দিনের বেশি চুলকানি চলতে থাকে, আঁচড় দিলে ত্বক লাল হয়ে যায় বা চুলকানির সঙ্গে ত্বকে ফুসকুড়ি দেখা দেয়, তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

উপসংহার

চুলকানি একটি সাধারণ সমস্যা যা যেকোনো সময় যে কারোরই ঘটতে পারে। এর জন্য বাজারে অনেক ওটিসি ওষুধ পাওয়া যায়। কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে এবং আপনার খাদ্যতালিকায় পরিবর্তন আনলে আপনি চুলকানির সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। শরীরের সঠিক যত্ন নেওয়াও গুরুত্বপূর্ণ, যার মধ্যে রয়েছে সঠিক তাপমাত্রার জল দিয়ে গোসল করা এবং সঠিক ধরনের পোশাক পরা।

আরো পড়ুনঃ

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?