Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2021/12/kivabe-lomba-hoya-jay.html

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়

কিভাবে লম্বা হওয়া যায় - কিভাবে উচ্চতা বৃদ্ধি করা যায় — সৌন্দর্য অনেক মাপকাঠিতে পরিমাপ করা হয় আর উচ্চতা হচ্ছে তাদের মধ্যে একটি। ছেলে হোক কিংবা মেয়ে সকলেই চায় লম্বা হতে। আমাদের দেশে মহিলাদের গড় উচ্চতা 152 সেমি এবং পুরুষদের 165 সেমি। যেখানে ছেলেদের উচ্চতা 25 বছর পর্যন্ত বাড়তে পারে, মেয়েদের উচ্চতা 21 বছর পর্যন্ত বাড়তে পারে। এরপর থেকে উচ্চতা বৃদ্ধির হরমোন কমতে থাকে। আজকে আমাদের এই আর্টিকেলের বিষয় বস্তু হলো কিভাবে লম্বা হওয়া যায়। 

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়

এখন প্রশ্ন আসে কিভাবে লম্বা হওয়া যায়? লম্বা হওয়ার কি কোন প্রাকৃতিক উপায় আছে, এই প্রশ্নের উত্তর হল হ্যাঁ। এই আর্টিকেলের মাধ্যমে, আমরা কীভাবে লম্বা হতে হবে তা বলব এবং লম্বা হওয়ার সাথে সম্পর্কিত সমস্ত ধরণের তথ্য দেব। একই সঙ্গে যদি কোনো মারাত্মক রোগের কারণে আপনার উচ্চতা বাড়তে না থাকে, সেক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

সম্ভবত আপনি অনুভব করেন যে আপনার বন্ধুরা হঠাৎ লম্বা হয়ে গেছে এবং আপনি ঠিক একই উচ্চতায় থেকে গেছেন। আপনার পরিবারের অন্য সদস্যরা লম্বা এবং আপনি মনে মনে ভাবছেন আপনি এমন কিছু করতে পারেন যা আপনাকে তাদের মতো লম্বা করে তুলবে। সত্যি কথা হল একজন মানুষের উচ্চতা নির্ভর করে এমন কিছু জিনিসের উপর যার উপর তার কোন নিয়ন্ত্রণ নেই। একজন মানুষের উচ্চতা নির্ভর করে মূলত জিনের উপর। 

কিন্তু প্রাকৃতিক অভ্যাস, প্রযুক্তি এবং সুষম খাবার গ্রহণ করার মাধ্যমে অনেক কিছুই নিয়ন্ত্রণ করা যায়। যা আপনার লম্বা হওয়ার ক্ষমতা বাড়াতে পারে। সুতরাং, আপনার উচ্চতা যদি এখনও ঠিকভাবে বেড়ে না উঠে তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ুন এবং লম্বা হওয়ার প্রাকৃতিক উপায় সম্পর্কে জানুন যা আপনাকে লম্বা হতে সাহায্য করবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে লম্বা হওয়া যায় বা কিভাবে আপনি আপনার উচ্চতা বাড়াতে পারেন। আপনি ছোট কিংবা বড় হবেন তা নির্ভর করে দুটি প্রধান কারণের উপর - জেনেটিক এবং নন-জেনেটিক।

পেজ সূচীপত্রঃ

জেনেটিক

আমাদের উচ্চতা কিছু পরিমাণে জিনের উপর নির্ভর করে। যদি কারো পরিবারের সদস্যরা আকারে খাটো হয়, তাহলে তাদের সন্তানরাও খাটো হতে পারে। যদিও এটি সব ক্ষেত্রে ঘটে না, তবে এটি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। আমাদের স্বীকার করতে হবে যে জেনেটিক ফ্যাক্টর আমাদের হাতে নেই।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে ভালো মানুষ হওয়া যায়

নন-জেনেটিক

নন-জেনেটিক ফ্যাক্টর অনেক ধরনের হতে পারে, যা উচ্চতা বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। যেমনঃ খাদ্যে পুষ্টির ঘাটতি, শারীরিক কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকা এবং উঠা, বসা ও নড়াচড়া করার সময় সঠিক ভঙ্গিতে মনোযোগ না দেয়া, শৈশবে গুরুতর অসুস্থতায় ভুগছেন, কৈশোরে মানসিক রোগ ইত্যাদি। এছাড়াও আমরা কোথায় থাকি এবং জলবায়ু কেমন তা আমাদের ক্রমবর্ধমান উচ্চতাকেও প্রভাবিত করতে পারে। থাইরয়েড হরমোন এবং বৃদ্ধির হরমোনের ঘাটতি ক্রমবর্ধমান উচ্চতাকেও প্রভাবিত করতে পারে। কম বয়সে জিমে গিয়ে ওজন তুললে উচ্চতা থেমে যায়।

দ্রষ্টব্য: অবশ্যই, কেউ জেনেটিক কারণগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না, তবে শিশুকে শুরু থেকেই একটি ভারসাম্যপূর্ণ এবং ভাল জীবনযাপনের মাধ্যমে নন-জেনেটিক কারণগুলির প্রভাব রোধ করা যেতে পারে। এখন আপনি জিজ্ঞাসা করবেন কিভাবে লম্বা হওয়া যায়, তাই পরবর্তীতে আমরা বলছি লম্বা হতে কি কি করতে হবে।

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়

১. সুষম খাবার গ্রহণ করুন - উচ্চতা বাড়াতে পোস্টিক খাবার খান

সুস্বাদু এবং পোষ্টিক ডায়েট মানুষের বিকাশে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, যদি আপনার শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, পোস্টিক ডায়েটের মতো খনিজ পাওয়া যায়, তবে এটি আপনার শরীরে খুব দ্রুত উচ্চতা বাড়তে শুরু করবে।

উচ্চতা বাড়ানোর একটি সহজ উপায় হল পুষ্টিকর এবং সুষম খাদ্য। সুস্থ থাকার জন্য সুষম খাদ্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এর ফলে আমাদের শরীর সব পুষ্টি পায়। ভালো উচ্চতা চাইলে জাঙ্ক ফুড থেকে দূরে থাকুন। এছাড়াও, কার্বনেটেড পানীয়, চর্বিযুক্ত খাবার এবং অতিরিক্ত মিষ্টি জিনিসগুলি এড়িয়ে চলুন। এই সব আমাদের শরীরে খারাপ প্রভাব ফেলে। ভারসাম্যপূর্ণ এবং স্বাস্থ্যকর বৃদ্ধির জন্য, আমাদের ভিটামিন এবং খনিজযুক্ত খাবার খাওয়া উচিত। এখানে আমরা এমন কিছু খাবারের কথা বলছি, যেগুলো খেলে সুস্বাস্থ্য ও লম্বা উচ্চতা পাওয়া যায়।

ভিটামিন-ডি এবং প্রোটিন শরীরে হরমোনের বিকাশের জন্য অপরিহার্য। আমাদের দাঁত এবং হাড়গুলি তাদের থেকে সঠিকভাবে বিকাশ করে। আপনি পনির, লেবু, সয়াবিন, চর্বিহীন মাংস এবং সাদা ডিম ইত্যাদিতে এই সমস্ত উপাদান পাবেন। আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে এই খাবারগুলি অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে নিশ্চিত হন।

জিঙ্ক সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াও উপকারী। বিশেষ করে জিঙ্ক শিশুদের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চকলেট, ডিম, ঝিনুক এবং চিনাবাদামে প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক পাওয়া যায়। সবুজ শাকসবজি এবং দুগ্ধজাত খাবারে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। শারীরিক বিকাশ এবং হাড়ের জন্য ক্যালসিয়াম অপরিহার্য বলে মনে করা হয়। মহিলাদের এটি সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন।

শরীরের সুষম বিকাশের জন্য ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, কার্বোহাইড্রেট এবং অন্যান্য ভিটামিন গ্রহণ করাও প্রয়োজন। খাদ্যের সাথে সীমিত পরিমানে সাপ্লিমেন্টও নেওয়া যেতে পারে। এগুলো খেলে প্রয়োজনীয় পুষ্টিও পূরণ হয়।

আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে আমাদের মেটাবলিক সিস্টেম ঠিক না থাকলে আমরা যাই খাই বা পান করি না কেন, শরীরে তার প্রভাব পড়বে না। তাই, একযোগে বেশি করে, অল্প পরিমাণে এবং সারাদিনে পাঁচ থেকে ছয় বার খাওয়া ভালো। এতে মেটাবলিক লেভেলের উন্নতি হবে এবং খাবার সহজে হজম হবে। ফলে শরীরে চর্বি জমবে না এবং উচ্চতা বাড়াতেও সমস্যা হবে না।

আরও পড়ুনঃ কি খেলে টিউমার ভালো হয়

২. ব্যায়াম এবং খেলাধুলা - উচ্চতা বাড়াতে প্রতিদিন ব্যায়াম ও খেলাধুলা করুন

উচ্চতা বাড়াতে ব্যায়াম খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, আপনি যদি প্রতিদিন উচ্চতা বাড়ানোর ব্যায়াম যেমন ঝুলন্ত, জগিং, স্ট্রেচিং করেন, তাহলে তা আপনার উচ্চতা বাড়াতে অনেক সাহায্য করবে। এছাড়াও আপনি যদি শিশু হন এবং আপনি আপনার উচ্চতা বাড়াতে চান, তাহলে খেলাধুলার পাশাপাশি আপনি আপনার উচ্চতা বাড়াতে পারেন। আপনি যদি ফুটবল, সাঁতার বা সাইকেল চালান, তাহলে এগুলো আপনার উচ্চতা বাড়াতে খুবই সহায়ক হবে।

লম্বা হওয়ার অন্যতম উপায় হল নিজেকে শারীরিকভাবে ফিট রাখা। এটি উচ্চতা বাড়ানোর একটি প্রাকৃতিক উপায়। এ জন্য নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। আপনি যখন এই ধরনের শারীরিক কার্যকলাপে লিপ্ত হন, তখন শরীরের আরও পুষ্টির প্রয়োজন হয়। এর ফলে উচ্চতা বাড়াতে সহায়ক হরমোন সক্রিয় হয়ে ওঠে।

অ্যারোবিক্স, টেনিস, ক্রিকেট, ফুটবল ও বাস্কেটবলের মতো খেলাধুলা খেলে শরীর সক্রিয় হয় এবং ভালোভাবে বিকাশ ঘটে। একটি স্প্যানিশ গবেষণা অনুসারে, শারীরিক কার্যকলাপ এবং হাড়ের বিকাশের মধ্যে সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে। আমরা যখন এই ধরনের খেলাধুলা করি, তখন আমাদের পেশীও শক্তিশালী হয়, যা উচ্চতা বাড়াতে সাহায্য করে। অতএব, উচ্চতা বাড়ানোর উপায়ে, ব্যায়াম এবং খেলাধুলাকে উচ্চতা বাড়ানোর একটি ভাল উপায় হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

এটা বিশ্বাস করা হয় যে সাঁতারের চেয়ে ভাল শারীরিক কার্যকলাপ আর নেই। সাঁতার কাটার সময় শরীরের সমস্ত অংশ কাজ করে এবং পেশী শক্তিশালী হয়। অতএব, শিশুকে যদি প্রথম থেকেই সাঁতার শেখানো শুরু করা হয়, তবে উচ্চতা একটি ভাল প্রভাব ফেলতে পারে।

লম্বা হওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের স্ট্রেচিং ব্যায়াম করার চেষ্টা করা যেতে পারে। আপনি যদি দিনে প্রায় 15 মিনিট এই ব্যায়ামটি করেন তবে এটি যথেষ্ট। এগুলি ছাড়াও উচ্চতা বাড়ানোর সবচেয়ে কার্যকর উপায় হল ঝুলানো। যদিও শুরুতে কিছু ঝামেলা হতে পারে, তবে প্রতিদিনের অনুশীলনে এটি করা সহজ হয়ে যাবে। আপনি প্রায় 15 সেকেন্ড দিয়ে শুরু করুন এবং ধীরে ধীরে পাঁচ মিনিট পর্যন্ত যান।

আপনার উচ্চতা বাড়ানোর জন্য কৈশোর বয়স থেকে প্রাপ্তবয়স্ক পর্যন্ত ব্যায়াম করুন। যেমনঃ দড়ি লাফানো, নাচ এবং এমনকি ঝুলে থাকার ব্যায়াম, লাফ দেওয়ার ব্যায়াম করুন কয়েকবার। প্রতিদিন সকাল বেলা ঘর থেকে বের হোন এবং অন্তত ৩০ মিনিটের জন্য আপনার পেশীর ব্যবহার করুন। জিমে যোগ দিন, এটি করার মাধ্যমে আপনি অনেক ভাল ব্যায়াম করতে পারবেন এবং আপনি জিমে পেশী উদ্ভাবনকারী মেশিনও পাবেন। আপনিও জিমে ব্যায়াম করতে অনুপ্রাণিত হবেন।

আরও পড়ুনঃ কি খেলে মোটা হওয়া যায়

৩. যোগ ব্যায়াম - কিভাবে উচ্চতা বৃদ্ধি করা যায়

বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে যোগ ব্যায়ামের গুরুত্ব বিবেচনা করা হয়েছে। বলা হয়ে থাকে যে কোনো ধরনের রোগ বা সমস্যা যোগাভ্যাসের মাধ্যমে নিরাময় করা যায়। একইভাবে, কিভাবে লম্বা হওয়া যায় তার জন্য যোগব্যায়াম করা যেতে পারে। এটা করা খুবই সহজ। উচ্চতা বাড়াতে বিশেষ কিছু যোগাসন আছে, যা উচ্চতা বাড়ায় এমন হরমোন সক্রিয় করে। ত্রিকোণাসন, ভুজঙ্গাসন, সুখাসন, গাছাসন, নটরাজাসন, মার্জারি ভঙ্গি এবং সূর্য নমস্কার করলে পেশী শক্তিশালী হয় এবং শরীরের ভঙ্গি সঠিক আকারে আসে।

৪. প্রচুর ঘুম - উচ্চতা বাড়াতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমান

আপনি কি জানেন যে আমরা যখন ঘুমাই বা বিশ্রাম করি তখন আমাদের শরীর ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায়, এর সাথে সাথে আমাদের শরীরে থাকা টিস্যুগুলি পুনরুজ্জীবিত হয় যা আমাদের শরীরের প্রধান অংশ।এটি উচ্চতা বাড়াতে খুবই সহায়ক, তাই আমাদের প্রতিদিন 8 থেকে 10 ঘন্টার জন্য ঘুমানো উচিত। ঘুমানোর সময় সবসময় সোজা হয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

শরীরের সার্বিক বিকাশের জন্য সুষম খাদ্য, যোগব্যায়াম ও ব্যায়ামের পাশাপাশি পর্যাপ্ত ঘুমও প্রয়োজন। এটা বিশ্বাস করা হয় যে আমরা যখন গভীর ঘুমে থাকি, সেই সময় আমাদের শরীরে প্রাকৃতিকভাবে মানুষের গ্রোথ হরমোন তৈরি হয়। একই সময়ে, বাচ্চাদের ভাল উচ্চতা পেতে প্রতি রাতে 8-11 ঘন্টা ঘুমানো প্রয়োজন বলে মনে করা হয়। এখানে একটি বিষয় লক্ষণীয় যে শিশু হোক বা বড়, সবারই উচিত শান্ত পরিবেশে ঘুমানো, যাতে পর্যাপ্ত ঘুম হয়। 

এটি শরীরকে সম্পূর্ণ বিশ্রাম দেয় এবং ভাল টিস্যু তৈরি হয়। অতএব, ঘুম দীর্ঘায়িত করার একটি দুর্দান্ত উপায়। ভালো ঘুমের জন্য আমরা এখানে কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস দিচ্ছি। ঘুমানোর আগে হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করলে ভালো ঘুম হয়। রাতে ঘুমানোর আগে এক কাপ ক্যামোমিল চা পান করতে পারেন। এটি পান করলে, আপনার গভীর ঘুমে পড়তে সময় লাগবে না।

আরও পড়ুনঃ তাহাজ্জুদ নামাজের নিয়ম | তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ার নিয়ম

৫. অ্যালকোহল এবং তামাককে না বলুন

অ্যালকোহল, তামাক এবং ধূমপান সেবন কোনোভাবেই ভালো নয়। এটি সেবন করলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট হয় এবং পরিপাকতন্ত্রের উপর খারাপ প্রভাব পড়ে। অ্যালকোহল সেবনের কারণে মাংসপেশির সঠিক বিকাশ হয় না এবং শরীর পর্যাপ্ত প্রোটিন পায় না। এছাড়াও, বৃদ্ধির হরমোনগুলিও প্রভাবিত হয়। 

যেমনটি আমরা এই আর্টিকেলে আগেই বলেছি, ঘুমানোর সময় স্বাভাবিকভাবে গ্রোথ হরমোন তৈরি হয়, কিন্তু অ্যালকোহল সেবনের কারণে এই হরমোনগুলি তৈরি হয় না। ফলস্বরূপ, শরীরের সঠিকভাবে বিকাশ হয় না। এখন পরের বার যখন কেউ আপনাকে উচ্চতা বাড়ানোর উপায় জিজ্ঞাসা করবে, তখন অবশ্যই তাকে এই সমস্ত ব্যবস্থা সম্পর্কে বলুন। লম্বা হওয়ার উপায় হিসেবে আমরা আরও কিছু টিপস দিচ্ছি।

৬. সঠিক ভঙ্গি - উচ্চতা বাড়াতে সবসময় সোজা হয়ে বসুন

লম্বা হওয়ার পরিমাপে শরীরের ভঙ্গিও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই শিশুদের প্রথম থেকেই সঠিক ভঙ্গিতে উঠতে, বসতে ও হাঁটতে শেখাতে হবে। শুধু শিশু নয়, সবার ভঙ্গি সঠিক হতে হবে। এটি আপনাকে কেবল লম্বা দেখাবে না, তবে আপনাকে সুন্দর এবং আত্মবিশ্বাসী দেখাবে। এখানে আমরা আপনাকে বলছি কিভাবে আপনি আপনার ভঙ্গি ঠিক রাখতে পারেন।

আপনি নিশ্চয়ই দেখেছেন যে বেশিরভাগ মানুষ সবসময় ভুলভাবে বসে থাকে অর্থাৎ হেলান দিয়ে বসে থাকে, যা একেবারেই ভুল। সোজা বসতে হবে, আপনার পিঠ সোজা রাখতে হবে এবং হাঁটার সময় সবসময় সোজা হয়ে হাঁটতে হবে, এটি আপনাকে উচ্চতা বাড়াতে অনেক সাহায্য করবে।

আপনার সবসময় চেয়ারে সোজা বসতে হবে, কাঁধ সোজা হওয়া উচিত এবং চিবুক উপরে থাকা উচিত। কখনো হেলান দিয়ে হাঁটবেন না, কোমর সবসময় সোজা রাখতে হবে। মেরুদণ্ড সোজা এবং কোমর শক্ত হলে দৈর্ঘ্য বাড়ানো সহজ। আপনার ঘাড় এবং মাথা একদিকে বাঁকা বা কাত না করার চেষ্টা করুন। সবসময় ভালো মানের বালিশ এবং ম্যাট্রেস ব্যবহার করুন, যাতে মেরুদণ্ডের আকৃতি নষ্ট না হয়। মনে রাখবেন হাঁটার সময় আপনার কাঁধ যেন স্থির অবস্থায় না থাকে। এছাড়াও, কাঁধ একদিকে কাত বা বাঁকানো উচিত নয়।

আরও পড়ুনঃ পেট ব্যাথা কমানোর উপায় | পেট ব্যাথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

৭. ইমিউন সিস্টেম - উচ্চতা বাড়াতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান

প্রায়শই শিশুরা এমন কিছু রোগে আক্রান্ত হয়, যার কারণে তাদের শারীরিক বিকাশ ব্যাহত হয়। সাধারণত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সঠিকভাবে কাজ না করার কারণে এই রোগ হয়। তাই শিশুদের পুষ্টিকর খাবার খাওয়ানো এবং জাঙ্ক ফুড থেকে দূরে রাখা জরুরি। আপনি যদি ভাল খান তবে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও ভাল থাকবে। এ জন্য খাদ্যতালিকায় তাজা ফল ও শাকসবজি, লেবু ও পুষ্টিকর শস্য অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা সুস্বাস্থ্য, বৃদ্ধি এবং রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার জন্য অপরিহার্য। উচ্চতা বাড়ানোর ক্ষেত্রেও এটি গুরুত্বপূর্ণ।

ইমিউনিটি উচ্চতা বাড়াতে অনেক সাহায্য করে, যদি আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে, তাহলে তা আপনার শরীরকে অনেক রোগ থেকে রক্ষা করে, আপনি যদি সুস্থ থাকেন, তবেই আপনার উচ্চতা ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করবে, তাই আমাদের প্রয়োজন আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে হবে।

কিভাবে লম্বা হওয়া যায় তার জন্য আরও কিছু টিপস

এখানে আমরা কিভাবে লম্বা হওয়া যায় তার অন্যান্য টিপস উল্লেখ করছি, যেগুলো শুনতে ও পড়তে আপনার কাছে অদ্ভুত মনে হলেও অনেক কাজে লাগে। একবার চেষ্টা করে দেখুন, বিশ্বাস করুন আপনি অবশ্যই উপকৃত হবেন।

ভিটামিন-ডি

সূর্যের আলোকে ভিটামিন-ডি- এর সেরা উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সূর্য থেকে তিন ধরনের অতিবেগুনি রশ্মি নির্গত হয়, যেগুলোকে আমরা অতিবেগুনি A, B এবং C নামে চিনি। এর মধ্যে আল্ট্রাভায়োলেট বি আমাদের জন্য ভালো বলে বিবেচিত হয়। বিজ্ঞানীরা বলছেন, সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত আল্ট্রাভায়োলেট বি-এর প্রভাব সবচেয়ে বেশি থাকে। এই সময়ে, কিছুক্ষণ রোদে হাঁটলে শরীর যথেষ্ট ভিটামিন-ডি পায়, যা শারীরিক বিকাশে সহায়তা করে।

পানি

এখন পর্যন্ত আপনি মনে করতেন যে পানি তৃষ্ণা মেটায় এবং আমাদের হাইড্রেটেড রাখে, তবে সম্ভবত আপনি জানেন না যে পানি শারীরিক বিকাশের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। পানি থেকে আমরা শুধু পরিপূর্ণ পুষ্টি পাই না, শরীরের সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সঠিকভাবে কাজ করতে সক্ষম হয়। প্রত্যেকের ত্বক, দাঁত, হাড়, জয়েন্ট, মস্তিষ্ক ও পরিপাকতন্ত্রের জন্য পানি প্রয়োজন। পানি হাড়কে শক্তিশালী করে, যাতে তাদের সঠিকভাবে বিকাশ হয় এবং জয়েন্টগুলিকে শক্তিশালী করে, যাতে তারা বয়স বাড়ার সাথে সঠিকভাবে কাজ করতে থাকে। তাই যখনই পানি পান করবেন, এই সব বিষয় মাথায় রাখবেন।

আরও পড়ুনঃ ফুসফুস ইনফেকশনের লক্ষণ | ফুসফুস সংক্রমণের লক্ষণ

মানসিক চাপ এড়িয়ে চলুন

কিভাবে উচ্চতা বৃদ্ধি করা যায় তার সোজা ও স্পষ্ট উত্তর হল মানসিক চাপ থেকে মুক্তি। মানসিক চাপ প্রায় প্রতিটি সমস্যার মূল। এর থেকে যত দূরে থাকা যায় ততই ভালো। এটাও বলা হয় যে দুশ্চিন্তা চিতার মতো। আমাদের মানসিক চাপের কারণে শরীরের হরমোনগুলি খারাপভাবে প্রভাবিত হয়। গ্রোথ হরমোনও তাদের মধ্যে একটি। তাই, টেনশন না করে সবসময় আত্মবিশ্বাসী হন। আপনি যখন ইতিবাচক শক্তিতে পূর্ণ থাকেন, তখন হরমোন ভালো কাজ করে এবং শরীরের ভঙ্গিও ঠিক থাকে।

জুতার উচ্চতা বৃদ্ধি করুন

আপনার কাছে এই পদ্ধতিটি অস্বস্তিকর মনে হতে পারে, কিন্তু চলচ্চিত্রের অভিনেতারা যদি উচ্চতা বাড়াতে এটি ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে আপনি কেন করবেন না। যদিও, এটি একটি স্থায়ী সমাধান নয়, তবে এটি দৈনন্দিন জীবনে কয়েক ইঞ্চি উচ্চতা বাড়াতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

জামাকাপড় উচ্চতা বাড়াবে

কোনো সন্দেহ নেই যে কিছু পোশাক এবং রং এমন হয় যে সেগুলো পরলে আমাদের উচ্চতা একটু লম্বা দেখায়। খাটো ব্যক্তিদের হালকা বা হালকা গাঢ় রঙের পোশাক পরা উচিত। চেষ্টা করুন আপনি যে পোশাকই পরুন না কেন, সেগুলো একই রঙের বা একই রকম হয়। যেমন আপনি যদি প্যান্ট-শার্ট পরে থাকেন, তাহলে সেগুলি প্রায় এই রকম হওয়া উচিত। কাপড়ের বিভিন্ন রঙের কারণে শরীর দুই ভাগে বিভক্ত এবং উচ্চতা কম মনে হয়। এছাড়াও, সম্ভব হলে নকশা অনুরূপ হওয়া উচিত। এছাড়াও, এই পোশাকগুলি ঢিলেঢালা না হলেও মানানসই হওয়া উচিত। এতে করে উচ্চতা কিছুটা লম্বা দেখা যায়। সেই সঙ্গে কম উচ্চতার মেয়েদের উচিত একটু লম্বা দেখতে চুল ছোট রাখা।

সময়মতো খাবার

প্রায়ই মানুষ খাওয়া-দাওয়ার নিয়ম করে না। যখনই তাদের ক্ষুধা লাগে, তারা যে কোনো কিছু খায়। আপনি যদি আপনার উচ্চতা বাড়াতে চান তবে নির্দিষ্ট সময়ে খাবার খান এবং সুষম খাবার খান। আপনার উচ্চতা বাড়াতে কী কী খাওয়া উচিত সে সম্পর্কে আমরা উপরের আর্টিকেলে বিস্তারিত বলেছি।

আরও পড়ুনঃ রাত জেগে মোবাইল চালালে কি হয়

ওষুধ এড়িয়ে চলা

বাজারে এমন অনেক ওষুধ ও স্টেরয়েড রয়েছে, যেগুলো দ্রুত উচ্চতা বাড়াতে ব্যবহার করে, কিন্তু সেগুলোর ওপর নির্ভর করা ঠিক নয়। এগুলো খেলে উচ্চতা বাড়ে কি না বলা মুশকিল, তবে স্বাস্থ্য অবশ্যই নষ্ট হয়ে যায়।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন (FAQ)

18 বছর বয়সে আমি কীভাবে উচ্চতা বাড়াতে পারি?

যেমনটি আর্টিকেলের শুরুতে আপনাকে বলা হয়েছে যে ছেলেদের উচ্চতা 25 বছর এবং মেয়েদের উচ্চতা 21 বছর বাড়তে পারে। তাই আর্টিকেলে প্রদত্ত উচ্চতা বৃদ্ধির পদ্ধতি অবলম্বন করে এবং সঠিক খাদ্যাভ্যাস অবলম্বন করলে ১৮ বছর বয়সে উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করা যায়।

জাম্পিং কি উচ্চতা বাড়ায়?

যেমনটি আপনাকে আগেই বলা হয়েছে যে খেলাধুলা এবং শারীরিক ব্যায়াম উচ্চতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। একই সময়ে, দড়ি লাফানোর প্রভাব পরীক্ষা করার জন্য করা গবেষণায় বিশ্বাস করা হয়েছে যে এই প্রক্রিয়াটি হাড়ের খনিজ ঘনত্ব বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এর ভিত্তিতে, এটি অনুমান করা যেতে পারে যে দড়ি লাফানো উচ্চতা বাড়ানোর জন্য ব্যায়াম এবং খেলাধুলার অন্তর্ভুক্ত হতে পারে।

ধূমপান কি সত্যিই আপনার বৃদ্ধিকে বাধা দেয়?

এটা নিশ্চিতভাবে বলা যায় না যে ধূমপান এবং ধূমপানের পরিবেশ আপনার বডি মাস ইনডেক্সে (BMI) কোনো বিরূপ প্রভাব ফেলে। কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির ইন্টারনেট হেলথ রিসোর্স অনুসারে, "যদিও এখনও পর্যন্ত গবেষণাগুলি বেশিরভাগই চূড়ান্ত হয়েছে, তবে উপলব্ধ গবেষণাটি ইঙ্গিত দেয় যে যে শিশুরা ধূমপান করে বা অধূমপায়ী পরিবেশে বাস করে তাদের ধূমপান করা শিশুদের তুলনায় বেশি সম্ভাবনাময়।" সাধারণভাবে, যারা নিজেরাও ধূমপান করেন না। কিংবা তাদের বাবা-মা ধূমপান করেন না।

স্টেরয়েড কি সত্যিই আপনার বৃদ্ধিকে বাধা দেয়?

অ্যানাবলিক স্টেরয়েডগুলি ছোট বাচ্চাদের এবং কিশোর-কিশোরীদের হাড়ের বৃদ্ধিতে বাধা দেয়, সেইসাথে শুক্রাণুর সংখ্যা এবং স্তনের আকার হ্রাস করে এবং রক্তচাপ বাড়ায় এবং আপনাকে হার্ট অ্যাটাকের উচ্চ ঝুঁকিতে রাখে। অল্পবয়সী শিশু এবং কিশোর-কিশোরীরা যারা হাঁপানিতে ভুগছেন এবং ইনহেলারে বুডেসোনাইড নামক স্টেরয়েড গ্রহণ করেন তারা এই স্টেরয়েড গ্রহণ করে না এমন শিশু এবং কিশোরদের তুলনায় আধা ইঞ্চি ছোট।

ধরে নিন যখন আপনার বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাবে তখন আপনার বয়স হবে 20 বা তার বেশি। অনেক শিশু নিজেদের দিকে তাকায় এবং জিজ্ঞেস করে, "আমি কি এখন বড় হওয়া বন্ধ করেছি?" আপনি 18 বছরের কম হলে, উত্তর সম্ভবত "না" হবে। আপনার মধ্যে বয়ঃসন্ধির প্রক্রিয়া শেষ না হলে, এর মানে হল আপনার শরীরের বৃদ্ধি এখনও বন্ধ হয়নি। সুতরাং, আপনি কতটা লম্বা হবেন তা নিয়ে চিন্তা না করে, ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিন যে আপনার লম্বা হওয়ার জন্য এখনও কিছু সময় আছে।

আরও পড়ুনঃ মানসিক রোগ থেকে মুক্তির উপায় | মানসিক চাপ কমানোর উপায়

কিভাবে লম্বা হওয়া যায় — লম্বা হওয়ার উপায়

সুষম খাবার খানঃ মোটা শরীরের একজন ব্যক্তিকে বাস্তবের তুলনায় অনেক ছোট দেখায়। শুধু তাই নয়, সুষম খাদ্যের মাধ্যমে নিজেকে ফিট রাখলে আপনি লম্বা হবেন এবং ভালো বোধ করতে শুরু করবেন।

প্রচুর চর্বিহীন প্রোটিন খানঃ চর্বিহীন প্রোটিন, যেমন সাদা মুরগির মাংস, মাছ, সয়া এবং দুগ্ধজাত খাবার ইত্যাদি পেশী বৃদ্ধি এবং হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। সাধারণ কার্বোহাইড্রেট, যেমন পিৎজা, কেক, মিষ্টি এবং সোডা, এমন খাবার যা এড়িয়ে চলা উচিত।

প্রচুর ক্যালসিয়াম খানঃ ক্যালসিয়াম, সবুজ শাকসবজি যেমন পালং শাক এবং কেল ও দুগ্ধজাত খাবারে (দই এবং দুধ) পাওয়া যায়, স্বাস্থ্যকর হাড়ের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

পর্যাপ্ত জিঙ্ক নিনঃ যদিও গবেষণা এখন পর্যন্ত নিশ্চিতভাবে কিছু বলতে পারেনি, তবে এটি জিঙ্কের ঘাটতি এবং শিশুদের দুর্বল বৃদ্ধির মধ্যে একটি সম্ভাব্য যোগসূত্র নির্দেশ করে। ঝিনুক, গমের জীবাণু, কুমড়া, স্কোয়াশের বীজ, ভেড়ার মাংস, চিনাবাদাম এবং কাঁকড়াও জিঙ্কের ভালো উৎস।

পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি গ্রহণ করুনঃ এটি শিশুদের হাড় ও পেশীর বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং এর ঘাটতি অল্পবয়সী মেয়েদের উচ্চতাকে বিরূপভাবে প্রভাবিত করে এবং তাদের ওজন বৃদ্ধি করে। ভিটামিন ডি সাধারণত মাছ, আলফালফা এবং মাশরুমে পাওয়া যায়।

শেষ কথা

এখন নিশ্চয়ই জেনে গেছেন যে উচ্চতা বাড়ানো কোনো কঠিন কাজ নয়। আপনার যা দরকার তা হল ছোট ছোট জিনিসগুলিতে মনোযোগ দেওয়া এবং আপনার রুটিনকে আরও ভাল এবং ভারসাম্যপূর্ণ করা। তাহলে আর দেরি কিসের, এখানে উল্লেখিত টিপসগুলো ট্রাই করুন এবং অন্যদের মতো আপনার উচ্চতা বাড়ান। এখন কেউ যদি আপনাকে জিজ্ঞেস করে লম্বা হওয়ার উপায় কী, তাহলে অবশ্যই তাকে এই লেখাটি পড়তে বলুন। এছাড়াও, নীচে দেওয়া কমেন্ট বাক্সের মাধ্যমে আমাদের বলুন আপনি এই আর্টিকেলে দেওয়া ব্যবস্থাগুলি থেকে কতটা উপকৃত হয়েছেন।

আরও পড়ুনঃ ইসলামের ইতিহাস | ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?