Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/05/ghore-bose-income-korar-upay.html

ঘরে বসে মোবাইলে আয়

ঘরে বসে মোবাইলে আয় - ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে আয় — কমবেশী আমরা সকলেই জানি অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করা যায়। সবার কাছে ডেস্কটপ না থাকার ফলে অনলাইন থেকে আয় করার হাজার ইচ্ছা থাকলেও খুজতে থাকেন কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যায়। অনলাইনে এমন কিছু কাজ রয়েছে যেগুলোর জন্য ডেস্কটপের প্রয়োজন পড়েনা। আপনার হাতে থাকা সচল মোবাইল থেকেই ঘরে বসে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ঘরে বসে মোবাইলে আয়

ঘরে বসে মোবাইলে আয় বিষয়টা ডিটেইলস না বললে কখনোই বুঝতে পারবেন না। যারা অনলাইন কাজের উপর নির্ভরশীল তাদের প্রায় সকলের যাত্রার শুরু হয় মোবাইল ফোন থেকেই। প্রচুর পরিমাণে লোক রয়েছে যারা শুধুমাত্র মোবাইল থেকে আয় করে নিজেদের হাত খরচ চালাতে সক্ষম হন। মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করাত জন্য ধৈর্য ও পরিশ্রম দুটোর প্রয়োজন রয়েছে। আপনি যদি ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে চান আজকের পোষ্টটি সম্পুর্ন পড়ুন।

আজকের আর্টিকেলে আমরা ঘরে বসে মোবাইলে আয় করার উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত লিখবো। এই যুগে সবার কাছে কম্পিউটার না থাকলেও একটি ফোন নিশ্চয়ই রয়েছে। ফোনের ব্যবহার আমরা সবাই করি কিন্তু সেটা থেকে ফ্যাসিলিটি অর্জন করতে পারিনা। আজকের পোষ্টটি পড়ার মাধ্যমে আপনি মোবাইল ব্যাবহার করে ভালো কিছু করার পাশাপাশি টাকা আয় করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ কুইজ খেলে টাকা ইনকাম ২০২২

পেজ সূচীপত্রঃ ঘরে বসে মোবাইলে আয়

ঘরে বসে মোবাইলে আয়

অনেকের কাছেই হয়তো বিষয়টি একটু অদ্ভুত লাগতে পারে যে মোবাইল থেকে আবার আয় করা যায় নাকি? উত্তরে, বলবো অবশ্যই যায়! মোবাইল থেকেই বিভিন্ন উপায় অবলম্বন করে মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ঘরে বসে আয় করতে পারবেন। নিচের দেয়া উপায় গুলোর মাধ্যমে কাজ করে আয় করুন ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে।

০১। ফ্রিল্যান্স রাইটিং - আর্টিকেল রাইটিং

ফ্রিল্যান্স রাইটিং অর্থ্যাৎ কোনো নির্দিষ্ট কেন্দ্রিক আবদ্ধ না হয় নিজের ইচ্ছা মতো বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস থেকে বায়ার এনে কনটেন্ট সার্ভিস দেয়াকে ফ্রিল্যাস রাইটিং বলে। শুধুমাত্র লেখালেখি করে অনেকেই প্রচুর টাকা আয় করে মাসে। রাইটিং এর জন্য আপনার তেমন কোনো মেজর দক্ষতার প্রয়োজন পড়ে না।

শুধুমাত্র সৃজনশীলতাকে কাজে লাগে আপনার হাতে থাকা ফোনে লিখে আয় করতে পারবেন। যেকোনো টপিক এর ভালোভাবে স্টাডি করে সেটা সম্পর্কে নিজের মত করে উপস্থাপন করাই হলো রাইটিং। এখানে বিভিন্ন ক্যাটাগেরি রয়েছে যেমন, টেক রাইটিং, জব, পণ্য, রিভিউ, নিউজ ইত্যাদি। যে বিষয়ে বেশী ভালো সৃজনশীলতা কাজ করে সেটার দিকে অগ্রসর হওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

আরো পড়ুনঃ অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম

ফ্রিল্যান্স রাইটিং করে আয় কিভাবে করবেন?

রাইটিং এর ক্ষেত্রে ইংরেজিতে লেখার মান ও চাহিদা দুটোই রয়েছে। আপনার লেখা আর্টিকেলের মানের উপর নির্ভর করে সেটার ভ্যালু। আপনি যত বেশী সুন্দর করে সাজাতে পারবেন সেটার মার্কেট ভ্যালু ও বেশ ভালো পাবেন। সাধারণত একটি ভালো ইংরেজি কনটেন্ট রাইটার ৪০০ থেকে ৮০০ টাকা নিয়ে থাকে প্রতি ১ হাজার শব্দে। 

কাজ গুলো আপনারা ফেসবুক, ফাইবার, আপওয়ার্ক ও বিভিন্ন মার্কেট প্লেস ও সাইটে করতে পারবেন সহজেই। এছাড়াও বাংলা আর্টিকেল লিখে মাসে হাজার হাজার টকা আয় করার সুবিধে দিচ্ছে টেকনিক্যাল কেয়ার বিডি ওয়েবসাইট। আমাদের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল রাইটার হিসেবে কাজ করতে আবেদন করুন এখানে ক্লিক করে। 

০২। অনলাইন টিউটর

করোনাকালীন সময়ের পর থেকে অনলাইন টিউটরদের চাহিদা মারাত্নকভাবে প্রকাশ পাচ্ছে। আপনার ফোনের ক্যামেরা যদি ভালো থাকে আপনাকে আর অফলাইনে টিউশনি খুজতে হবে না। অনলাইনে টিচিং দিয়ে মাসে ৪০/৫০ হাজার টাকা ও আয় করা সম্ভব। এটা সম্পুর্ন নির্ভর করে আপনি কতটা দক্ষতার সহিত কাজটি সম্পন্ন করতে পারছেন।

শুধুমাত্র পড়ানোর বা বুঝানোর দক্ষতা থাকলেই তো হবেনা। অনলাইনে যুক্ত হতে হবে বিভিন্ন সোশ্যাল প্লাটফর্ম গুলোতে। বেশীরভাগ ছাত্ররা কোন গ্রুপ গুলোকে ফলো করে তাদের স্টাডি এর জন্য। সেখানে কিছু ফ্রি ক্লাসগুলো পাবলিশ করুন। দেখবেন সেখান থেকে প্রচুর পরিমাণে শিক্ষার্থী পড়ার জন্য আগ্রহী হবে। মুলত, অনেক সময়ে আমাদের বাসার কাছে পড়ানোর মত মানুষ থাকে না। আর অনলাইনে খুব সহজেই বাসায় বসে পড়া হয়ে।

আপনার ক্লাস গুলো চাইলে আপনি ইউটিউব ও ফেসবুকে আপলোড করে ভিডিও মার্কেটিং ও করতে পারবেন শুধুমাত্র একটি ফোন এর মাধ্যমে। ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে আয় করার জন্য এটা আপনাকে বড় একটি মাইলফলক পার করতে সাহায্য করবে।

০৩। আর্নিং অ্যাপ দিয়ে আয় করুন

মোবাইলে কোনো প্রকার দক্ষতা ছাড়াই আয় করার সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হলো বিভিন্ন টাকা ইনকাম করার অ্যাপ গুলোতে কাজ করা। কাজের মধ্যে ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম, এডস দেখে টাকা ইনকাম ইত্যাদি থাকে। এগুলোতে কাজ করার পূর্বে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন যেন সেগুলো ট্রাস্টেড হয়।

আর্নিং অ্যাপ এর একটি কমন সমস্যা হলো, প্রথম অবস্থায় কাজ করার পরে পেমেন্ট করলেও যত বেশী দিন যেতে শুরু করে তাদের পেমেন্ট দেয়া অফ করে দেয়। এক্ষেত্রে অনেকেই প্রতারণার স্বীকার হোন নিয়মিত। আর্নিং অ্যাপ গুলো কাজ করার সময় খেয়াল রাখুন সেটার টেলিগ্রাম গ্রুপ রয়েছে কিনা, ফেসবুক গ্রুপ রয়েছে কিনা। কোনো প্রকার পেমেন্ট জনিত সমস্যায় যেন আপনি এডমিন প্যানেল থেকে সহায়তা গ্রহণ করতে পারেন।

আমাদের সাইটে বেশ কিছু আর্নিং অ্যাপের রিভিউ রয়েছে আপনি চাইলে পোষ্টগুলো পড়ে সেগুলোতে নিশ্চিন্ত মনে কাজ চালিয়ে যেতে পারেন। মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার এর চেয়ে সহজ পদ্ধতি আর আছে বলে মনে হয়না। দিনের বেশিরভাগ সময় এই আমরা ফোনে পার করি ভিডিও দেখে তার চেয়ে আর্নিং অ্যাপে কাজ করে টাকা আয় করা যায়।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম 2022

০৪। ক্যাপচা এন্ট্রি করে আয় করুন

আমরা বিভিন্ন সময় অনলাইনে "I am not robot" প্রমাণ করতে করতে অতিষ্ট হয়ে যাই। কিন্তু আপনি এই ক্যাপচা সমাধান করেও আয় করতে পারবেন। এখানে ও তেমন কোনো স্কিল এর প্রয়োজন পড়েনা। আপনি বসে বসে শুধু ক্যাপচা গুলো মিলাবেন। প্রতি হাজার ক্যাপচা পুরণ করতে পারলে ১ থেকে ২ ডলার পাবেন। বোরিং সময় পার না করতে চাইলে এই কাজটি প্রেফার করবো।

ক্যাপচা পূরণ করে আয় করাটা অনেক পুরোনো ও জনপ্রিয় মাধ্যম বটে। ক্যাপচা টাইপ করে আয় করার অনেক গুলো ট্রাস্টেড সাইট রয়েছে যেমন- MegaTypers, Pro Typers, 2Captcha, Kotolibablo ইত্যাদি। এই ৪টি সাইট অধিক জনপ্রিয় ও বিশ্বাসী। কোনো দক্ষতা ছাড়া ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করতে চাইলে ক্যাপচা এন্ট্রি করে আয় করতে পারেন। 

০৫। গেম টপ আপ বিজনেস করে আয় করুন

বর্তমান সময়টা গেমিং এর যুগ। গেম খেলেনা এমন মানুষ হয়ত খুব এই কম। ২০২০ এর তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রায় ১৫০ মিলিয়ন একটিভ গেমার রয়েছেন। যেটা ২০২১ ও ২২ এ স্বাভাবিক ভাবেই অধিক বৃদ্ধি পেয়েছে। সঠিক ব্যাবসার নিয়ম হচ্ছে যখন যেটা ট্রেন্ড চলবে সেটাকে কাজে লাগিয়ে নিজের স্বার্থসিদ্ধ করা।

বর্তমানে গেমের জনপ্রিয়তা অনেক পাশাপাশি গেম খেলতে প্রয়োজন হয় গেমের আইটেম ক্রয় করা। গেমের আইটেম ক্রয়ের জন্য সকলের কাছে ক্রেডিট কার্ড বা ডেবিট কার্ড থাকে না। বাধ্য হয়েই বেশিরভাগ মানুষ থার্ড পার্টি এর মাধ্যমে টপ আপ করে থাকে। 

আপনি চাইলে আপনার ফোন থেকে একটি ফেসবুক পেজ ক্রিয়েট করে ও একটি পেপাল একাউন্ট দিয়ে ফ্রি ফায়ার, পাবজি ইত্যাদি যে সকল গেম রয়েছে সবগুলার পার্সেস করে দিতে পারেন। এক্ষেত্রে প্লে স্টোর থেকে একটা আলাদা পার্সেন্টিজ পাবেন পাশাপাশি প্রতি ১০০ টাকা টপ আপ এ ৫/৪০ টাকা লাভ হওয়ার চান্স রয়েছে। আর এই সকল যাবতীয় কাজ আপনি ঘরে বসে মোবাইল এর মাধ্যমেই করতে পারবেন। আপনার একটি ভালো মোবাইল ও ইন্টারনেট কানেকশন এই যথেষ্ট।

শেষ কথা

অধিকাংশ লোক জানেনা যে ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যায়। যার ফলে সারাদিন ফেসবুক, ইউটিউব স্ট্রিম করে কাটিয়ে দেন। সময় কে অপচয় করার চেয়ে কাজে লাগানোই শ্রেয়।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?