Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2021/09/how-to-get-google-adsense-approval-in-1-minute.html

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট এপ্রুভ হচ্ছে না | গুগল অ্যাডসেন্স কিভাবে এপ্রুভ করবেন

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট এপ্রুভ হচ্ছে না? ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স কিভাবে এপ্রুভ করবেন — আপনি কি অনেক চেষ্টা করেও আপনার ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স অ্যাকাউন্ট আপ্রুভ করতে পারছেন না? ঠিক বুঝতে পারছেন না যে, কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করলে কিংবা কি কি কাজ করলে ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়া যাবে। 

তাই আপনার এই সমস্যার সঠিক উত্তরের জন্যে আমরা আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করবো কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স আপনার ওয়েবসাইটের জন্য অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদনটি গ্রহণ করবে। তো চলুন তাহলে গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জেনে নেই। গুগল অ্যাডসেন্স কিভাবে আপনার ওয়েবসাইটের আবেদন গ্রহণ করবে সে সম্পর্কে জেনে নেই।

ইন্টারনেট বা অনলাইনের সঙ্গে একটু হলেও যোগাযোগ রয়েছে এমন ব্যক্তি মাত্রই গুগল অ্যাডসেন্সের নাম শুনে থাকবেন। অনেকেই তাদের ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট তৈরি করে সেখানে গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করছে। কিন্তু হ্যাঁ যারা নতুন তাদের গুগল অ্যাডসেন্সে একাউন্ট এপ্রুভ করার সময়ে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকেন। 

এই বিষয়ে তারা বুঝে উঠতে পারে না যে, ঠিক কি কি পদ্ধতিতে আবেদন করলে গুগল অ্যাডসেন্স তাদেরকে এপ্রুভ দিবে। তাই যদি আপনি গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে চান বা গুগল এডসেন্স আবেদন করার পরেও এখনো আপনার আবেদন গৃহীত হয়নি সেই জন্য মূলত আজকের এই আর্টিকেল।

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট এপ্রুভ হচ্ছে না

গুগল অ্যাডসেন্স কি

গুগল অ্যাডসেন্সে সঙ্গে আমরা প্রায় সকলেই কমবেশি পরিচিত। গুগল অ্যাডসেন্স হলো সারাবিশ্বের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক। অর্থাৎ গুগল অ্যাডসেন্স হচ্ছে এমন একটি প্লাটফর্ম যার সাহায্যে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে বা ব্লগ সাইটে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করে নিশ্চয় দেখতে পারবেন সেখানে গুগল অ্যাডসেন্সের দারা বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখানো হচ্ছে। 

মূলত আমরা এই বিজ্ঞাপনগুলোর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করে থাকি। গুগল অ্যাডসেন্স হচ্ছে গুগলের একটি নিজস্ব প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার একটি অন্যতম মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে এই গুগল অ্যাডসেন্স। বস্তুত এই গুগল অ্যাডসেন্স আপনার ওয়েবসাইটে বা ব্লগ সাইটে অথবা ইউটিউব চ্যানেলের বিভিন্ন কন্টেন্টের মধ্যে বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। যে বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ্যমে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

কিন্তু হ্যাঁ গুগল অ্যাডসেন্স থেকে টাকা ইনকাম করার জন্যে সর্বপ্রথম আপনাকে একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট কিংবা ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করার প্রয়োজন হবে। এরপরে গুগল এডসেন্স এপ্রুভ করার জন্যে আবেদন করতে হবে। গুগল অ্যাডসেন্স যদি আপনার করা আবেদনটি গ্রহণ করে তাহলে আপনি এখান থেকে টাকা ইনকাম আয় করতে পারবেন। তবে চলুন আর দেরি না করে জেনে নেই কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স আপনার করা আবেদনটি একসেপ্ট করবে।

আরও পড়ুনঃ ওয়ার্ডপ্রেস শিখে আয় করুন ঘরে বসেই | ওয়ার্ডপ্রেস থিম কাস্টমাইজেশন কোর্স

গুগল অ্যাডসেন্স আবেদনটি এপ্রুভ করার জন্য কি করতে হবে

বর্তমানে যতগুলো বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক রয়েছে গুগল অ্যাডসেন্স সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সেরা এবং বড়। সারা পৃথিবীব্যপী গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে কোটি কোটি মানুষ ঘরে বসে থেকে তাদের ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট থেকে টাকা ইনকাম করতে পারছে লাখ লাখ ডলার। 

আর মূলত এই কারণে বর্তমানে গুগল অ্যাডসেন্সের চাহিদা বা জনপ্রিয়তা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি হয়েই জাচ্ছে। যদি আপনার নিজস্ব কোনো ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট কিংবা ইউটিউব চ্যানেল থাকে তাহলে আপনিও ঘরে বসে গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

তবে এটার জন্যে সর্বপ্রথম আপনাকে ২টি বিষয়ের উপরে খেয়াল রাখতে হবে। প্রথমত ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট হওয়ার প্রয়োজন হবে। অর্থাৎ আপনি যে ওয়েবসাইটের জন্যে গুগল অ্যাডসেন্সের আবেদন করবেন উক্ত ওয়েবসাইটটি যেন আপনার নিজের ওয়েবসাইট হয়ে থাকে। আপনি অন্য কারোর ওয়েবসাইট থেকে গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন না আর যদি আবেদন করে থাকেন তবে সেটা হবে গুগল অ্যাডসেন্স এর নিয়ম বহির্ভূত।

২ নাম্বার যে বিষয়টি আপনাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে সেটা হচ্ছে গুগল এডসেন্সে আবেদন করার সময়ে আপনার বয়স মিনিমাম ১৮ বছরের বেশি হওয়ার প্রয়োজন হবে। যদি আপনার বয়স ১৮ বছরের কম হয়ে থাকে তাহলে আপনি সরাসরি গুগল এডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

এক্ষেত্রে আপনি আপনার বাবা-মা ই-মেইল আইডি ব্যবহার করে গুগল এডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনার যদি বাবা-মার অ্যাকাউন্ট অ্যাপ্রুভ হয়ে যায় তাহল আপনি সেই গুগল অ্যাডসেন্স থেকে পেমেন্ট পেয়ে যাবেন কোনো ধরনের সমস্যা হবে না।

এছাড়া গুগল এডসেন্সের আবেদন করার আগে আপনার অবশ্যই গুগল অ্যাডসেন্সের কিছু টার্ম এবং পলিসি সম্বন্ধে পরিপূর্ণ ধারণা রাখতে হবে। গুগল অ্যাডসেন্সের নিয়ম অনুসারে তাদের যোগ্যতা অর্জন করার পরেই আপনি গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন। ধরুন, আপনি এসব যোগ্যতা লাভ করেছেন। 

এক্ষেত্রে আপনাকে ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পাওয়ার জন্যে আরো কিছু নিয়ম ফলো করার প্রয়োজন হবে। যে নিয়মগুলো নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলে আমি আলোচনা করবো। যদি আপনি নিম্নোক্ত বিষয়গুলো অনুসরণ করে চলেন তাহলে অবশ্যই আপনি আপনার ওয়েবসাইটের গুগল অ্যাডসেন্সে এপ্রুভ করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ মোবাইল দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি | মোবাইল দিয়ে ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করুন

১। ডোমেইন

ব্লগ সাইট কিংবা অন্যান্য ক্ষেত্রে অনেকেই আছেন যারা ওয়েবসাইটের ডোমেইনকে খুব বেশি একটা গুরুত্ব দেয়না। কিন্তু হ্যাঁ সত্যি কথা বলতে, গুগল এডসেন্সের অ্যাপ্রুভ পাওয়ার জন্যে একটি কাস্টম ডোমেইন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কাজেই সামান্য টাকা খরচ করে আপনার ওয়েবসাইটের জন্যে একটি কাস্টম ডোমেইন কিনে নিন। ওয়েবসাইটে অ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য একটি কাস্টম ডোমেইন অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে থাকে।

২। ওয়েবসাইটের ডিজাইন

গুগল এডসেন্সে আবেদন করার আগে আপনাকে যে বিষয়টির দিকে বেশি খেয়াল রাখার প্রয়োজন হবে সেটা হচ্ছে আপনার ব্লগসাইট বা ওয়েবসাইটের ডিজাইন। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটটিকে অবশ্যই অনেক বেশি আকর্ষণীয় হওয়ার প্রয়োজন হবে। এক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটের লোগো পরিস্কার অর্থাৎ লোগো সহজেই যেন বোধগম্য হয়। ওয়েবসাইট ডিজাইন করার ক্ষেত্রে কখনো হেব্বি কালার ব্যবহার করা যাবেনা। এতে করে আপনার ওয়েবসাইটটি অনেক বেশি দৃষ্টিকটু হবে। এই ধরনের ওয়েবসাইট গুলো গুগল এডসেন্সে এপ্রুভ পেতে খানিকটা কষ্ট হয়।

৩। ওয়েবসাইটের আর্টিকেল

গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভ্যাল পাওয়ার জন্যে আপনাকে ২ নাম্বার যে বিষয়টির উপরে গুরুত্ব দিতে হবে সেটা হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেল। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেল অবশ্যই অনেক বেশি চমৎকার ও আকর্ষণীয় এবং পাঠক উপযোগী হতে হবে। আর হ্যাঁ এই ক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই অবশ্যই অন্য কারো ওয়েবসাইটের আর্টিকেল কপি করা থেকে বিরত থাকবেন। ওয়েবসাইট ডিজাইন করে সেখানে কয়েকটি ইউনিক আর্টিকেল পাবলিশ করুন। যে কনটেন্টগুলো কোনো ওয়েবসাইটের মাঝে নেই। এই কাজটি করার কারণে গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভ্যালকে ত্বরান্বিত হবে।

আরও পড়ুনঃ ব্লগে পোস্ট করার নিয়ম | ব্লগ সাইটে SEO friendly পোস্ট করার নিয়ম

৪। সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাক্টিভিটিস

ওয়েবসাইটে বা ব্লগ সাইটে গুগল এডসেন্স তাড়াতাড়ি অ্যাপ্রুভ্যাল পাওয়ার জন্যে আরেকটি যে বিষয়ের উপরে আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে সেটা হলো আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অ্যাকাউন্ট গুলোতে। গুগল অ্যাডসেন্স গুগলের বিভিন্ন মাধ্যমগুলোকে ছাড়াও ফেসবুক, লিঙ্কডিন, টুইটার ইত্যাদি মাধ্যমগুলোতে বিভিন্ন কন্টেন্ট প্রচার করাকে অনেক বেশি পরিমাণে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। 

কাজেই অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধম প্লাটফর্মগুলোতে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য আলাদা সাইট তৈরি করতে হবে এবং উক্ত লিঙ্কগুলো আপনার অরজিনাল ওয়েবসাইটে উল্লেখ করা থাকবে লিঙ্ক আকারে। এছাড়াও ওয়েবসাইটের প্রত্যেকটি কনটেন্টের শেষের অংশে আপনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে কন্টেন্ট শেয়ার করার জন্য অপশনগুলোকে উন্মুক্ত রাখতে পারেন। অন্যান্য সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্লাটফর্ম গুলোতে আপনি যতবেশি পরিমাণে অ্যাক্টিভ থাকবেন আপনার ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রুভ পাওয়ার সম্ভবনা ততবেশি থাকবে।

৫। ওয়েবসাইটের আভ্যন্তরীণ পেজ

আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেল ছাড়াও আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ পেজ ওয়েবসাইটের মাঝে রাখার প্রয়োজন হবে। সেগুলোর মাঝে হচ্ছে About Us এবং Term and Policy এই দুটি অন্যতম। এতে করে আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে গুগল অ্যাডসেন্স একটি সম্পূর্ণ ধারণা পেয়ে যাবে। About Us এই অংশের মাঝে আপনি আপনার ওয়েবসাইট সম্পন্ধে কিছু তথ্য বিস্তারিত বর্ণনা করবেন। যাতে করে গুগল অ্যাডসেন্স আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে সম্পূর্ণ ক্লিয়ার ধারণা পায়। 

অন্যদিকে Term and Policy এই অংশের মাঝে আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উল্লেখ করবেন এবং পাঠকগণ আপনার ওয়েবসাইটটি থেকে কিভাবে ব্যবহার করতে পারবে সেই সম্পর্কে দিকনির্দেশনা উল্লেখ করবেন। যার ফলে আপনার ওয়েবসাইটটির স্বতন্ত্রতা বজায় রাখবে এবং গুগল অ্যাডসেন্সে থেকে সহজেই এপ্রুভ পেয়ে যাবেন।

আরও পড়ুনঃ গুগল অ্যাডসেন্স কি? গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায়

৬। পরিপূর্ণ ওয়েবসাইট

গুগল এডসেন্সের জন্য আবেদন করার আগে খেয়াল রাখুন আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইটটি যেন স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে থাকে। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটের এমন কোনো অংশ যদি থাকে যেখানে লিংক করা আছে কিন্তু সেখানে ক্লিক করার পরে কোনো কাজ করছে না তবে কিন্তু গুগল অ্যাডসেন্স আপনার আবেদনটি গ্রহণ করবেনা। কেননা এক্ষেত্রে গুগল অ্যাডসেন্স ধরে নিবে যে, আপনার ওয়েবসাইটটি এখনও Under-Construction অবস্থায় আছে। সেজন্য ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্সেের আবেদন করার আগে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটটিকে পরিপূর্ণ করে নিবেন।

৭। গুগল অ্যাডসেন্সের নীতিমালা

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, গুগল এডসেন্সের জন্য আবেদন করার পরে তাদের আবেদনটি আপ্রুভ হয়না। এক্ষেত্রে কিন্ত গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আপনাকে একটি মেইল পাঠিয়ে থাকে। উক্ত মেইলে আপনার আবেদনটি গ্রহণ না হওয়ার কারণগুলো উল্লেখ করা থাকে। কাজেই ওয়েবসাইটে এডসেন্সের জন্য পুনরায় আবেদন করা আগে সেই বিষয়টিকে ভালোভাবে দেখে নিন। ধরুন, আপনার ওয়েবসাইটের মাঝে যথেষ্ট পরিমাণে আর্টিকেল না থাকার কারণে গুগল অ্যাডসেন্স আপনার করা আবেদনটি গ্রহণ করেনি। সেক্ষেত্রে তাদের দিক নির্দেশনাগুলোকে মেনে ওয়েবসাইটে পর্যাপ্ত আর্টিকেল পাবলিশ করুন।

উপরোক্ত আলোচনা আমি ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্সে আবেদন আপ্রুভ হওয়ার বিভিন্ন পদ্ধতি সম্বন্ধে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করছি। যেসকল পদ্ধতি আপনি সঠিকভাবে অনুসরণ করলে ১০০% গুগল অ্যাডসেন্সের কাছে থেকে সহজেই ওয়েবসাইটে অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবেন। কাজেই যদি আপনি আপনার ব্লগ সাইট বা ওয়েবসাইটের জন্যে এখনো গুগল অ্যাডসেন্সের আবেদন না পেয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই উপরোক্ত বিষয়গুলো অনুসরণ করুন।

আরও পড়ুনঃ ব্লগার নাকি ওয়ার্ডপ্রেস? ব্লগিং এর জন্য কোনটি সেরা?

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া