Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2021/04/nagad-offer-2021.html

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা | নগদ মোবাইল ব্যাংকিং অফার 2021

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং — স্মার্টফোনের আবির্ভাবে ফলে ব্যাংকিং পরিষেবা এখন আমাদের হাতের লাগালে চলে আসছে। বর্তমান সময়ে দেশ ও বিদেশে অনেক ব্যাংকিং সার্ভিস প্রোভাইডার রয়েছে যারা মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রদান করছে। তারমধ্যে বাংলাদেশে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সেবা অন্যতম।আজকের এই পোস্টে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং অফার, নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২১, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং চার্জ, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং হেল্পলাইন, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সঞ্চয় হার ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা

আপনারা সকলেই জেনে রাখবেন যে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের পরিচালনায় একটি ডিজিটাল লেনদেন ব্যাংকিং সার্ভিস হচ্ছে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং। এই নগদ ব্যাংকিং সার্ভিসটি বাংলাদেশ সরকার নিয়ন্ত্রণাধীন হওয়ার কারণে আমাদেরকে যে সকল সুবিধা গুলি প্রদান করে সেগুলো অন্যান্য বেসরকারি ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান গুলো প্রদান করতে পারেনা। তাই নগদ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক সংখ্যা অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং এর চেয়ে অনেক বেশি।

মোবাইল ফোনের মাধ্যমে টাকা পাঠানো এবং মোবাইলের মাধ্যমে টাকা রিসিভ করার উদ্দেশ্যে ব্যবহারকারীরা মোবাইল ব্যাংকিং সেবা গুলো ব্যবহার করে থাকে। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে যতগুলো মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবা রয়েছে তারা সেন্ড মানি, ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট, বিল পেমেন্ট আরও অনন্য সকল সেবা বা সুবিধা গুলো দিয়ে থাকে।

আরও পড়ুনঃ বিকাশ অফার ২০২১ | নতুন বিকাশ একাউন্ট অফার 2021

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা সম্পর্কে জেনে নিন?

আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা নগদ মোবাইল ব্যাংকিং অন্যান্য ব্যাংকিং পরিষেবা থেকে কি কি অতিরিক্ত সুবিধা গুলো প্রদান করে সেগুলো সম্পর্কে জানাবো আপনাদের।

ট্রানজেকশন বা টাকা লেনদেন | নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২১

বাংলাদেশে যে সমস্ত মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডার রয়েছে তাদের চেয়ে নগদে ট্রানজেকশন লিমিট অনেক বেশি। অর্থাৎ নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর মধ্যে সেন্ড মানি, ক্যাশ আউট, ক্যাশ ইন, এগুলোর লিমিট অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডারদের চেয়ে অনেক অনেক বেশি। যেখানে রকেট মোবাইল ব্যাংকিং এবং বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং এর মধ্যে ট্রানজেকশন লিমিট মাসিক হচ্ছে দুই লক্ষ টাকা, আর সেখানে নগদ ব্যাংকিং এ মাসিক ট্রানজেকশন লিমিট হচ্ছে সর্বোচ্চ 5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত লেনদেন করা যাবে।

এছাড়াও অনন্য সকল মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডারদের ডেইলি ট্রানজেকশন লিমিট হচ্ছে ৩০,০০০ হাজার টাকা। আর ঠিক নগদ এর মধ্যে আপনি ডেইলি ট্রানজেকশন লিমিট সর্বোচ্চ ২.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লেনদেন করার সুযোগ পাবেন। এছাড়াও নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর আরেকটি সুবিধা হলো আপনি বাড়ির পাশেই থাকা পোস্ট অফিসের মাধ্যমে ক্যাশ আউট করার সুযোগ পাবেন। তাছাড়াও আপনি এক নগদ অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য নগদ অ্যাকাউন্টের মধ্যে কোন রকম চার্জ ছাড়াই সম্পূর্ণ ফ্রিতে টাকা লেনদেন বা ট্রানজেকশন করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ Cellfin অ্যাপ কি | কিভাবে Cellfin একাউন্ট করবেন

নগদ ক্যাশ আউট চার্জ | নগদ মোবাইল ব্যাংকিং চার্জ

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর আরেকটি সুবিধা হলো এর ট্রানজেকশন চার্জ। নগদ ব্যাংকিং ট্রানজেকশন চার্জ অন্য সকল মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডারদের থেকে কম। গত কয়েক বছর ধরেই যেখানে অন্য মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডার গুলো ১০০০ হাজার টাকায় ক্যাশ আউট চার্জ ১৮ টাকা ৫০ পয়সা বা তার থেকে বেশি ক্যাশ আউট চার্জ কেটে নিতো। সেখানে বাংলাদেশে নগদ এই প্রথম এই বেরিয়ার পরিবর্তন করে এবং সেই চার্জ সিঙ্গেল ডিজিটের মাঝে নিয়ে আসে। বর্তমানে আপনি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ১০০০ হাজার টাকায় ক্যাশ আউট চার্জ মাত্র ৯ টাকা ৫০ পয়সা দিয়ে ক্যাশ আউট করে নিতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি যদি নগদ মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার না করে ক্যাশ আউট করতে চান তাহলে নগদ USSD কোড ডায়াল করে নগদ এর উদ্যোক্তা পয়েন্ট থেকে ক্যাশ আউট করতে ১২ টাকা ৯৯ পয়সা ধার্য করে। তাইলে বুঝতেই পারছেন বাংলাদেশে অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডাররা যে টাকা ক্যাশ আউট চার্জ ধার্য করে সেই তুলনায় তাদের থেকে নগদে ক্যাশআউট চার্জ তুলনায় অনেক কম।

ফ্রীতে বিভিন্ন বিল পেমেন্ট | নগদ মোবাইল ব্যাংকিং অফার

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে সম্পূর্ণ ফ্রীতে বিদ্যুৎ বিল পেমেন্ট করা যাবে। নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে যেসকল বিল ফ্রিতে পেমেন্ট করা যাবে যেমন; ডেসা, ডেসকো, পল্লী বিদ্যুৎ এছাড়াও মোবাইলে টাকা রিচার্জ করতে লাগবে না কোন চার্জ।

আরও পড়ুনঃ ব্রিলিয়ান্ট কানেক্ট অ্যাপ | কথা বলুন মাত্র ৩০ পয়সা মিনিট যেকোন নাম্বারে

সেভিংস এর মুনাফা | নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট

যদি আপনি নগদ অ্যাকাউন্টের মধ্যে টাকা জমা রাখেন বা সেভিংস করেন, তাহলে নগদ এর বিনিময়ে আপনাকে কিছু মুনাফা প্রদান করে। অবশ্য এটি আপনি কত টাকা কত দিনের জন্য জমা রাখবেন তার উপর নির্ভর করবে। যদি আপনি নগদ অ্যাকাউন্টের মাঝে ১০০১ হাজার থেকে ৫০০১ টাকা জমা রাখেন, তাহলে নগদ এক বছর পর আপনাকে ৫% হারে মুনাফা প্রদান করবে। এছাড়াও যদি আপনি ৫০০১ হাজার টাকা থেকে ৩ লক্ষ টাকা পর্যন্ত জমা রাখেন। তাহলে বছর শেষে নগদ আপনাকে ৭.৫% হারে আপনাকে মুনাফা প্রদান করবে।

তবে আপনি যদি চান নগদে টাকা জমার রাখার জন্য এই সুদ আপনি গ্রহণ করতে ইচ্ছুক না। তাহলে নগদ অ্যাপ এর মাঝে এবং call center 16167 নম্বরে কল করে ইসলামিক মোড চালু করে দিন। তারফলে আপনার অ্যাকাউন্টর মুনাফা বা সুদ যুক্ত হবে না।

আরও পড়ুনঃ মুভমেন্ট পাস আবেদন | মুভমেন্ট পাস আবেদন ফরম

নগদ একাউন্ট খোলার নিয়ম | নগদ মোবাইল ব্যাংকিং লাখপতি

বর্তমান সময়ে মানুষের মধ্যে টাকা লেনদেনের একটি ডিজিটাল মাধ্যম খুবই বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করছে যার নাম হচ্ছে নগদ অ্যাপ Nagad App। এখন আপনি বাড়িতে বসেই খুব সহজেই নিমিষেই নগদে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। যদি আপনার কাছে একটি স্মার্টফোন থাকে তাহলে Nagad App ডাউনলোড করে সেখানে অ্যাকাউন্ট খুলে নিন। বাংলাদেশে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ই প্রথম ডিজিটাল kyc ব্যবহার করার মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট ওপেন করার প্রসেস চালু করে।

পরবর্তী সময়ে রকেট মোবাইল ব্যাংকিং এবং বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং সহ অন্য সকল মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলো এই পদ্ধতি অবলম্বন করে। এছাড়াও নগদ গ্রাহকদের সুবিধার্থে নগদ নতুন অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য একটি নতুন প্রক্রিয়া চালু করেছে। এই পদ্ধতিতে গ্রাহকগণ যেকোনো মোবাইল অপারেটরের সিম ব্যবহার করে তাদের মোবাইলফোন থেকে *167# ডায়াল করে সিমের ইনফরমেশন অটোমেটিকভাবে ফিল আপ হবে তারপর শুধুমাত্র ৪ ডিজিটের পিন নাম্বার দিয়ে নতুন নগদ অ্যাকাউন্ট চালু করা যাবে।

এছাড়াও নগদ মোবাইল ব্যাংকিং বাংলাদেশের বিভিন্ন ই-কমার্স ওয়েবসাইটের সাথে সংযুক্ত হয়ে বিভিন্ন ক্যাশব্যাক অফার প্রদান করে থাকে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় নগদ রেফারেল বোনাসও দিয়ে থাকে।

আরও পড়ুনঃ স্মার্টফোন চুরি প্রতিরোধে সাহায্য করবে ‘থিফগার্ড’ অ্যাপ

শেষকথা | নগদ মোবাইল ব্যাংকিং হেল্পলাইন

উপরোক্ত আলোচনায় নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এ একাউন্ট খুললে আপনি কি কি সুবিধা পাবেন তা কিছু আলোচনায় বলা হলো। তাছাড়াও আপনি যদি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সম্পর্কে যেকোন সমস্যা অথবা তথ্য জানতে কাস্টমার কেয়ারের নাম্বারে 16167 অথবা 096 096 16167 নাম্বারে কল করে বিস্তারিত জানতে পারবেন। আপনার কাছে যদি গ্রামীণফোন, রবি ও এয়ারটেল সিম থাকে তাহলে আরো সহজে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনি মোবাইলে ডায়াল *167# করতে হবে হবে ৪ ডিজিটের পিন সেট করে নতুন অ্যাকাউন্টটি একটিভ করতে হবে।

যদি আপনি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে চান এবং সুবিধা আরো জানতে চান, তাহলে নগদ এর অফিসিয়াল সাইটে ভিজিট করুন এই লিংকে Nagad.com। 

আরও পড়ুনঃ ব্লগার থেকে টাকা আয় করার উপায়

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া