কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা

কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা - কোলেস্টেরলের সমস্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। আমরা যা খাই তা শরীরের উপর প্রভাব ফেলে এবং কোলেস্টেরলের ঝুঁকি বাড়ায়। শরীর সুস্থ রাখতে প্রয়োজন সুষম খাদ্য। পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি খাদ্য কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে পারে এবং অন্যান্য রোগের ঝুঁকি কমাতে পারে। তাই কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনতে হবে।

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে প্রতি পাঁচ জনের মধ্যে একজন কোলেস্টেরলের সমস্যায় ভুগছেন। কিন্তু কিছু খাবার আছে যে ধরনের খাবার কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। তাই আমরা আজকে আপনাদের জানাতে চেষ্টা করব কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা। চলুন কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

(toc) #title=(সুচিপত্র)

কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা

কোলেস্টেরল কি

কোলেস্টেরল এক ধরনের চর্বি। এটি আমাদের দেহের কোষ প্রাচীরের মধ্যে থাকে। যখন আমরা চর্বিযুক্ত খাবার খাই, তখন এই কোলেস্টেরল আমাদের লিভারে উৎপন্ন হয় এবং রক্তের মাধ্যমে আমাদের শরীরের সমস্ত রক্তনালীতে ছড়িয়ে পড়ে। এটি শরীরের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন কাজে সাহায্য করে। 

যেমন: হরমোন উৎপাদনে, চর্বি-দ্রবণীয় ভিটামিনের পরিপাকে এবং ভিটামিন ডি উৎপাদনে। যদি বেশি পরিমাণে চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়া হয় তবে এই অতিরিক্ত কোলেস্টেরল রক্ত প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করে। ফলে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা যায়। যেমন: উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, হার্ট অ্যাটাক ইত্যাদি।

আরো পড়ুনঃ টেস্টোস্টেরন হরমোন বৃদ্ধির খাবার তালিকা

কোলেস্টেরল এর ধরন

কোলেস্টেরল সাধারণত দুই ধরনের হয়।

  • low-density lipoprotein - LDL
  • high-density lipoprotein - HDL

একটি কম ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (low-density lipoprotein - LDL) যাকে বলা হয় খারাপ কোলেস্টেরল এবং অন্যটি উচ্চ ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (high-density lipoprotein - HDL) যাকে বলা হয় ভালো কোলেস্টেরল।

(low-density lipoprotein - LDL) ধমনীর দেয়ালে ক্ষতিকারক ফলক তৈরি করতে সাহায্য করে, তাই একে খারাপ কোলেস্টেরল বলা হয়। এবং high-density lipoprotein - HDL সেই এলডিএল কোলেস্টেরলকে অপসারণ করতে সাহায্য করে কারণ এটি ধমনীতে প্রবাহিত হয়। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এজন্য একে ভালো কোলেস্টেরল বলা হয়। রক্তে এলডিএল-এর স্বাভাবিক মাত্রা প্রতি ডিএলে কমপক্ষে ১০০ মিলিগ্রাম। এইচডিএল-এর স্বাভাবিক মাত্রা প্রতি ডিএলে ৪০ থেকে ৬০ মিলিগ্রাম বা তার বেশি।

আরো পড়ুনঃ চোখের নিচে কালো দাগ দূর করার ক্রিম

কোলেস্টেরল এর লক্ষণ

চিকিৎসকদের মতে, রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়েছে কি না তা জানার জন্য সবসময় রক্ত পরীক্ষার জন্য অপেক্ষা করতে হয় না। রক্তে কোলেস্টেরল বেশি থাকলে নানা শারীরিক সমস্যা শুরু হতে পারে। এর প্রভাব শরীরের বাইরেও দেখা যায়। তাই একটু সচেতন হলেই বুঝতে পারবেন কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ছে কি না। চলুন জেনে নেওয়া যাক কোলেস্টেরল এর সাধারণ কিছু লক্ষণ। যা দেখে আপনি বুঝতে পারবেন আর কোলেস্টেরল এর সমস্যা আছে কিনা?

আপনি যদি চোখের নীচে বা চোখের পাতায় সাদা বা হলুদ ব্যথাহীন ফোলা লক্ষ্য করেন তবে দ্রুত রক্ত পরীক্ষা করুন। এতে চোখের কোনো সমস্যা না হলেও রক্তে কোলেস্টেরল থাকার খুবই গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ।

কয়েকদিন ধরে বুকে ব্যথা হচ্ছে? কিন্তু ইসিজি রিপোর্টে ভুল কিছু পাওয়া গেল না? যদি তাই হয় তবে রক্ত পরীক্ষা করে দেখুন কোলেস্টেরল রক্তে প্রবেশ করেছে কি না।

হাতের তালুর অন্য পাশের হাঁটু ফুলে গেলে সতর্ক থাকুন। কোলেস্টেরল থাকার খুবই গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ।

কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে রক্তনালী বন্ধ হয়ে যায়, যার ফলে শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যথা হয়। বিশেষ করে পায়ের পেশী ব্যথা এবং চাপ অনুভূত হয়।

হঠাৎ ওজন বেড়ে যাওয়া কোলেস্টেরল বৃদ্ধির লক্ষণ হতে পারে। এই ধরনের পরিস্থিতিতে, ওজন নিয়ন্ত্রণে মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে বুকে ব্যথা শরীরে অতিরিক্ত কোলেস্টেরলের লক্ষণ হতে পারে। এ অবস্থায় কোলেস্টেরল পরীক্ষা করাতে হবে এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

সিঁড়ি বেয়ে ওঠার সময় অতিরিক্ত ঘাম এবং অস্থিরতার অর্থ কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়া।

কোলেস্টেরল জমে মস্তিষ্কে রক্ত চলাচলও কমে যায়। এ কারণে মাঝে মাঝে ঘাড়ের পেছনে অনবরত ব্যথা হয়।

শারীরিক পরিশ্রম বা কোনো দুশ্চিন্তার কারণে হৃদস্পন্দন বেড়ে যেতে পারে। কিন্তু মাঝে মাঝে কি অকারণে হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়? এমনটা হলে সময় নষ্ট না করে রক্ত পরীক্ষা করুন।

আরো পড়ুনঃ দাঁতের মাড়ি ফুলে গেলে কি ঔষধ খেতে হবে

সুস্থ শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কেমন হওয়া উচিত?

লিপিড প্রোফাইল পরীক্ষার মাধ্যমে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা জানা যায়।

  • আপনার এলডিএল অর্থাৎ খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা যদি ১০০-এর কম হয় তাহলে কোনো সমস্যা নেই। 
  • আপনি যদি একজন হার্টের রোগী হন এবং আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা ১০০ থেকে ১২৯ mg/dL এর মধ্যে হয় তাহলে তা বিপজ্জনক। 
  • আপনার যদি কোনো ধরনের রোগ না থাকে এবং আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা ১০০ থেকে ১২৯ mg/dL এর মধ্যে থাকে তাহলে ঠিক আছে। 
  • যদি পরীক্ষায় কোলেস্টেরলের মাত্রা ১৩০ থেকে ১৫৯ mg/dL হয়, তবে এটি উচ্চ এবং সীমারেখা হিসাবে বিবেচিত হয়। 
  • যাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা ১৬০ থেকে ১৮৯ mg/dL, তাহলে এটি উচ্চ এবং বিপজ্জনক তালিকায় আসে। 
  • ১৯০ এর উপরে কোলেস্টেরলের মাত্রা খুব বেশি বলে মনে করা হয়। এটি স্বাস্থ্যের জন্য বিপজ্জনক।

কোলেস্টেরল বেশি হলে কি কি সমস্যা হয়

শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বেশি হলে অনেক ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। যেমন:

  • রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বেড়ে গেলে ধমনীতে প্রচুর পরিমাণে প্লাক জমতে পারে। এই কারণে, প্লেকের একটি অংশও ফেটে যেতে পারে এবং ফলকের পৃষ্ঠে রক্ত ​​​​জমাট বাঁধতে পারে। অন্যদিকে, এই ক্লট যথেষ্ট বড় হয়ে গেলে তা করোনারি ধমনীতে রক্ত ​​প্রবাহে বাধা দিতে পারে।
  • হৃদপিন্ডের পেশীতে রক্ত ​​প্রবাহ কমে গেলে বুকে ব্যথা বা হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।
  • ধমনীতে জমাট বাঁধার কারণে মস্তিষ্ক ও অন্যান্য অঙ্গে রক্ত ​​পৌঁছাতে পারে না। এর ফলে ধমনী রোগ, স্ট্রোক এবং হার্টের সমস্যা হতে পারে।

কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা

শাকসবজি শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে শক্তি জোগায়। কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে শাকসবজি খেতে পারেন এবং শাক সবজির পাশাপাশি শুকনো সয়া পণ্য, মটরশুটি এবং টোফু খেতে পারেন।

যারা সপ্তাহে তিন দিন বা তার বেশি মাছ খান তাদের খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কম থাকে। উচ্চ রক্তচাপ এবং বিভিন্ন হৃদরোগে আক্রান্তদের জন্য মাছ খুবই উপকারী। এতে উচ্চ ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে মাছ খেতে পারেন।

অলিভ অয়েলে মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই রয়েছে। মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড খারাপ কোলেস্টেরল এলডিএল কমাতে সাহায্য করে এবং শরীরে ভাল কোলেস্টেরল এইচডিএল বাড়ায়।

রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে চাইলে দুগ্ধজাত খাবার কম খাওয়া উচিত।

সব ধরনের সবজি এবং ফল কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। বিশেষ করে ভিটামিন সি ও বিটা ক্যারোটিন আছে এমন সবজি বেশি করে খেতে হবে।

গবেষকরা বলছেন, রসুন, পেঁয়াজ এবং পেঁয়াজের মতো খাবার শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে হার্টকে সুস্থ রাখে। তাই কোলেস্টেরল কমাতে তরকারিতে এবং সালাদে পেঁয়াজ রাখতে পারেন।

ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরের কোলেস্টেরল কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা শরীরের চাহিদা অনুযায়ী এসব খাবার পর্যাপ্ত পরিমাণে খাই না। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এখন বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাত খাবারে ব্যবহৃত হয়। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায় লেবু, আখরোট, জলপাই ইত্যাদিতে।

বিটা-ক্যারোটিন যুক্ত খাবার কোলেস্টোরল এর জন্য ভালো। গাঢ় হলুদ ফলগুলিতে বিটা-ক্যারোটিন থাকে। যেমন: আম, হলুদ পীচ, কাঁঠাল ইত্যাদি। সবজির মধ্যে কুমড়া, মিষ্টি আলু, চিনাবাদাম, গাজর ইত্যাদিতেও বিটা ক্যারোটিন থাকে। এ ছাড়া শরীরে বিটা ক্যারোটিনের চাহিদা মেটাতে গাঢ় সবুজ শাক সবজি যেমন ব্রকলি, বাঁধাকপি ইত্যাদি খেতে হবে।

আরো পড়ুনঃ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার সিরাপের নাম

কোলেস্টেরল কমানোর ঘরোয়া উপায়

সাধারণত, লোকেরা কোলেস্টেরল কমাতে প্রথমে ঘরোয়া প্রতিকার চেষ্টা করে। আসুন জেনে নিই কোলেস্টেরল কমানোর ঘরোয়া উপায় সম্পর্কেঃ

আখরোট কোলেস্টেরলের চিকিৎসায় উপকারী

আখরোট শক্তির ভাণ্ডার। প্রতিদিন চারটি আখরোট খেলে আমাদের শরীর যেমন তাৎক্ষণিক শক্তি পায়, তেমনি এতে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ওমেগা-৩, ফাইবার, কপার এবং ফসফরাসের মতো অনেক পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়। প্রতিদিন সকালে চারটি আখরোট খেলে রক্তনালিতে জমা কোলেস্টেরল গলতে শুরু করে এবং এটি আপনার খারাপ কোলেস্টেরলকে লিভারে ফেরত পাঠাতে খুবই সহায়ক, তাই প্রতিদিন চারটি আখরোট খাওয়ার অভ্যাস করুন।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রসুন উপকারী

রসুনে কিছু এনজাইম পাওয়া যায়, যা এলডিএল কোলেস্টেরল কমাতে সহায়ক। বিজ্ঞানীদের করা গবেষণা অনুযায়ী, নিয়মিত রসুন খেলে এলডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা ৯ থেকে ১৫ শতাংশ কমে যায়। এছাড়া এটি উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। আমরা যদি কোলেস্টেরল কমানোর ঘরোয়া উপায় এর কথা বলি, তাহলে প্রতিদিন রসুনের খোসা ছাড়িয়ে দুই কোয়া খাওয়া হল সেরা ঘরোয়া উপায়।

ওটস দিয়ে কোলেস্টেরল কমানোর ঘরোয়া উপায়

ওটসে উপস্থিত বিটা গ্লুকান নামক ঘন আঠালো পদার্থ আমাদের অন্ত্র পরিষ্কার করতে সাহায্য করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে। এ কারণে খারাপ কোলেস্টেরল শরীরে শোষিত হয় না। বিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে ওটস যদি নিয়মিত তিন মাস খাওয়া হয় তবে এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা ৫ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনতে পারে।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে উপকারী লেবু

লেবু সহ সমস্ত সাইট্রাস ফলের মধ্যে কিছু ধরণের দ্রবণীয় ফাইবার থাকে যা খাবারের থলিতে খারাপ কোলেস্টেরলকে রক্ত ​​​​প্রবাহে প্রবেশ করতে বাধা দেয়। এই জাতীয় ফলগুলিতে উপস্থিত ভিটামিন-সি রক্তনালীর টিউব পরিষ্কার করে। এইভাবে, পাচনতন্ত্রের মাধ্যমে খারাপ কোলেস্টেরল শরীর থেকে বেরিয়ে যায়। সাইট্রাস ফলের মধ্যে এই ধরনের এনজাইম পাওয়া যায়, যা বিপাক প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে বর্ধিত কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ কিডনির পয়েন্ট কত হলে ডায়ালাইসিস করতে হয়

অলিভ অয়েল কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সহায়ক

এতে উপস্থিত মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট কোলেস্টেরলের মাত্রা স্থিতিশীল রাখতে সাহায্য করে। এটি ধমনীর দেয়ালকে শক্তিশালী করে। এতে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এটি উচ্চ রক্তচাপ এবং সুগারের মাত্রাও নিয়ন্ত্রণ করে। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে অলিভ অয়েলে তৈরি খাবার যদি একটানা ছয় সপ্তাহ খাওয়া হয় তাহলে তা কোলেস্টেরলের মাত্রা ৮ শতাংশ পর্যন্ত কমাতে পারে। আপনি যদি কোলেস্টেরল বৃদ্ধির লক্ষণ দেখতে পান, তাহলে সীমিত পরিমাণে অলিভ অয়েল খাওয়া শুরু করুন। 

আমলকি কোলেস্টেরলের চিকিৎসায় উপকারী

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক চামচ অ্যালোভেরার রসের সঙ্গে এক চামচ আমলকির রস মিশিয়ে নিয়মিত খেলে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানো যায়। আমলায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি এবং সাইট্রিক অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা কোলেস্টেরল কমাতে ও নিয়ন্ত্রণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করুন ভিটামিন সি দিয়ে

ভিটামিন-সি এবং সাইট্রিক অ্যাসিডযুক্ত সব ফলই কোলেস্টেরল রোগীদের জন্য খুবই উপকারী যেমন- আমলা, ডালিম, লেবু, কমলা, মিষ্টি চুন ইত্যাদি আপনার জন্য ভালো। কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে এই ফলগুলো নিয়মিত খান।

আরো পড়ুনঃ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির উপায়

কিশমিশ কোলেস্টেরল নিরাময়ে সাহায্য করে

আপনি যদি কোলেস্টেরল বৃদ্ধির লক্ষণগুলি অনুভব করেন, তাহলে অবিলম্বে এটি পরীক্ষা করুন এবং কোলেস্টেরল কমাতে ঘরোয়া প্রতিকার গ্রহণ করুন। ১০ থেকে ১২টি কিশমিশ এবং ৬ থেকে ৭টি বাদাম সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে খালি পেটে বাদাম এবং কিসমিস খান, এটি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে। কোলেস্টেরল রোগীদের নিয়মিত সেবন করা উচিত, মনে রাখবেন চিনি থাকলে কিশমিশ খাবেন না।

সরিষার তেল কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে

আমাদের দেশে সরিষার তেল সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয়, তবে গত কয়েক বছরে লোকেরা আরও অনেক ধরণের ঘি, পরিশোধিত এবং অন্যান্য তৈলাক্ত তেল ব্যবহার করা শুরু করেছে, যার কারণে মানুষের মধ্যে কোলেস্টেরল বৃদ্ধির অভিযোগও বাড়তে শুরু করেছে।

সরিষার তেলে মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডও খুব বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়, যা স্বাস্থ্যের দিক থেকে খুবই উপকারী। আপনার যদি কোলেস্টেরলের সমস্যা থাকে তবে সবসময় সরিষার তেল ব্যবহার করুন।

অর্জুনের ছাল কোলেস্টেরল কমাতে ভালো

অর্জুন গাছের ছাল অনেক রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। আপনি সহজেই বাজারে মুদি দোকানে অর্জুনের ছাল পাবেন। অর্জুনের সামান্য ছাল নিয়ে এক গ্লাস জলে রেখে এই জল গরম করুন। পানি অর্ধেক না হওয়া পর্যন্ত গরম করুন। এবার ঠাণ্ডা হতে দিন, ঠাণ্ডা হলে চায়ের মতো এই ক্বাথ পান করুন, এটি কোলেস্টেরল কমাতে কার্যকরী ঘরোয়া উপায়।

আরো পড়ুনঃ চোখের ছানি অপারেশনের পর করণীয়

কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে করণীয়

কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে সবার আগে আমাদের খাদ্য তালিকা আজ থেকে কিছু জিনিস বাদ দিতে হবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা

রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে সবচেয়ে কার্যকরী খাবার হল লাল মাংস। যদিও এই খাবারটি প্রোটিনের ভালো উৎস, তবে এতে চর্বিও বেশি। এই চর্বি রক্তে কোলেস্টেরল বাড়ায়। তাই কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে লাল মাংস খাওয়া থেকে দূরে থাকতে হবে।

প্রক্রিয়াজাত মাংস, বা বিদেশি খাবারে খারাপ চর্বি বেশি থাকে, যা শরীরের মারাত্মক ক্ষতি করে। তাই প্রত্যেক মানুষকে সচেতন হতে হবে। কারণ এই চর্বি রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায় এবং হৃদরোগ ও ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।

অত্যধিক সুস্বাদু খাবার সবসময় স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। কারণ, রান্নার স্বাদ বাড়াতে খাবারে কিছু মশলা যোগ করা হয়, যা আমাদের শরীরকে অনেক বিপদে ফেলে দেয়। মনে রাখবেন, স্বাস্থ্যকর খাবার কখনোই বেশি সুস্বাদু হয় না। কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে আমাদের স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে।

আরো পড়ুনঃ মধু ও রসুন এর উপকারিতা

কোলেস্টেরল কমাতে লেবু

লেবুর উপকারিতা সম্পর্কে অনেকেই জানেন। এই ফলটিতে রয়েছে ভিটামিন সি, সাইট্রিক অ্যাসিড এবং আরও অনেক প্রয়োজনীয় উপাদান। লেবুর রস খেলে ওজন কমে, কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে থাকে, হজমে সাহায্য করতে পারে। এমনকি জলপাই এবং অন্যান্য জিনিসের সাথে লেবুর রস মিশিয়ে খেলে মানসিক চাপ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। প্রতিদিন ২৪ গ্রাম লেবুর রস খেলে রক্তের কোলেস্টেরল সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে যে লেবুতে হেস্পেরিডিন এবং ডায়োসমিন নামক দুটি যৌগ থাকে যা কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

কোলেস্টেরল কমানোর ঔষধ

কোলেস্টেরল শত চেষ্টায় ও কমছে না। আপনি ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী স্ট্যাটিন ওষুধ গ্রহণ করতে পারেন। এই ঔষধের এক পাতায় দশটি ট্যাবলেট থাকে। এবং এক পাতার দাম ২৪ টাকা। অতএব একটি ঔষধের দাম পড়বে মাত্র আড়াই টাকা। এই ঔষধ ধীরে ধীরে কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমিয়ে দেয়।

কোলেস্টেরল কমানোর ব্যায়াম

কোলেস্টেরল কমানোর সবচেয়ে সহজ উপায় হল হাটা। হাঁটা সবচেয়ে ভালো ব্যায়াম। তাছাড়া আপনি দৌড়াতে পারেন অথবা সাইকেল চালাতে পারেন। ঘরে বসে আপনি ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ করেও কোলেস্টেরল কমাতে পারেন। জিমে গিয়ে এই ব্যায়াম করতে পারেন। এক্ষেত্রে নিয়মিত ব্যায়াম করুন যেমন পুশআপ, পেট ক্রাঞ্চ, ওয়েট লিফটিং, চেস্ট প্রেস, ডেড লিফট, কার্ল, স্কোয়াটবদেখবেন কোলেস্টেরল সহজে কমে যাচ্ছে।

কোলেস্টেরল থেকে মুক্তির উপায়

কোলেস্টেরল সকলের জন্যই খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে আমাদের শরীর হার্ট অ্যাটাক থেকে শুরু করে। এর মত মরণব্যাধি রোগের সম্মুখীন হতে পারে। তাই আমাদের সকলেরই জেনে নিতে হবে কোলেস্টেরল থেকে মুক্তির উপায় কি।

ওজন কমান- কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে চাইলে আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। পেটের চারপাশে চর্বি বৃদ্ধির ফলে ভিসারাল ফ্যাট বৃদ্ধি পায়, যা লিভারকে প্রভাবিত করে। ওজন কমানোর জন্য স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করতে হবে। তাহলে কোলেস্টেরল থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

স্বাস্থ্যকর ডায়েট- কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে হলে অবিলম্বে প্রক্রিয়াজাত খাবার, অতিরিক্ত লবণ ও চিনি খাওয়া বন্ধ করতে হবে। ওটমিল, আপেল এবং অঙ্কুরিত ছোলা রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। অন্যদিকে, আখরোট এবং তিসি বীজে ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। স্বাস্থ্যকর ডায়েট কোলেস্টেরল থেকে মুক্তির অন্যতম উপায়।

অ্যালকোহল এবং ধূমপান ত্যাগ করুন- সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য অ্যালকোহল এবং ধূমপান পরিহার করা অপরিহার্য। অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান করলে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যায়। ধূমপান হৃৎপিণ্ড ও হৃদস্পন্দনের ওপর চাপ সৃষ্টি করে। ধূমপান ত্যাগ করলে রক্ত সঞ্চালন এবং ফুসফুসের কার্যকারিতা উন্নত হয়।

ব্যায়াম করুন- কোলেস্টেরল থেকে মুক্তি চাইলে দিনে অন্তত একবার ব্যায়াম করুন। সাঁতার, হাঁটা, সাইকেল চালানো, নাচ ইত্যাদি করতে পারেন। বসে বসে ব্যয় করবেন না। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে আধা ঘণ্টা হাঁটুন।

আরো পড়ুনঃ ভাঙ্গা হাড় জোড়া লাগানোর ঔষধ

কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে

যদি চিকিৎসা না করা হয় এবং ক্রমাগত উপেক্ষা করা হয় তবে কোলেস্টেরল বৃদ্ধির এই লক্ষণগুলি পরবর্তীতে গুরুতর রোগে পরিণত হয়। তাই ঘরোয়া উপায়ে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে না থাকলে বা অন্য কোনো গুরুতর সমস্যা দেখা দিলে দ্রুত নিকটস্থ চিকিৎসকের কাছে গিয়ে চিকিৎসা নিন। মনে রাখবেন যে আপনি যদি কোলেস্টেরল বৃদ্ধির কোনো উপসর্গ দেখতে পান তবে তা উপেক্ষা করবেন না।

  • ব্যায়াম করা বা বেশি না খাওয়া সত্ত্বেও ক্রমাগত ওজন বেড়ে যাওয়া উচ্চ কোলেস্টেরলের লক্ষণ।
  • একটু হাঁটার পরও শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে।
  • সাধারণভাবে, শরীরে বেশি ক্লান্তি অনুভব করাও শরীরে কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ার লক্ষণ। এই ক্ষেত্রে, দেরি না করে, অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।
  • অতিরিক্ত ঘাম বা অতিরিক্ত গরম উপেক্ষা করবেন না।
  • অনেক দৌড়াদৌড়ি বা অন্য কোনো কাজ না করে আপনার পায়ে ক্রমাগত ব্যথা।
  • প্রতিদিন মাথা ব্যথা বা মস্তিষ্কে ব্যথা হয়।
  • রক্তচাপ বেশি হতে শুরু করলে।
  • বুকে কোনো ধরনের অস্বস্তি বা অস্থিরতা অনুভব করা।
  • এমনকি যদি হার্ট জোরে স্পন্দিত হয়, আপনি অবিলম্বে ডাক্তার দ্বারা একটি চেকআপ করা উচিত।

বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নের উত্তর

কোলেস্টেরল কেন হয়?

যখন আমরা চর্বিযুক্ত খাবার খাই, তখন এই কোলেস্টেরল আমাদের লিভারে উৎপন্ন হয় এবং রক্তের মাধ্যমে আমাদের শরীরের সমস্ত রক্তনালীতে ছড়িয়ে পড়ে। চর্বি যুক্ত খাবার এবং চিনি যুক্ত খাবার খাওয়ার কারণেই সাধারণত কোলেস্টেরল হয়ে থাকে।

কোলেস্টেরল কত ধরনের হয়ে থাকে?

কোলেস্টেরল সাধারণত দুই ধরনের হয়ে থাকে। একটি কম ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (LDL) এবং অন্যটি উচ্চ ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (HDL)।

কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা নিয়ে শেষ কথা

কোলেস্টেরলের কথা শুনলে আমরা আতঙ্কিত হই। ভালো এবং খারাপ দুই ধরনের কোলেস্টেরলের মধ্যে ভালো কোলেস্টেরল আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয়। কিন্তু শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গেলে তা অবশ্যই চিন্তার বিষয়। 

আজকের ব্লগে আমরা কোলেস্টেরল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। কোলেস্টেরল কমানোর খাদ্য তালিকা সম্পর্কে আমরা জেনেছি এবং কোলেস্টেরল থেকে মুক্তির উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করি আমাদের আজকের আলোচনা আপনাদের জন্য কার্যকরী হবে

পোষ্ট ক্যাটাগরি: