Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/06/chul-ghono-korar-upay.html

চুল ঘন করার উপায়

চুল ঘন করার উপায় — বর্তমান সময়ে পাতলা চুলের সমস্যা প্রায়ই হয়ে উঠছে। পাতলা চুলের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মানুষ অনেক পদ্ধতি অবলম্বন করে থাকে, যা চুলে প্রয়োগ করে ব্যর্থ হয়, ফলে চুল ঘন হওয়ার পরিবর্তে ভেঙে যেতে থাকে। কোনো ভুল রেসিপির ফাঁদে না পড়ে এমন কিছু টিপস ট্রাই করুন যা আপনার চুলে কোনো খারাপ প্রভাব ফেলবে না। এই আর্টিকেলে, আমরা পাতলা চুল ঘন করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে কথা বলব। চুল ঘন করার এই ঘরোয়া উপায় গুলো আপনার চুলের উপরে কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ফেলবে না। আসুন জেনে নিই চুল ঘন করার উপায় গুলোঃ

চুল ঘন করার উপায়

আরো পড়ুনঃ ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি

সূচীপত্রঃ চুল ঘন করার উপায়

আমাদের সৌন্দর্যকে বৃদ্ধি করতে ঘন এবং সুন্দর চুল থাকা খুবই জরুরী। আমরা সকলেই চাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চুল ঘন করার ট্রিটমেন্ট করতে। কিন্ত কিছু সাধারণ কারণ রয়েছে যা আপনার চুলকে ঘন ও সুন্দর হতে বাধা প্রদান করে তার মধ্যে রয়েছে চিন্তা, হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, পুষ্টির ঘাটতি, দূষণ, অ্যালার্জি, ক্ষতিকারক পণ্যের ব্যবহার, চুলের যত্নের অভাব এবং জেনেটিক্স বা বংশগতি সমস্যা ইত্যাদি। 

যদি আপনার চুল পাতলা হয়ে থাকে এবং আপনার পাতলা চুলকে সহজেই ঘন করতে চান তবে আপনাকে ব্যয়বহুল চিকিৎসা এবং ব্যয়বহুল পণ্যগুলির জন্য টাকা ব্যয় করতে হবে না। কিছু প্রাকৃতিক পদ্ধতি অবলম্বন করার সাহায্যে আপনি আপনার চুল ঘন করতে পারবেন। আসুন এই লেখার মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক চুল ঘন করার উপায় গুলো কি কি। প্রাকৃতিকভাবে কিভাবে চুল ঘন ও ঝলমলে করা যায় তা জানতে নিচে লেখাগুলো মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

আরো পড়ুনঃ গর্ভবতী হওয়ার প্রথম সপ্তাহের লক্ষণ বাংলা

চুল ঘন করার উপায়

চুল ঘন করতে মানুষ অনেক বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু চুল ঘন করার ঘরোয়া উপায়ও রয়েছে। যার মাধ্যমে আপনি আপনার চুলকে প্রাকৃতিকভাবে লম্বা ও সুন্দর করতে পারবেন। চুল ঘন করার জন্য চুলের যত্নে নিজেই সবচেয়ে উপকারী। তাই যতটা সম্ভব চুলের যত্ন নিন। লম্বা ও ঘন চুল আমাদের সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয়।

সুস্থ ও সুন্দর দেখতে ঘন চুল থাকা খুবই জরুরি। আজকাল পাতলা ও কম চুলের সমস্যা সবারই হয়ে থাকে। নারী এবং পুরুষ উভয়ই এই সমস্যার সম্মুখীন হয়। অসাবধানতার কারণে আমাদের চুল পাতলা হতে শুরু করে। এমন পরিস্থিতিতে চুল ঘন করার ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে চুল ঘন, ঝলমলে ও লম্বা করতে পারবেন।

চুল পাতলা হয়ে যাওয়ার কারণ

কিভাবে চুল ঘন ও কালো করা যায় তা জানার আগে চুল পাতলা হয়ে যাওয়ার কারণ কি তা জানা খুবই জরুরি। চুল পড়ার কিছু সাধারণ কারণ নিচে দেওয়া হলঃ ১। প্রোটিন এবং পুষ্টির অভাব ২। স্ট্রেস বা মানসিক চাপ ৩। হরমোনের ভারসাম্যহীনতা ৪। দূষণ ৫। চুলের যত্ন না নেওয়া ৬। জেনেটিক্স সমস্যা বা বংশগতি সমস্যা ৭। রক্তশূন্যতা ৮। চুলে ক্ষতিকারক জিনিস ব্যবহার ৯। চুলের স্টাইলিং পণ্য ব্যবহার। উপরোক্ত কারণ গুলো ফলে চুল পাতলা হয়ে যায়। 

তাই আপনার যদি মাথায় পাতলা চুল থাকে তবে উক্ত চুল ঘন এবং শক্তিশালী করার জন্য কোনো দামী বা বাজারজাত পণ্য ব্যবহার করবেন না। কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করার মাধ্যমেও আমরা এই সমস্যা দূর করতে পারি।

চুল ঘন করার উপায়

১। স্বাস্থ্যকর ডায়েট

আপনার ডায়েটে প্রতিদিন প্রোটিন এবং সকল ধরনের গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন এবং খনিজ গ্রহণ করা প্রয়োজন। প্রোটিন এবং ভিটামিন বি চুল ঘন ও লম্বা করতে সাহায্য করে। অতএব, আপনার খাদ্য তালিকায় প্রচুর পরিমাণে দুধ, ডিম, মুরগির মাংস, চর্বিযুক্ত মাছ, লেবু, বীজ এবং শুকনো ফল, গোটা শস্য এবং তাজা সবুজ শাকসবজি ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত করা নিশ্চিত করুন।

আরো পড়ুনঃ নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায়

২। চুল ঘন করতে কমলার ব্যবহার

কমলার রসে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যায়, পাশাপাশি এতে উপস্থিত পেকটিনও আপনার চুলের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। চুলের স্টাইল করার ফলে চুলের গোড়ার ক্ষতি হয়, যা কমলালেবুতে উপস্থিত অ্যাসিড এই ক্ষতি পূরণ করতে সাহায্য করে। 

চুলে কমলার রস ব্যবহার করার নিয়মঃ এজন্য একটি কমলা নিন এবং মিক্সারে রাখুন। খোসা ছাড়ানোর বিষয়ে চিন্তা করবেন না কারণ কমলার খোসার উপাদান চুলের গোড়া স্ক্রাব করতে সাহায্য করে। ভালোভাবে মিশে গেলে তারপর চুলে কমলার পাল্প লাগান। আধা ঘণ্টা চুলে লাগিয়ে রাখুন। এবার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। শ্যাম্পু দিয়ে ধোয়ার পর কন্ডিশনার লাগাতে ভুলবেন না, কারণ এতে উপস্থিত অ্যাসিড আপনার চুলকে শুষ্ক করে তুলতে পারে। সপ্তাহে একবার এই মিশ্রণটি লাগাতে ভুলবেন না। এই পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করলে, আপনি দেখতে পাবেন যে আপনার চুল মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ঘন এবং লম্বা হচ্ছে।

৩। আমলকি - আমলকি দিয়ে চুল ঘন করার উপায়

আমলকিতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিবায়োটিক এবং এক্সফোলিয়েটিং বৈশিষ্ট্য যা চুলের গোড়াকে স্বাস্থ্যকর করে এবং চুল ঘন ও চুলের বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

ব্যবহার করার নিয়মঃ চুল ঘন করার জন্য আমলকি ব্যবহার করার তিনটি উপায় রয়েছে। প্রথম উপায়ঃ এক চামচ আমলকি বা আমলকি গুঁড়ো মিশিয়ে ২ চামচ নারকেল তেল মিশিয়ে ফুটন্ত হওয়া পর্যন্ত গরম করুন। এবার তেলটি ছেঁকে নিন এবং হালকা গরম হওয়ার পর ঘুমানোর আগে চুলে ও গোড়ায় লাগান। পরের দিন সকালে যথারীতি শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। 

আমলকি ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ এছাড়া আধা কাপ গরম পানিতে এক বা আধা কাপ আমলকি গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। ভালো করে মেশানোর পর এভাবে ১০ মিনিট রেখে দিন। এবার পেস্টটি চুলে লাগিয়ে ১৫-২০ এভাবে রেখে দিন। পানি দিয়ে ধোয়ার পর কয়েক ঘণ্টা শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুবেন না।কয়েক সপ্তাহ এই পদ্ধতি অনুসরণ করুন। এতে করে আপনার চুল অনেক বেশি ঘন হবে।

তৃতীয় উপায়ঃ আপনি স্বাস্থ্যকর চুলের পরিপূরক হিসাবে আমলকি ফল বা আমলকি রস নিতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ জাম খাওয়ার উপকারিতা

৪। ডিম - ডিম ব্যবহার করে চুল ঘন করার উপায়

শক্তিশালী এবং ঘন চুলের জন্য দৈনিক প্রোটিন চিকিৎসা অপরিহার্য। প্রোটিন সমৃদ্ধ ডিম চুলের চিকিৎসার জন্য সেরা ঘরোয়া উপায় হিসাবে বিবেচিত হয়।

চুলে ডিম ব্যবহার করার নিয়মঃ চুল ঘন করার জন্য ডিম দুইভাবে ব্যবহার করুন। প্রথম উপায়ঃ আপনার চুলের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী একটি বা দুটি ডিম নিন এবং এটি সঠিকভাবে মেশান। এবার ভেজা চুলে ডিম লাগিয়ে আধা ঘণ্টা চুলে রেখে দিন। তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন। আপনি সপ্তাহে একবার বা দুইবার এই প্রোটিন চিকিৎসা প্রয়োগ করতে পারেন। 

ডিম ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ এছাড়া একটি ডিমের কুসুম নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার আপনার পছন্দের যেকোনো এক চামচ হেয়ার অয়েল নিন এবং দুই চামচ পানি নিন। এবার এই মিশ্রণটি ভালো করে মেশানোর পর আপনার শিকড়ে লাগান। চুল ঘন করার জন্য সপ্তাহে ১ এই পদ্ধতিটি অনুসরণ করুন।

৫। অলিভ অয়েল - অলিভ অয়েল দিয়ে চুল ঘন করার উপায়

অলিভ অয়েল আপনার চুল ঘন করতে সাহায্য করবে। এছাড়াও, এটি আপনার চুলকে করবে নরম এবং মজবুত। 

অলিভ অয়েল ব্যবহার করার নিয়মঃ দুটি উপায়ে অলিভ অয়েল ব্যবহার করুন। প্রথম উপায়ঃ আপনার চুল এবং শিকড় গরম তেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন এবং 30 থেকে 45 মিনিটের জন্য রেখে দিন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে নিন এবং শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। আপনি সারারাত আপনার চুলে তেল রেখে তারপর সকালে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলতে পারেন। 

অলিভ অয়েল ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ এর পাশাপাশি অলিভ অয়েলের সঙ্গে মধু মিশিয়ে চুলে লাগাতে পারেন। তারপর আধা ঘণ্টা রেখে তারপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে এই পদ্ধতি একবার বা দুইবার ব্যবহার করুন।

আরো পড়ুনঃ অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ

৬। অ্যাভোকাডো - অ্যাভোকাডো দিয়ে চুল ঘন করার উপায়

অ্যাভোকাডো চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে, যার সাহায্যে চুল ঘন হতে শুরু করে। এর পাশাপাশি এতে উপস্থিত ভিটামিন ই চুলের খাদকে স্বাস্থ্যকর করতে সাহায্য করে। 

অ্যাভোকাডো ব্যবহার করার নিয়মঃ অ্যাভোকাডো ২টি উপায়ে ব্যবহার করতে পারেন। প্রথম উপায়ঃ প্রথমে একটি অ্যাভোকাডো এবং একটি কলা গুঁড়ো করে নিন। তারপর এতে ১ চামচ অলিভ অয়েল মেশান। এবার এই মিশ্রণটি ভালো করে মেশানোর পর আপনার চুলের শিকড়ে লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। এই মিশ্রণটি চুলে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। সবশেষে পানি দিয়ে চুল ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন।

অ্যাভোকাডো ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ আপনি একটি হাইড্রেটিং হেয়ার মাস্কও তৈরি করতে পারেন। প্রথমে আধা গুঁড়ো করা অ্যাভোকাডোর সাথে দুই চামচ গমের জীবাণু তেল মিশিয়ে নিন। এবার এই হেয়ার মাস্কটি শ্যাম্পু করা চুলে লাগিয়ে ২০ মিনিট এভাবে রেখে দিন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ১ বার এই অ্যাভোকাডো হেয়ার মাস্ক লাগাতে হবে।

৭। মেথি বীজ - মেথি বীজ ব্যবহার করে চুল ঘন করার উপায়

মেথি বীজ চুল পড়া রোধ ও চুল ঘন করতে ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ চুল পড়া রোধ এবং চুল ঘন করতে মেথি বীজ ব্যবহার করা হয়।

মেথি বীজ ব্যবহার করার নিয়মঃ চুল ঘন করার জন্য মেথি বীজ দুইভাবে ব্যবহার করুন। প্রথম উপায়ঃ এক বা দুই চামচ মেথি বীজ 8 থেকে 10 ঘন্টা জলে ভিজিয়ে রাখুন। তারপর এই মেথি দানাগুলো পানি থেকে বের করে মিক্সারে দিয়ে দিন। এবার মিক্সারে পিষে নিন। তারপর এতে ২ চামচ নারকেল তেলও দিতে পারেন। এবার এই পেস্টটি চুলের গোড়ায় আধা ঘণ্টা লাগিয়ে রাখুন। তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্টটি প্রতিদিন এক সপ্তাহ ব্যবহার করলে আপনার শিকড়ের শুষ্কতা দূর হবে এবং চুলও ঘন হবে। 

মেথি বীজ ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ এছাড়া চুল ধোয়ার জন্য মেথি বীজের পানি ব্যবহার করতে পারেন। এতে আপনার চুল বড় হবে এবং খুশকি থেকেও মুক্তি পাবেন। সপ্তাহে ১ বা ২ এই মিশ্রণটি ব্যবহার করুন।

৮। ক্যাস্টর অয়েল - দিয়ে চুল ঘন করার উপায়

প্রাকৃতিকভাবে চুল ঘন করার সবচেয়ে সহজ উপায় হল ঠান্ডা চাপা ক্যাস্টর অয়েল দিয়ে আপনার চুলের গোড়া ম্যাসাজ করা। এর আঠালো উপাদানের কারণে এটি চুল পড়ার সমস্যা কমায়। এর পাশাপাশি এতে ভিটামিন ই এবং ফ্যাটি অ্যাসিড থাকার কারণে এটি চুল ঘন করতে সাহায্য করে। 

ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করার নিয়মঃ ক্যাস্টর অয়েল এবং নারকেল তেল একসঙ্গে সমপরিমাণে মিশিয়ে গরম করুন। এবার এই মিশ্রণটি গোড়া ও চুলে লাগিয়ে হালকা ম্যাসাজ করুন। তারপর আপনার চুল আঁচড়ান যাতে তেল পুরো চুলে পৌঁছাতে পারে এবং এটি জট চুলের সমাধানও করবে। এবার গরম পানিতে ডুবিয়ে তোয়ালে দিয়ে চুল ঢেকে দিন। এতে আপনার চুল ময়েশ্চারাইজড থাকবে। এবার এভাবে ১ ঘণ্টা রেখে তারপর স্বাভাবিক নিয়মে চুলে শ্যাম্পু করে ফেলুন। চকচকে এবং ঘন চুল পেতে সপ্তাহে একবার এই প্রতিকারটি পদ্ধতি অনুসরণ করুন।

৯। অ্যালোভেরা জেল - চুল ঘন করার উপায় অ্যালোভেরা জেল

ঘন চুলের আরেকটি কার্যকরী ঘরোয়া উপায় হল অ্যালোভেরা। অ্যালোভেরার ময়েশ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি চুলের গোড়ার পিএইচ স্তরকেও উন্নত করে। 

অ্যালোভেরা ব্যবহার করার নিয়মঃ তিনটি উপায়ে অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করুন। প্রথম উপায়ঃ একটি বা দুটি অ্যালোভেরা জেল পাতা থেকে জেলটি বের করুন এবং তারপরে এটি আপনার চুলের গোড়ায় ঘষুন। তারপর চুল ধোয়ার আগে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে চুল পরিষ্কার করুন। চুল ঘন করার জন্য এই পদ্ধতি ১ বা ২ সপ্তাহের জন্য প্রতিদিন ব্যবহার করুন।

অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ এছাড়া অ্যালোভেরা জেলে ২ চামচ নারকেলের দুধ মিশিয়ে নিন। তারপর এটি আপনার চুলের গোড়ায় লাগান। চুল ধোয়ার আগে ১ ঘণ্টা বা আধা ঘণ্টা চুলে রেখে তারপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার বা দুইবার এই মিশ্রণটি লাগাতে হবে।

তৃতীয় উপায়ঃ চুলকে সুস্থ ও ঘন রাখতে প্রতিদিন খালি পেটে ১ চা চামচ অ্যালোভেরা জেলের জুস পান করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

১০। মেহেন্দি - মেহেন্দি দিয়ে চুল ঘন করার উপায়

প্রাকৃতিক চুলের বৃদ্ধির জন্য মেহেদি ব্যবহার করুন। মেহেদি পাতা আপনার চুলে প্রাকৃতিক রঙ দিতে সাহায্য করবে এবং চুলকে নরম ও ঘন করার পাশাপাশি ভাঙা রোধ করবে। 

অ্যালোভেরা ব্যবহার করার নিয়মঃ মেহেদি দুইভাবে ব্যবহার করুন। প্রথম উপায়ঃ মেহেদি পাতার পেস্ট তৈরি করার জন্য ১ মুঠো মেহেদি পাতা একটি মিক্সারে রেখে তাতে কিছুটা পানি যোগ করুন। পেস্ট তৈরি হয়ে গেলে ২ ঘণ্টা এভাবে রেখে দিন এবং তারপর সেই পেস্ট চুলে লাগান। এবার শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে চুল ঢেকে রাখুন। মেহেদি শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। ধোয়ার পর চুলে সরিষার তেল লাগান যাতে চুলে মেহেদির রঙ অনেকক্ষণ থাকে। কয়েক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। 

মেহেন্দি ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ এছাড়াও, আপনি মেহেদি পাউডারের সাথে পানি এবং দইও মিশিয়ে নিতে পারেন এবং পানির পরিবর্তে গ্রিনটি যোগ করতে পারেন। এবার পেস্টটি ভালো করে নাড়ার পর এভাবে সারারাত রেখে দিন। তারপর পরের দিন এই মিশ্রণে একটি ডিম ও দুই চামচ লেবু যোগ করুন। ভালোভাবে মেশানোর পর, এই মিশ্রণটি আপনার চুলে লাগান এবং এটি শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। অবশেষে আপনার চুল জল দিয়ে ধুয়ে নিন এবং উপরে উল্লিখিত হিসাবে আপনার চুলে তেল এবং শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

দ্রষ্টব্য - আপনার চুলে মেহেদি লাগানোর আগে, আপনার হাত ঢেকে নিন বা একটি ব্রাশ ব্যবহার করুন।

১১। Flaxseed - চুল ঘন করতে ফ্ল্যাক্সসিড এর ব্যবহার

ফ্ল্যাক্সসিড ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং প্রোটিনে সমৃদ্ধ। ফ্ল্যাক্সসিড প্রাকৃতিকভাবে চুল ঘন করতে সাহায্য করে। 

ফ্ল্যাক্সসিড ব্যবহার করার নিয়মঃ ফ্ল্যাক্সসিড দুটি উপায়ে ব্যবহার করুন। প্রথম উপায়ঃ সিকি কাপ পানিতে ফ্ল্যাক্সসিড ভিজিয়ে রাখুন। তারপর সকালে তেঁতুলের বীজ বের করে দুই কাপ পানিতে গরম করুন। মিশ্রণটি জেলের মতো দেখাতে শুরু করলে গ্যাস বন্ধ করে জেলটি ছেঁকে নিন। আপনি এটিতে আপনার পছন্দের তেলও যোগ করতে পারেন। তারপর এই মিশ্রণটি ঠান্ডা হতে রাখুন। ঠান্ডা হয়ে গেলে জেলের মতো চুলে লাগান। যাদের চুল কোঁকড়া বা শুষ্ক তাদের জন্য তিসির জেল খুবই উপকারী।

ফ্ল্যাক্সসিড ব্যবহার করে চুল ঘন করার আরেকটি উপায়ঃ আপনি যদি তাজা ফ্ল্যাক্সসিড খান তবে আপনার চুল চকচকে এবং ঘন থাকবে। এছাড়াও আপনি flaxseed তেল ব্যবহার করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ কি খেলে চুল পড়া বন্ধ হয়

১২। চুল ঘন করতে আলুর রসের ব্যবহার

আলু এমনই একটি জিনিস যা মূলত প্রতিটি ঘরেই পাওয়া যায়। আমরা বেশিরভাগ সবজিতে আলু ব্যবহার করতে পারি এবং আমরা আলু খেতে কোনো ধরনের ক্লান্ত হইনা। এমতাবস্থায় এই আলুর রস বের করে চুলে মালিশ করা হলে তা চুল ঘন করতেও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখতে পারে। কারণ আলুতে প্রচুর ভিটামিন থাকে যা আমাদের চুলের সঠিক পুষ্টি জোগায়।

তাই ১ থেকে ২ আলুর রস বের করে হালকা ভাবে চুলে লাগান। আলুর রস চুলে লাগিয়ে এভাবে কিছুক্ষণ রেখে দিন। লাগানোর অন্তত অর্ধেক দিন পর ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। কয়েকদিনের মধ্যেই আপনি এর সফল ফলাফল দেখতে পাবেন।

১৩। চুল ঘন করতে লেবুর রস ব্যবহার করুন

লেবু এমন একটি জিনিস যা খাবারের স্বাদ বাড়ায়। এখন আপনি আপনার চুল ঘন করতে এই লেবু ব্যবহার করতে পারেন এবং এর জন্য খুব বেশি কিছু করার দরকার নেই। আপনাকে যা করতে হবে তা আপনার গোসল করার বালতিতে এটি মিশিয়ে সেই জল দিয়ে গোসল করুন।

এজন্য প্রথমে একটি লেবু নিন এবং এর বীজ বের করে নিন। এবার আপনার গোসলের বালতিতে ভালো করে চেপে নিন। পুরো লেবু ছেঁকে সেই পানি দিয়ে গোসল করুন। অন্তত ২ সপ্তাহ এটি করুন এবং তারপর ফলাফল দেখুন। এটি আপনাকে একসাথে দুটি সুবিধা দেবে, একটি হল আপনার চুল পড়া বন্ধ হবে এবং তারাতাড়ি চুল ঘন হবে এবং দ্বিতীয়ত, আপনি কম ঘামবেন।

আরো পড়ুনঃ কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

চুল লম্বা ও ঘন করার উপায়

এতক্ষণ আপনি জেনেছেন চুল ঘন করার জন্য কি কি পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু এখন আমরা জানব এই চুল ঘন করার উপায় গুলির পাশাপাশি, কি কি বিষয়গুলির উপর আপনার আলাদা মনোযোগ প্রয়োজন। চলুন জেনে নিই চুল ঘন করতে কী করবেন।

১। খাবার ও পানীয় ঠিক রাখুন

আপনি যদি বাইরের অনেক খাবার খান বা ভাজা খাবার খেতে অভ্যস্ত হন তবে এটি আপনার চুল পড়ার একটি বড় কারণ হতে পারে। আপনি যদি সময়মতো খাবার না খান বা এক পাল্লায় প্রয়োজনের চেয়ে বেশি খান বা ঘরে তৈরি খাবার কম খান এবং বাইরের ফাস্টফুড বেশি খান, তবে বিশ্বাস করুন এটি আপনার চুল ঘন করার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা।

আপনি যদি সত্যিই আপনার চুল নিয়ে সিরিয়াস হয়ে থাকেন, তাহলে এখন থেকে শুধু ঘরে তৈরি খাবার খান। তাতেও সবুজ শাক-সবজি ও ডাল বেশি পরিমাণে খাওয়ার নিয়ম করুন। আপনি যদি এক মাসের জন্যও এমন খাবার খাওয়ার নিয়ম করে থাকেন, তাহলে বিশ্বাস করুন আপনার চুল পড়া আপনা-আপনি বন্ধ হয়ে যাবে এবং সেগুলোও ঘন হতে শুরু করবে।

২। চাপ বা টেনশন করবেন না

আজকের ব্যস্ততার জীবন সবাইকে টেনশনে পূর্ণ করেছে। কেউ তাদের পরিবার নিয়ে চাপে, কেউ তাদের ক্যারিয়ার নিয়ে টেনশনে, কেউ ব্যর্থ প্রেম নিয়ে টেনশনে এবং কেউ চাকরির কারণে। এমন পরিস্থিতিতে আমরা সবাই মানসিক চাপের শিকার। পার্থক্য শুধু এই যে কারো কারো চাপ বেশি আবার কারো কম।

এমন পরিস্থিতিতে এই মানসিক চাপ শুধু চুলকে পুরুত্ব বজায় রাখতে বাধা দেয় না, এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে চুল দ্রুত পড়তে শুরু করে। এর পাশাপাশি এটি অন্যান্য গুরুতর হৃদরোগেরও একটি বড় কারণ হয়ে উঠতে পারে। তাই আজ থেকেই মানসিক চাপ কমিয়ে একে অপরকে দেখার ও শোনার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

আরো পড়ুনঃ ক্যান্সার প্রতিরোধ করে যেসব খাবার

৩। আমলকি খান

আমলকি আপনার চুল ঘন করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। এই জন্য, আপনার প্রতিদিন কমপক্ষে একটি আমলকি এবং সর্বাধিক দুটি আমলকী খাওয়া উচিত। এটি আপনাকে সুস্থ রাখবে এবং চুল ঘন করবে।

৪। আয়ুর্বেদিক শ্যাম্পু ব্যবহার

অনেক সময় দেখা যায় চুল ঝলমলে করতে শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হয় তা আমরা সকলেই জানি। প্রকৃতপক্ষে, আপনি যদি এই রাসায়নিক মিশ্রিত শ্যাম্পুগুলি মাঝে মাঝে ব্যবহার করেন তবে এটি ঠিক আছে তবে আপনি যদি প্রতিদিন এগুলি ব্যবহার করেন তবে এটি আপনার চুলের জন্য ক্ষতিকর হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে।

এমন পরিস্থিতিতে আপনি যদি চুলে সাবান লাগাতে না চান এবং শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুতে চান, তাহলে তার জন্য আয়ুর্বেদিক শ্যাম্পু নিয়ে আসুন। প্রতিদিন আয়ুর্বেদিক শ্যাম্পু ব্যবহার করলেও আপনার চুল সুস্থ থাকবে এবং এটি আপনার চুলের কোনো ক্ষতি করবে না।

৫। জোরে চুল ঘষবেন না

আমাদের অনেকেরই এই অভ্যাস আছে যে আমরা যখনই আমাদের চুলে শ্যাম্পু, সাবান বা তেল লাগাই, তখনই জোরে ঘষে ফেলি। তোয়ালে দিয়ে চুল আঁচড়ানোর সময়ও এত জোরে ঘষি যে যা বলার বাহিরে। এমনটি করার কারণে আপনার চুল ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে পড়তে শুরু করে। সেজন্য এখন থেকে সবসময় আপনার চুলকে ভালোবাসার সাথে ধীরে ধীরে ট্রিট করুন।

আরো পড়ুনঃ গর্ভবতী মায়ের প্রথম তিন মাসের খাবার তালিকা

চুল সম্পর্কিত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন - চুল ঘন করার FAQs

প্রশ্নঃ কিভাবে পাতলা চুল ঘন করবেন?

উত্তরঃ পাতলা চুল ঘন করতে পেঁয়াজের রস খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এ জন্য দুটি পেঁয়াজের রস বের করে এবার হালকা হাতে চুলে লাগান। তারপর আধা ঘণ্টা রেখে তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। কয়েকদিন এই পরীক্ষাটি করলে আপনার চুল পূর্বের চেয়ে অনেক বেশি ঘন এবং উজ্জল হয়ে উঠবে।

প্রশ্নঃ চুল ঘন করতে কী খেতে হবে

উত্তরঃ চুল লম্বা ও ঘন করতে খাদ্যতালিকায় প্রোটিন রাখুন। কারণ প্রোটিন চুলের বৃদ্ধির জন্য খুবই উপকারী। এ জন্য ডিম, মুরগি, মাছ, ডাল, দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার খাওয়া শুরু করুন। এ ছাড়া চুলের বৃদ্ধির জন্য জিং অপরিহার্য।

প্রশ্নঃ ঘন চুলের জন্য কোন তেল লাগাতে হবে?

উত্তরঃ চুল ঘন করতে বিভিন্ন ধরনের তেল যেমন ক্যাস্টর অয়েল বা অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। এগুলি ছাড়াও চুল লম্বা করতে নারকেল ব্যবহার করতে পারেন।

প্রশ্নঃ গোসলের আগে চুলে কী লাগাতে হবে ?

উত্তরঃ গোসলের পর চুলে তেল লাগাতে হবে। চুলে তেল লাগানো একটি প্রাচীন ঐতিহ্য। মানুষ গোসলের আগে তেল মালিশ করত, একইভাবে গোসলের পরেও তেল মালিশ করত। সঠিক সময়ে সঠিক পরিমাণে তেল চুলে লাগাতে হবে। এটি অত্যন্ত উপকারী বলে প্রমাণিত হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায়

প্রশ্নঃ চুলে তেল দিলে কী হয় ?

উত্তরঃ চুলে তেল লাগালে চুল মজবুত হয়। আর চুলের লম্বা হয়। কিন্তু বেশি তেল লাগালে ক্ষতি হয়। মাথার ত্বক থেকে প্রাকৃতিক তেল বের হয়। দীর্ঘদিন তেল লাগালে মাথার ত্বকে ফোঁড়া, পিম্পলের মতো সমস্যা দেখা দেয়। গোসলের কয়েক ঘণ্টা আগে এবং রাতে চুলে তেল লাগান, সকালে ঘুম থেকে উঠে চুল ধুয়ে ফেলুন।

প্রশ্নঃ কিভাবে ১০ দিনে চুল ঘন করবেন?

উত্তরঃ চুলে আলুর রস লাগাতে পারেন ১০ দিনে চুল ঘন করতে। এজন্য গোসলের কিছুক্ষণ আগে আলুর রস দিয়ে চুলে ম্যাসাজ করুন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এই পদ্ধতি কয়েকদিন অনুসরণ করলে, আপনার চুল ঘন হয়ে যাবে।

প্রশ্নঃ চুলে কি লাগালে চুল ঘন হয়?

উত্তরঃ অলিভ অয়েল, ক্যাস্টর অয়েল, লেবুর রস, ডিমের কুসুম, অ্যালোভেরার রস, চালের জল, মেহেন্দির পাতার রস, আপেল সিডার ভিনেগার, দই, নারিকেল তেল ইত্যাদি ব্যবহার করা।

প্রশ্নঃ চুল পড়ার জন্য সবচেয়ে ভালো তেল কোনটি?

উত্তরঃ আপনার চুল যদি ক্রমাগত পড়ে থাকে এবং সব ব্যবস্থা নেওয়ার পরও তা বন্ধ না হয়, তাহলে আজ থেকে চুলে আমলকির তেল লাগান। এ জন্য রাতে ঘুমানোর আগে এই তেল মালিশ করলে ভালো হবে।

প্রশ্নঃ খাওয়া কি চুল ঘন করে?

উত্তরঃ সবার আগে বাইরের খাবার খাওয়া বন্ধ করে ঘরেই পুষ্টিকর খাবার খান। এখন ঘরে তৈরি খাবারের কথা বলছি, তাহলে বেশি বেশি করে সবুজ শাকসবজি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। এ ছাড়া আমলকি ও বাদাম খেলে চুল ঘন হবে।

প্রশ্নঃ চুল কিভাবে লম্বা, ঘন ও মজবুত করা যায়?

উত্তরঃ চুল ঘন ও মজবুত রাখতে ডিমের সঙ্গে মেহেন্দি মিশিয়ে লাগাতে পারেন। এর জন্য ৪ চামচ মেহেন্দি নিয়ে ডিমের সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। কিছুক্ষণ এভাবে রেখে দিন এবং তারপর এই মিশ্রণটি চুলে লাগান। এই পদ্ধতি ব্যবহার করার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই আপনার চুল আগের থেকে শক্ত ও ঘন হয়ে উঠবে।

আরো পড়ুনঃ

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?