ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম - প্রিয় পাঠক, আপনি কি ফেসবুকে ব্যবসা করতে চান, বাংলাদেশে অনেকেই আছেন তারা ফেসবুকে ব্যবসা করে মাসে হাজার থেকে লাখ টাকা আয় করছে। আপনিও যদি ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম জানতে চান তাহলে আজকের এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

আজকের আলোচনায় আমরা আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম, কিভাবে ফেসবুকে ব্যবসা শুরু করব, ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়মসহ বিভন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করব আজকের এই পোস্টে। তাহলে চলুন জেনে নেই ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম সম্পর্কেঃ

সূচীপত্রঃ ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

আপনারা অনেকেই জানতে চেয়েছেন ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম, কিভাবে ফেসবুকে ব্যবসা শুরু করব, ফেসবুকে ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে, ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম সহ বিভিন্ন বিষয় জানতে চেয়েছেন তার সকল কিছু নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করব। 

আপনি ফেসবুকে ব্যবসা শুরু করা আগে চিন্তা করবেন আপনি কোন পণ্য না প্রোডাক্ট নিয়ে ব্যবসা করবেন এই নিয়ে আগে থেকেই চিন্তা করবেন। কিছুদিন আগেও মানুষ তার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাকাটার জন্য বিভিন্ন শপিং মলে বা মার্কেটে যেত। 

এখনো শপিংমলে অনেকের ভরসা রয়েছে। তবে, এখন অনেকেই অনলাইন কেনাকাটায় আসক্ত। ঘরে বসে আরামেই সব কিছু অর্ডার করা যায় বলে, অনেকের কাছেই এখন অনলাইন কেনাকাটা জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

অনলাইনে কেনাকাটার জন্য সবচেয়ে ভালো প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে ফেসবুক। যেখানে বিক্রেতারা প্রোডাক্ট বিক্রি করার জন্য বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে এবং সেই বিজ্ঞাপন দেখে ক্রেতারা ঘরে বসেই সেই প্রডাক্ট অর্ডার করে কিনে নেয়। এভাবেই অনেকেই ফেসবুকে ব্যবসা করছে।

ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা

বর্তমানে ফেসবুক অনলাইন ব্যবসা হিসেবে সেরা মাধ্যেম হয়েছে। এই ফেসবুক থেকে বাংলাদেশ সহ পৃথীবির অনেক দেশ ব্যবসা করে মাসে লাখ টাকা আয় করে থাকে। সে যাইহোক, ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা শুরু করে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য তিনটি প্রধান বিষয়ের দিকে অবশ্যই নজর রাখতে হবে। ১। ফেসবুক বিজনেস পেইজ খোলা ২। ফেসবুক স্টোর কাস্টমাইজেশন ৩। ফেসবুক মার্কেটিং

আরো পড়ুনঃ ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়

ফেসবুক বিজনেস পেজ খোলার নিয়ম

আপনি যদি ফেসবুকের মাধ্যেমে ব্যবসা করতে চান তবে আপনাকে একটি ফেসবুক বিজনেস পেজ খুলতে হবে। ফেসবুকে আপনার ব্যক্তিগত আইডি থেকে ফেসবুক পেইজ সম্পূর্ণ আলাদা ফেসবুকে ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রথমত আপনাকে একটি প্রফেশনাল ফেসবুক বিজনেস পেইজ খুলে নিতে হবে। 

ফেসবুক পেজ খুলে সেখানে নিজের ব্যবসার নাম, ব্যবসা সংক্রান্ত পোস্ট দিতে হবে। এমনভাবে আপনি আপনার পেজে পোস্ট করবেন যাতে করে আপনার পেজের দর্শকেরা আপনার সকল আপডেট পোস্টগুলো তাঁদের নিউজফিডে দেখতে পায়। 

ফেসবুকে বিজনেক পেইজ খোলা মোটেও কোন কঠিন কাজ নয়। আপনি নিজেই খুলে নিতে পারেন। ফেসবুকের বিজনেস পেইজ খুলতে এখানে ক্লিক করুন।

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

প্রথমে আপনি লিংকে ক্লিক করার পর এধরনের একটি ওয়েবপেইজ আসবে আপনি এবার “ক্রিয়েট এ নিউ পেইজ” এ ক্লিক করবেন, এরপর আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের একটি নাম দিবেন, ক্যাটাগরি সিলেক্ট করবেন। এরপর বাকি কাজগুলো ধাপে ধাপে শেষ করবেন। তারপর আসেন মোবাইল দিয়ে কিভাবে বিজনেস পেইজ খুলবেন সেটি দেখিয়ে দিই।

প্রথমে আপনার মোবাইলে ফেসবুক অ্যাপ ওপেন করেন। এরপর পেইজ আইকনে ক্লিক করেন। এরপর ক্রিয়েট এ নিউ পেইজ” এ ক্লিক করবেন, এরপর আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের একটি নাম দিবেন, ক্যাটাগরি সিলেক্ট করবেন।

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

সিলেক্ট করা হয়ে গেলে আপনার পেজের একটি ইউজার নেম সিলেক্ট করেন। যেমনঃ www.facebook.com/bdshop24 এমন একটি ইউজার নাম সিলেক্ট করবেন। এরপর পরবর্তী ধাপে যাবেন।

ফেসবুক পেজে আকষর্নীয় কভার ফটো করুন

আপনার ফেসবুকের বিজনেস পেইজ আরো প্রফেশনাল করতে হলে হলে আপনার এই ফেসবুক পেজে আকষর্নীয় কভার ফটো আপ্লোড করতে হবে। কভার ফটোটি পেজের সবচেয়ে উপরে থাকে। কভার ফটোটি ৮২০×৩১২ পিক্সেল হবে। কভার ফটোটি যেন আকর্ষণীয় হয় এবং নতুন নতুন গ্রাহক আকৃষ্ট হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

ফেসবুক পেজে আকষর্নীয় লোগো (প্রফাইল ছবি) সেট করুন

আপনার বিজনেস ফেসবুক পেজে বেশী বেশী কাস্টমার আনতে হলে আপনার এই পেজে আকষর্নীয় লোগো (প্রফাইল ছবি) সেট করতে হবে। আপনার কাস্টমার আপনার পেজের লোগো দেখে পরবর্তী সময়ে আপনার কাছ থেকে প্রডাক্ট কিনতে আসবে। আপনার ফেসবুক পেজের লোগোর সাইজ হতে হবে ১৭০×১৭০ পিক্সেল এর।

অনলাইনে ফ্রিতে হাজার লোগো বানানোর ওয়েবসাইট আছে সেখান থেকে আপনি নিজে নিজেই কোন ধরনের টাকা পয়সা ছাড়াই লোগো বানাতে পারেন। এরকম লোগো বা ব্যানার বানানোর জনপ্রিয় একটি ওয়েবসাইট হচ্ছে ক্যানভা ডটকম।

আরো পড়ুনঃ ফেসবুকে বেশি লাইক পাওয়ার উপায়

ফেসবুক পেজ কাস্টমাইজেশন

আপনার ফেসবুক পেজ সফলভাবে ক্রিয়েট করার পর আপনার এই বিজনেস পেজটাকে এবার সঠিকভাবে কাস্টমাইজেশন করতে হবে অথবা সুন্দরভাবে সাজাতে হবে। আপনি নিজেই চিন্তা করেন, আমরা যখন কোন দোকানে জিনিসপত্র কিনতে যায় তখন আমরা দোকানে দেখি সুন্দরভাবে দোকানের জিনিসপত্র সাজানো গোছানো থাকে। 

সেখানে আমাদের পছন্দমত জিনিস বাছাই করতে আমাদের সুবিধা হয়। ফেসবুক পেজেও এমনটি হতে হবে। তাই ফেসবুক পেজেও একটি স্টোর থাকতে হবে। সেখান কাস্টমাররা তার পছন্দমত প্রডাক্ট বাছাই করে কিনতে পারবে। 

ফেসবুকের এই পেজে সুন্দরভাবে স্টোর আকারে থাকে যার কারণে কষ্ট করে তার ওয়েবসাইটে যেতে হবে না। ফেসবুকে স্টোর খুলতে হলে আমাদের নিচের কয়েকটি বিষয়গুলোর দিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। 

১। নিজের বিজনেস পেজের এডমিন হতে হবে 

২। নিজস্ব প্রোডাক্ট হতে হবে 

৩। ফেসবুক ব্যবসায়ী নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে।

ফেসবুক স্টোর ওপেন করার আগে স্টোর ভালোভাবে সেট করে নিতে হবে। এর জন্য প্রথমে ফেসবুক কমার্স ম্যানেজারে একটা একাউন্ট খুলতে হবে। তারপর কালেকশন ক্রিয়েট করতে হবে। এরপর স্টোর সুন্দরভাবে কাস্টমাইজ করতে হবে। সবশেষে পাবলিশ করতে হবে।

ফেসবুক মার্কেটিং

আপনার ফেসবুক পেজের কাজ সম্পন্ন হয়ে গেলে আপনার প্রডাক্ট বিক্রির জন্য মানুষের কাছে আপনার করা পোস্ট পৌছতে হবে এর জন্য আপনার পেজে সঠিক ভাবে মার্কেটিং করতে হবে। ফেসবুক মার্কেটিং ছাড়া আপনার পেজের কাস্টমার আনা অসম্ভব। তাহলে চলুন আপনার ফেসবুক পেজে আরও বেশী কাস্টমার আনতে হলে কি কি ফেসবুক মার্কেটিং করতে হবে সেটা জেনে আসি।

ফেসবুকে ফ্রি মার্কেটিং - ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

প্রতিটি বিজনেস পেজের উদ্দেশ্য থাকে একটাই, আর তা হলো বিক্রি করা। তাই শুধু ফেসবুকে পেজ খুলে রাখলে হবে না। তার থেকে নিজের প্রডাক্ট বিক্রি করার চেষ্টা করতে হবে। 

আপনার পেজে কাস্টমার আনতে হলে ফ্রিতে এই কাজগুলো করে দেখতে পারেন ফেসবুক পেইজ আকর্ষণীয় করা, নিয়মিত পোস্ট করা, মেসেঞ্জারকে কাস্টমার সার্ভিস চ্যানেলে পরিণত করা, বিজ্ঞাপন ভিডিও শেয়ার করা, অফার প্রাইজ দেয়া বা গিফট এর ব্যবস্থা রাখা, মাঝে মধ্যে ফেসবুক লাইভে আসা, ফেসবুকে একটি গ্রুপ তৈরি করা ইত্যাদি। এই কাজগুলো করলে আশা করি আপনার পেইজ থেকে খুব দ্রুতই পেইজ র‍্যাংক করতে পারবেন।

ফেসবুকে পেইড মার্কেটিং - ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

আপনি যদি ফ্রিতে ফেসবুক না করতে চান তবে আপনি ফেসবুক পেইড মার্কেটিং করে আরও বেশী দ্রুত আপনার ফেসবুক থেকে প্রডাক্ট বিক্রি করাতে পারবেন। তাহলে চলুন কিভাবে ফেসবুকে পেইড মার্কেটিং করবেন সেগুলো জেনে নিই। ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া, ফেসবুক এড তৈরি করা, ফেসবুকে প্রডাক্ট বুস্ট করা, স্পনসর পোস্ট দেয়া ইত্যাদি।

শেষ কথাঃ ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

পরিশেষে আমি আপনাদের সাথে কিছু কথা বলতে চাই, আজকের আলোচনায় আমরা আপনাদের জানানোর চেষ্টা করেছি ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম, কিভাবে ফেসবুকে ব্যবসা করবেন, ফেসবুকে ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে তার সমস্ত কিছু বিস্তারিতভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। ধন্যবাদ!

পোষ্ট ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত দিন

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)