Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/07/what-is-work-permit-visa.html

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা - ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কি - ওয়ার্ক পারমিট ভিসা মানে কি — ভিসার ক্ষেত্রে সাধারণ ভাবেই কিছু পার্থক্য লক্ষ্য করা যায়। ওয়ার্ক পারমিট ভিসার সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে আপনার জানা না থাকলে আপনি ভিসা নিশ্চিত করতে বেশ অসুবিধায় পড়তে পারেন। ভিসা করার সময়ে আপনাকে যদি জিজ্ঞেস করা হয় ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিবেন না কি এমনি ভিসা নিবেন। তখন, আপনার যদি না জানা থাকে এ সম্পর্কে তাহলে ভিসা করতে সমস্যা পোহাতে হতে পারে। 

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

আজকের আর্টিকেলে আমরা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো। ওয়ার্ক পারমিট ভিসাতে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য সুবিধা রয়েছে ও অসুবিধা রয়েছে এগুলো উল্লেখ্য করার চেষ্টা করবো। আপনারা যারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছেন পুরো আর্টিকেলটি আপনার জন্য বেশ সহায়তা করবে। চলুন তাহলে জেনে নিই ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কি ?

আরো পড়ুনঃ সৌদি আরবের কোম্পানি নাম

সূচীপত্রঃ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কি? 

আপনার পাসপোর্টের মাধ্যমে কোনো দেশের পড়াশোনা ও কাজের জন্য একটি সিমিত সময়ের ভিসা তৈরি করাকে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা বলে। ওয়ার্ক পারমিট ভিসার ক্ষেত্রে আপনি একদিকে যেমন পড়াশোনা করার সুযোগ উপভোগ করতে পারবেন। অন্যদিকে একই ভিসার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের চাকরি করার সুযোগ পাবেন।

তবে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা গুলোতে নির্দিষ্টভাবে কিছু সময় নির্ধারিত করে দেয়া থাকে। ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সাধারণ ভাবেই সকল দেশ থেকে প্রদান করা হয়। এগুলোতে দেশ ভেদে আপনি সীমিত সময়ের কাজের জন্য ভিসা তৈরি করতে পারবেন আবার আপনি চাইলে অনেক বেশী সময় ধরে কাজ করার জন্য ভিসা নির্বাচন করতে পারবেন।

সাধারণ ভাবে সীমিত সময়ের কাজের জন্য ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কে গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হয়। তবে আপনি যদি বেশী সময় ধরে বাহিরের দেশে কাজ করতে চান তাহলে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা দিয়ে কাজ করতে পারবেন না। যারা পড়াশোনার ভিসায় বাহিরের দেশে যেতে ইচ্ছুক তারা সীমিত সময়ের কাজের জন্য ওয়ার্ক পারমিট ভিসা দিয়ে কাজ খুজে নিতে পারবেন।

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা গুলো সাধারণত ০২ টি ভাগে ভাগ করা হয় (১) ওপেন ওয়ার্ক পারমিট ভিসা এবং (২) ক্লোজ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা। এই দুই ধরনের ভিসার মধ্যে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পার্থক্য রয়েছে। আপনারা যদি ওয়ার্ক পারমিট ভিসা তৈরি করেন অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে আপনি সঠিক ভাবে এটি নির্বাচন করতে পারছেন কি না।

আরো পড়ুনঃ পাসপোর্ট করার নিয়ম ২০২২

ওপেন ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কি

ওপেন ওয়ার্ক পারমিট ভিসার মাধ্যমে আপনি স্বাধীনভাবে সব খানে কাজ করার সুযোগ পাবেন। বিষয়টা আরেকটু পরিস্কার করে বলি। ধরুন, আপনি US এ তে গেলেন ওপেন ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে। আপনি যে কোম্পানিতে চাকরির জন্য গেলেন কিছু দিন পর তার থেকে ভালো কোম্পানিতে চাকরির সুযোগ পেলেন। 

এখন, আপনার ভিসাটি যদি ওপেন ওয়ার্ক পারমিট ভিসা হয়ে থাকে তাহলে আপনার নিজস্ব ইচ্ছা অনুযায়ী যেকোনো চাকরি ছেড়ে নতুন কোনো চাকরিতে যোগদান করতে পারবেন। যদি আপনি স্বাধীন ভাবে কাজ করতে ইচ্ছুক হয়ে থাকেন আপনার জন্য ওপেন ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সবচেয়ে সহায়ক হবে।

ক্লোজ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

ক্লোজ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কে লক ওয়ার্ক ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ও বলা হয়। ক্লোজ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা গুলোতে খরচ সামান্য কম থাকে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। যে দেশে যে কোম্পানির কাজের জন্য আপনি সিলেক্ট করে যাবেন।

শুধুমাত্র সেই একটি কোম্পানিতে আপনি কাজ করার সুযোগ পাবেন। তার থেকে ভালো অপশন পেলেও আপনি চাকরি ছেড়ে দিতে পারবেন না। ভিসাতে উল্লেখ্য করা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত সেখানেই জব করতে হবে। আপনি যতদিন ক্লোজ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে সেদেশে বাস করবেন ততদিন আপনাকে শুধু সিলেক্ট করা কোম্পানিতেই কাজ করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ ভিসা কি কত প্রকার

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা করতে কি কি লাগে জানা দরকার

১। ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে আপনার একটি পাসপোর্ট অবশ্যই থাকতে হবে।

২। স্টুডেন্ট ভিসা, ভলিন্টিয়ার ও ইন্টার্নশিপ ভিসার জন্য ওয়ার্ক পারমিট ভিসা করতে পারবেন।

৩। দেশ ভেদে বিভিন্ন ধরণের চাহিদা থাকে ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য। চাহিদা পূরণে আপনি পরিপুরক কি না চেক করে নিন এই লিংক থেকে।

৪। ওয়ার্ক পারমিট ভিসা এর ক্ষেত্রে আপনার ভিসায় সামান্য সমস্যা পরিলক্ষিত হলে আপনাকে এম্বাসি থেকে আটকে দেয়া হবে।

৫। আপনি যদি ক্লোজ ভিসা করেন তাহলে যে কোম্পানি আপনাকে নিয়োগ দেবে সেটার সম্পুর্ণ ডকুমেন্টস আপনার কাছে থাকতে হবে। 

শেষ কথা

আশা করি আপনাদেরকে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা বা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কি সেটা সম্পর্কে বিস্তারিত একটি ধারণা দিতে পেরেছি। এছাড়াও আপনারা যারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা তৈরি করবেন নিজস্ব এম্বাসি থেকে বেশ ভালোভাবে বুঝে নেয়ার চেষ্টা করবেন। যেহেতু এখানে অনেক ডিফারেন্ট রয়েছে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা গুলোতে সেখানে ভুল সিদ্ধান্ত আপনার ক্যারিয়ারের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

0 Comments

* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.??