Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/06/diabetes-komanor-upay-ki.html

ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি

ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি - ডায়াবেটিস কমানোর উপায় — শরীরে চিনির রোগকে অনেকে ডায়াবেটিস, কেউ আবার সুগার রোগ বলে জানেন। সম্প্রতি সময় পর্যন্ত, মাত্র ৩ টি রোগ ছিল যার কোনো নিরাময় সম্ভব ছিল না। কিন্তু এখন এসব রোগ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ টিতে, যার মধ্যে একটি হলো ডায়াবেটিস। ডায়াবেটিস রোগকে মানুষ খুব সাধারণভাবে খুব হালকাভাবে নেয়। যদিও এটি একটি মারণ রোগ। মানুষ জানেও না যে এটি একটি খুব মারাত্মক রোগ, যার কারণে মৃত্যুর আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। আমাদের দেশে প্রায় 70% থেকে 75% মানুষ ডায়াবেটিসে ভুগছেন। 

ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি

আরো পড়ুনঃ কি খেলে টিউমার ভালো হয়

পেজ সূচীপত্রঃ ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি

আপনি জেনে অবাক হবেন যে যাদের ডায়াবেটিস রোগ আছে তাদের এই রোগ সম্পর্কিত গুরুতর তথ্য সম্পর্কে কোন ধারণা নেই। মানুষ জানে শুধু চিনি খেলে ডায়াবেটিস রোগ হয় আর চিনি খাওয়া বন্ধ করলে তা কমে যায়। আমাদের শরীরে শর্করার রোগ হয় যখন তখন আমাদের শরীরে অগ্ন্যাশয় সঠিকভাবে ইনসুলিন তৈরি করতে পারে না বা আমাদের দেহের কোষগুলি সেই ইনসুলিনকে সঠিকভাবে গ্রহণ করতে সক্ষম হয় না। 

এটি অনেক ধরণের খাবারকেও প্রভাবিত করে। আপনি নিশ্চয়ই দেখেছেন যে অনেকেই খাবার খাওয়ার আগে সুগারের ওষুধ খান এবং এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা ইনসুলিন ইনজেকশন নেন। ইনসুলিন ইনজেকশন নেওয়া মানুষের সামান্য ভুল হলে, সময়মতো খাবার না খেয়ে বা ইনজেকশন না নিলে তা তাদের মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়। প্রিয় পাঠক আমাদের আজকের এই আর্টিকেল ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি সম্পর্কে জানতে লেখাটি শেষ পর্যন্ত পড়ুনঃ

ডায়াবেটিস রোগের লক্ষণ

১। অতিরিক্ত ক্ষুধা ও তৃষ্ণা ২। অতিরিক্ত প্রস্রাব ৩। সবসময় ক্লান্ত বোধ করা ৪। ওজন বৃদ্ধি বা হ্রাস ৫। ঘন ঘন মুখ শুকিয়ে যাওয়া ৬। শরীর সংক্রমণের জন্য বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ৭। চোখের সমস্যা, ঝাপসা দৃষ্টি ৮। শরীরের কোনো ক্ষত দ্রুত সেরে যায় না ৯। ক্ষত নিরাময় ১০। মহিলাদের মধ্যে ঘন ঘন অকপট সংক্রমণ 

১১। রক্তে অতিরিক্ত চিনি স্নায়ুর ক্ষতি করতে পারে। ব্যক্তি তার হাত ও পায়ে শিহরণ অনুভব করে, সাথে হাত ও পায়ে ব্যথা এবং জ্বালা অনুভব করে। যাকে বারবার হাত-পা অসাড়তাও বলা যেতে পারে ১২। ডায়াবেটিস একজন ব্যক্তির সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়, যা মাড়ির সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায় এবং মাড়ি দুর্বল হয়ে গেলে দাঁত আলগা হতে পারে। মুখ থেকে দুর্গন্ধের সমস্যা হওয়ার আশঙ্কাও থাকে। 

যদিও ডায়াবেটিস 4 প্রকার, তবে বেশিরভাগ মানুষই হয় উচ্চ রক্তে শর্করা বা কম রক্তে শর্করায় ভোগেন। এ রোগের কোনো ওষুধ নেই। এই রোগে যে ওষুধ দেওয়া হয় তা আপনার ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণের জন্য দেওয়া হয়। কিছু সহজ ঘরোয়া প্রতিকারের মাধ্যমেও আপনি এই রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কোনো ওষুধ খেতে হবে না। 

আরো পড়ুনঃ কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

ডায়াবেটিস কমানোর উপায় - ডায়াবেটিস কমানোর উপায় কি

১। 6টি বেল পাতা, 6টি নিম পাতা, 6টি তুলসী পাতা, 6টি বেগুনের সবুজ পাতা, 3টি গোটা কালো গোলমরিচ পিষে খালি পেটে পান করলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। মনে রাখবেন, এটি পান করার পর অন্তত আধা ঘণ্টা কিছু খাবেন না।

২। আমলকিঃ 10 মিলিগ্রাম আমলকীর রসের সাথে 2 গ্রাম হলুদের গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে পাওয়া যায়। দিনে দুবার এই সমাধান নিন।

৩। তুলসীঃ তুলসী পাতায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, অ্যান্টিবায়োটিক, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিএজিং, অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়। যা থেকে ইজেনল, মিথাইল ইজিনল এবং ক্যারিওফাইলিন তৈরি হয়। এই সমস্ত উপাদানগুলি একত্রে কোষগুলিকে সাহায্য করে যেগুলি ইনসুলিনকে সঞ্চয় করে এবং নির্গত করে সঠিকভাবে কাজ করতে। 

এছাড়াও এতে এমন অনেক উপাদান পাওয়া যায় যা অগ্ন্যাশয়ের বিটা কোষকে ইনসুলিনের প্রতি সক্রিয় করে তোলে। এই কোষগুলো ইনসুলিনের নিঃসরণ বাড়ায়। সকালে খালি পেটে দুই থেকে তিনটি তুলসী পাতা চিবিয়ে খান বা চাইলে তুলসীর রসও পান করতে পারেন। এতে আপনার ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে আসবে। তুলসী খাওয়ার পাশাপাশি, আপনি যদি চিনি কমানোর ওষুধ খান, তাহলে শরীরের যত্ন নিন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কারণ এটি দ্রুত চিনি কমাতে কাজ করে। 

৪। কিছু আমলতা পাতা ধুয়ে তাদের রস বের করুন। এর এক-চতুর্থাংশ কাপ প্রতিদিন সকালে খালি পেটে পান করলে সুগারের চিকিৎসায় উপকার পাওয়া যায়।

৫। সবুজ চায়ে উচ্চ পরিমাণে পলিফেনল পাওয়া যায়। এটি একটি সক্রিয় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। যা রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। প্রতিদিন সকালে ও সন্ধ্যায় গ্রিন টি পান করলে উপকার পাবেন। 

৬। খাওয়ার পর নিয়মিত মৌরি খান। মৌরি খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। এসব ঘরোয়া প্রতিকার গ্রহণের পাশাপাশি ডায়াবেটিস রোগীদের পরিহারের বিশেষ যত্ন নিতে হবে।

৭। জামঃ জামের মৌসুমে কালো লবণ দিয়ে জাম খাওয়া ডায়াবেটিস রোগ কমাতে সহায়ক। এছাড়া বেরির ডাল শুকিয়ে পিষে গুঁড়ো বানিয়ে সকাল-সন্ধ্যা ২-২ চামচ হালকা গরম পানিতে খেলে ডায়াবেটিস রোগে অনেক উপকার পাওয়া যায়। 

৮। ড্রামস্টিকঃ যা বেশিরভাগ লোক ড্রামস্টিক নামেও জানেন। এটি দক্ষিণ ভারতের রান্নার পাশাপাশি আয়ুর্বেদিক ওষুধেও ব্যবহৃত হয়। ঝোলের শুঁটি বা ঝোল পাতার রস খাওয়াও ডায়াবেটিসের সমস্যা কমাতে সহায়ক। 

৯। শালগম খান সালাদ বা সবজি হিসেবে। শর্করার চিকিৎসার সময় শালগম খাওয়া খুবই উপকারী।

১০। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে গরম পানির সাথে তেঁতুলের গুঁড়ো খেলে ডায়াবেটিস কমে যায়। তেঁতুলের বীজে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায়, যার কারণে এটি চর্বি এবং সুগারকে সঠিকভাবে শোষণ করতে সাহায্য করে। ডায়াবেটিস রোগীদের খাবারের পরে শর্করার বীজ প্রায় ২৮ শতাংশ কমিয়ে দেয়।

১১। করলার রসঃ প্রতিদিন সকালে করলার রস খাওয়া বা করলার সবজি খেলেও ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। 

১২। রাতে ঘুমানোর আগে এক গ্লাস জলে মেথি বীজ রাখুন। সকালে খালি পেটে এই জল পান করুন এবং মেথি বীজ চিবিয়ে খান। এটি নিয়মিত খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।

১৩। অ্যালোভেরাঃ আমলকির রসে অ্যালোভেরার রস মিশিয়ে সকালে খেলেও ডায়াবেটিসে দারুণ উপকার পাওয়া যায়। 

১৪। রক্তে সুগারের মাত্রা কম রাখতে এক মাস আপনার প্রতিদিনের খাবারে এক গ্রাম দারুচিনি ব্যবহার করুন। চিনির ঘরোয়া ওষুধ হিসেবে দারুচিনি ব্যবহার করতে পারেন। 

১৫। সুগারের মাত্রা কমাতেও আম পাতার ব্যবহার খুব ভালো। 10-15 টি আম পাতা সারারাত 1 গ্লাস জলে ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালে সেই জল পান করুন। এটি ডায়াবেটিস কমাতে সহায়ক।

আরো পড়ুনঃ অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ

কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে

ডাক্তারের কাছে গেলে তিনি পরীক্ষার পরামর্শ দিবেন এবং রিপোর্ট আসার পরই তিনি চিকিৎসার পরামর্শ দেন। মনে রাখবেন চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কখনই ডায়াবেটিসের ওষুধ খাবেন না। এটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। 

ডায়াবেটিসের দুটি পরীক্ষা আছে, একটি উপবাস অর্থাৎ খালি পেটে এবং একটি কাপ খাওয়ার পর। খাবার-পরবর্তী সুগার টেস্টে যদি চিনির পরিমাণ বেড়ে যায়, তাহলে খালি পেটে পরীক্ষায় অনেক মনোযোগ দেওয়া হয়। ফাস্টিং টেস্টে যদি বেশি সুগার পাওয়া যায় তাহলে সেটা গুরুতর ব্যাপার।

আপনার ডাক্তারদের কাছ থেকে অনেক পরামর্শের প্রয়োজন এবং স্বাস্থ্যের প্রতি আরও মনোযোগ দেওয়া দরকার। এছাড়াও আপনার খাদ্যের প্রতি খুব যত্নবান হওয়া দরকার। কিন্তু যদি আপনার ফাস্টিং সুগার স্বাভাবিকের নিচে চলে আসে বা কম হয় তাহলে আপনাকে খুব বেশি চিন্তা করতে হবে না। আপনার কেবল আপনার খাদ্যের উপর কিছু নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে। সময়ে সময়ে আপনার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করান। বিশেষ করে গর্ভাবস্থায় এবং 40 বছর বয়সের পরে, নিয়মিত আপনার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে থাকুন। 

বিঃদ্রঃ- আলু, চাল, আখ, কলা, আম, চিকু, ডালিম, কমলা জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এগুলিতে উচ্চ পরিমাণে গ্লুকোজ থাকে। মিষ্টি তৈরি করতে বাজারে পাওয়া চিনিমুক্ত তরল এবং ট্যাবলেটগুলি ব্যবহার করেন তবে সেগুলি খুব সীমিত পরিমাণে নিন। এটি দীর্ঘ সময় ধরে এবং বেশি পরিমাণে সেবন করলেও স্বাস্থ্যের অবনতি হতে পারে। এর পাশাপাশি আপনার ডায়েট সম্পর্কে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। আপনার সামান্য অসাবধানতা এবং খাবারের সামান্য ঘাটতি আপনার মৃত্যুর কারণ হতে পারে। 

আরো পড়ুনঃ 

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?