Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2021/12/How-to-Properly-Charge-a-Phone-Battery.html

নতুন মোবাইল চার্জ দেয়ার নিয়ম | নতুন ফোন চার্জ করার নিয়ম

নতুন মোবাইল চার্জ দেয়ার নিয়ম - নতুন মোবাইল চার্জ করার নিয়ম — প্রত্যেক মানুষেরই নিজস্ব কিছু ইচ্ছা আকাঙ্খা থাকে। সে চায় তার স‌ে ইচ্ছা বা আকাঙ্খাক‌ে পূরণ করত‌ে। তার স‌ে ইচ্ছা বা আকাঙ্খাক‌ে পূরণ করত‌ে সর্ব‌োচ্চ‌োটা দিয়ে চেষ্টা কর‌ে। বর্তমান যুগ বিজ্ঞান‌েরে যুগ। আধু‌নিক এই যুগ‌ে প্রযুক্ত‌ির অবদান অনস্বীকার্য। আধু‌নিক এই বিজ্ঞা‌নের প্রযুক্তির অন‌্যতম এক আবিষ্কার হল‌ো স্মার্ট ফ‌োন। বর্তমান‌ের ডি‌জিটাল এই যু‌গে গ্রামের ধান ক্ষ‌েতে‌র একজন কৃষক থেকে শুরু ক‌রে সর্ব‌োচ্চ পর্যায়ের ব্যাক্তিবর্গ‌ের নিকটও আজ স্মার্টফ‌োন দ‌েখা যায়। 

নতুন ফোন চার্জ করার নিয়ম

‌দিন দিন স্মার্ট ফ‌োনের ব‌্যবহার বেড়েই চ‌‌‌লেছে। স্মার্টফ‌ো‌নের বদৌলতে, আজ এক মা‌‌য়ের আদ‌রের সন্তান প্রবা‌সে ‌গেলেও ঘ‌রে ব‌সে মা তার সন্তানক‌ে সরাসর‌ি দে‌খে কথা বল‌তে পা‌রেন, কর‌োনাকালীন সম‌য়ে আমা‌দের ‌‌শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠানগু‌লো বন্ধ থাকল‌েও অনলা‌ই‌‌নে মাধ্যমে স্মার্টফোনকে ব্যবহার করে শিক্ষকগণ তাদের পাঠদান চালিয়ে গেছেন। এছাড়াও এর হাজারও ব্যবহার রয়েছে যা আজকের জন্য আমাদের আলোচনার মূল বিষয় নয়। তাই আমরা ঔ দিক নিয়ে আলোচনা করবো না।

আমরা যখনই এই স্মার্টফোন কিনি তখন আমাদের মনে অনেক ধারণা আসে যে কীভাবে এই ফোনকে চার্জ দিলে ব্যাটারি ব্যাকআপ ভালো হবে। কিন্তু আমরা অনেকেই এটা জানি না। আবার অনেকেই এটাও ভাবেন যে নতুন মোবাইল ফোন কিনলে ১০০% চার্জ থাকলেও ৮-১০ ঘন্টা চার্জ দিতে হবে এর মাধ্যমে ব্যাটারি ভালো থাকবে। কিন্তু এই ধারণা কখনই সঠিক নয়। আসুন জেনে নেই নতুন মোবাইল চার্জ দেয়ার নিয়ম। 

নতুন মোবাইল চার্জ দেয়ার নিয়ম

নতুন মোবাইলের সাথে দেওয়া চার্জার দিয়েই আপনার ফোন সব সময় চার্জ দিতে হবে। কারণ এই চার্জার গুলো সরাসরি তাদের কোম্পানি থেকে তাদের মোবাইলের ব্যাটারি ডিমান্ড অনুযায়ী সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত করা হয়। যেকোনো ভ্রমণে কিংবা সফরে আপনার মোবাইল যেখানে নিয়ে যাবেন সাথে আপনার মোবাইলের চার্জারটি প্রয়োজন হলে সাথে করে নিয়ে যাবেন। এতে করে ব্যাটারি ব্যাকআপ খুব ভালো হয়। 

মোবাইল ফোন চার্জ দিয়ে কখনো মোবাইল ফোন ব্যবহার করবেন না। কারণ এতে একদিক দিয়ে ব্যাটারীতে ইলেকট্রন ট্রান্সফার হয় অপর দিক দিয়ে আপনি মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন বলে তা আবার সাথে সাথে চলে যায়। এতে করে ব্যাটারি পোটেনশিয়াল এনার্জি কমে যায়। ধীরে ধীরে ব্যাটারির ড্যামেজ হয়ে যায়। 

মোবাইল ফোনের ওয়াইফাই কিংবা নেট চালু করে কখনো মোবাইল চার্জ দিবেন না। কারণ নেট চালু অবস্থায় আপনার মোবাইলের ব্যবহারকৃত নেট ভিত্তিক সকল প্রকার অ্যাপ কিংবা সফটওয়্যার চালু থাকে। এতে করেও নেট চালু অবস্থায় মোবাইলের ব্যাটারি ব্যবহৃত হয়। যা আপনার মোবাইল ফোনের ব্যাটারিকে ড্যামেজ করার অন্যতম কারণ। 

মোবাইল ফোনের মধ্যে হাই রেজুলেশন যুক্ত থ্রিডি যেকোনো কম্পিউটার গেমস ডাউনলোড করে খেলা যাবে না। কারণ এতে ব্যাটারির ওপর এফেক্ট করে। এ ধরনের গেমস খেলার সময় মোবাইল অটোমেটিক গরম হয়ে যায়। এতে মোবাইল হ্যাং করে। কিছু ভালো মানের হাই কোয়ালিটি স্মার্টফোন গুলোর মধ্যে কোম্পানি থেকেই তারা অটোমেটিক চার্জ ফিলাপ ইন্ডিং মুড হয়েছে। 

যেখানে 100% চার্জ হওয়া মাত্রই চার্জারের সাথে মোবাইল ফোনের ডিসকানেকশন করা হয়। এতে করে ব্যাটারির ওপর অতিরিক্ত চার্জ হয়না। ফলে ভালো থাকে। আবার মোবাইল ফোন ব্যবহার সময়ে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে যাতে মোবাইল ফোনের চার্জ মিনিমাম 20% এর নিচে না যায়। এর জন্য মোবাইল ফোন ব্যবহারের সময় চার্জার বিষয়টি দেখতে হবে। 

আরও পড়ুনঃ এন্ড্রয়েড ফোন ভালো রাখার উপায় | স্মার্টফোন ভালো রাখার উপায়

নতুন মোবাইল কেনার পর করণীয়

আমরা অনেকেই নতুন মোবাইল কেনার পর কি করতে হবে তা বুঝে উঠতে পারিনা। এর জন্য অন্যের নিকট মোবাইল নিয়ে যাই। স্মার্টফোন কেনার পরে খুব জরুরি একটা বিষয় যা আমরা অনেকেই জানিনা সেটা হল আপনার স্মার্টফোনটি যেই কোম্পানির বা ব্রান্ডের কিনেছেন সেই কোম্পানির একাউন্টে আপনার একটি নিজস্ব একাউন্ট খুলতে পারেন। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় যেমন: প্রতিটি শাওমি সেটে রয়েছে তাদের কোম্পানির সাথে আন্ত ইন্টারনেট কানেকশন। 

যদি আপনি শাওমি সেট কিনেন এক্ষেত্রে আপনি আপনার মোবাইলে নিজস্ব একাউন্ট খুলতে পারবেন। আর এই অ্যাকাউন্টটি শাওমি কোম্পানির কম্পিউটার অপারেটরের হেড অফিস আপনার ডিভাইসটি সেভ থাকবে। এক্ষেত্রে অ্যাকাউন্ট খুললে আপনি দুটি সুবিধা পেতে পারেন। প্রথমত হল যদি কোন কারনে আপনার ডিভাইস হারিয়ে যায় বা চুরি হয়ে যায় খুব সহজেই আপনি আপনার সেটটি কোথায় আছে তার লোকেশন জানতে পারবেন। দ্বিতীয়টি হল অনেক সময় আপনার এই একাউন্ট করার কারণে কোম্পানি আপনাকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ফ্রি স্পেস দিতে পারে। এটি সম্পূর্ণ কোম্পানির ব্যক্তিগত বিষয়। 

নতুন মোবাইলের বক্সটি ভালোভাবে দেখে নিন

আপনার পছন্দের মোবাইল ফোনটি যদি অনলাইনে অর্ডার করে কিনে থাকেন তাহলে সেক্ষেত্রে ডেলিভারি পাওয়ার পরে অবশ্যই মোবাইলের বক্সটির ভেতরের অংশগুলোকে ভালোভাবে যাচাই বাছাই করুন। ভালোভাবে দেখে নিন ফোনটির ডেলিভারির সময়ে বক্সটির কোনো ধরনের ক্ষতি হয়েছে কি-না এসকল বিষয় খুঁটিয়ে দেখুন। ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলোতে এই ধরনের কোনো ত্রুটি হয়ে থাকলে তবে উক্ত প্রোডাক্ট ফেরত দেয়ার সুবিধে রয়েছে। তাই নতুন মোবাইল ব্যবহারের শুরুর আগেই এই সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নেওয়া ভালো। 

আর যদি আপনি অনলাইন থেকে মোবাইল ফোন না কিনেন, তাহলে মোবাইল ফোনের বক্সটিতে অন্যান্য সকল প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র যেমনঃ ইয়ারফোন, চার্জার ইত্যাদি এসকল রয়েছে কি-না সেগুলো চেক করে নিবেন। এবং মোবাইল ফোনের ওয়ারেন্টি কার্ড ও অন্যান্য সকল কাগজপত্র ঠিকঠাক রয়েছে কি-না সেটা ভালোভাবে যাচাই করে নিন। 

এছাড়াও মোবাইল ফোনটি অফিশিয়াল শো-রুম থেকে না কেনা হলে অনেক সময় দেখা যায় দোকানদাররা চার্জার, ইয়ারফোন এই সকল জিনিস পত্র আলাদাভাবে বিক্রি করার জন্যে রেখে দেয়। এজন্য এই সকল জিনিসপত্র আসে কিনা তা সম্পর্কে অবশ্যই নিশ্চিত হয়ে নেওয়া প্রয়োজন।

আরও পড়ুনঃ মোবাইল রেডিয়েশন থেকে বাঁচার উপায়

নতুন ফোনে গুগল একাউন্ট লগিন করুন

এন্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহার করার ক্ষেত্রে মোবাইল ফোনটি চালু করলেই গুগল একাউন্ট লগ ইন করার অপশন চলে আসে। এই অপশনটিকে বাদ না দিয়ে গুগল একাউন্টে অর্থাৎ জিমেইল একাউন্টে আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে নিন। কেননা এই অপশন স্কিপ করলেও আপনারা পরবর্তীতে ফোনের গুগল প্লে স্টোর ব্যবহার করে বিভিন্ন অ্যাপ ইন্সটল করার জন্য এবং অন্যান্য সকল কাজের জন্য গুগল একাউন্টে একসময় লগইন করতেই হবে। গুগল অ্যাকাউন্টে লগইন করলেই আপনারা গুগল ড্রাইভে এবং গুগল ফটোসে আগের স্মার্টফোন থেকে যা যা প্রয়োজনীয় ফাইল আপলোড করেছিলেন সে সকল ফাইলের এক্সেস পেয়ে যাবেন।

অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডিলিট করুন

নতুন মোবাইল ক্রয় করার পর ফোনে কোম্পানী কর্তৃক পূর্বে থেকেই কিছু অ্যাপ কিংবা ফাইল দেয়া থাকে। ফোনে দেওয়া ডিফল্ট অ্যাপগুলোর মাঝে কিছু কিছু অ্যাপ বা ফাইল আপনার দরকার হতে পারে, তবে আমার জানা মতে বেশিরভাগ অ্যাপ বা ফাইল আপনার কোনো কাজে আসবেনা। যেমনঃ ফোনে গুগল ড্রাইভ/গুগল ফটোস এই অ্যাপগুলো ফোন আগে থেকেই দেওয়া থাকে। 

কেউ সাধারণত মোবাইল ফোনের কোম্পানির আলাদা অ্যাপ স্টোরেজ হিসাবে ব্যবহার করেনা। কেননা সেগুলো গুগল অ্যাপ গুলোর সমমানের না। যেহেতু এই সকল অ্যাপ গুলো ব্যবহার করার প্রয়োজন হয়না তাই আপনার ফোনের মেমোরি অযথা ব্যবহার করবে। তাই অপ্রয়োজনীয় এসকল অ্যাপ রিমুভ করুন।

নতুন ফোনে দরকারি অ্যাপ ইনস্টল করুন

নতুন মোবাইল কেনার পরে উক্ত ফোনে আপনার প্রয়োজনীয় সব অ্যাপ ইন্সটল করা থাকবেনা। তাই আপনার জন্য দরকারি অ্যাপগুলোকে গুগল প্লেস্টোর কিংবা অ্যাপল অ্যাপস্টোর থেকে ডাউনলোড করুন। জেনে রাখা ভালো যে গুগল প্লেস্টোর কিংবা এরকম বিশ্বস্ত কোনো সোর্স ছাড়া অন্য কোনো সোর্স থেকে অ্যাপ ফোনে ইন্সটল করবেন না। যদি আপনি অবিশ্বস্ত সোর্স থেকে অ্যাপ ফোনে ইন্সটল করেন তাহলে আপনার ফোনে ভাইরাস ঢোকার সুযোগ থেকে যায়। 

আরও পড়ুনঃ আন অফিসিয়াল ফোন চেনার উপায় | আন অফিসিয়াল মোবাইল চেনার উপায়

অ্যাপ আপডেট করুন

নতুন মোবাইলে যেসকল অ্যাপ পূর্বে থেকেই ডিফল্ট ভাবে দেওয়া থাকে সেগুলোর বেশিরভাগ অ্যাপ বেশ পুরাতন বা নন আপডেট হয়ে থাকে। যেকোনো অ্যাপের পুরাতন ভার্সনে বিভিন্ন ধরনের ফিচারস কম হয়ে থাকে। তাই নতুন ফোনে গুগল প্লে-স্টোর অথবা অ্যাপল অ্যাপস্টোর কিংবা অন্যান্য সোর্স থেকে সেসকল অ্যাপের আপডেট ভার্সন ইনস্টল করুন। অ্যাপ আপডেট করার কারণে আপনি সেই অ্যাপগুলোকে ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন ও অ্যাপগুলির সর্বোচ্চ ব্যাবহার নিশ্চিত করতে পারবেন।

ফোনটি পুরোপুরি চার্জ করুন

নতুন মোবাইল কেনার পরে ফোনটিকে আপনার সুবিধে মতো ইউজার ফ্রেন্ডলি করে তোলার জন্যে ফোনটি নিয়ে বেশ কিছু সময় ধরে কাজ করার প্রয়োজন হবে। আর মোবাইল ফোনে পর্যাপ্ত পরিমাণে চার্জ না থাকলে বিভিন্ন কাজের প্রতি বিঘ্ন হতে পারে। তাই নতুন মোবাইল সেটআপের কাজ শুরু করার আগে মোবাইল ফোনটিকে পর্যাপ্ত পরিমাণে চার্জ দিতে হবে। যার কারণে কাজের মাঝে মোবাইলের চার্জ শেষ হয়ে যাওয়ার সমস্যায় পড়তে হবেনা। 

নতুন ফোনে ওয়াইফাই কানেক্ট করুন

নতুন মোবাইলে আপনার প্রয়োজনীয় সকল অ্যাপগুলোকে ইনস্টল করার প্রয়োজন হবে এবং বিভিন্ন ফাইল ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করতে হবে। ফোনে ইন্টারনেটের এমবি প্যাক দিয়ে এটি করা বেশ খরচ সাপেক্ষ্য হবে এবং এটি করতে ইন্টারনেটের গতিও অনেক কম হতে পারে। তাই নতুন ফোনটিকে ওয়াইফাইয়ের সঙ্গে কানেক্ট করে নেয়াটাই অনেক উত্তম হবে। যার কারণে আপনার তেমন বেশি খরচ হবেনা, প্রয়োজনীয় অ্যাপ ও ফাইলগুলো দ্রুততার সাথে ডাউনলোড করা সম্ভবপর হবে এবং ডাউনলোড করার সময়ে এমবি শেষ হয়ে যাওয়ার মতো কোনো অসুবিধার সৃষ্টি হবেনা। 

আরও পড়ুনঃ মোবাইলে ডাটা খরচ কমানোর উপায়

ব্লোটওয়্যার আনইন্সটল করুন

ব্লোটওয়্যার বলতে বোঝায় বাণিজ্যিক অ্যাপ যেগুলো পূর্বে থেকে মোবাইল কোম্পানি থেকেই ইনস্টল করা থাকে। সাধারণত এই সকল অ্যাপ আমাদের তেমন কোনো কাজে আসেনা, বরং এই অ্যাপগুলো ব্যাকগ্রাউন্ডে চলমান থাকে এবং মোবাইলের চার্জ দ্রুততার সাথে শেষ করে ফেলে এবং মেমোরি স্পেস দখল করে থাকে। তাই নতুন মোবাইল কেনার পরে এই সকল ব্লোটওয়্যার গুলোকে রিমুভ করুন। যদি আপনার মোবাইলের পলিসির কারণে অ্যাপগুলিকে রিমুভ না করা যায়, তবে উক্ত অ্যাপগুলোকে সেটিংস থেকে ডিজেবল করুন।

মোবাইলের সিকিউরিটি নিশ্চিত করুন

আপনার নিজের মোবাইলের সকল তথ্যাবলী কেবলমাত্র আপনার একান্তই ব্যাক্তিগত, তাই এই সকল তথ্যাবলীর সিকিউরিটি নিশ্চিত করাটাও অতিব প্রয়োজনীয়। মোবাইলের সিকিউরিটি নিশ্চিত করার জন্যে মোবাইলের সেটিংস অপশনে গিয়ে সিকিউরিটি অপশনে গিয়ে আপনারা পাসওয়ার্ড সিস্টেম, ফিঙ্গারপ্রিন্ট লক কিংবা প্যাটার্ন লক সেটাপ করে নিন। এই সেটিংস চালু করার কারণে আপনার ফোনে আপনি ব্যতীত অন্য কেউ আপনার মোবাইল ওপেন করতে পারবেনা এবং আপনার ব্যাক্তিগত তথ্যগুলো থাকবে নিরাপদ। 

তাছাড়া আপনি চাইলে আলাদা আলাদা অ্যাপের মাঝে যেমনঃ ফেসবুক, মেসেঞ্জার, ফটো গ্যালারি এসকলের জন্য অ্যাপলক ব্যবহার করতে পারবেন। অ্যাপলক ব্যবহার করার কারণে অন্য কেউ আপনার মোবাইলের এই সকল অ্যাপে ঢুকতে পারবেনা। এতে করে আপনার ব্যক্তিগত টেক্সট, ছবি ইত্যাদি থাকবে নিরাপদ। 

নতুন ফোনে ভালোমানের কভার ইউজ করুন

ভালোমানের মোবাইল কভার ইউজ করুন। কেননা আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন না যে আপনার নতুন মোবাইল ফোনটি কোনোভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত হোক। তাই মোবাইল ফোনে যাতে কোনো রকম দাগ না লাগে তাই অবশ্যই ফোনের জন্যে ভালোমানের একটি ব্যাক কভার ইউজ করুন। বর্তমানে বাজারে ফোনের বিভিন্ন মডেলের জন্যে আলাদা আলাদা ব্যাক কভার পাওয়া যায়। আর মোবাইল ফোনের ডিসপ্লে যাতে নিরাপদ থাকে তাই মোবাইল ফোনের উপর গ্লাস প্রোটেক্টর ব্যবহার করুন। 

গ্লাস প্রোটেক্টর ব্যবহার করার কারণে মোবাইল ফোনটি আঘাত প্রাপ্ত হলে হয়তো প্রোটেক্টরটি ক্ষতিগ্রস্ত হবে কিন্ত ডিসপ্লে ভালো থাকবে। আর এই কাজটি আপনি সহজেই কম খরচেই করতে পারবেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত গ্লাস প্রোটেক্টর খুব কম টাকায় পরিবর্তন করতে পারবেন। আর গ্লাস প্রোটেক্টর ব্যবহার করার কারণে কিন্তু মোবাইলের দামী ডিসপ্লেটি রক্ষা পাবে। তাছাড়াও অনেক সময় দেখা যায় যে, মোবাইলের ক্যামেরা ফোনের বডির থেকে একটু বৃদ্ধি থাকে। সেক্ষেত্রে সুরক্ষার জন্যে আপনারা ক্যামেরা প্রোটেক্টর ব্যবহার করতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া