লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে - লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে - কিভাবে লোকেশন শেয়ার করবো - আপনি কীভাবে Location Share করবেন? অনেক সময় আমাদেরকে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে আমাদের লোকেশন শেয়ার করার প্রয়োজন পড়ে।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

সূচীপত্রঃ লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে - লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

বিশেষ করে, আপনি যখন কোনো অচেনা জায়গায় থাকেন অথবা কোনো একটি গন্তব্যে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বের হন, তখন আপনার পরিচিত জন অথবা বন্ধু-বান্ধবদের কাছে আপনার অবস্থান জানানোর জন্য অবশ্যই ডিভাইসের লোকেশন শেয়ারিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। 

আপনি যদি আপনার বন্ধু বা পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের কাছে আপনার বর্তমান লোকেশন শেয়ার করতে চান অথবা আপনার সন্তানদের অবস্থান ট্র্যাক করতে চান, তাহলে Location Sharing আপনার জন্য একটি সহজ টুল হতে পারে। যা দিয়ে, আপনি খুব সহজেই আপনার বর্তমান অবস্থান লোকেশন অন্যান্য ব্যক্তিদের কাছে শেয়ার করতে পারবেন। 

আপনি আপনার অবস্থান অন্য কারো কাছে শেয়ার করার জন্য বেশ কয়েকটি পদ্ধতি বেছে নিতে পারেন। অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে, আপনার লোকেশন শেয়ার করা তুলনামূলক ভাবে অনেক সহজ। 

এক্ষেত্রে, আপনি চাইলে Google maps, Facebook, Whatsapp এবং Messenger ইত্যাদি অ্যাপের মাধ্যমে লোকেশন শেয়ার করতে পারবেন। চলুন তবে, এবার দেখে নেওয়া যাক, আপনি আপনার যেকোন ডিভাইস থেকে কোন ব্যক্তির কাছে কীভাবে লাইভ লোকেশন শেয়ার করতে পারেন। লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে বা লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম জানার জন্য আমাদের আজকের এই লেখাটি শেষ পর্যন্ত আপনাকে পড়তে হবেঃ

১. Google Maps ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের কাছে বহুল ব্যবহৃত একটি অ্যাপ্লিকেশন হলো গুগল ম্যাপস। একজন সাধারণ ব্যবহারকারী থেকে শুরু করে, প্রায় সকলেই প্রতিদিনকার কাজে গুগল ম্যাপস ব্যবহার করে থাকেন। 

গুগল ম্যাপস ব্যবহার করে আপনি শুধুমাত্র কোন একটি অচেনা জায়গার মানচিত্র খুঁজে বের করতে পারেন না।‌ বরং, আপনি এটি অনেক কঠিন পরিস্থিতিতে ও কাজে লাগাতে পারেন। এছাড়াও, আপনি এটিকে Legal Location Tracking মাধ্যম হিসেবে ও ব্যবহার করতে পারেন।

অর্থাৎ, আপনি গুগল ম্যাপ ব্যবহার করে খুব সহজেই আপনার বন্ধু-বান্ধব অথবা আত্মীয় স্বজনের কাছে আপনার লাইভ লোকেশন শেয়ার করতে পারেন। যাতে করে, অপর প্রান্তে থাকা সেই ব্যক্তি খুব সহজেই আপনার বর্তমান অবস্থান জানতে পারে। 

এই ফিচারটি বিশেষ করে তখনই বেশি কাজে লাগে, যখন আপনি বাড়ি থেকে কোথাও ভ্রমণের উদ্দেশ্যে বের হন। এ সময় আপনি যদি আপনার লোকেশন শেয়ার এর লিংক আপনার বন্ধু-বান্ধব অথবা আত্মীয়দের মোবাইলে প্রেরণ করেন, তাহলে তারা আপনার সাথে যোগাযোগ না করেই, আপনার বর্তমান লোকেশন জানতে পারবে।

গুগল ম্যাপস ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

গুগল ম্যাপস থেকে লোকেশন শেয়ার করার প্রক্রিয়াটি অনেক সহজ। ‌আপনি মাত্র কয়েকটি ক্লিকের মাধ্যমে এই কাজটি করতে পারবেন। ‌

১. এজন্য আপনাকে প্রথমে আপনার অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল থেকে Google Maps অ্যাপটি ওপেন করে নিতে হবে। এবার আপনার জিপিএস বা ফোনের উপর থেকে লোকেশন চালু করে নিতে হবে এবং তারপর Google Maps এর হোমপেজে থাকা Location আইকনটিতে ক্লিক করতে হবে; যেখানে ক্লিক করলে লাইভ লোকেশন দেখা যায়।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

এরপর গুগল ম্যাপ এর উপরের থাকা প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করতে হবে এবং তারপর Location Sharing অপশনে ক্লিক করতে হবে।

২. এবার গুগল ম্যাপস থেকে লোকেশন শেয়ারের জন্য Location Share বাটনে ক্লিক করবেন। তারপর আপনার সামনে লোকেশন শেয়ার করার অপশন আসবে।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

৩. এবার আপনি আপনার লাইভ লোকেশন কত সময় ধরে শেয়ার রাখতে চাচ্ছেন, সেই সময়টি সিলেক্ট করুন। এক্ষেত্রে, এখানে আপনি ১ ঘন্টা, ২ ঘণ্টা অথবা আপনার ইচ্ছা মতো সময় সিলেক্ট করে দিতে পারেন। সময় সিলেক্ট করে দেওয়া হয়ে গেলে, এবার যেকোন একটি মাধ্যমে সেই লিংকটি আপনার বন্ধু অথবা পরিবারের সদস্যদের কাছে শেয়ার করুন।

লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

এখানে আপনার লাইভ লোকেশনটি শেয়ার করার জন্য সমস্ত অপশন দেখতে পাবেন, যেগুলোর মধ্যে থেকে যেকোনো একটি অপশন বেছে নিয়ে আপনার Location Share করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ চ্যাট জিপিটি কি নির্ভরযোগ্য বিষয়ক তথ্য প্রদান করতে পারে?

২. Whatsapp ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

আমরা প্রায় সকলেই মেসেজিং এর জন্য হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে থাকি। আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে গুগল ম্যাপ দিয়ে লোকেশন শেয়ার করার পাশাপাশি, Whatsapp অ্যাপ ব্যবহার করেও আপনার লোকেশন শেয়ার করতে পারবেন। 

আপনিও যদি একজন Whatsapp ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি খুব সহজেই Whatsapp ব্যবহার করেও Location Share করতে পারবেন। হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম তুলনামূলক ভাবে অনেক সহজ। চলুন এবার দেখে নেওয়া যাক, কিভাবে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করা যায়:

১. Whatsapp থেকে লোকেশন শেয়ার করার জন্য আপনাকে প্রথমে হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাপে প্রবেশ করতে হবে। এরপর, আপনি যে ব্যক্তিকে আপনার লোকেশন শেয়ার করতে চাচ্ছেন, তার চ্যাটিং প্রোফাইলে যেতে হবে। ‌এরপর হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ টাইপ করার অপশনের পাশে Attach অপশনে ক্লিক করতে হবে।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

এবার এখানে আপনি অনেকগুলো অপশন পাবেন, যেগুলোর মধ্য থেকে Location Sharing এর জন্য আপনাকে Location অপশনটি বেছে নিতে হবে। 

এরপর, Continue অপশনে ক্লিক করে আপনাকে আপনার মোবাইলের GPS পারমিশন দিতে হবে। এবার আপনার সামনে গুগল ম্যাপস এর একটি উইন্ডো ওপেন হবে।

২. এবার আপনি যদি আপনার সেই বন্ধুর কাছে আপনার বর্তমান লোকেশন শেয়ার করতে চান, তাহলে নিচে থাকা Send your correct location অপশনে ক্লিক করবেন।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

এখানে ক্লিক করলে মূলত, আপনার বর্তমান লোকেশন এর একটি স্ক্রিনশট আপনার বন্ধুর কাছে শেয়ার হবে, যা দিয়ে আপনার সেই বন্ধু আপনার অবস্থান নির্ণয় করতে পারবে।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

আর আপনি যদি চান যে, আপনার বর্তমানের অবস্থান থেকে শুরু করে আগামী কয়েক ঘণ্টার অবস্থান সেই বন্ধু লাইভ দেখুক, তাহলে Share live location অপশনে ক্লিক করে তাকে লোকেশন শেয়ার করতে পারেন। এতে করে, সেই ব্যক্তি বেধে দেওয়া নির্ধারিত সময় পর্যন্ত আপনার লাইভ লোকেশন দেখতে পাবে।

আরো পড়ুনঃ গ্যাসের চুলার দাম বাংলাদেশ ২০২৩

৩. ফেসবুক মেসেঞ্জার থেকে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

আমাদের মধ্যে প্রায় সকলেই ফেসবুক মেসেঞ্জার ব্যবহার করে থাকে। আমরা চাইলে, যেকোনো সময় অন্যান্য প্ল্যাটফর্মের সহযোগিতার না নিয়ে সরাসরি ফেসবুক ব্যবহার করেও আমাদের লাইভ লোকেশন অন্য কোন ব্যক্তির কাছে শেয়ার করতে পারি। 

অন্যান্য সকল মাধ্যমের মতোই, ফেসবুক মেসেঞ্জার ব্যবহার করে ও লোকেশন শেয়ারিং এর পদ্ধতি অনেক সহজ এবং সিম্পল। আপনি জাস্ট কয়েকটা ক্লিকের মাধ্যমেই আপনার লোকেশন আপনার ফেসবুক ফ্রেন্ড এবং পরিচিত জনদের কাছে শেয়ার করতে পারবেন। 

আপনার যদি কোন বন্ধুর সাথে চ্যাটিং করার মুহূর্তে আপনার বর্তমান লোকেশন শেয়ার করার প্রয়োজন পড়ে, তাহলে আপনি কয়েকটি ক্লিকের মাধ্যমে Location Share করতে পারেন। মেসেঞ্জার ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম:

১. এজন্য আপনাকে কোন একজন ব্যক্তির সাথে চ্যাটিং করার জন্য যেতে হবে এবং তারপর বাম পাশের চারটি ডট অপশনের আইকনটিতে ক্লিক করতে হবে। এবার এখানে আপনি শুধুমাত্র একটি Location লেখা বাটন দেখতে পাবেন। এবার আপনার সেই বন্ধুর কাছে আপনার লোকেশন শেয়ার করার জন্য সেই বাটনটিতে ক্লিক করবেন।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

২. এরপর আপনার কাছে Location Sharing এর পারমিশন চাইবে, যা আপনাকে Allow করে দিতে হবে। এবার আপনি যদি সেই বন্ধুকে আপনার লাইভ লোকেশন শেয়ার করতে চান, তাহলে নিচে থাকা "Start Sharing Live Location for 60 min" বাটনে ক্লিক করবেন।

লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে

আপনি এই বাটনে ক্লিক করার পর, ৬০ মিনিটের জন্য আপনার বন্ধুর কাছে আপনার লাইভ লোকেশন এর একটি লিংক শেয়ার হবে। এবার আপনার সেই বন্ধু যদি সেই লিংকটিতে ক্লিক করে, তাহলে সে ৬০ মিনিটের জন্য আপনার বর্তমান লোকেশন দেখতে পাবে। 

আর, আপনি চাইলে একবার লোকেশন শেয়ার করার পর, ৬০ মিনিটের আগেই আবার পুনরায় লোকেশন শেয়ারিং বন্ধ করতে পারেন। এজন্য আপনাকে আবার একই অপশনে এসে শুধুমাত্র "Stop Sharing Live Location" বাটনে ক্লিক করলেই হবে।

আমরা যেহেতু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই চ্যাটিং করার জন্য মেসেঞ্জার ব্যবহার করে থাকি, তাই আমরা খুব দ্রুত আমাদের লোকেশন শেয়ার করার জন্য এই ফেসবুক মেসেঞ্জার অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করতে পারি। এটি আমাদেরকে দ্রুত এবং সহজ পদ্ধতিতে লোকেশন শেয়ারিং এর ফিচার অফার করে।

৪. আইফোন ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

অনেক ব্যবহারকারী রয়েছেন যারা আইফোন ব্যবহার করে থাকেন। আপনি অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিয়ে লোকেশন শেয়ার করার পাশাপাশি আইফোন দিয়েও অনেক স্মার্টভাবে আপনার লোকেশন শেয়ার করতে পারবেন। 

আপনি যদি আইফোন ডিভাইস ব্যবহার করে আপনার লোকেশন শেয়ার করতে চান, তাহলে আপনি কোন অ্যাপ ব্যবহার না করে সরাসরি সেটিংস থেকেই লোকেশন শেয়ারিং অপশন চালু করতে পারেন। ‌

আইফোন দিয়ে লাইভ লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

১. আইফোন ডিভাইস ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার জন্য প্রথমে আপনাকে Settings অপশনে যেতে হবে। লোকেশন শেয়ার করার জন্য আপনাকে অবশ্যই এটি নিশ্চিত করতে হবে যে, আপনার ডিভাইসটিতে Location Sharing সার্ভিসটি চালু করা আছে। এটি দেখার জন্য, Settings থেকে Privacy অপশনে যান এবং তারপর Location Service বন্ধ করার থাকলে চালু করে দিন। ‌

এবার সেখানে থাকা Share My Location অপশনে ক্লিক করুন এবং Share My Location অপশনটি চালু করে দিন। ‌

এরপর আপনি যদি কোন ব্যক্তিকে মেসেজের মাধ্যমে আপনার বর্তমান লোকেশন শেয়ার করতে চান, তাহলে মেসেজ অপশনে যান এবং তারপর তার প্রোফাইলের উপর ক্লিক করুন। 

এরপর Send My Current Location অপশনে ক্লিক করে লোকেশন শেয়ারিং এর জন্য সময় নির্ধারণ করুন এবং Done অপশনে ক্লিক করে সেভ করুন। এবার সেই ব্যক্তির কাছে আপনার বর্তমান লোকেশনটি শেয়ার হয়ে যাবে এবং তিনি আপনার লাইভ লোকেশন দেখতে পাবেন।

এছাড়াও, আপনি সরাসরি Contact থেকেও আপনার লোকেশন কোন ব্যক্তির কাছে শেয়ার করতে পারেন। এক্ষেত্রে, সেই ব্যক্তির কন্টাক্ট ওপেন করুন এবং তারপর সেখান থেকে Share My Location অপশন টিতে ক্লিক করুন। 

আপনি এখানে ও লোকেশন শেয়ার করার জন্য সময় নির্ধারণ করে দিতে পারবেন। যেখানে আপনি এক ঘন্টা, দুই ঘন্টা অথবা আনলিমিটেড সময় দিয়ে লোকেশন শেয়ার করতে পারবেন।

সেই সাথে, আপনি আইফোনে গুগল ম্যাপ ব্যবহার করেও লোকেশন শেয়ার করতে পারবেন। এজন্য অ্যান্ড্রয়েড ফোনের মত আইফোনে ও Google Map অ্যাপটি ওপেন করে Live Location আইকনটিতে ক্লিক করবেন এবং তারপর Pop-up মেনু থেকে "Share My Location" অপশনটি সিলেক্ট করবেন। 

এবার আপনি সেখানে সময় নির্ধারণ করে দিয়ে যেন মাধ্যমে সেই লিংকটি অপর ব্যক্তির কাছে শেয়ার করতে পারবেন। এরপরের পরবর্তী প্রক্রিয়াগুলো মূলত অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের মতোই, যা আপনাকে দেখাতে হবে না।

৫. থার্ডপার্টি অ্যাপ ব্যবহার করে লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম

আপনি গুগল ম্যাপস, হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেঞ্জার এবং অন্যান্য পরিচিত অ্যাপসগুলো ব্যতীত ও থার্ড পার্টি অ্যাপস এর মাধ্যমে আপনার লোকেশন শেয়ার করতে পারেন। আপনি এই লোকেশন শেয়ারিং এর পদ্ধতিটি অনেক সুবিধাজনক কাজেও ব্যবহার করতে পারেন। 

উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার বাচ্চাদের ডিভাইসটির অবস্থান ট্র্যাক করার জন্য এ ধরনের লোকেশন শেয়ারিং অ্যাপ্লিকেশন গুলো ব্যবহার করতে পারেন।

লোকেশন শেয়ার করার জন্য বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় লোকেশন শেয়ারিং অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে। এগুলোর মধ্যে যেমন: Find360, Glympse, GeoZilla, Life360 এবং Find My Kids ইত্যাদি। এসব অ্যাপের বাহিরে ও আরো অনেক লোকেশন শেয়ারিং অ্যাপ রয়েছে, যেগুলো যেকেউ ব্যবহার করতে পারে।

আমরা যদি লোকেশন শেয়ার করার জন্য গুগল ম্যাপস অথবা মেসেঞ্জার এর মত অ্যাপ্লিকেশন গুলো ব্যবহার করি, তাহলে আমরা এখানে অনেক কম ফিচার পাবো। যেখানে, আমরা শুধুমাত্র সময় নির্ধারণ করে দিয়ে আমাদের লাইভ লোকেশন শেয়ার করতে পারি এবং প্রয়োজনে সেটি আবার বন্ধ করতে পারি। 

কিন্তু, অন্যদিকে আমরা যদি লোকেশন শেয়ার করার জন্য থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহার করি, তাহলে সেগুলোতে আমরা আরো অনেক এডভান্স ফিচার পেতে পারি।

থার্ড পার্টি লোকেশন শেয়ার করার এপস গুলো ব্যবহার করে রিয়েল টাইম লোকেশন দেখার ক্ষেত্রে অনেক ফাংশনালিটি যুক্ত করা যেতে পারে। 

যেখানে, আমরা আলাদাভাবে নোটিফিকেশন Create করতে পারি, Speed এবং দূরত্ব নির্ণয় করতে পারি। তবে, আপনাকে যদি শুধুমাত্র আপনার বন্ধুবান্ধব অথবা আত্মীয়-স্বজনের কাছে লোকেশন শেয়ারিং এর প্রয়োজন পড়ে, তাহলে আপনি গুগল ম্যাপস, হোয়াটসঅ্যাপ অথবা ফেসবুক মেসেঞ্জার ব্যবহার করতে পারেন। ‌

আর অন্যদিকে, আপনি যদি আপনার সন্তানদের অবস্থান ট্র্যাক করতে চান, তাহলে আমি অবশ্যই আপনাকে থার্ড পার্টি লোকেশন শেয়ারিং অ্যাপ্লিকেশন গুলো ব্যবহার করার পরামর্শ দিব।

শেষ কথাঃ লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে - কিভাবে লোকেশন শেয়ার করবো

আমাদের অনেক সময় জরুরী মুহূর্তে কিংবা বিশেষ প্রয়োজনের লোকেশন শেয়ার করার প্রয়োজন পড়ে। এক্ষেত্রে আপনি আপনার হাতের পাশে থাকা ডিভাইসটি ব্যবহার করেই আপনার বর্তমান অবস্থান যে কারো কাছে শেয়ার করতে পারবেন। 

আর লোকেশন শেয়ারিং এর জন্য আপনি আপনার ডিভাইসে থাকার ডিফল্ট অ্যাপ এবং প্রয়োজনীয় ম্যাসেঞ্জিং অ্যাপের সাহায্য নিতে পারেন, যেগুলোতে ইতিমধ্যেই Location Sharing এর মতো ফিচার রয়েছে।

এছাড়াও, আপনি চাইলে Third Party অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করেও আপনার লোকেশন শেয়ার করতে পারেন। যেগুলো আপনাকে লোকেশন শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ফিচার এবং সুবিধা প্রদান করতে পারে। 

প্রিয় পাঠক কেমন লাগলো আমাদের আজকের লোকেশন শেয়ার কিভাবে করে বা লোকেশন শেয়ার করার নিয়ম এই লেখাটি তা অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্টে জানিয়ে দিবেন।

পোষ্ট ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত দিন

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)