Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/07/piles-rog-valo-korar-upay.html

পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায় - পাইলস এর চিকিৎসা — যন্ত্রণাদায়ক হওয়ার পাশাপাশি পাইলস বিব্রতকরও বটে। পাইলস হওয়ার পরে মানুষ সাধারণত অন্যকে এই বিষয়ে বলতে লজ্জাবোধ করে। কিন্তু পাইলস সেই রোগগুলির মধ্যে একটি নয়, যা নিজে থেকেই ভাল হয়ে যায়, বরং এটি আরো খারাপ হয়। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এর চিকিৎসা করা জরুরি। 

পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

পাইলস রোগে আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত, ভালো এবং কার্যকর ফলাফলের জন্য ঘরোয়া উপায় গুলো অনুসরণ করতে হবে। আমাদের আজকের এই লেখায় পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায় জানতে লেখাটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

সূচীপত্রঃ পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

বাটার মিল্ক হল পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

বাটার মিল্ক হল পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির সর্বোত্তম প্রতিকার। এক গ্লাস বাটারমিল্কে এক চিমটি লবণ এবং এক চতুর্থাংশ চা চামচ ক্যারাম বীজ মিশিয়ে নিন। এটি প্রতিদিন পান করুন এবং কার্যকরভাবে আপনার পাইলস নিরাময় করুন।

মুলা পাইলসের ঘরোয়া চিকিৎসা

মুলা পাইলসের অন্যতম কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার এবং এটি পাইলসের চিকিৎসায় ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। আধা গ্লাস মুলার রসে ১ চিমটি লবণ যোগ করুন। এটি দিনে দুবার পান করুন। এছাড়া এর পেস্ট মধুর সঙ্গে মিশিয়ে মলদ্বারের চারপাশে লাগালে ব্যথা ও ফোলাভাব কমে যায়।

আরো পড়ুনঃ নিয়মিত হাঁটার উপকারিতা

কালোজিরা পাইলসের রক্তপাতের ওষুধ

কালোজিরা পাইলসের এবং আমাদের দেশে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। জিরা গুঁড়ো এবং পানি মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং এটি 15 মিনিটের জন্য ফোলা জায়গায় লাগান। পাইলসের উপসর্গ কমাতে এই পদ্ধতি খুবই কার্যকর।

বেল ফল পাইলসের ঘরোয়া প্রতিকার

ফোলাভাব কমাতে, কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসায় এবং পাচনতন্ত্রকে সুস্থ রাখতে বেল ফলের কার্যকারিতা অনেক। এটি পাইলসের জন্য একটি আদর্শ ভেষজ প্রতিকার। এটি ট্যানিনের একটি ভাল ভাণ্ডার যা পরিপাকতন্ত্রের ক্ষতিকারক আক্রমণকারীদের ধ্বংস করার জন্য সক্রিয় ক্রিয়াকলাপের জন্য পরিচিত। এটি একটি ভালো রেচক হিসাবে কাজ করে এবং খুব বেশি ব্যথা ছাড়াই মল পাস করতে সহায়তা করে। প্রতিদিন বেল পান করা পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির একটি প্রমাণিত প্রতিকার।

রসুন দিয়ে পাইলস রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

আপনার বেদনাদায়ক পাইলসের জন্য রসুন একটি নিখুঁত সমাধান। এটিতে চমৎকার অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যাস্ট্রিনজেন্ট উপাদান রয়েছে। এটি ব্যথা এবং জ্বালা উপশম করে এবং মলত্যাগের প্রক্রিয়া সহজ করে। আপনি প্রতিদিন কাঁচা রসুনের লবঙ্গ খেতে পারেন বা এটি সাপোজিটরি হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে জীবাণু ধ্বংস হয়।

আরো পড়ুনঃ স্তন ক্যান্সারের কারণ ও করণীয়

পেঁপে পাইলসের ঘরোয়া চিকিৎসা

পেঁপে ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান গুলির একটি সমৃদ্ধ উৎস এবং এতে একটি শক্তিশালী হজমকারী এনজাইম-পাপেইন রয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্য এবং রক্তপাতের পাইলসের চিকিৎসার জন্য একটি শক্তিশালী ফল হিসাবে বিবেচিত হয়। আপনি এটি আপনার প্রাতঃরাশের (প্রাতঃরাশ হলো খাবার সকালে খাওয়া) মধ্যে খেতে পারেন বা মলদ্বার চলাচল সহজ করতে এর রস মলদ্বারে প্রয়োগ করতে পারেন। আপনি আপনার সালাদে কাঁচা পেঁপেও রাখতে পারেন।

বাদাম রক্তাক্ত পাইলসের জন্য সেরা ওষুধ

এছাড়াও বাদাম খাদ্য তালিকাগত ফাইবারের একটি উৎস এবং অন্ত্রের কার্যকারিতায় সাহায্য করে। প্রতিদিন সকালে তিনটি বাদাম খাওয়া পাইলসের ভালো চিকিৎসা। ভালো এবং কার্যকর ফলাফলের জন্য অন্তত ৫০ বার বাদাম সঠিকভাবে চিবিয়ে নিন। আপনি ফোলা এবং চুলকানি উপশম করতে আক্রান্ত স্থানে বাদামের তেলও লাগাতে পারেন। বাদাম তেল ত্বককে প্রশমিত করে এবং বাহ্যিক হেমোরয়েডের জন্য একটি ভাল প্রতিকার।

তিল পাইলস থেকে মুক্তি দেয়

আয়ুর্বেদে তিলকে পাইলসের জন্য একটি ভালো চিকিৎসা বলে মনে করে। এটি হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে এবং কোলন পরিষ্কার করার প্রক্রিয়াটিকে কম বেদনাদায়ক করে ডায়রিয়াকে নরম করে। এটি ফোলা এবং ব্যথা হ্রাস করে এবং পায়ু অঞ্চলে জ্বালাপোড়া এবং চুলকানি সংবেদন হ্রাস করে। জলে তিল সিদ্ধ করুন এবং তারপর এটি একটি সূক্ষ্ম পেস্ট তৈরি করুন। এতে অল্প পরিমাণ মাখন মিশিয়ে সেবন করুন।

শুকনো ডুমুর হল পাইলসের ঘরোয়া প্রতিকার

শুকনো ডুমুর হল পাইলসের আরেকটি কার্যকরী প্রতিকার। শুধু কিছু শুকনো ডুমুর সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে পরদিন সকালে খেয়ে ফেলুন। পাইলস থেকে মুক্তি পেতে এই প্রক্রিয়াটি 2-3 সপ্তাহ পুনরাবৃত্তি করুন।

ইসাবগোল পাইলসের জন্য ওষুধ

ইসাবগোল সমস্ত পাইলস রোগীদের জন্য একটি ঔষধ যা দ্রবণীয় খাদ্যতালিকাগত ফাইবারের একটি সমৃদ্ধ উৎস। এক গ্লাস গরম পানি বা দুধে এক চা চামচ ইসবগুলের ভুসি মিশিয়ে প্রতিদিন ঘুমানোর সময় পান করুন। এটি মলত্যাগের প্রক্রিয়া সহজ করে এবং মল যাওয়ার সময় ব্যথা কমায়।

পাইলস থেকে মুক্তির প্রতিকার হচ্ছে হরীতকী

হরিতকি শুষ্ক এবং রক্তাক্ত উভয় ধরনের পাইলসের জন্য একটি চমৎকার ভেষজ। এটি পাচনতন্ত্রকে উদ্দীপিত করে, কোষ্ঠকাঠিন্য সহজ করে এবং তাই ব্যথা এবং ফোলাভাব কমায় এবং মলত্যাগের সময় রক্তপাত বন্ধ করে। এক চা চামচ হরিতকি গুঁড়ো দুধের সাথে দিনে তিনবার খেতে পারেন। আপনি একটি বাথটাবে দুই চা চামচ হরিতকি পাউডার যোগ করতে পারেন এবং ব্যথা এবং ফোলা উপশমের জন্য সিটজ বাথ নিতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির উপায়

পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তি পেতে আমের বীজ ব্যবহার করুন

রক্তপাত এবং অর্শ্বরোগের জন্য, আমের বীজ সবচেয়ে কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি। আমের বীজ ব্যথা, প্রদাহ, চুলকানি এবং জ্বালা উপশমে সাহায্য করে। আমের বীজের গুঁড়া মধুর সঙ্গে মিশিয়ে দিনে দুবার খেলে পাইলস থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

ক্যাস্টর অয়েল পাইলসের ঘরোয়া প্রতিকার

ক্যাস্টর অয়েল মলকে নরম করতে সাহায্য করে। ক্যাস্টর অয়েল পাইলসকে নির্মূল করতে তুলনা মূলক ভাবে সহজ করে তোলে। প্রতিদিন রাতে দুধের সাথে এক চা চামচ ক্যাস্টর অয়েল খেলে সকালে ব্যথা কমে যায়। এটি পায়ূ অঞ্চলে স্নায়ুর চাপ কমায় এবং ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়।

বরফ দিয়ে পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

ফুলা, ফাঁপা স্থানে 10 মিনিটের জন্য বরফ ঘষে ব্যথা, চুলকানি এবং ফোলা থেকে দ্রুত উপশম পাওয়া যায়। এটি অসাড় করে দেয় এবং সেই এলাকায় রক্ত প্রবাহকে ধীর করে দেয় এবং কয়েক মিনিটের জন্য ব্যথা উপশম করে।

0 Comments

* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.??