পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায় । অর্শ রোগ থেকে মুক্তির উপায়

যন্ত্রণাদায়ক হওয়ার পাশাপাশি পাইলস বিব্রতকরও বটে। পাইলস হওয়ার পরে মানুষ সাধারণত অন্যকে এই বিষয়ে বলতে লজ্জাবোধ করে। কিন্তু পাইলস সেই রোগগুলির মধ্যে একটি নয়, যা নিজে থেকেই ভালো হয়ে যায়, বরং এটি আরো খারাপ হয়। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এর চিকিৎসা করা জরুরি।

পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

পাইলস রোগে আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত, ভালো এবং কার্যকর ফলাফলের জন্য ঘরোয়া উপায় গুলো অনুসরণ করতে হবে। আমাদের আজকের এই লেখায় পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। পাইলস থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় জানতে লেখাটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

(toc) #title=(সুচিপত্র)

পাইলস থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় । পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

এখানে কিছু ঘরোয়া উপায় আছে যা আপনাকে পাইলস রোগ থেকে প্রাকৃতিকভাবে আরাম দিতে সাহায্য করবে:

১। অ্যালোভেরা ব্যবহারে পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়া যায়

অ্যালোভেরা
অ্যালোভেরা

পাইলস এর চিকিৎসার জন্য অ্যালোভেরা হচ্ছে প্রকৃতির সেরা উপাদান। অ্যালোভেরার রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা এবং থেরাপিউটিক উপাদান পাইলস রোগের জ্বালা কমাতে সহায়তা করে। অ্যালোভেরা আপনি অভ্যন্তরীণ এবং বহিরাগত পাইলস রোগের জন্যই ব্যবহার করতে পারবেন।

বহিরাগত পাইলস রোগের চিকিৎসার জন্য, আপনার মলদ্বারের উপর অ্যালোভেরা জেল একটু একটু করে প্রয়োগ করুন এবং ম্যাসাজ করুন।

অভ্যন্তরীণ পাইলস রোগের চিকিৎসার জন্য অ্যালোভেরার পাতা কেটে নিন। এই বার একটি পাত্রে রেখে ফ্রিজে রেখে দিন। ব্যথা, পোড়া এবং চুলকানির ব্যথা এবং জ্বালা কমাতে, প্রভাবিত জায়গার ওপর শীতল অ্যালোভেরা প্রয়োগ করুন। এভাবে কিছুদিন ব্যবহার করলে আশা করা যায় আপনি ভালো ফলাফল পাবেন।

আরো পড়ুনঃ গেজ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা | গেজ রোগের চিকিৎসা

২। লেবুর রস দিয়ে অর্শ রোগ থেকে মুক্তির উপায়

লেবুর রস
লেবুর রস

লেবুতে উপস্থিত অ্যান্টি অক্সিডেন্ট পাইলস রোগের চিকিৎসা করতে সাহায্য করে। লেবুর রস সরাসরি প্রভাবিত এলাকায় ব্যবহার করুন কিংবা আদা এবং মধুর সাথে লেবুর রস মিশিয়ে খান। এতে করে উপকার মিলে।

৩। জলপাইয়ের তেল দিয়ে অর্শ রোগ থেকে মুক্তির উপায়

জলপাই তেল
জলপাই তেল

জলপাইয়ের তেলে রোগ প্রতিরোধী ক্ষমতা এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান আছে যা প্রধানত বহিরাগত পাইলস রোগের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হয়। জলপাইয়ের তেল রক্তনালীর স্থিতিস্থাপকতা বাড়াতে সাহায্য করে, যা পাইলসের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে এবং পায়ুছিদ্রের মধ্যে রক্তনালীর আকার হ্রাস করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

৪। বরফ ব্যবহার করে পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

বরফ

পাইলসের রোগের জন্য বরফ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসা। বরফ রক্তনালীকে সুস্থ করে, ফোলা হ্রাস করে এবং দ্রুততার সাথে ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে সহয়তা করে। একটি পরিষ্কার কাপড়ের মাঝে কিছু বরফ দিয়ে সরাসরি আপনার প্রভাবিত জায়গার উপরে ব্যবহার করুন। পাইলস ভালো না হওয়া পর্যন্ত দিনে বেশ কয়েকবার এই পদ্ধতি ব্যবহার করুন।

ফুলা, ফাঁপা স্থানে ১০ মিনিটের জন্য বরফ ঘষে ব্যথা, চুলকানি এবং ফোলা থেকে দ্রুত উপশম পাওয়া যায়। এটি অসাড় করে দেয় এবং সেই এলাকায় রক্ত প্রবাহকে ধীর করে দেয় এবং কয়েক মিনিটের জন্য ব্যথা উপশম করে।

৫। খাবার পানি

খাবার পানি
খাবার পানি

অভ্যন্তরীণ কিংবা বহিরাগত পাইলস রোগে আক্রান্ত হলে আপনি পানি খাওয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দিন। প্রতিদিন ৮ গ্লাস থেকে ১০ গ্লাস পানি পান করার চেষ্টা করুন। কারণ পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি খেলে আপনার অভ্যন্তরীণ সিস্টেমকে পরিশুদ্ধ করবে এবং আপনার সমগ্র শরীরকে হাইড্রেট করে রাখবে।

৬। আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহারে পাইলস থেকে মুক্তির পাওয়া যায়

আপেল সিডার ভিনেগার
আপেল সিডার ভিনেগার

কষা বৈশিষ্ট্যর কারণে আপেল সিডার ভিনেগার, সেমোলিনা রক্তনালী সঙ্কুচিত করে, অভ্যন্তরীণ এবং বহিরাগত উভয় পাইলস রোগের জ্বালা এবং ব্যথা থেকে আরাম পাওয়া যায়। বহিরাগত পাইলস রোগের জন্য, প্রভাবিত এলাকায় আপেল সিডার ভিনেগারে ভিজিয়ে রাখুন এবং একটি তুলার বল দিয়ে চাপ দিন। 

শুরুর দিকে এই পদ্ধতি একটু অসুবিধে মনে হলেও কিন্তু শীঘ্রই আপনি চুলকানি এবং জ্বালা থেকে মুক্তি পাবেন। অভ্যন্তরীণ পাইলসের জন্য, এক গ্লাস পানি এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে দিনে দুই বার করে খেতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ ড্রাগন ফলের উপকারিতা ও অপকারিতা

৭। বাটার মিল্ক

বাটার মিল্ক
বাটার মিল্ক

বাটার মিল্ক হল পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির সর্বোত্তম প্রতিকার। এক গ্লাস বাটার মিল্কে এক চিমটি লবণ এবং এক চতুর্থাংশ চা চামচ ক্যারাম বীজ মিশিয়ে নিন। এটি প্রতিদিন পান করুন এবং কার্যকরভাবে আপনার পাইলস নিরাময় করুন।

৮। পাইলস সমস্যায় উইচ হেজেল নিয়মিত ব্যবহার করুন

উইচ হেজেলের রোগ প্রতিরোধের গুণ পাইলস রোগ কমাতে ভূমিকা রাখে। পাইলস থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত প্রভাবিত জায়গায় উইচ হেজেলের জেল লাগান। এতে করে আপনি উপকার পাবেন।

৯। মুলা

মুলা পাইলসের অন্যতম কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার এবং এটি পাইলসের চিকিৎসায় ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। আধা গ্লাস মুলার রসে ১ চিমটি লবণ যোগ করুন। এটি দিনে দুবার পান করুন। এছাড়া এর পেস্ট মধুর সঙ্গে মিশিয়ে মলদ্বারের চারপাশে লাগালে ব্যথা ও ফোলাভাব কমে যায়।

১০। বেল ফল

বেল ফল
বেল ফল

ফোলাভাব কমাতে, কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসায় এবং পাচনতন্ত্রকে সুস্থ রাখতে বেল ফলের কার্যকারিতা অনেক। এটি পাইলসের জন্য একটি আদর্শ ভেষজ প্রতিকার। এটি ট্যানিনের একটি ভাল ভাণ্ডার যা পরিপাকতন্ত্রের ক্ষতিকারক আক্রমণকারীদের ধ্বংস করার জন্য সক্রিয় ক্রিয়াকলাপের জন্য পরিচিত। এটি একটি ভালো রেচক হিসাবে কাজ করে এবং খুব বেশি ব্যথা ছাড়াই মল পাস করতে সহায়তা করে। প্রতিদিন বেল পান করা পাইলস থেকে চিরতরে মুক্তির একটি প্রমাণিত প্রতিকার।

১১। শস্যদানা

গোটা শস্যদানাতে ফাইবারের একটি ভালো পরিমাণ থাকে, যা পাইলস রোগ এবং রক্তপাত কমাতে অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার মলকে নরম করতে সাহায্য করে এবং তার বাল্ক বৃদ্ধি করে।

১২। পেঁপে পাইলসের ঘরোয়া চিকিৎসা

পেঁপে
পেঁপে

পেঁপে ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান গুলির একটি সমৃদ্ধ উৎস এবং এতে একটি শক্তিশালী হজমকারী এনজাইম-পাপেইন রয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্য এবং রক্তপাতের পাইলসের চিকিৎসার জন্য একটি শক্তিশালী ফল হিসাবে বিবেচিত হয়। আপনি এটি আপনার প্রাতঃরাশের (প্রাতঃরাশ হলো খাবার সকালে খাওয়া) মধ্যে খেতে পারেন বা মলদ্বার চলাচল সহজ করতে এর রস মলদ্বারে প্রয়োগ করতে পারেন। আপনি আপনার সালাদে কাঁচা পেঁপেও রাখতে পারেন।

১৩। কালোজিরা পাইলসের ওষুধ

কালোজিরা

কালোজিরা পাইলসের এবং আমাদের দেশে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। জিরা গুঁড়ো এবং পানি মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং এটি ১৫ মিনিটের জন্য ফোলা জায়গায় লাগান। পাইলসের উপসর্গ কমাতে এই পদ্ধতি খুবই কার্যকর।

১৪। রসুন দিয়ে পাইলস রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

রসুন
রসুন

আপনার বেদনাদায়ক পাইলসের জন্য রসুন একটি নিখুঁত সমাধান। এটিতে চমৎকার অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যাস্ট্রিনজেন্ট উপাদান রয়েছে। এটি ব্যথা এবং জ্বালা উপশম করে এবং মলত্যাগের প্রক্রিয়া সহজ করে। আপনি প্রতিদিন কাঁচা রসুনের লবঙ্গ খেতে পারেন বা এটি সাপোজিটরি হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে জীবাণু ধ্বংস হয়।

১৫। বাদাম ব্যবহারে অর্শ রোগ থেকে মুক্তির উপায়

বাদাম তেল
বাদাম তেল

এছাড়াও বাদাম খাদ্য তালিকাগত ফাইবারের একটি উৎস এবং অন্ত্রের কার্যকারিতায় সাহায্য করে। প্রতিদিন সকালে তিনটি বাদাম খাওয়া পাইলসের ভালো চিকিৎসা। ভালো এবং কার্যকর ফলাফলের জন্য অন্তত ৫০ বার বাদাম সঠিকভাবে চিবিয়ে নিন। আপনি ফোলা এবং চুলকানি উপশম করতে আক্রান্ত স্থানে বাদামের তেলও লাগাতে পারেন। বাদাম তেল ত্বককে প্রশমিত করে এবং বাহ্যিক হেমোরয়েডের জন্য একটি ভাল প্রতিকার।

১৬। নারিকেল তেল এবং হলুদের গুড়া ব্যবহারে পাইলস থেকে মুক্তি মিলে

নারিকেল তেল
নারিকেল তেল

পাইলস রোগের ঘরোয়া চিকিৎসায় নারকেল তেল খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এক চা চামচ নারকেল তেল এবং এক চিমটি হলুদের গুড়া একসাথে মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। এবার পেস্ট গুলো মলদ্বারের বাইরের অংশের পাইলসের উপরে লাগিয়ে দিন। এতে করে ধীরে ধীরে পাইলস ভালো হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

১৭। খাবার তিল পাইলস থেকে মুক্তি দেয়

খাবার তিল
তিল

আয়ুর্বেদে তিলকে পাইলসের জন্য একটি ভালো চিকিৎসা বলে মনে করে। এটি হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে এবং কোলন পরিষ্কার করার প্রক্রিয়াটিকে কম বেদনাদায়ক করে ডায়রিয়াকে নরম করে। এটি ফোলা এবং ব্যথা হ্রাস করে এবং পায়ু অঞ্চলে জ্বালাপোড়া এবং চুলকানি সংবেদন হ্রাস করে। জলে তিল সিদ্ধ করুন এবং তারপর এটি একটি সূক্ষ্ম পেস্ট তৈরি করুন। এতে অল্প পরিমাণ মাখন মিশিয়ে সেবন করুন।

১৮। পাইলস নিরাময়ে শুকনো ডুমুর

ডুমুর
ডুমুর

শুকনো ডুমুর হল পাইলসের আরেকটি কার্যকরী প্রতিকার। শুধু কিছু শুকনো ডুমুর সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে পরদিন সকালে খেয়ে ফেলুন। পাইলস থেকে মুক্তি পেতে এই প্রক্রিয়াটি 2-3 সপ্তাহ পুনরাবৃত্তি করুন।

১৯। ইসবগুলের ভুষি

ইসবগুলের ভুষি
ইসবগুলের ভুষি

পাইলস রোগের ঘরোয়া চিকিৎসায় ইসুবগুলের ভুষি বেশ কার্যকর। ইসবগুল সমস্ত পাইলস রোগীদের জন্য একটি ঔষধ যা দ্রবণীয় খাদ্যতালিকাগত ফাইবারের একটি সমৃদ্ধ উৎস। ইসুবগুলের ভুষি কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা ভালো করতে সক্ষম।

পাইলস রোগীদের পায়খানা নরম করে দেয় ইসুবগুলের ভুষি যার কারণে ধীরে ধীরে পাইলস সমস্যা ভালো হয়ে যায়। এক গ্লাস গরম পানি বা দুধে এক চা চামচ ইসবগুলের ভুসি মিশিয়ে প্রতিদিন ঘুমানোর সময় পান করুন। এটি মলত্যাগের প্রক্রিয়া সহজ করে এবং মল যাওয়ার সময় ব্যথা কমায়। অবশ্যই মাথায় রাখবেন পরিমাণের চেয়ে বেশি অতিরিক্ত ইসবগুলের ভুষি খাবেন না এতে করে পেটে ব্যথা এবং গ্যাসের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আরো পড়ুনঃ পায়খানা ক্লিয়ার করার উপায় ১০০% কার্যকরী

২০। হরীতকী

হরীতকী

হরিতকি শুষ্ক এবং র- ক্তাক্ত উভয় ধরনের পাইলসের জন্য একটি চমৎকার ভেষজ। এটি পাচনতন্ত্রকে উদ্দীপিত করে, কোষ্ঠকাঠিন্য সহজ করে এবং তাই ব্যথা এবং ফোলাভাব কমায় এবং মলত্যাগের সময় রক্তপাত বন্ধ করে। এক চা চামচ হরিতকি গুঁড়ো দুধের সাথে দিনে তিনবার খেতে পারেন। আপনি একটি বাথটাবে দুই চা চামচ হরিতকি পাউডার যোগ করতে পারেন এবং ব্যথা এবং ফোলা উপশমের জন্য সিটজ বাথ নিতে পারেন।

২১। ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহারে পাইলস ভালো হয়

ক্যাস্টর অয়েল
ক্যাস্টর অয়েল

ক্যাস্টর অয়েল মলকে নরম করতে সাহায্য করে। ক্যাস্টর অয়েল পাইলসকে নির্মূল করতে তুলনা মূলক ভাবে সহজ করে তোলে। প্রতিদিন রাতে দুধের সাথে এক চা চামচ ক্যাস্টর অয়েল খেলে সকালে ব্যথা কমে যায়। এটি পায়ূ অঞ্চলে স্নায়ুর চাপ কমায় এবং ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়।

২২। পাইলস সমস্যায় দেশি ঘি ব্যবহার

দেশি ঘি
দেশি ঘি

আপনি হয়তো জেনে থাকবেন ঘি অনেক গুণাগুণ সম্পন্ন একটি খাবার। প্রতিদিন ঘি সেবন করলে অনেক ধরনের রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। পাইলসের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পরিমাণ মতো ঘি এর সাথে এক চিমটি হলুদ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার পেস্টটি আপনার পাইলসের জায়গায় লাগিয়ে নিন আশা করা যায় কিছুদিনের মাঝে পাইলস সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে।

২৩। সেইজ স্নান: পায়ুছিদ্রে দিনে দুই থেকে তিনবার ১০ থেকে ১৫ মিনিট ধরে সাধারণ গরম পানি ব্যবহার করুন। এতে করে উপকার পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার সিরাপের নাম

পাইলস হলে কি কি খাওয়া যাবেনা - পাইলস হলে কি কি খাওয়া নিষেধ

আসুন জেনে নিই যেসব খাবার খাবেন না-

  • দুধ 
  • মাংস
  • চিপস
  • ধূমপান
  • ফাস্টফুড
  • চা ও কফি
  • আইসক্রিম
  • ময়দা ও চিনি
  • অতিরিক্ত মসলা যুক্ত খাবার
  • পনির বা চিজের মত দুগ্ধজাত খাবার।

  1. স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, পাইলস রোগে আক্রান্ত হলে মসলাযুক্ত খাবার খাওয়া উচিত নয়। অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবার হজম শক্তিকে দুর্বল করে পাইলসের ব্যথা বৃদ্ধি করে।
  2. বিশেষজ্ঞদের মতে, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় ভুগলে রক্তক্ষরণ হলে মাংস খাওয়া বন্ধ করে দিতে হবে। বিশেষ করে রেডমিট কখনো খাবেন না। এছাড়া দোকান থেকে কেনা মাংসজাতীয় খাবার গুলোও এড়িয়ে চলুন।
  3. পাইলসে ভুগলে কফি ও চা জাতীয় খাবার খাবেন না। এসকল খাবার পাইলসের সমস্যা বৃদ্ধি করে। সুস্থ থাকতে খেতে পারেন গ্রিন টি।
  4. প্যাকেটজাত এবং তেলেভাজা খাবার অনেকের পছন্দ। চিকিৎসকদের কথা অনুযায়ী, পাইলস রোগীদের জন্য ভাজা খাবার খাওয়া উচিত নয়। কারণ এই সকল খাবার হজম শক্তিকে দুর্বল করে দেয় এবং পাইলসের সমস্যাকে আরো বৃদ্ধি করে।
  5. বেকারি খাবার অপরিশোধিত ময়দা এবং চিনি দিয়ে তৈরি হয়। এই জাতীয় খাবার সহজে হজম হতে চায়না এবং পাচনতন্ত্রের জন্য খাবারগুলো ভালো নয়। কেননা বেকারির খাবারে ফাইবার একেবারেই নেই বললেই চলে, যা কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা বৃদ্ধি করে।

পাইলস যে খাবারগুলো খাবেন - কি খেলে পাইলস ভালো হয়

  • ডাল
  • পেপে
  • কলা
  • আঙ্গুর
  • শসা
  • রাজমা
  • আপেল
  • আলুবোখারা
  • কিসমিস
  • গাজর
  • পেঁয়াজ
  • ফুলকপি
  • টমেটো
  • বাঁধাকপি
  • মটরশুঁটি
  • ঢেঁকিতে ছাটা চাল
  • প্রচুর পরিমাণে পানি ফাইবার সমৃদ্ধ ফল কিংবা শাক-সবজি
পোষ্ট ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত দিন

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)