Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/05/ghore-boshe-freelancing.html

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই - ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই জেনে নিন — প্রতিদিনকার আমরা যে প্রফেশনেই কাজ করিনা কেন ঘরে বসে টাকা আয়ের সুযোগ সবার জন্যই এডভান্সড একটি জীবন পার করতে সহায়তা করে। প্রায় সকলেই অবগত যে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস থেকে ঘরে বসে কাজ করে আয় করা যায়। তবে অনেকেই হয়ত জানেন না ঘরে বসে আপনি মার্কেটপ্লেস গুলো ছাড়াও টাকা আয় করতে পারবেন।

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই

সৃষ্টিকর্তা আমাদের সকলের মাঝে কিছু না কিছু ট্যালেন্ট দিয়ে সৃষ্টি করেছেন। সবাই সব ট্যালেন্টের অধিকারী হতে পারেনা। আমি দক্ষ নই আমি কিভাবে ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারি? এসব প্রশ্ন গুলো একেবারে যুক্তিহীন। কিছু না কিছু দক্ষতা সকলের থাকে। কেউ গ্রাফিক্স ডিজাইন করে টাকা ইনকাম করে কেউ আবার এন্ড্রয়েড অ্যাপ ডেভলপমেন্ট করে আয় করে। এখানে ২ টি কাজের মোটিভ একেবারেই আলাদা। কেউ চাইলেও এক অন্যের কাজগুলো করতে পারবে না।

আজকের আর্টিকেলে ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই বা ঘরে বসে টাকা ইনকাম করতে কি কি করতে হবে ও কিভাবে করবেন ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো। ঘরে বসে টাকা আয়ের পাশাপাশি অনলাইনে টাকা আয়ের উপায় হিসেবে ও বেশ কিছু ধারণা নিতে পারবেন। যারা অনলাইনের মাধ্যমে টাকা আয় করতে চাচ্ছেন তাদের জন্য আজকের পোষ্টটি অনেক বেশী সহায়তা করবে।

আরো পড়ুনঃ কুইজ খেলে টাকা ইনকাম ২০২২

পেজ সূচীপত্রঃ ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই

ঘরে বসে টাকা আয় কিভাবে করবেন

ঘরে বসে টাকা আয় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলো আমাদের দেশে আসার পরে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আমাদের দেশে চাকরি বাজারে প্রচুর পরিমাণে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকতে হয়। স্যালারি হিসেব করতে গেলে প্রায় সময় সেটা পরিবার এর ধারন ক্ষমতা নেয়ার জন্য যথেষ্ট হয়না।

ঘরে বসে টাকা ইনকাম করতে নিজের দক্ষতাকে অনলাইনের মাধ্যমে শেয়ার করতে হবে। বড় বড় কাজ গুলোর পাশাপাশি ছোট ছোট কাজ গুলো সম্পন্ন করে আয় করতে পারেন। আপনার ঘরে যদি একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার থাকে সাথে ভালো একটি ইন্টারনেট কানেকশন তাহলেই হয়ে যাবে। বাকি গুলো আপনার কাজের উপরে নির্ভর করে। বড় বড় কাজ গুলোর ব্যাপারে তো সবার জানা আজকে আমরা ছোট ছোট কাজ গুলো সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবো।

ঘরে বসে টাকা আয় করার উপায়

1. Powerpoint Design - Presentation Designer Services

মাইক্রোসফট এর অন্যতম একটি সফটওয়্যার হলো পাওয়ার পয়েন্ট। পাওয়ার পয়েন্ট ব্যাবহার করে বিভিন্ন ধরনের অফিসিয়াল ও আন-অফিসিয়াল প্রেজেন্টেশন তৈরি করা হয়। যে কাজগুলো নিতান্তই কঠিন কিছু নয়। আপনি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন শিখে অনলাইন মার্কেটপ্লেসের মাধ্যমে ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারবেন।

বিভিন্ন পণ্যের, এডুকেশনাল, ড্রেস ইত্যাদি যেকোনো বিষয়ে সুন্দর ভিডিও স্লাইডিং প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে হবে। প্রেজেন্টেশনের জন্য ব্যবহার করতে বিভিন্ন গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডিজাইন এলিমেন্ট ইত্যাদি। পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন একটি ফ্রিল্যান্সিং জব এটাতে প্রতি ঘন্টায় ৮ ডলার করা পে করা হয়। প্রতিটি আলাদা ডিজাইনের জন্য নতুন অবস্থায় ৩০-৪০ ডলার পর্যন্ত আয় করা যায়। ফাইবারে সবচেয়ে বেশী কাজের সুযোগ পাবেন পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন এর। আপনি যদি ঘরে বসে আয় করায় আগ্রহী হোন তবে এ কাজটি করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ ফ্রি ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স ইন বাংলাদেশ

2. Data Entry - ডাটা এন্ট্রি

ঘরে বসে আয় করার অন্যতম আরেকটি কাজ হলো ডাটা এন্ট্রি। ডাটা এন্ট্রি কাজ গুলো টাইপিং, ভয়েস রেকর্ডিং, হিসাব বের করা ইত্যাদি। বিভিন্ন তথ্য উপাত্তকে ইনপুট করাই হলো ডাটা এন্ট্রি। এখানে, মাইক্রোসফট এক্সেল ও ওয়ার্ড শিখতে হবে আপনাকে ভালো করে। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে এসকল কাজের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ঘরে বসে টাকা আয় কর‍তে চাইলে ডাটা এন্ট্রি শিখে ঘরে বসেই আয় করা শুরু করে দিন।

3. Keyword Research - কী-ওয়ার্ড রিসার্চ

কী-ওয়ার্ড অনেকটা জটিল প্রসেসের সহজ কাজের মধ্যে একটি। জটিল প্রসেস বলার কারণ হচ্ছে বিভিন্ন ওয়েবসাইট ঘেটে আপনাকে কাংখিত ফলাফল বের করতে হবে। সহজ কাজ এর মধ্যেও একটি কারণ সব কাজ গুলো আপনি টুলসের মাধ্যমে করতে পারবেন।

কী-ওয়ার্ডস হলো আমরা সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে যে সকল বিষয় গুলো লিখে সচারাচর সার্চ দিয়ে থাকি। ধরুন, আপনি গুগলে লিখলেন, "Best Cricket Players" আপনার এই লেখাটি একটি কী-ওয়ার্ডস। কী-ওয়ার্ডস এসইও এর মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় যেটি ছাড়া এসইও কল্পনাও করা যায় না।

কী-ওয়ার্ডস রিচার্স এর উপরে প্রচুর পরিমাণে কাজ পাওয়া যায় প্রায় সবখানেই। ফাইবার, আপওয়ার্ক ও মার্কেটপ্লেসের বাইরে ইনকাম করার জন্য উত্তম কাজের মধ্যে একটি। প্রতিটি কী-ওয়ার্ডস এর একটি সার্চ ভলিউম থাকে, সিপিসি থাকে, সেম কী-ওয়ার্ডে কত সাইট আর্টিকেল লিখেছে, টপ সাইটে কত শব্দের আর্টিকেল দিয়েছে, ডিফিকাল্টি কেমন ইত্যাদি বিষয় আপনাকে টুলস ব্যাবহার করে বের করতে হবে।

সাধারণত ১০/৫ টি কী-ওয়ার্ডস রিসার্চ এর জন্য ৫০ -৬০ ডলার অফার করে থাকে৷ কী-ওয়ার্ডস রিচার্স এর জন্য সম্পুর্ন বিষয় গুলো আপনাকে জানতে হবে। কাজ গুলো সহজতর হলেও প্রচুর পরিমানে সময়সাপেক্ষ। আপনি যদি ঘরে বসে অনলাইন থেকে আয় করতে চান কী-ওয়ার্ডস রিচার্স শিখে আয় করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

4. Email-Marketing - ই-মেইল মার্কেটিং

ই-মেইল বলতে আমরা ইলেক্রট্রনিক মেইলকে বুঝে থাকি৷ মেইলের মাধ্যমে কোনো কিছুর প্রচারনা করাকে ই-মেইল মার্কেটিং বলে। প্রতিটি কোম্পানির সার্ভিস, পণ্য সম্পর্কে সকল কে অবগত করার জন্য প্রয়োজন হয় বিভিন্ন ইমেইল মার্কেটারের।

মূলত, আপনার কাজ হলো বিভিন্ন ব্যাক্তির মেইলে কোম্পানির সার্ভিস সম্পর্কে বিস্তারিত লিখে সকলের মাঝে মেইলটি ছড়িয়ে দেয়া। এর জন্য আপনাকে বিভিন্ন কোম্পানির থেকে ইউজার মেইল ক্রয় করতে হবে। ব্যাপারটা আরো সহজ করে বলি, মনে করুন, আপনি ই-মেইল মার্কেটিং করবেন। আপনার কোম্পানির সার্ভিস হলো "আর্টিকেল রাইটিং" এখন আপনাকে খুজতে হবে নতুন কারা ডোমেইন ক্রয় করেছে৷

এটা তো আপনি খুজে কালেক্ট করতে পারবেন না। এজন্য আপিনাকে বড় বড় ডোমেইন বিক্রেতাদের কাছে যেতে হবে। নতুন যারা ডোমেইন নিয়েছে তাদের মেইল গুলো টাকার বিনিময়ে সংগ্রহ করতে হবে। এরপর আর্টিকেল সার্ভিস কেন তাদের দরকার, আপনার থেকেই বা কেন নিবে তারা এই ব্যপার গুলোকে সুন্দর করে সাজিয়ে সকল মেইলে সেন্ড করে দিন।

এখানে উল্লেখ্য যে, আপনি যে সার্ভিসের মার্কেটিং করতে চান সে ক্যাটাগেরি অনুযাই মেইল কালেক্ট করতে হবে। যেকোনো দিন ডোমেইন কিনেনি তার আর্টিকেল সার্ভিস নেয়ার প্রয়োজন নেই তাদের কাছে মার্কেটিং করে আপনার কোনো লাভ হবে না। মার্কেটপ্লেসে প্রচুর টাকা আয় করা যায় ইমেইল মার্কেটিং করে। আপনি যদি ঘরে বসে টাকা আয় করতে চান আপনার জন্য ইমেইল মার্কেটিং ভালোভাবে কাজ করবে।

5. Create Video Ads - ভিডিও বিজ্ঞাপন তৈরি

আমরা বিজ্ঞাপন এর সাথে সকলেই জড়িত। এমন মানুষ হয়ত খুজেও পাওয়া যাবেনা যিনি বিজ্ঞাপন কখনো দেখেন নি। একটি সুন্দর বিজ্ঞাপন তার পণ্যের প্রচারণার ক্ষেত্রে অনেক বড় ভুমিকা পালন করে। আপনি যদি ভিডিও এডিটিং শিখে শুধু বিজ্ঞাপন তৈরি করতে পারেন মাসে প্রচুর টাকা ঘরে বসে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

এর জন্য আপনাকে ভিডিও এডিটিং সম্পর্কে ভালোভাবে আইডিয়া রাখতে হবে। বর্তমানে ইলেমেন্ট এর জন্য অনেক সাইট আছে যেমন- ক্যানভা, এনভ্যান্টো ইলেমেন্টস এসব সাইট থেকে বিভিন্ন ইলেমেন্ট বিজ্ঞাপন তৈরি তে ব্যাবহার করা হয়।

শেষ কথা

ঘরে বসে অনলাইন থেকে টাকা আয়ের জন্য এই ব্যাপার গুলো আপনাকে জানা উত্তম। অনলাইনে উপার্জন করা অনেক কঠিন যদি সঠিক ব্যবহার করতে না পারেন। আপনার সঠিক স্কিল ও ব্যাবহারবিধি বুঝতে পারলে সহজেই আয় করা সম্ভব। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সকলেই নির্ভরশীল অনলাইন এর উপর।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?