Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2021/05/best-gaming-phone.html

সেরা গেমিং ফোন | বাংলাদেশের সেরা গেমিং ফোন

১. Asus ROG Phone 3 | সেরা গেমিং ফোন 2021

গেমিং ফোন এর কথা বললে সবার প্রথমে সে ফোনটির নাম চলে আসে তা হচ্ছে Asus ROG Phone 3। একজন মোবাইল গেমারের যা প্রয়োজন তার সকল কিছুই ৫জি সমর্থিত এই সেরা গেমিং ফোনে আছে। আসুস এর সেরা এই স্মার্টফোনটিতে আছে ৬.৫৯ ইঞ্চির ডিসপ্লে ও ১৪৪ হার্টজ এইচডিআর ১০+ অ্যামোলেড স্ক্রিন, যার রেজুলেশন হচ্ছে ১০৮০*২৩৪০ পিক্সেল। এই গেমিং ফোনের পেছনে রয়েছে আরজিবি প্যানেল। অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম পরিচালিত ফোনটিতে গেমারদেরকে দারুণ গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দেওয়ার জন্য থাকছে ২.৯৬ গিগাহার্টজ অক্টো-কোর স্ন্যাপড্রাগন ৮৬৫+ প্রসেসর এবং অ্যাডরিনো ৬৫০ জিপিইউ।

ফোনটিতে র‍্যামে থাকছে ১২/১৬ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮/২৫৬/৫১২ জিবি ফোন মেমোরি। ফোনটির পিছনে ক্যামেরাতে আছে ৬৪+১৩+৫ মেগাপিক্সেল এর ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ। আর সামনের ক্যামেরা সেটআপে রয়েছে ২৪ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। আপনি এই ক্যামেরা দিয়ে ভালোমানের ছবি তুলতে পারবেন। এই সেরা গেমিং ফোনে লম্বা সময় গেমিং করার জন্যে থাকছে ফাস্ট চার্জিং সমর্থিত ৬০০০ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ারের একটি বিশাল ব্যাটারি। গেমিং করার সময়ে যেন মোবাইল অতিরিক্ত গরম না হয়ে যায় তার জন্যে এতে আছে কাস্টমাইজড ইন-কেস কুলিং সলিউশন সিস্টেম।

এছাড়াও ইন-গেম অ্যাকশন সহজে কন্ট্রোল করার জন্যে সেরা গেমিং ফোনটিতে আছে আল্ট্রা-রিস্পনসিভ এয়ারট্রিগার সেন্সর। সেই সঙ্গে এতে থাকছে 'এক্স মোড' যা গেমিং করার জন্য ফোনকে অপটিমাইজড করতে সাহায্য করে থাকে।

আরও পড়ুনঃ মোবাইল ফোন কেন স্লো চার্জ হয়, ৪ টি জিনিস আপনার জানা দরকার

সেরা গেমিং ফোন

২. Xiaomi Black Shark 3 Pro | গেমিং ফোন

গেমিং ফোন হিসাবে Xiaomi Black Shark 3 Pro এটির বেশ সুনাম আছে। শাওমির এই স্মার্টফোনটি ৫জি সমর্থিত বাজেটের মধ্যে সেরা গেমিং ফোন। ফোনে আছে ৭.১ ইঞ্চি ৯০ হার্টজ অ্যামোলেড স্ক্রিন, যার রেজুলেশন হচ্ছে ১৪৪০*৩১২০ পিক্সেল। মোবাইল গেমারদেরকে ভালোমানের গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দেওয়ার জন্যে এতে রয়েছে ২.৮৪ গিগাহার্টজ অক্টো-কোড় স্ন্যাপড্রাগন ৮৬৫ প্রসেসর এবং অ্যাড্রিনো ৬৫০ জিপিইউ।

অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম দাঁরা পরিচালিত ফোনটিতে আরও থাকছে ৮/১২ জিবি র‍্যাম এবং ২৫৬/৫১২ জিবি ফোন মেমোরি। গেমিং করার পাশাপাশি ছবি তোলার জন্যে এই সেরা ফোনটি আছে ৬৪+১৩+৫ মেগাপিক্সেল এর ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ এবং সামনে ছবি তোলার জন্য ২০ মেগাপিক্সেল এর ফ্রন্ট ক্যামেরা। ফোনটিতে ব্যাকআপ সুবিধা দেয়ার জন্য থাকছে ফাস্ট চার্জিং সমর্থিত ৫০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার এর বড় একটি ব্যাটারি। ৬৫W ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজি সাহায্যে ফোনটি ৩৮ মিনিটের মধ্যে ১০০% পর্যন্ত চার্জ সম্পূর্ণ করা যাবে।

ইন-গেম অ্যাকশন সহজেই কন্ট্রোল করার জন্যে শাওমির এই সেরা গেমিং ফোনটিতে আছে পপ-আপ গেমিং ট্রিগার। এছাড়াও উন্নত কুলিং সিস্টেম আর হ্যাঁ শাওমির নিজস্ব গেমিং মোড তো এতে থাকছেই।

৩. iPhone 12 Pro | গেমিং মোবাইল ফোন

সেরা গেমিং ফোন এর কথা বলছি অথচ অ্যাপলর এর আইফোন সিরিজের কোনো ফোন থাকবে না সেটা কি করে হয় বলুন? iPhone 12 Pro নিঃসন্দেহে বর্তমানের সেরা গেমিং স্মার্টফোন। অ্যাপেল এর সেরা গেমিং ফোনটিতে আছে ৬.১ ইঞ্চির, ১২০ হার্টজ সুপার রেটিনা এক্সডিআর ওলেড ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন হচ্ছে ১১৭০*২৫৩২ পিক্সেল।

অ্যাপেলের এই  ফোন দিয়ে গেমিং করার জন্যে থাকছে সুপার পাওয়ারফুল ৩.১ গিগাহার্টজ হেক্সা-কোড় অ্যাপল A১৪ বায়োনিক চিপসেট। সঙ্গে গ্রাফিক্স সুবিধা দিতে থাকছে অ্যাপলের ৪ কোড় এর একটি জিপিইউ। A১৪ বায়োনিক চিপ গতবছরের A১৩ বায়োনিক চিপ অপেক্ষা ৫০% অধিক দ্রুতগতির সম্পন্ন। যার কারণে আইফোন ১১ সিরিজের চেয়ে অনেক বেশি গতি এবং গ্রাফিক্স পাওয়া যাবে আইফোন ১২ এই সেরা গেমিং ফোনে।

ফোনটি পরিচালিত হবে অ্যাপলের আইওএস ১৪.১ অপারেটিং সিস্টেমের উপরে, যেটি পরবর্তীতে আইওএস ১৪.২ তে আপগ্রেড করতে পারবে। ফোনটিতে থাকছে ৬ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮/২৫৬/৫১২ জিবি NVMe ফোন মেমোরি। এই স্মার্টফোন কেবল সেরা গেমিং ফোনই না, একই সঙ্গে এটি সেরা ক্যামেরা ফোনও কিন্ত। আইফোন ১২ প্রো ম্যাক্সে আছে ১২+১২+১২ মেগাপিক্সেল এর ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা আর সেলফি তোলার জন্য থাকছে সামনে ১২ মেগাপিক্সেল এর ডুয়েল ফ্রন্ট ক্যামেরা সেটআপ।

ফোনের ব্যাকআপ সুবিধা দেয়ার জন্য থাকছে ফাস্ট চার্জিং সমর্থিত ২৮১৫ মিলিঅ্যাম্পিয়ার এর ব্যাটারি। ২০W ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজির সাহায্যে ফোনটি ৩০ মিনিটের মধ্যে ৫০% পর্যন্ত চার্জ করা যাবে। ফোনটির সঙ্গে থাকছে ওয়ারলেস চার্জিং সুবিধা।

আরও পড়ুনঃ সেরা ১০ টি ওয়েব ব্রাউজার

৪. Samsung Galaxy S21 Ultra | বাংলাদেশের সেরা গেমিং ফোন

স্যামসাং স্মার্টফোনের এস সিরিজের লেটেস্ট ফোন হচ্ছে Samsung Galaxy S21 Ultra। বর্তমান সময়ে মোবাইল গেমারদের জন্যে নিঃসন্দেহে এটি একটি দারুণ অপশন। সেরা গেমিং ফোনটিতে আছে সুপার-সার্প ১২০ হার্টজ ৬.৮ ইঞ্চির অ্যামোলেড ২এক্স ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন হচ্ছে ৩২০০*১৪৪০ পিক্সেল। গেমিং করার জন্যে ফোনটিতে রয়েছে ২.৯ গিগাহার্টজ অক্টো-কোড় এক্সিনোস ২১০০ প্রসেসর সঙ্গে রয়েছে মালি-জি৭৮ এমপি১৪ জিপিইউ। অ্যান্ড্রয়েড ১১ অপারেটিং সিস্টেম দারা পরিচালিত ফোনটি চলবে ওয়ান ইউআই ৩.১ এর উপরে।

সেরা এই গেমিং  ফোনের ৫জি ভার্সনে পেয়ে যাবেন ১২/১৬ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮/২৫৬/৫১২ জিবি ফোন মেমোরি। গেমিং করার পাশাপাশি ছবি তোলার জন্যে ফোনটিতে ক্যামেরা সেটআপে ১০৮+১০+১০+১২ মেগাপিক্সেল কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা এবং আর সেলফি তোলার জন্য ৪০ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। এই ফোনটির সাহায্যে দারুণ সকল ফটোও ক্যাপচার করতে পারবেন। ব্যাকআপ সুবিধা দেয়ার জন্য এতে থাকছে ৫০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার এর ব্যাটারি। ২৫W ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজির পাশাপাশি ওয়ারলেস চার্জিং সুবিধা তো থাকছেই।

৫. OnePlus 8 Pro | গেমিং ফোন ২০২১

OnePlus 8 Pro ওয়ান প্লাস এর তৈরি ৫জি সমর্থিত এটি একটি সেরা গেমিং ফোন। একে ফোনটিকে গেমিং ফোন হিসেবে বিশেষভাবে মার্ক করা না হলেও ওয়ানপ্লাস এর এই ফোনটি কিন্তু গেমিং ফোনের লিস্টে থাকার দাবি রাখে। এই স্মার্টফোনটিতে থাকছে পাঞ্চ-হোল স্টাইলের ১২০ হার্টজ ও ৬.৭৮ ইঞ্চির ফ্লুইড অ্যামোলেড ডিসপ্লে যার রেজুলেশন হচ্ছে ১৪৪০*৩১৬৮ পিক্সেল।

ভালো গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দেবার জন্যে ওয়ানপ্লাস ৮ প্রো এই ফোনে থাকছে ২.৮৪ গিগাহার্টজ অক্টো-কোড় স্ন্যাপড্রাগন ৮৬৫ প্রসেসর এবং অ্যাড্রিনো ৬৫০ জিপিইউ। এতে আরও থাকছে ৮/১২ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮/২৫৬ জিবি ফোন মেমোরি। অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম দাঁরা পরিচালিত ফোনটি চলবে ওয়ানপ্লাসের নিজস্ব ইউজার ইন্টারফেস অক্সিজেনওস ১০ এর উপরে।

গেমিং করার পাশাপাশি এর সাহায্যে দারুণ সব ছবি তোলার জন্য এতে থাকছে ৪৮+৮+৪৮+৫ মেগাপিক্সেল এর চারটি রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ এবং সেলফি তোলার জন্য থাকছে ১৬ মেগাপিক্সেল এর ফ্রন্ট ক্যামেরা। লম্বা সময় ধরে গেমিং করার জন্যে এতে থাকছে ফাস্ট চার্জিং সমর্থিত ৪৫১০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার এর ব্যাটারি। ৩০W ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজির সাহায্যে ফোনটি আপনি ২৩ মিনিটে ৫০% পর্যন্ত চার্জ করতে পারবেন। সঙ্গে থাকছে ওয়ারলেস চার্জিং সুবিধা।

আরও পড়ুনঃ বিটকয়েন কি ও কেন

৬. ZTE Nubia Red Magic 5G | কম দামে ভালো গেমিং ফোন

৫জি সমর্থিত এই ফোনটি ZTE Nubia Red Magic মোবাইলটি গেমারদের জন্যে একটি আদর্শ চয়েস। ফোনটিতে রয়েছে ফুল ভিউ ১২০ হার্টজ ৬.৬৫ ইঞ্চির অ্যামোলেড ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন হচ্ছে ১০৮০*২৩৪০ পিক্সেল। এতে আছে ২.৮৪ গিগাহার্টজ অক্টো-কোড় স্ন্যাপড্রাগন ৮৬৫ প্রসেসর এবং অ্যাড্রিনো ৬৫০ জিপিইউ যা ভালোমানের গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দেবার জন্য যথেষ্ট। ওভারহাটিং সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়ার জন্য ফোনের মধ্যে থাকছে একটি উন্নতমানের কুলিং ফ্যান।

অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম দারা পরিচালিত ফোনটিতে থাকছে ৮/১২/১৬ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮/২৫৬ জিবি ফোন মেমোরি। ক্যামেরা সেটআপে থাকছে ৬৪+৮+২ মেগাপিক্সেল এর ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা এবং সেলফি তোলার জন্য থাকছে ১৬ মেগাপিক্সেল এর ফ্রন্ট ক্যামেরা। ব্যাকআপ সুবিধা দেবার জন্য এতে আছে ফাস্ট চার্জিং সমর্থিত ৪৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার এর ব্যাটারি। ৫৬W ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজির সাহায্যে ফোনটি ১৫ মিনিটে ৫৬% পর্যন্ত চার্জ সম্পূর্ণ করা যাবে।

৭. Asus ROG Phone 2 | সেরা গেমিং ফোন

সেরা গেমিং ফোন এর তালিকায় থাকা আসুসের আরেকটি সেরা গেমিং স্মার্টফোন হচ্ছে Asus ROG Phone 2। এই স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ৬.৫৯ ইঞ্চির ১২০ হার্টজ অ্যামোলেড স্ক্রিন, যার রেজুলেশন হচ্ছে ১০৮০*২৩৪০ পিক্সেল। গেমারদের দারুণ গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দেয়ার জন্য আসুস এর এই ফোনে রয়েছে ২.৯৬ গিগাহার্টজ অক্টো-কোড় স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫+ প্রসেসর এবং অ্যাড্রিনো ৬৪০ জিপিইউ।

সেরা গেমিং স্মার্টফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ৯ অপারেটিং সিস্টেম দাঁরা পরিচালিত ফোনটিতে আরও থাকছে ৮/১২ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮/৫১২ জিবি ফোন মেমোরি। আর ক্যামেরা সেটআপে পিছনে থাকছে ৪৮+১৩ মেগাপিক্সেল এর ডুয়েল ক্যামেরা এবং সেলফি তোলার জন্য সামনে থাকছে ২৪ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা সেটাপ। লম্বা সময় ধরে গেমিং করার জন্য আসুসের এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে ফাস্ট চার্জিং সমর্থিত ৬০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার এর একটি বিশাল বড় ব্যাটারি। আসুস রগ ফোন ৩ এর মতো এই ফোনেও রয়েছে এক্স মোড, কাস্টমাইজড ইন-কেস কুলিং সলিউশন সিস্টেম এবং আল্ট্রা-রিস্পনসিভ এয়ারট্রিগার সেন্সর যা গেমারদেরকে ভালো গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দিতে সহয়তা করবে।

আরও পড়ুনঃ কম্পিউটার ভাইরাস কি | কিভাবে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ করে

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া