ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

হাসিবুর
By -
0

ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা - বর্তমান সময়ে আমাদের লাইফস্টাইলে অনেক ধরনের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা দেখা দেয়। খারাপ খাদ্যাভ্যাস, দেরি করে ঘুমানোর অভ্যাস, দেরি করে ঘুম থেকে ওঠা, সারাদিন এক জায়গায় বসে থাকা এবং ঘণ্টার পর ঘণ্টা কম্পিউটারের সামনে কাজ করা, দিনের বেশির ভাগ সময় মোবাইল ফোনের ব্যবহার এসব অভ্যাস আপনার স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে।

এই সমস্ত খারাপ অভ্যাস পরিপাকতন্ত্রের উপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য এবং অন্যান্য অনেক সমস্যার দিকে পরিচালিত করে। আমাদের দেশে কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে এবং এই কারণেই মানুষ কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে সম্ভাব্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ডাক্তার এবং অনেক আয়ুর্বেদিক বিশেষজ্ঞ বিশ্বাস করেন যে ইসবগুলের ভুসি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে সবচেয়ে দরকারী ঘরোয়া উপায়। এই পোষ্টে, আমি আপনাকে ইসবগুল খাওয়ার উপকারিতা, অপকারিতা এবং ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার নিয়ম ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানাব।

প্ল্যান্টাগো ওভাটা নামক উদ্ভিদের বীজের ভুসি থেকে ইসবগুল তৈরি করা হয় এবং এটি এক ধরনের ফাইবার। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত বিশ্বব্যাপী ইসবগুলের বৃহত্তম উৎপাদনকারী। ভারতে, ইসবগুল প্রধানত গুজরাট, রাজস্থান এবং মধ্যপ্রদেশে চাষ করা হয়। বিশ্বে ইসবগুলের মোট উৎপাদনের প্রায় ৩৫ শতাংশ শুধুমাত্র গুজরাটে উৎপাদিত হয়।

ইসবগুল উদ্ভিদ দেখতে গমের মতো এবং ছোট পাতা ও ফুল রয়েছে। ইসবগুল বহু শতাব্দী ধরে ইরানি ওষুধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। খুব কম মানুষই জানেন যে ইসবগুল শুধু মানুষের জন্যই নয়, পশুদের জন্যও উপকারী। ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ায় ইসবগুল কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করতে পারে। এটি হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী বলে মনে করা হয় এবং এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করতে পারে।

আপনি বিভিন্ন উপায়ে ইসবগুল সেবন করতে পারেন। যদি আপনি ইসবগুলের স্বাদ পছন্দ না করেন তবে আপনি এটি কুকিজ, বিস্কুট বা অন্য কোন মিষ্টান্নের সাথে যোগ করে নিতে পারেন। এটিতে মিষ্টি বা গন্ধ নেই তাই এটি পানি বা রসের সাথে গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

ইসবগুল খাওয়া সব বয়সের জন্য নিরাপদ বলে মনে করা হয়। কিছু লোক বিশ্বাস করে যে এটি শুধুমাত্র কোষ্ঠকাঠিন্যে উপকারী তবে এটি এমন নয়। কোষ্ঠকাঠিন্য ছাড়াও, এটি ডায়রিয়া, আমাশয়, স্থূলতা, ডিহাইড্রেশন এবং ডায়াবেটিস ইত্যাদি রোগেও খুব কার্যকর। আসুন এই লেখায় ইসবগুলের ভুসি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করি।

ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

ইসবগুল সম্পর্কে তথ্য:

  • বোটানিক্যাল নাম: Plantago ovata
  • পরিবার: Plantaginaceae
  • প্রচলিত নাম: ইসবগুলের ভুসি
  • সংস্কৃত নাম: সাত ইসবগুল
  • দরকারী অংশ: ইসবগুল প্লান্টাগো ওভাটা নামক উদ্ভিদের বীজের তুষ থেকে প্রস্তুত করা হয় এবং এটি এক ধরনের ফাইবার।
  • ভৌগোলিক বর্ণনা: ইসবগুলের আদি স্থান এশিয়া, ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল এবং উত্তর আফ্রিকা বলে মনে করা হয়। এছাড়া ভারতেও বাণিজ্যিকভাবে ইসবগুলের চাষ হয়। ভারতে, ইসবগুল প্রধানত গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ এবং রাজস্থানে চাষ করা হয়।
(toc) #title=(এক নজরে সম্পূর্ণ লেখা পড়ুন)

ইসবগুল কি

ইসবগুল হল প্লান্টাগো ওভাটা নামক একটি উদ্ভিদের বীজ। এই গাছটি দেখতে হুবহু গমের মতো এবং ছোট পাতা এবং ফুল রয়েছে। এই গাছের ডালের বীজে একটি সাদা রঙের পদার্থ আটকে থাকে। একে Psyllium husk বলা হয়। ইসবগুলের ভুসিতে অনেক ঔষধি গুণ পাওয়া যায় এবং এটি স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। ভারতসহ বিশ্বের অনেক দেশে ইসবগুলের চাষ হয় এবং ভারত থেকে প্রতিবেশী অনেক দেশেও ইসবগুল রপ্তানি করা হয়। ইসবগুলের সুবিধা ( ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা ) এবং চাহিদা বিবেচনা করে বর্তমানে বাজারে এর দাম অনেক বেড়ে গেছে।

ইসবগুলের ঔষধি গুণাবলী

ইসবগুল রেচকের মতো কাজ করে। এতে ফাইবারের পরিমাণ অনেক বেশি এবং এতে ফ্যাট ও কোলেস্টেরলের পরিমাণ একেবারেই নেই। ইসবগুল সব বয়সের মানুষই খেতে পারেন। আমাশয়, কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া, স্থূলতা, ডিহাইড্রেশন, ডায়াবেটিস ইত্যাদি রোগে ইসবগুল খুবই কার্যকর। ইসবগুল আয়ুর্বেদিক এবং অ্যালোপ্যাথি উভয় পদ্ধতিতে ওষুধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা

অনেকে মনে করেন ইসবগুলের ভুসি শুধুমাত্র কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়ক। যদিও তা নয়, ইসবগুল কোষ্ঠকাঠিন্য ছাড়া অন্য অনেক রোগের চিকিৎসায় উপকারী। এটি নিয়মিত সেবন করলে পরিপাকতন্ত্র সুস্থ থাকে যার ফলে পেট সংক্রান্ত অন্যান্য সমস্যাও সেরে যায়। আসুন জেনে নিই ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা :

  • ইসবগুলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়ক
  • ইসবগুলের ভুসির উপকারিতা ডায়রিয়ার কার্যকর চিকিৎসা
  • ইসবগুলের ভুসি হজম শক্তি শক্তিশালী করে
  • ওজন কমাতে ইসবগুল সহায়ক
  • অ্যাসিডিটি থেকে মুক্তি দেয় ইসবগুলের ভুসি
  • পাইলস ও ফিসারের চিকিৎসায় ইসবগুলের ভুসি উপকারি
  • ইসবগুলের ভুসি হার্টের জন্য উপকারী
  • ইসবগুল ডায়রিয়ার চিকিৎসায় উপকারী
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে ইসবগুলের ভুসি
  • রক্তচাপ কম রাখতে ইসবগুল ব্যবহার করুন
  • ইসবগুলের ভুসি হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়

১। ইসবগুল কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়ক

পেট সংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যা শুধু কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যার কারণেই হয়ে থাকে। অতএব, প্রথমে কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা করা গুরুত্বপূর্ণ যাতে অন্যান্য সমস্যাগুলি নিজেরাই সেরে যায়। ইসবগুলে উপস্থিত উচ্চ পরিমাণে ফাইবার রেচক হিসেবে কাজ করে। পানির সাথে ইসবগুল মিশিয়ে খাওয়ার এক ঘণ্টা পর পান করুন এবং তারপর আরও এক বা দুই গ্লাস পানি পান করুন। এটি অন্ত্রের পেশীগুলির গতিশীলতা বাড়ায় এবং মলকে নরম করে, প্রস্রাব করা সহজ করে তোলে। ইসবগুল কয়েকদিন খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য সেরে যায়।

২। ইসবগুলের ভুসির উপকারিতা ডায়রিয়ার কার্যকর চিকিৎসা

ইসবগুল পরিপাকতন্ত্র থেকে জলের উপাদান শোষণ করে এবং প্রচুর পরিমাণে জল তৈরি করে, যা মলকে শক্ত করে তোলে। দ্বিতীয়ত, এটি অন্ত্র পরিষ্কার করে, যা সংক্রমণ-সৃষ্টিকারী জীবাণু অপসারণ করতে সাহায্য করে। শুধুমাত্র ইসবগুলই মৃদু থেকে মাঝারি ডায়রিয়ার জন্য একটি কার্যকরী চিকিৎসা, তবে এটি গুরুতর ডায়রিয়া এবং আমাশয়ের ক্ষেত্রে সহায়ক থেরাপি হিসেবেও ব্যবহার করা যেতে পারে। ডায়রিয়ার সময় টক দই মিশিয়ে খান। দই প্রোবায়োটিক সমৃদ্ধ যা ডায়রিয়ার কারণে সৃষ্ট সংক্রমণ নিরাময় করে। অথবা আপনি ৫০ মিলি জলে ১ চা চামচ ইসবগুল এবং ১ চা চামচ মিশ্রি গুঁড়ো মিশিয়ে নিতে পারেন। এটি দিনে ৩ বার নেওয়া উচিত।

আরো পড়ুনঃ ড্রাগন ফলের উপকারিতা ও অপকারিতা

৩। ইসবগুলের ভুসি হজম শক্তি শক্তিশালী করে

বেশিরভাগ মানুষই জানেন যে ইসবগুলের ভুসি শুধুমাত্র কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দিতে উপকারী। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, কোষ্ঠকাঠিন্য ছাড়াও আরও অনেক রোগের চিকিৎসায় ইসবগুল উপকারী। এটি প্রতিদিন সেবন করলে পাচনতন্ত্র শক্তিশালী থাকে, যা পেট সংক্রান্ত অন্যান্য সমস্যা নিরাময়েও সহায়ক। তাই খালি পেটে ইসবগুল খাওয়ার উপকারিতা আপনাকে অবাক করে দিতে পারে। খাবারের এক ঘণ্টা পর পানির সঙ্গে ইসবগুল খেলে উপকার পাওয়া যায়।

৪। ওজন কমাতে ইসবগুল সহায়ক

বর্তমান সময়ে প্রতি তৃতীয় ব্যক্তি ওজন বৃদ্ধির সমস্যায় ভুগছেন এবং এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সব রকম চেষ্টা করছেন। যেখানে কিছু আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি আছে যার সাহায্যে ওজন কমানো খুব সহজ। অনেক ক্ষেত্রে পেট ঠিকমতো পরিষ্কার না হওয়ার কারণেও ওজন বাড়তে শুরু করে। এমন পরিস্থিতিতে ইসবগুল খেলে পেট ভালোভাবে পরিষ্কার হয় এবং ওজন কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া ইসবগুল খেলে অনেকক্ষণ পেট ভরে যায়, যা আপনাকে অপ্রয়োজনীয় কিছু খেতে বাধা দেয়।

৫। অ্যাসিডিটি থেকে মুক্তি দেয় ইসবগুলের ভুসি

কখনও কখনও কিছু ক্ষতিকারক জিনিস খাওয়ার পরে পেটে অ্যাসিডিটি একটি সাধারণ সমস্যা। রাতের খাবার খাওয়ার পর প্রায়ই এই সমস্যা বাড়ে। অ্যাসিডিটির কারণে পেট ফাঁপা বা টক বেলচিং হয়। আপনি যদি প্রায়ই এই সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে ইসবগুলের ভুসি আপনার জন্য খুবই উপকারী প্রমাণিত হতে পারে।

পেট জ্বালাপোড়া অ্যাসিডিটির একটি চিহ্ন যা বেশিরভাগ লোকেরা অনুভব করে। আপনি যদি অ্যাসিডিটিতে ভুগছেন তবে ইসবগুল হল সেরা প্রাকৃতিক প্রতিকার যা অ্যাসিডিটির জ্বালাপোড়া দূর করতে সাহায্য করে। আয়ুর্বেদ অনুসারে, ইসবগুল অ্যাসিডিটি এবং অম্বলের জন্য একটি ভাল প্রতিকার। ইসবগুল খাবারের পাইপ এবং পেটের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় ঝিল্লির দেয়ালকে লুব্রিকেট করতে সাহায্য করে। এটি অ্যাসিড শোষণ করে এবং পাকস্থলী থেকে অন্ত্রে অতিরিক্ত অ্যাসিড বের করে দেয়। এইভাবে এটি অ্যাসিডিটি এবং জ্বলন্ত সংবেদনের লক্ষণগুলি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

আরো পড়ুনঃ মুলতানি মাটির উপকারিতা ও অপকারিতা

৬। পাইলস ও ফিসারের চিকিৎসায় ইসবগুলের ভুসি উপকারি

পাইলস ও ফিসারের প্রধান কারণ হল কোষ্ঠকাঠিন্য। খাবার হজম না হওয়া এবং মলত্যাগে অসুবিধার কারণে মলদ্বারের চারপাশের শিরা ফুলে যায় এবং পাইলসের সমস্যা দেখা দেয়। আপনি যদি ইসবগুল খান তবে এটি আপনার মলের মধ্যে জলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় এবং এটিকে নরম করে তোলে, যার ফলে মল পাস করা সহজ হয় এবং সেই সময়ে কোনও ব্যথা হয় না। তাই পাইলস এবং ফিসারে আক্রান্ত রোগীদের অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ইসবগুল খেতে হবে।

৭। ইসবগুলের ভুসি হার্টের জন্য উপকারী

ইসবগুলের ভুসিতে মোটেও কোলেস্টেরল থাকে না এবং আঁশের পরিমাণ খুব বেশি থাকে। গবেষণার মতে, আপনার খাদ্যতালিকায় ইসবগুলেরমতো ফাইবার-সমৃদ্ধ জিনিস অন্তর্ভুক্ত করলে হৃদরোগের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যায়। এটি রক্তচাপ কমাতে, লিপিডের মাত্রা বাড়াতে এবং হার্টের পেশীকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। এই দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা যায়, এটি হার্টকে সুস্থ রাখতে খুবই উপকারী।

৮। ইসবগুল ডায়রিয়ার চিকিৎসায় উপকারী

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার পাশাপাশি ডায়রিয়া প্রতিরোধেও ইসবগুল খুবই কার্যকরী। বেশিরভাগ ডাক্তার ডায়রিয়ার ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে ইসবগুল খাওয়ার পরামর্শ দেন। ডায়রিয়া হলে ইসবগুল দই মিশিয়ে খান। দইতে প্রোবায়োটিক বৈশিষ্ট্যের কারণে এটি সংক্রমণ দ্রুত নিরাময় করে এবং ইসবগুল ডায়রিয়া প্রতিরোধ করে।

৯। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে ইসবগুলের ভুসি

ইসবগুলে জেলটিন পাওয়া যায় যা শরীরে গ্লুকোজ দ্রবীভূত ও শোষণের প্রক্রিয়াকে ধীর করে দেয়। যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। অনেক গবেষণা নিশ্চিত করেছে যে খাবারে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করলে ইনসুলিন এবং রক্তে শর্করার মাত্রা কমে যায়, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা সহজ করে তোলে।

১০। রক্তচাপ কম রাখতে ইসবগুল ব্যবহার করুন

ইসবগুলে দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় উভয় ফাইবার রয়েছে। খাদ্যতালিকায় ফাইবার গ্রহণ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে। ইসবগুল (সাইলিয়াম) ভুসি উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। কারণ উচ্চ কোলেস্টেরল উচ্চ রক্তচাপের কারণ হতে পারে। ক্যালসিয়ামের সাথে উচ্চ কোলেস্টেরল রক্তনালীতে প্লাক তৈরি করে, যা রক্তনালীকে শক্ত ও সংকুচিত করে। এটি হৃৎপিণ্ডের উপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করে যাতে ধমনী দিয়ে রক্ত পাম্প করা কঠিন হয়ে পড়ে, যার ফলে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে।

আরো পড়ুনঃ কাজু বাদাম খাওয়ার নিয়ম ও উপকারিতা

১১। ইসবগুলের ভুসি হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়

উচ্চ ফাইবার উপাদানের কারণে, ইসবগুলের ভুসি হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ এবং মহিলাদের মধ্যে ৩ মাসের গবেষণায় এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে ইসবগুলের ভুসি উল্লেখযোগ্যভাবে কোলেস্টেরল, এলডিএল কোলেস্টেরল এবং অ্যাথেরোজেনিক ইনডেক্স অফ প্লাজমা (এআইপি) হ্রাস করেছে। তবে, ট্রাইগ্লিসারাইড এবং এইচডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা অনিয়ন্ত্রিত ছিল।

ইসবগুল (রাতে ৫ গ্রাম) উচ্চ কোলেস্টেরল উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে, তাই এটি নিয়মিতভাবে ৩ থেকে ৬ মাস ব্যবহার করা যেতে পারে যাতে উচ্চ কোলেস্টেরলে আশাব্যঞ্জক ফলাফল পাওয়া যায়। যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগছেন তাদের জন্য এটি হবে সবচেয়ে উপযুক্ত প্রতিকার।

ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার অপকারিতা

আপনি যদি মনে করেন যে ইসবগুল এর কোন অপকারিতা নেই তাহলে আপনি ভুল। অবশ্যই, ইসবগুলের উপকারিতা অনেক, কিন্তু অতিরিক্ত পরিমাণে ইসবগুল খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। আপনি যদি চিকিৎসকের দ্বারা অনুমোদিত নির্ধারিত পরিমাণের চেয়ে বেশি সেবন করেন তবে আপনি (ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার অপকারিতা) অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারেন। ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার প্রধান অপকারিতাগুলি নিম্নরূপ:

  • ইসবগুলের এর সাধারণ অপকারিতা হল ক্ষুধা হ্রাস, পেটে ভারি ভাব, পূর্ণতা অনুভব করা ইত্যাদি। এছাড়া সামান্য ফোলাভাব, বমি বমি ভাব, বুকে আঁটসাঁট ভাব, চুলকানি ইত্যাদি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শুধুমাত্র কিছু লোকের মধ্যেই দেখা যায়।
  • যদি ইসবগুল কম জল বা অন্য তরল দিয়ে গ্রহণ করা হয় তবে তা তাৎক্ষণিক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যেমন বুকে ব্যথা, শ্বাস নিতে অসুবিধা, বমি, গিলতে অসুবিধা হতে পারে।
  • যদিও ইসবগুলে অ্যালার্জি খুবই বিরল, তা হলে ত্বকে ফুসকুড়ি, চুলকানি, মুখে ফোলা ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দিতে পারে।
  • এটি শিশুদের খুব কম পরিমাণে এবং বিশেষ করে ২ বছরের কম বয়সী শিশুদের দেওয়া উচিত নয়।
  • ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার সময় পর্যাপ্ত পরিমাণে জল খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ।
  • আপনার যদি ইসবগুলে অ্যালার্জি থাকে তবে এটি গ্রহণ করবেন না।
  • গর্ভাবস্থায় এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় এর ব্যবহার সম্পূর্ণ নিরাপদ।

পেট ফাঁপা বা ফুলে যাওয়া: অনেক সময় ইসবগুলের ভুসি খেলে পেট ফাঁপা বা ফুলে যায়। যদি এমন হয়, অবিলম্বে ইসবগুল খাওয়া বন্ধ করুন এবং নিকটস্থ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

ওষুধের উপর প্রভাব: অনেক সময় দেখা গেছে যে রোগীরা আগে থেকেই অন্য কোনো রোগের ওষুধ খাচ্ছেন, তাদের হঠাৎ পেট সংক্রান্ত সমস্যা হলে ইসবগুল খেলে ওষুধের প্রভাব কমে যায়। ইসবগুল ওষুধটিকে দ্রবীভূত হতে বাধা দেয় যার কারণে ওষুধটি তার সম্পূর্ণ প্রভাব দেখাতে সক্ষম হয় না। অতএব, যদি আপনি চিকিৎসার অধীনে থাকেন, তাহলে ইসবগুল খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারকে জানান।

পুষ্টির শোষণের উপর প্রভাব: কিছু গবেষণা নিশ্চিত করেছে যে ইসবগুল খাওয়া শরীরে জিঙ্ক, তামা এবং অন্যান্য প্রধান পুষ্টির শোষণকে হ্রাস করে। যেখানে এই পুষ্টি উপাদানগুলো শরীরকে সুস্থ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যদি এই দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা যায়, নিয়মিত প্রচুর পরিমাণে ইসবগুল খেলে শরীরে পুষ্টির ঘাটতি দেখা দিতে পারে।

ক্ষুধামন্দা: নিয়মিত ইসবগুল খেলেও ক্ষুধা কমে যাওয়ার সমস্যা হতে পারে। তবে এই সমস্যা খুব কম মানুষের মধ্যেই দেখা যায়।

পেট ভারী: ইসবগুলের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে আপনি পেটে ভারী অনুভব করতে পারেন। এটি নিয়ে চিন্তা করার দরকার নেই কারণ এই সমস্যা কিছু সময় পরে নিজেই চলে যায়।

ইসবগুলের ডোজ বা কিভাবে খাবেন

অনেকের মনে এই প্রশ্ন থাকে যে কিভাবে ইসবগুল খেতে হবে বা বয়স অনুযায়ী কত পরিমাণ ইসবগুলের ভুসি খাওয়া উচিত। আপনাদের অবগতির জন্য বলে রাখি ইসবগুলের উপকারিতা পেতে হলে এটি সঠিকভাবে খাওয়া খুবই জরুরী। সাধারণত ইসবগুলের ভুসি পানিতে মিশিয়ে খাওয়া সবচেয়ে উপকারী বলে মনে করা হয়। ইসবগুলের ভুসি পানিতে মিশিয়ে দিলে এটি একটি আঠালো জেলের মতো মিশ্রণে পরিণত হয়, এই মিশ্রণের গন্ধও নেই, স্বাদও নেই।

প্রাপ্তবয়স্করা ১-২ চা চামচ ইসবগুল দিনে ২ থেকে ৩ বার এক গ্লাস পানি, দুধ বা দই দিয়ে খেতে পারেন। যেখানে শিশুরা আধা চা চামচ দিনে ২-৩ বার এক গ্লাস পানি, দুধ বা দই দিয়ে খেতে পারেন।

এক গ্লাস উষ্ণ জল নিন (প্রায় ২৪০ মিলিগ্রাম)। পানিতে ইসবগুল মিশিয়ে সঙ্গে সঙ্গে পান করুন।

১৫ গ্রামের কম ইসবগুল কমপক্ষে ২৪০ মিলি জলের সাথে গ্রহণ করা উচিত। যদি এর ডোজ ৩০ গ্রাম পর্যন্ত হয়, তাহলে এর অবাঞ্ছিত প্রভাব কমাতে ৫০০ মিলি জল খেতে হবে। ইসবগুলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে এবং পানি শোষণ করে তাই পর্যাপ্ত তরল গ্রহণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

ইসবগুলের সাথে চিকিৎসার সময়কাল ২ দিন থেকে ৩ মাস পর্যন্ত হতে পারে।

আসুন জেনে নেই ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে।

ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার নিয়ম

  1. এক গ্লাস গরম পানিতে এক থেকে দুই চা চামচ ইসবগুলের ভুসি মিশিয়ে রাতে খাওয়ার পর সেবন করুন।
  2. এক বাটি দইয়ে এক থেকে দুই চামচ ইসবগুলের ভুসি মিশিয়ে নিন। মিষ্টির জন্য, আপনি স্বাদ অনুযায়ী চিনি যোগ করতে পারেন। ইসবগুল এবং দইয়ের মিশ্রণ ডায়রিয়া থেকে মুক্তি দিতে খুব কার্যকর। ইসবগুল ও দই খেয়ে এক গ্লাস পানি পান করুন।
  3. পাকস্থলী পরিষ্কার করতে এক চামচ ত্রিফলা গুঁড়ো এবং দুই চামচ ইসবগুলের ভুসি মিশিয়ে রাতে কুসুম গরম পানিতে খান।
  4. খাবার খাওয়ার পর ঠাণ্ডা পানিতে ইসবগুল মিশিয়ে সেবন করলে অ্যাসিডিটির সমস্যা দূর হয়।
  5. গরম পানিতে লেবু ও ইসবগুল মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে পান করুন। এই মিশ্রণ ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  6. হার্টের সমস্যার জন্য, খাবারের পর দিনে দুবার পানিতে ইসবগুল মিশিয়ে খান।
  7. রাতে ঘুমানোর আগে পানির সাথে পান করুন। এটি পাইলস নিরাময়ে সাহায্য করে।

ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত সতর্কতা

১। আপনি যদি কখনও অ্যাপেনডিসাইটিস বা পেট ব্লকেজের মতো সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে ইসবগুল খাওয়ার আগে দয়া করে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

২। গর্ভাবস্থায়, মহিলাদের শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে যেকোনো আয়ুর্বেদিক ওষুধ খাওয়া উচিত। অতএব, আপনি যদি গর্ভবতী হন এবং কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে ইসবগুল খেতে চান, তাহলে প্রথমে আপনার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞকে জিজ্ঞাসা করুন।

৩। তিন বছরের কম বয়সী শিশুদের ইসবগুলের ভুসি খাওয়ানো এড়িয়ে চলতে হবে।

৪। ইসবগুল পাউডার সরাসরি গিলে ফেলার চেষ্টা করবেন না। এটি করার ফলে এটি গলায় আটকে যেতে পারে এবং তীব্র কাশি বা গলা জ্বালা হতে পারে। সব সময় পানি বা দইয়ের সাথে ইসবগুল খান।

লেখকের শেষকথা

অবশ্যই, ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা উভয়ই রয়েছে, কিন্তু আপনি যদি এটি সীমিত পরিমাণে বা ডাক্তারের দ্বারা নির্ধারিত ডোজ অনুযায়ী সেবন করেন, তাহলে আপনি ইসবগুলের সমস্ত সুবিধার সুবিধা নিতে পারেন। বিশ্বাস করুন, যদি ইসবগুল সঠিকভাবে খাওয়া হয় তবে এটি খুব দ্রুত এর প্রভাব দেখায় এবং পেটের রোগ থেকে মুক্তি দেয়।

ইসবগুলের ভুসি সম্পর্কে প্রশ্ন উত্তর - FAQ

ইসবগুলের ভুসি সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন উত্তর দেখে নিন:

প্রশ্নঃ ইসবগুলের ভুসি খাওয়ার সঠিক সময়

উত্তরঃ গরম পানিতে ইসবগুল মিশিয়ে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে পান করুন। এটি আপনার মলকে নিয়মিত এবং নরম করতে সাহায্য করবে।

প্রশ্নঃ ইসবগুলের ভুসি খেলে কি মোটা হওয়া যায়

উত্তরঃ যেহেতু ইসুবগুলে কম ক্যালোরি রয়েছে, তাই এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওজন কমানোর জন্য একটি স্বাস্থ্যকর উপায়। ইসুবগুল খেলে বাড়তি ক্যালোরি জমে যাওয়ার ভয় থাকে না। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হয়। আপনি যদি ইসুবগুলের ভুসি পানিতে ভিজিয়ে খান তবে তা আকারে দশগুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি পায় এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য পেট ভরিয়ে রাখতে সাহায্য করে। সুতরাং, ইসবগুলের ভুসি খেলে মোটা হওয়া যায় না।

প্রশ্নঃ ইসবগুলের ভুষি কতদিন খাওয়া যায়

উত্তরঃ ইসবগুলের ভুষি ২ দিন থেকে ৩ মাস পর্যন্ত খাওয়া যেতে পারে।

প্রশ্নঃ খালি পেটে ইসবগুলের ভুসি খেলে কি হয়

উত্তরঃ খালি পেটে ইসবগুলের ভুসি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়, উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস থেকে রক্ষা করে, হজমে শক্তি বৃদ্ধি করে, ডায়রিয়া উপশমে কাজ করে এবং আমাশয় থেকে রক্ষা করে।

ব্লগ ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত জানান

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)

#buttons=(ঠিক আছে, ধন্যবাদ) #days=(20)

টেকনিক্যাল কেয়ার বিডি তে আপনাকে স্বাগতম. ❤️
Ok, Go it!