আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা: আসসালামু আলাইকুম সুপ্রিয় পাঠক বন্ধুরা, আজকের আলোচনার বিষয় আলকুশি পাউডার। আপনারা যারা আলকুশি পাউডারের সঙ্গে পরিচিত, তারা মধ্যে কেউ কেউ জানেন না যে এটা কিভাবে খাওয়া যায়? আবার অনেকেই আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কেও অবগত নন।

ঠিক এ কারণেই আজ আমরা আলকুশি সম্পর্কে খুঁটিনাটি বিষয়বস্তু তুলে ধরব। তো “আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা” সমূহ জানতে হলে পড়তে থাকুন আজকের পোস্টের পরবর্তী অংশ। পাশাপাশি আরো দেখতে পারেন চিয়া সিড এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কিত আরো একটি পোস্ট।

(toc) #title=(সূচিপত্র)

আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

আলকুশি পাউডার একটি ঔষধি ভেষজ। তবে এর রয়েছে নানা উপকারিতা। কিন্তু তাই বলে যে এর অপকারিতা নেই এমনটা কিন্তু নয়! আলকুশি পাউডার খাওয়ার যেমন উপকারিতা রয়েছে ঠিক একইভাবে কিছু জটিল পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও রয়েছে। এ কারণে আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা সমূহ আমরা আলাদা আলাদা ভাবে উল্লেখ করছি। 

আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা

আলকুশি পাউডার মানব শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী একটি খাদ্য পণ্য। তবে এটা যে শুধুমাত্র পাউডার আকারে খাওয়া যায় এমনটা নয়। আলকুশি খাওয়ার বেশ কয়েকটি মাধ্যম রয়েছে। তবে তার আগে জেনে নেই আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা গুলো কি কি সে সম্পর্কে।

  • আলকুশি পাউডার খাওয়ার ফলে মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধি পায় এবং স্মৃতিশক্তি হয় প্রখর।
  • আলকুশি পাউডার শারীরিক শক্তি ও স্টেমিনা বৃদ্ধি করে পাশাপাশি দ্রুত ক্ষত সারিয়ে তোলায় বিশেষ ভূমিকা রাখে।
  • আলকুশি পাউডার খেলে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায় এমনকি ক্যান্সার প্রতিরোধেও এটি বিশেষভাবে সহযোগিতা করে।
  • এই পাউডার খাওয়ার ফলে মেজাজ ফুরফুরে থাকে। কারণ যারা নিয়মিত আলকুশি পাউডার খায় তাদের ডোপামিন বৃদ্ধি পায়। আর এই ডোপামিন সম্ভাব্য বিশ্বণ্যতা ও উদ্বেগের লক্ষণ গুলোকে দূরীভূত করে।
  • ডায়াবেটিকস প্রতিরোধেও বিশেষ ভূমিকা রাখে আলকুশি বেজ এর পাউডার। সেই সাথে এটি আরও বেশ কয়েকটি রোগের বিরুদ্ধে শরীর কে প্রোটেকশন যুগিয়ে থাকে।
  • আলকুশি পাউডার প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি সেই সাথে বন্ধ্যাত্বতা দূরীকরণে সহায়ক ভূমিকা রাখে। পাশাপাশি যৌ ন স্বাস্থ্য রক্ষায় এবং বিশেষ সময় দুর্বলতা ও দ্রুত পতনে কার্যকরী সমাধানে সহায়তা করে।
  • বাতের ব্যথা, জ্বর কাশি বুকে জমে থাকা কফ সেই সাথে পারকিনসন রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে আলকুশি পাউডার।
  • এটি স্কিন কেয়ারে ব্যবহৃত হয়। যাদের চর্ম রোগের সমস্যা রয়েছে স্কিনে তাদের সেই সমস্যা দূরীকরণে সর্বোত্তম ঔষধ বা সর্বোত্তম উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয় আলকুশি পাউডার। এছাড়াও এটি খাওয়ার ফলের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে এবং শরীরের তারুণ্যতা বজায় থাকে।

এর বাইরেও আলকুশি পাউডারের রয়েছে আরও বেশকিছু গুনাগুন। কেননা এতে থাকা কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট এবং ভিটামিন সি সুস্বাস্থ্যের জন্য শরীরকে নানাবিদ সাহায্য সহযোগিতা করে।

একইভাবে অপকারিতা হিসেবে আর যে সকল গুরুতর প্রভাব বিস্তার করে থাকে আলকুশি পাউডার সেগুলো নিম্নরূপ। তবে আপনি যদি চিয়া সিড কিভাবে খেতে হয় অর্থাৎ চিয়া সিড খাওয়ার নিয়ম এবং শীতে মুখের যত্নের ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে অবগত হতে চান তাহলে এখনই ভিজিট করুন সাজেস্টকৃত লিঙ্কে। 

আলকুশি পাউডার এর অপকারিতা

  • যাদের নিউরোপ্যাথিক, সাইকোসিস এবং অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের সমস্যা রয়েছে বা এই সকল সমস্যার কারণে চিকিৎসা চলছে তাদের জন্য আলকুশি পাউডার একদমই নিষিদ্ধ। কেননা এই বীজ যদি কোন ভাবে খাওয়া হয় তাহলে নিউরোপ্যাথিক সাইকোসিস এবং হৃদস্পন্দনের সমস্যা গুলো দ্বিগুণ হারে বৃদ্ধি পায়। 
  • গর্ভাবস্থায় আলকুশি পাউডার খেলে গর্ভবতী মায়েদের জরায়ুর উদ্দীপনা কে অনেক বেশি বাড়িয়ে দেয়। এর ফলে জরায়ু ফেটে গিয়ে রক্তপাত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অতএব গর্ভাবস্থায় নারীদের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায় আলকুশি পাউডার বা আলকুশি বীজ।
  • অতিরিক্ত পরিমাণে আলকুশি পাউডার খাওয়ার ফলে এল ডোপা হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় অর্থাৎ সিজোফ্রেনিয়া এবং হ্যালুসিনেশন এর সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায় বা লক্ষণ প্রকাশ পায়।
  • লিভারের সমস্যার মধ্যে আলকুশি পাউডার কোন ভাবে সেবন করলে লিভারের রোগীদের ক্ষতির সম্ভাবনা বেড়ে যায়। কেননা আলকুশিতে বিদ্যমান লেভোডোপা সিরাম লিভারের রোগ কে প্রভাবিত করার চেষ্টা করে।

তো আপনি যদি আলকুশি পাউডার এর উপকারিতা বা সুবিধাগুলো পেতে চান তাহলে অবশ্যই আলকুশি পাউডার সঠিক নিয়মে সঠিক পরিমাণে খান, যদি লিভারের সমস্যা থাকে অথবা নিউরোপ্যাথি সাইকোসিস জনিত সমস্যায় ভোগেন তাহলে এড়িয়ে চলুন। এখন আসুন জেনে নেই আলকুশি বীজ খাবার নিয়ম এবং আলকুশি বীজ কিভাবে খাওয়া যায় এ সম্পর্কে আরো কিছু বিষয়।

আলকুশি বীজ খাওয়ার নিয়ম

আলকুশি পাউডার

আলকুশি বীজ সাধারণত চার ভাবে খেতে পারেন আপনি। সেগুলো হলো:

  • পাউডার
  • ক্যাপসুল
  • চা ও 
  • বীজ হিসেবে।

আজকের যে আলোচনাটি শুরু করেছি ইতোমধ্যে আমরা আলকুসি বীজকে পাউডার হিসেবে সম্বোধন করেছি। আপনি যদি এটি পাউডার হিসেবে সংগ্রহ করেন সেক্ষেত্রে সকালে অথবা রাতে খাওয়ার পর এক গ্লাস হালকা গরম দুধ কিংবা হালকা কুসুম গরম পানির সঙ্গে দুই চামচ প্রিমিয়াম দুধে শোধিত আলকুশি পাউডার মিশিয়ে খান। আর সঙ্গে সামান্য মধু অথবা চিনি ব্যবহার করুন। তবে চেষ্টা করবেন মধু মেশানোর।

অন্যদিকে আপনি চাইলে অন্যান্য বীজের মতো তরকারি হিসেবে রান্না করেও খেতে পারবেন আলকুশি বীজ। এছাড়াও ফুড সাপ্লিমেন্ট হিসেবে বাজার থেকে সংগ্রহ করে আলকুশি বীজের ক্যাপসুল খেতে পারবেন।

এমনকি অনেকেই রয়েছেন যারা আলকুসি বীজ এর চা বানিয়ে খান। এর জন্য পানি গরম করুন এবং তাতে দারুচিনি, সামান্য চিনি আলকুশি পাউডার পরিমাণ মতো মিশিয়ে তৈরি করুন চা এবং সেটা প্রায় দুই থেকে পাঁচ মিনিট জাল করে প্রস্তুত করে নিন।

ব্যাস এই নিয়মে যদি আপনি আলকুশি পাউডার বা আলকুশি বীজ নিয়মিত খান তাহলে উপকার মিলবে। আশা করছি আমাদের দেওয়া ইনফরমেশন গুলো পাওয়ার পর আলকুশি ঔষধি ভেষজ আপনার স্বাস্থ্যের উপকারে আসবে। তো এর সঙ্গে আরো জেনে নিতে পারেন স্বাস্থ্য সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ কিছু পোস্ট সম্পর্কে। এর জন্য সরাসরি ক্লিক করুন আমাদের সাজেস্টককৃত লিংকে। সেই সাথে আর্টিকেলের পরবর্তী অংশটুকু পড়ার মাধ্যমে জেনে নিন আলকুশি বীজ সম্পর্কে আরো কিছু খুঁটিনাটি বিষয়।

FAQ

১. আলকুশি বীজের দাম

২৫০ গ্রাম আলকুশি বীজের দাম মোটামুটি ১২৫ টাকা। তবে কোথাও কোথাও এই মূল্যটা কিছুটা কম বেশি হতে পারে। 

২. আলকুশি বীজ খেলে কি হয়?

আলকুশি বীজ একটি ভেষজ ঔষধ। এটি খেলে শরীরের নানাবিধ উপকার হয়। পাশাপাশি এর কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে যেগুলো আমরা ইতোমধ্যে আলোচনা করেছি। 

৩. দুধে শোধিত প্রাকৃতিক আলকুশি পাউডার কেন খাবেন?

দুধের শোধিত প্রাকৃতিক আলকুশি পাউডার মূলত অধিক বেশি কার্যকর ভূমিকা রাখে। এটি শারীরিক শক্তি বৃদ্ধি করে, বীর্য ঘন করে এবং যেকোনো ধরনের ক্ষত সারিয়ে দিতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

৪. আলকুশি বীজ চূর্ণ খাবার উপকারিতা কি?

আলকুশি বীজ এর জন্য খাওয়ার উপকারিতা একাধিক। এর ফলে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়, ক্যান্সার ডায়াবেটিস সহ নানাবিধ রোগ সেরে যায় এবং আরো বেশ কিছু উপকার করে থাকে। 

উপসংহার

তো পাঠক বন্ধুরা, আলকুশি পাউডার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কিত আলোচনার ইতি টানছি আজ এখানেই। সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন পরবর্তীতে আবারো নতুন টপিকের নতুন কোন আলোচনায় দেখা হবে কথা হবে। সবাইকে আল্লাহ হাফেজ।

পোষ্ট ক্যাটাগরি: