Ielts ছাড়া ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়া যায়

IELTS ছাড়া ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়া যায়? স্বপ্ন এবার পূরণ হবে আত্মবিশ্বাস নিয়ে! বিদেশে স্বপ্নের সফল ক্যারিয়ার গড়তে, চাকরির অর্জনে কিংবা উচ্চশিক্ষার ডিগ্রির জন্য প্রতি বছর লাখ লাখ শিক্ষার্থীরা পাড়ি জমান বিদেশে।

কথায় আছে, জ্ঞান অর্জনের জন্য চীন দেশে যেতে হলেও যাও। কিন্তু বর্তমানে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এখন শিক্ষার্থীরা শুধু চীন নয় বরং ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, পর্তুগাল কিংবা বেলজিয়াম ছাড়াও ইউরোপের বিভিন্ন মহাদেশে পাড়ি জমাচ্ছে।

স্বপ্ন বাস্তবায়নের অচেনা এই পথটা সহজ নয়। অচেনা এই পথ পাড়ি দেয়ার জন্য ভাষাগত দক্ষতা বা IELTS পরীক্ষায় যোগ্যতার যথাযথ প্রমান দিতে হয় শিক্ষার্থীদের।

কিন্তু ২০২৪ সালে এসেও আসলেই কি এই দক্ষতার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে? আর থাকলেও তা কতটুকু কিংবা IELTS ছাড়াও ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়ার সুযোগ আছে কি? হলেও কিভাবে? বিনা IELTS'এ কোন দেশের পড়ালেখার মান ভালো হবে কিংবা খরচ কেমন পড়বে? 

IELTS না দিয়েও ইউরোপের কোন দেশে যাওয়া সহজ কিংবা জীবনযাপন সহজ হবে? এমন হাজারো প্রশ্ন এবং অনিশ্চয়তার ঝুঁকির সম্মুখীন হতে হচ্ছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের।

তবে চিন্তার আর কোনো কারণ নেই কেননা এসকল প্রশ্নের অবসান আজ আমরা করবো আমাদের আজকের আর্টিকেলে! আজকের আলোচনায় আমরা এ'বিষয় সম্পর্কিত ভাল-মন্দ উভয় দিকই তুলে ধরার চেষ্টা করবো যেন নির্ভুল তথ্য আমরা পৌঁছে দিতে পারি উঠতি শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের কাছে!

তাই আপনার প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর জানতে ও সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে আর্টিকেলটির শেষ অবধি আমাদের সাথেই থাকুন! আরো পড়তে পারেন কোন দেশে কত ielts স্কোর লাগে | আইইএলটিএস প্রস্তুতি। চলুন তাহলে Ielts ছাড়া ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়া যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেইঃ

Ielts ছাড়া ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়া যায়

(toc) #title=(এক নজরে সম্পূর্ণ লেখা পড়ুন)

IELTS কি?

প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক, ৫টি অক্ষরের এই IELTS মানে আসলে কি?

IELTS - ইন্টারন্যাশনাল ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্টিং সিস্টেম যা হচ্ছে একটি বহুল জনপ্রিয় স্বীকৃতপ্রাপ্ত, ইংরেজি ভাষা পরীক্ষা পদ্ধতি। পুরো পরীক্ষা পদ্ধতিকে ৪টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে:-

  • Reading/রিডিং (পড়া)
  • Writing/রাইটিং (লেখা)
  • Speaking/স্পিকিং (কথা বলা)
  • Listening/লিসেনিং (শোনা)

ইংরেজিতে এই ৪টি দক্ষতার পরীক্ষাগত মূল্যায়নের মাধ্যমে আপনি পাড়ি দিতে আপনার স্বপ্নের দেশে।

যেহেতু, বিশ্বের অধিকাংশ দেশে ইংরেজি ভাষা ব্যবহৃত হয়, তাই ভাষাগত এই যোগ্যতা আপনার স্বপ্ন পূরণে যথেষ্ট ভূমিকা পালন করবে।

IELTS ১৪০ টির অধিক দেশে ১১,০০০-এর বেশি সংগঠনের দ্বারা স্বীকৃতি প্রাপ্ত যা উচ্চশিক্ষা খাতে, চাকরির জন্য কিংবা মেধা তালিকায় এগিয়ে থাকতে আপনাকে এক ধাপ এগিয়ে রাখবে।

আপনাকে এই ৪টি বিভাগে - লিসেনিং, রিডিং, রাইটিং, স্পিকিং(১-৯) পর্যন্ত স্কোর অর্জন করে দক্ষতা প্রদর্শন করতে হবে। এই চারটি বিভাগের স্কোরকে গড় করে প্রাপ্ত স্কোরকে আপনার মূল স্কোর হিসেবে ধরা হবে।

চারটি সেক্টরের স্কোর হিসেবে আপনাকে পরিপূর্ণভাবে - ৬.০, ৭.০ কিংবা ৮.০ স্কোর ও অর্জন করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি বিভিন্ন সেক্টরের আলাদাভাবে পরিপূর্ণ স্কোর ৬.৫, ৭.৫, ৮.৫ হতে পারে যা মূল স্কোর হিসাবে গননা হবে।

তবে যুগ পরিবর্তনের সাথে তালে তাল মিলিয়ে এখন বলা হচ্ছে, আপনার স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য আইএলটিএস ছাড়াও বিকল্প পদ্ধতি রয়েছে।

ভর্তি হওয়া সম্ভব ইউরোপের যেকোনো দেশের সনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা চাকরি নিশ্চিত করা সম্ভব যে কোন প্রতিষ্ঠানে। হোক কানাডা, কিংবা ইতালি, স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আর নয় আইএলটিএস!

এই পদ্ধতি গুলো আপনার বিদেশে যাওয়া খরচ ছাড়াও আইইএলটিএস করার জন্য বাড়তি খরচ কমাবে এবং আপনার সময় বাঁচাবে

Ielts ছাড়া ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়া যায়

এবার আসুন জেনে নেওয়া যাক, ইউরোপের কোন কোন দেশে যাওয়া যায় IELTS ছাড়া:-

  • পোল্যান্ড
  • রোমানিয়া
  • ক্রোয়েশিয়া
  • বুলগেরিয়া
  • সার্বিয়া
  • ইতালি
  • হাঙ্গেরি
  • পর্তুগাল
  • ফ্রান্স
  • গ্রিস
  • মালটা
  • নরওয়ে
  • সাইপ্রাস
  • স্পেন
  • সুইডেন

ইউরোপে আইএলটিএস ছাড়াও যাওয়া যায় এমন প্রচুর দেশের তালিকা মিলবে। যাদের মধ্যে জনপ্রিয় কিছু দেশ হল নরওয়ে, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা

ইউরোপের এসকল দেশের তালিকায় মধ্যে আপনি চাইলে কম খরচে বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়া, ফ্রান্স, মালটা, কিংবা পর্তুগালে যেতে পারেন।

এতক্ষণতো কথা বললাম দেশ নিয়ে এবার আসুন দৃষ্টিপাত করা যাক, কিভাবে যাবেন এসব দেশে। আইএলটিএসে দক্ষতা না থাকলেও বিকল্প হিসাবে ভাষাগত দক্ষতার জন্য এমআই বা MOI সনদ নিয়েও আপনি পাড়ি জমাতে পারবেন ইউরোপের বিভিন্ন দেশে

আরো পড়ুনঃ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব এর সুযোগ সুবিধা ও বেতন কত টাকা

MOI বা Medium of Instruction কি?

এটি একটি সার্টিফিকেট যা আপনার বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকালীন জীবনে আপনার যেকোনো বিষয়ে ব্যাচেলর, বিবিএ, কিংবা বিএসি পড়াশুনার সময় আপনার ইংরেজি ভাষার উপর দক্ষতা প্রমাণ করে থাকে।

আইইএলটিএস মত দক্ষতা প্রমাণের পরীক্ষায় যারা কাঙ্খিত স্কোর বা ফলাফল অর্জন করতে পারেনা তাদের জন্য moi একটি বিকল্প সুবর্ণ সুযোগ। যা আপনার আইইএলটিএস পরীক্ষার বিকল্প হিসেবে কাজ করবে।

MOI সনদ টি আপনার সর্বশেষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নিতে হয়। এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন কি শুধুই স্বপ্ন থেকে যাবে? কোথায় বা তাদের স্বপ্ন পূরণের সুযোগ? কিংবা কোথায় যাবে তারা?

হ্যা, আপনার চিন্তা যুক্তিসঙ্গত, কিন্তু ইউরোপে ছাড়াও আরো এমন অনেক দেশই রয়েছে যেখানে আইইএলটিএস বা এমআই উল্লেখ্য থাকে না, যা আপনার স্বপ্নের সোনার হরিণ ধরতে সাহায্য করবে।

বর্তমানে বেশ কিছু দেশ এখন আইইএলটিএস এর পরিবর্তে এমআই সনদ নিয়ে থাকে। আশ্চর্যজনক হলেও সত্যি যে, ইউরোপের দেশগুলোতে সাধারণত এখন এমওআই সার্টিফিকেটের সনদকে আইইএলটিএস সার্টিফিকেটের ৬.৫ স্কোর সমতুল্য ধরা হয়।

এখন কথা হচ্ছে আইইএলটিএস ছাড়াই যদি এত সুযোগ সুবিধা পাওয়া যায় তবে আইইএলটিএস এর গুরুত্বটা ঠিক কোথায়?

কেনইবা হাজার হাজার শিক্ষার্থী বিদেশে যাওয়ার জন্য মোটা অংকের টাকা ছাড়াও বাড়তি টাকার খরচ গুনছে এবং বাড়তি সময় নষ্ট করছে আইএলটিএস পিছে?

সহজ সমীকরণ! এই উত্তর হচ্ছে, আপনি যেই দেশেই যান না কেন যাওয়ার পর পড়ালেখা করার জন্য হলেও আপনাকে ইংরেজি ভাষা সম্পর্কে দক্ষতা অর্জন করতেই হবে।

তাই বিদেশে যাওয়ার পূর্বে যদি ভাষাগত দক্ষতা বা আইইএলটিএস এর মাধ্যমে নিজেকে যোগ্য প্রমাণ করতে পারেন তা আপনার স্টুডেন্ট ভিসা পেতে সাহায্য করবে। এবং আপনার কাঙ্খিত আন্তর্জাতিক শিক্ষা সনদ অর্জনে অনেকখানি পথ প্রদর্শক হিসেবে সাহায্য করবে।

Moi দিয়ে কোন কোন দেশে যাওয়া যায়?

  • পর্তুগাল
  • পোল্যান্ড
  • নরওয়ে
  • বেলজিয়াম
  • চেক রিপাবলিক এমনকি ইউকে এর মতো দেশেও দিয়ে আপনি আবেদন করতে পারবেন।

Ielts করে বিদেশ যাওয়ার খরচ

সাধারণত প্রতি বছর ১৪/১৫ মাস পরপর IELTS পরীক্ষার খরচ বাড়ে। বর্তমানে এই পরীক্ষা দিতে আপনাকে গুণতে হবে আনুমানিক ২০,২৫০ টাকা। তবে এর সাথে সাথে বিদেশে থাকা এবং লিভিং খরচ বাবদ আনুমানিক শুরু হয় ২০/২২ লাখ টাকা থেকে।

Ielts করে কোন কোন দেশে যাওয়া যায়

উচ্চ শিক্ষার জন্য IELTS করে আপনি যে সকল দেশে যেতে পারবেন তা নিম্নে দেয়া হলো:

  • নিউজিল্যান্ড
  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
  • যুক্তরাজ্য ইত্যাদি।

এসকল দেশ ছাড়াও আরও অসংখ্য শীর্ষস্থানীয় দেশে আপনি পাড়ি জমাতে পারবেন ভালো একটি IELTS স্কোর তুলে।

আরো পড়ুনঃ ফ্রান্সে নাগরিকত্ব পাওয়ার উপায় ও ফ্রান্সে বৈধ হওয়ার উপায় সমূহ

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন (Frequently Asked Questions)

Ielts ছাড়া কানাডা বা ইতালি যাওয়া যাবে?

জী অবশ্যই যাবে! হোক কানাডা, কিংবা ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার জন্য কোনো বাধ্যবাধকতা বা প্রয়োজন নেই আইএলটিএসের। আপনার স্বপ্ন নিশ্চিত করা সম্ভব শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা ও ভিসা ইন্টারভিউ এর পাশের মাধ্যমে।

কম খরচে ইউরোপের কোন দেশে যাওয়া যায়?

রোমানিয়া, ফ্রান্স, পর্তুগাল, লাটভিয়া, মালটা সহ ইউরোপের আরো কিছু দেশে কম খরচে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া সম্ভব। দেশ গুলোতে যেতে আনুমানিক ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকা খরচ পড়বে একজন বাংলাদেশী নাগরিকের ক্ষেত্রে।

পরিশেষে

দেখতে দেখতে চলে এলাম আজকের আর্টিকেলের শেষ পর্যায়ে। সর্বশেষ কথা হচ্ছে স্বপ্ন পূরণের জন্য শুধুমাত্র আপনার মধ্যে উদ্যম ইচ্ছাশক্তি ও দৃঢ় প্রকল্প থাকা প্রয়োজন। তবেই আমরা পারবো IELTS এর মতো কঠিন বাঁধাকে উপেক্ষা করে বিদেশে নিজের স্বপ্নের ভবিষ্যৎ গড়ার! আশা করি আমাদের আজকের এই লেখাটি পড়ে আপনি উপকৃত হয়েছেন। Ielts সম্পর্কিত আরো কোন তথ্য জানার থাকলে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন এবং লেখাটি ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ

পোষ্ট ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত দিন

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)