নেটওয়ার্ক টপোলজি কি? নেটওয়ার্ক টপোলজি কাকে বলে

নেটওয়ার্ক টপোলজি কি? যে পদ্ধতিতে প্রতিটি কম্পিউটার পরস্পরের সাথে সংযুক্ত হয়ে কম্পিউটার নেটওয়ার্ক গঠন করে তাকে বলা হয় টপোলজি।

নেটওয়ার্ক টপোলজি কি

Network Topology ২ প্রকার। যথাঃ

(i) Logical Topology: Network ব্যবস্থায় ডাটা ট্রান্সমিশন করার জন্য যুক্তিনির্ভর পথের যে পরিকল্পনা তাকে Logical Topology বলে।

(ii) Physical Topology: Network ব্যবস্থায় ডাটা ট্রান্সমিশন করার জন্য দৃশ্যমান যে অবকাঠামো তাকে Physical Topology বলে ।

Logical Topology আবার ২ প্রকার। যথাঃ

a) Logical Bus Topology

b) Logical Ring Topology. 

Physical Topology ৬ প্রকার। যথাঃ

a) Bus topology

b) Star topology

c) Ring topology

d) Completely connected (Mesh topology)

e) Hybrid topology

f) Tree Topology

Bus Topology (বাস টপোলজি): প্রতিটি Station একটি ক্যাবল এর মাধ্যমে সংযুক্ত থাকে। এ টপোলজিতে যে কোন ষ্টেশন যে কোন সময় ডাটা ট্রান্সমিট করতে পারে। সিগন্যাল দূর্বল হয়ে গেলে তা Amplify করার জন্য Repeter ব্যবহৃত হয়। ডাটা ট্রান্সমিটার এ Collision ঘটার সম্ভাবনা থাকে বলে তা কমানোর জন্য টার্মিনেশন ব্যবহার করা হয় ।

Star Topology (স্টার টপোলজি): Station Connectivity device (Hub/Switch) এর সাথে সংযুক্ত হয়ে তথ্যের আদান প্রদান করে। এ system এ কোন Station কাজ না করলে ও System পুরোপুরি বন্ধ হয় না। Device হিসেবে Hub ব্যবহৃত হলে ডাটা সবত্র ঘুরে বেড়ায় এবং যে Station এর Address এর সাথে মিলে যায় সেই Station ডাটা গ্রহণ করে।

Ring Topology (রিং টপোলজি): দেখতে অনেকটা রিং এর মত। এখানে Station সমূহ শুধু ক্যাবল এর মাধ্যমে একটির সাথে অন্যটি সংযুক্ত থাকে। এতে দুটি ক্যাবল ব্যবহার হয়। এ নেটওয়ার্ক টপোলজি তে যদি মাঝের কোন Station নষ্ট হয়ে যায়, তবে সম্পূর্ণ নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়বে।

Mesh topology (মেশ টপোলজি): যদি কোনো নেটওয়ার্কে ডিভাইস বা কম্পিউটারগুলোর মধ্যে অতিরিক্ত সংযোগ থাকে তাহলে তাকে বলা হয় মেশ টপোলজি। অধিকাংশ মেশ টপোলজি নেটওয়ার্ক সত্যিকারের মেশ নেটওয়ার্ক নয়। এগুলো হলো আসলে হাইব্রিড মেশ নেটওয়ার্ক। এতে শুধু অতিরিক্ত বা অপ্রয়োজনীয় লিঙ্ক থাকে। এতে ডেটা কমিউনিকেশনে অনেক বেশি নিশ্চয়তা থাকে এবং নেটওয়ার্কের সমস্যা খুব সহজে সমাধান করা যায়।

Hybrid topology (হাইব্রিড টপোলজি): বাস, স্টার, রিং ইত্যাদি টপোলজির সমন্বয়ে গঠিত নেটওয়ার্ক টপোলজিকে বলা হয় হাইব্রি টপোলজি ।

উদাহরণস্বরূপ: ইন্টারনেটকে এ ধরনের টপোলজি হিসেবে অভিহিত কর যায়। কেননা ইন্টারনেট হলো বৃহৎ পরিসরে একটি নেটওয়ার্ক। যেখানে সব ধরনের টপোলজির মিশ্রণ দেখা যায় । টপোলজি তে প্রয়োজনানুযায়ী নেটওয়ার্ক বৃদ্ধি করার সুযোগ রয়েছে। কোন সমস্যা দেখা দিলে তা সহজেই নির্ণয় করা সম্ভব হয়। কোন এক অংশ নষ্ট হয়ে গেলে সম্পূর্ণ নেটওয়ার্ক নষ্ট না হয়ে অংশবিশেষ নষ্ট হয়ে যায় ।

Tree Topology (ট্রি টপোলজি): একটি Root node এর সাথে হাব যুক্ত করে Branch তৈরি করা হয় এবং Branch থেকে বিভিন্ন Node যুক্ত হয়। Branch এর সাথে নতুন হাব যুক্ত করে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ করা যায়।

আরো পড়ুনঃ নোটবুক এবং ল্যাপটপের মধ্যে পার্থক্য

পোষ্ট ক্যাটাগরি: