লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ - প্রিয় পাঠক, আপনি কি লোন নেয়ার চিন্তা করেছেন? যদি বাংলাদেশ থেকে লোন নেওয়ার উপায় খুঁজে থাকেন। তবে আপনার জন্য সাজিয়েছি আজকের এই লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ পোস্টটি। তাই লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ সম্পর্কে জানতে লেখাটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

আপনি কোন ব্যবসা শুরু করতে গেলে প্রথমেই আপনার একটি লোনের প্রয়োজন হবে। আমরা সাধারণত আমাদের নিকটতম আত্মীয় স্বজনের কাছ থেকে লোন নিয়ে থাকি। মূলত প্রয়োজনের তাগিদেই আমাদের লোন গ্রহণ করতে হয়। তবে আপনি জেনে খুশি হবেন বর্তমানে লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ চালু হয়েছে। 

যেখান থেকে সহজেই লোন নেওয়া যায়। আজ আমি এমনই বেশ কয়েকটি লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশি অ্যাপসের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক লোন নেওয়ার বাংলাদেশি অ্যাপস।

ব্যাংক লোন কি?

লোন এর বাংলা প্রতিশব্দ হচ্ছে ঋণ বা ধার নেওয়া। তাহলে কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে টাকা ঋণ নেওয়ার পক্রিয়াকেই সাধারণত ব্যাংক লোন বলা হয়। ব্যাংক যখন গ্রাহকের আর্থিক বিপদে নির্দিষ্ট একটি সময়ের জন্য সুদের উপর ভিত্তি করে অর্থ প্রদান করে এবং সেই অর্থ সপ্তাহিক বা মাসিক ভিত্তিতে সুদ সহ ব্যাংক কতৃপক্ষকে ফেরত দিতে হয়। এটাই হচ্ছে ব্যাংক লোনের কার্যাবলী।

কি কি কারণে ব্যাংক লোন দেয়?

ব্যাংক লোন কি কি কারণে দিতে পারে এটা জানতে আমরা সবাই চাই। তাহলে নিচে থেকে জেনে নিন আপনি ঠিক কি কি কারণে ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারেন। 

১। দীর্ঘমেয়াদি লোন

২। স্বল্প মেয়াদি লোন

৩। প্রবাসী লোন

৪। কৃষি লোন

৫। স্টুডেন্ট লোন

৬। পার্সোনাল লোন

৭। হোম লোন

৮। বিজনেস লোন

৯। অটো লোন

লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ - লোন নেওয়ার বাংলাদেশি অ্যাপস

আপনার যদি লোন প্রয়োজন হয়ে থাকে তবে আপনি এখন থেকে খুব সহজেই আপনার হাতে থাকে মোবাইল ফোন দিয়েই লোন নিতে পারবেন। আজকের এই পোস্টের এই অংশে আমি আপনাদের লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ বা লোন নেওয়ার বাংলাদেশি অ্যাপসের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব। 

একনজরে দেখে নিন লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ 

১। Pocket Loan

২। BD Banks:Loan

৩। Phone Loan

৪। Brac Agami

৫। Dhaka Credit

আরো পড়ুনঃ বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার উপায়

Pocket Loan - লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

Pocket loan একটি বাংলাদেশের আর্থিক প্ল্যাটফর্ম এবং বিভিন্ন প্রয়োজনে গ্রাহককে আর্থিকভাবে লোন প্রদান করে থাকেন। বর্তমানে বাংলাদেশের সেরা লোন প্রদানকারী অ্যাপস হচ্ছে Pocket loan. এই পকেট লোন অ্যাপস বা প্ল্যাটফর্ম থেকে সর্বনিম্ন ৩০০০ টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত লোন নেওয়া যায়। 

আর এই লোন পরিশোধের সময়কাল হচ্ছে ৯৫ দিন থেকে ৩৬৫ দিন পর্যন্ত। আপনার যদি টাকা প্রয়োজন হয় তবে আপনি Pocket Loan থেকে টাকা লোন নিতে পারেন। লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ Pocket Loan অ্যাপস ইন্সটল করতে এখানে ক্লিক করুন

BD Banks:Loan - লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

বর্তমানে ব্যাংক থেকে টাকা লোন নেওয়ার জন্য এই অ্যাপসটি বেশ কাজে দিবে। মূলত এই অ্যাপস থেকে লোন না নিতে পারলেও এই অ্যাপস দিয়ে আপনি বাংলাদেশের প্রায় সকল ব্যাংকের লোনের, ডিপিএসের সহ বিভিন্ন ধরনের তথ্য জানতে পারবেন। 

এছাড়াও জানতে পারবেন কোন সময় কোন ব্যাংক থেকে আপনি খুব সহজে লোন পেতে পারেন। আপনার যদি ব্যাংক থেকে লোনের প্রয়োজন হয় তবে আজই লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ অ্যাপটি ইন্সটল করুন আপনার হাতে থাকা মোবাইলে। BD Banks:Loan অ্যাপস ইন্সটল করতে এখানে ক্লিক করুন

Phone Loan - লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

আপনার যদি ফোনে টাকা পয়সার প্রয়োজন হয়ে থাকে তবে আপনি Phone Loan অ্যাপসটি সাহায্য করতে পারে। রবি কোম্পানীর তৈরি একটি অসাধারণ একটি অ্যাপস। 

এই অ্যাপস দিয়ে মূলত আপনি ৩০% ডাউন পেমেন্ট করে একটি হ্যান্ডসেট কিনতে পারবেন লোনের মাধ্যেমে এবং পরবর্তী সময়ে MFS এর মাধ্যেমে টাকা পরিশোধ করতে পারবেন। Phone Loan অ্যাপস ইন্সটল করতে এখানে ক্লিক করুন

Brac Agami -লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

ব্রাক ব্যাংকের তৈরি একটি মোবাইল অ্যাপস হচ্ছে Brac Agrmi. ব্রাক ব্যাংক থেকে টাকা লোন নেওয়ার জন্য একটি দরকারি অ্যাপস। এই অ্যাপস দিয়ে আপনি সরাসরি ব্রাক ব্যাংক থেকে কিভাবে লোন নিতে হয়, কত টাকা লোন পাওয়া যাবে, কিভাবে আপনি অর্থ লেনদেন করতে পারবেন তার সকল তথ্য এই অ্যাপসের মাধ্যেমে আপনি জেনে নিতে পারবেন। Brac Agami অ্যাপস ইন্সটল করতে এখানে ক্লিক করুন

Dhaka Credit - লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

মোবাইল দিয়ে ব্যাংক লোন নেওয়ার আর একটি জনপ্রিয় অ্যাপস হচ্ছে Dhaka Credit। এই অ্যাপস দিয়ে আপনি ব্যাংক ট্র্যান্সফার রিকুয়েস্ট করতে পারবেন, বিকাশ বা মোবাইল ব্যাংক রিকুয়েস্ট করতে পারবেন। 

এছাড়াও আপনার টাকার ট্রান্সফার রিকুয়েস্ট স্ট্যাটাস চেক করতে পারবেন। আপনার যদি এই অ্যাপসটি যদি প্রয়োজন হয় তবে ইন্সটল করতে পারেন। Dhaka Credit অ্যাপস ইন্সটল করতে এখানে ক্লিক করুন

আরো পড়ুনঃ ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

অনলাইনে লোন পাওয়ার উপায় | সহজ লোন বাংলাদেশ

যদি আপনি অনলাইন থেকে সহজভাবে লোন নিতে চান তাহলে নিতে পারেন। বর্তমানে ব্যবসা-বাণিজ্য বা অন্যান্য কাজের জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন ব্যাংক থেকে অনলাইনে লোন পাওয়া যাচ্ছে। যদি আপনিও ব্যবসা বা অন্যন্য কাজের জন্য ব্যাংক থেকে লোন নিতে চান তাহলে নিতে পারেন। নিচের দেওয়া প্রসেসগুলো অনুসরণ করুন।

দ্রুত সময়ের মধ্যে যদি আপনি লোন নিতে চান তাহলে আপনআকে প্রথমে ভিজিট করতে হবে এই http://forms.mygov.bd/ ওয়েবসাইটে।

লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

তারপর অনলাইনে আবেদন করুন এই অপশনে ক্লিক করুন। উপরের ছবিতে যেমন আপনি দেখতে পাচ্ছেন। এরপর পরবর্তী অপশানে ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

কোন কোন ব্যাংক জরুরি ভিত্তেতে ব্যাংক লোন দিয়ে থাকে

আপনারা অনেকেই জানতে চান বাংলাদেশের কোন কোন ব্যাংক জরুরী ভিত্তিতে ব্যাংক লোন দিয়ে থাকে। তাহলে একনজরে দেখে বাংলাদেশের সেরা ব্যাংকগুলো যারা গ্রাহকের জরুরী ভিত্তিতে ঋণ প্রদান করে থাকে। 

১। ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক

২। ব্রাক ব্যাংক

৩। বাংলাদেশ ব্যাংক

৪। জনতা ব্যাংক

৫। ইসলামি ব্যাংক

৬। সোনালি ব্যাংক

৭। গ্রামীণ ব্যাংক

৮। ডাচ বাংলা ব্যাংক

৯। সিটি ব্যাংক

১০। ইবিএল ব্যাংক

১১। আল-আরাফা ব্যাংক

১২। প্রাইম ব্যাংক

১৩। এশিয়া ব্যাংক

১৪। এবি ব্যাংক

জরুরি লোন বাংলাদেশ - Bank Loan BD

যদি আপনার জরুরী লোনের প্রয়োজন হয়ে থাকে তবে আপনি বাংলাদেশ ব্যাংক বা আজকের পোস্টে দেখানো ব্যাংকগুলো থেকে আপনি জরুরী ভিত্তিতে লোন গ্রহণ করতে পারেন এবং সঠিক সময়ে পরিশোধ করতে পারেন। এছাড়াও বাংলাদেশ লোন নেওয়ার অ্যাপস থেকেও আপনি জরুরী লোন নিতে পারবেন। 

সেরা লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ

বাংলাদেশে সেরা লোন নেওয়ার অ্যাপস অনেকগুলো আছে তবে এই মুহূর্তে বাংলাদেশি সেরা লোন নেওয়ার অ্যাপস হচ্ছে Pocket Loan, BD Banks:Loan, Phone Loan, Brac Agami, Dhaka Credit ইত্যাদি। 

স্টুডেন্টরা কি ব্যাংক লোন নিতে পারবে?

বর্তমানে ছাত্র-ছাত্রীরাও ব্যাংক থেকে লোন গ্রহণ করতে পারবে। তবে ছাত্র-ছাত্রী স্টুডেন্ট লোন গ্রহণ করতে হবে। এর জন্য যিনি লোন গ্রহণ করবে তার কমপক্ষে ১৮ বছর হতে হবে। এছাড়াও জাতীয় পরিচয় পত্রের প্রয়োজন হবে। 

শেষ কথা - লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ নিয়ে

প্রিয় পাঠক, পরিশেষে আমি আপনাদের সাথে কিছু কথা বলতে চাই,আজকে আমি আপনাদের সাথে লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ - বাংলাদেশের সেরা লোন নেওয়ার অ্যাপস নিয়ে আপনাদের সাথে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। 

এছাড়াও কিভাবে আপনি লোন নিতে পারেন ব্যাংক থেকে সে সম্পর্কে ধারণা দিয়েছি। আশাকরি আপনি সকল কিছু বুঝতে পেরেছেন। লোন নেওয়ার অ্যাপস বাংলাদেশ নিয়ে যদি আপনার কিছু জানার থাকে তবে আপনি আমাদের কমেন্ট করে জানতে পারেন। যদি এই পোস্টটি আপনার কাছে তথ্যবহুল বা ইনফরমেটিভ মনে হয় তবে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। ধন্যবাদ!

পোষ্ট ক্যাটাগরি: