Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2022/12/diabetes.html

ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়

ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয় - প্রিয় পাঠক আমি আজকে পোস্টে আপনাদেরকে জানাবো ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়। অনেকেই হয়তো দেখেছেন বা শুনেছেন এই ডায়াবেটিস জিনিসটা কি। যারা যারা এই পোস্টটি দেখতে এসেছেন তাদের নিশ্চয়ই ডায়াবেটিস সম্বন্ধে তেমন কোন ধারণা নেই, আমি আজকে আপনাদের এই পোস্টে ডায়াবেটিস সম্বন্ধে কিছু কথা বলব। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়।

সূচিপত্রঃ ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়

ভূমিকাঃ ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়

ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়? ডায়াবেটিস রোগ বেশিরভাগই চেনা পরিচিত। বাংলাদেশে এই রোগটি খুব ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। আজকের এই আর্টিকেলে ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়, ডায়াবেটিসের লক্ষণ, ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার,উপায় ডায়াবেটিসের চিকিৎসা। বিশেষ বিশেষ কারণ নিয়ে আলোচনা করব। তো চলুন দেরী না করে জেনে নেওয়া যাক এই সম্পর্কে বিস্তারিত।

ডায়াবেটিসের লক্ষণ

ডায়াবেটিসের লক্ষণ কিভাবে বুঝতে পারবেন সেই বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। ডায়াবেটিস এমন একটা রোগ মানুষের জীবনের স্বাভাবিক জীবনযাত্রার মত হয়ে আসে। অনেকেই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগী জানে না যে তার এই রোগটি হয়েছে। কিন্তু কি করে জানবেন ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়, এবং কি কি লক্ষণ দেখা দেয়। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক।

আরো পড়ুনঃ শীতে ত্বকের যত্নে ঘরোয়া উপায়

রোগের প্রধান প্রধান লক্ষণগুলো হলোঃ

1. মিষ্টি জাতীয় জিনিসের প্রতি আকর্ষণ বেড়ে যাওয়া

2. কোন কারন ছাড়াই শরীরের অনেক ওজন কমে যাওয়া

3. চামড়া খসখসে, শুষ্ক ও চুলকানি ভাব আসে।

4. মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়

5. বিরক্তিকর হয়ে ওঠা

6. চোখে কম দেখতে শুরু করা

7. ঘন ঘন প্রস্রাব 

8. আগের চেয়ে বেশি পিপাসা লাগা

9. শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে যাওয়া

10. ঘন ঘন ক্ষুধা লাগা

11. হাত পা কাঁপা শুরু হয়ে যাওয়া

12. কাটাছেঁড়া সহজে না শুকানো

আপনার শরীরের এগুলো লক্ষণ দেখা দেয়। তাহলে ভেবে নিবেন আপনার ডায়াবেটিস হয়েছে। এছাড়াও এসব লক্ষণ না থাকলে, প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক লোকের ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা উচিত। শিশুদের ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস হয়ে থাকে যেসব শিশুর জন্মের পর ওজন বেশি বা বাবা-মার ভাই বোনের ডায়াবেটিস আছে এসব শিশুদের ডায়াবেটিস হওয়ার লক্ষণ আছে।

ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষেরই ডায়াবেটিস আছে। আর যাদের ডায়াবেটিস নাই তাদের মাঝে মধ্যে পরীক্ষা করা উচিত। বছরে একবার পরীক্ষা করা উচিত।ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়। ডায়াবেটিস দুই ধরনের হয়ে থাকে.১ টাইপ ওয়ান ২ টাইপ টু

টাইপ ওয়ান হচ্ছে  শরীরে ইনসুলিন করা, ডায়াবেটিসের প্রথম মাধ্যম হচ্ছে ইনসুলিন করে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা। ডায়াবেটিস এমন একটা রোগ পুরোপুরিভাবে সুস্থ হওয়ার কোন ওষুধ বের হয়নি। টাইপ-টু হচ্ছে ঘরোয়া পদ্ধতি। যা ডাক্তাররা প্রতিনিয়ত নির্দেশ করে।

এই দুইটা পদ্ধতি সম্পূর্ণভাবে মেনে চলে 70% ডায়াবেটিস ঠেকিয়ে রাখা অনুভব। এরপরে আমরা ঘরোয়া পদ্ধতিতে কিছু আলোচনা করব। নিচে ঘরোয়া পদ্ধতিতে ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় দেওয়া হল।

ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার ঘরোয়া উপায়

ডায়াবেটিস কে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। তার মধ্যে একটি হচ্ছেডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার ঘরোয়া উপায়। নিম্নে ঘরোয়া উপায় গুলো দেওয়া হলঃ

আরো পড়ুনঃ ভিটামিন ই ক্যাপসুল দাম

প্রতিদিন হাঁটা

ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার অন্যতম একটি ঘরোয়া উপায় হচ্ছে হাটা।আমরা অনেকেই অলসতা করে হাটতে চাই না। আবার মোবাইল বা কম্পিউটার কাজ করে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছে ।তাই আমাদেরকে প্রতিদিন কমপক্ষে এক ঘন্টা করে হাঁটতে হবে।

মিষ্টি জাতীয় জিনিস পরিত্যাগ করা

আমরা খুব বিষন্ন ভাবে মিষ্টি জাতীয় জিনিসের সাথে জড়িত আছে। যাদের যাদের ডায়াবেটিস হবে তারা পরিপূর্ণভাবে মিষ্টিজাতীয় জিনিসকে পরিত্যাগ করতে হবে। ডায়াবেটিসের আরেকটি বদ অভ্যাস মিষ্টি জাতীয় জিনিস খাওয়া। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে মিষ্টি জাতীয় জিনিস পরিত্যাগ করতে হবে।

ধূমপান ও মদ্যপান ছেড়ে দেওয়া

আমরা বেশিরভাগ মানুষ ধূমপানের জড়িত আছে। বা মদ্যপান নামাজের নেশা হয়ে গেছে। ডায়াবেটিসের জন্য একটি মারাত্মক কাজ হচ্ছে ধূমপান। শুধু ডায়াবেটিসের জন্য নয় আরো অনেক ধূমপানের কারণে হয়ে থাকে। এগুলো আমাদের পরিত্যাগ করতে হবে।

ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা

যাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি আছে তারা অবশ্যই বছরে একবার ডায়াবেটিস পরীক্ষা করাতে হবে। এজন্য সব সময় হাসপাতাল যেতে হবে এমন নয়। বাড়ির আশেপাশে ফার্মেসিতে ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা হয় সেসব ফার্মেসীতে গিয়ে পরীক্ষা করতে পারবেন। অনেক রোগী জানে না যে তাদের ডায়াবেটিস হয়েছে। সেজন্যই নিয়মিত ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা উচিত।

খাবার নিয়মিত খাওয়া

ডায়াবেটিস রোগীদের খাবার দাবার ঠিকমতো খেতে হবে। সেটা খেতে হবে খুব বেশি পরিমাণে না আবার খুব কম পরিমাণে না। একদম ঠিক মতন মেপে খেতে হবে। নিয়ম মেনে সকালে ঘুম থেকে ওঠা এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার। সব কিছু নিয়মের মধ্যে করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ নারিকেল তেল বানানোর উপায়

ডায়াবেটিস চিকিৎসা

ডায়াবেটিস যেহেতু অসংক্রামক ব্যাধি সুনির্দিষ্ট কোন কারণ জানা যায়নি বাপ পুরোপুরিভাবে ডায়াবেটিস থেকে সুস্থ হওয়া যায় এই ঔষধে এখনো বের হয়নি। তবে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে কিছু অভ্যাস বাদ দিতে হবে। পারিবারিক ইতিহাস অধিকমাত্রায় খাদ্য গ্রহণ অতিরিক্ত মানসিক চাপ, বিষন্নত্নি‌ জীবনযাপনের সঙ্গে ডায়াবেটিস রোগ সূত্রে পাওয়া গেছে।

কিছু কিছু জিনিস না মানলে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায়। বয়স 45 বা তার বেশি হলে ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকিপূর্ণ বেশি খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমে খুব সহজেই প্রতিরোধ করা যায়। প্রচুর পরিমাণে শাকসবজি খাওয়া ফলমূল খাওয়া। কম শর্করাযুক্ত খাদ্য কম খাওয়া। কম চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়া।

শেষকথাঃ ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়

ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যা পুরোপুরিভাবে সুস্থ হওয়া যায়না। কিন্তু নিয়ম মেনে চললে তার নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। আমরা অবশ্য এসব নিয়ম মেনে চলবো এবং শরীরের যত্ন নিব।আমরা এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে ইতিমধ্যে জেনে গেছি ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়। আশা করি আপনারা সম্পূর্ণ বিস্তারিত ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। আশা করি আপনারা উপকৃত হবেন ধন্যবাদ।

0 Comments