Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2020/03/blog-post_12.html

১৫-২৫ হাজার টাকার মধ্যে গেমিং মোবাইল ফোন

সারাক্ষণ আপনাদের কাছ থেকে রিকুয়েস্ট পেতে থাকি যে ভাইয়া আপনি গেমিং স্মার্ট ফোন নিয়ে কিছু পোস্ট লিখে থাকেন। তো আজকের আর্টিকেল এ আমরা পোস্ট লিখব গেমিং মোবাইল ফোন সম্পর্কে। বর্তমান সময়ে স্মার্ট ফোন গুলি দিন দিন নানা রকম প্রতিযোগীতার মধ্যে দিয়ে বাজারে বেড়েই চলছে। তো আজকের বাজেট হচ্ছে ১৫হাজার,২০ হাজার এবং ২৫ টাকার এর গেমিং স্মার্ট ফোন।
১৫-২৫ হাজার টাকার মধ্যে গেমিং মোবাইল ফোন
এই বাজেট এর মধ্যে আমরা ৩টি স্মার্ট ফোন নিতে পারি। যে তিনটি স্মার্ট ফোন গেমিং এর জন্য বর্তমান সময়ে ভালো হবে। আর এই বর্তমান সময় বলতে মার্চ মাস প্রথম দিকে। আর কয়েক দিন পর আরও নতুন ডিভাইস আসবে তাতে আরও কিছু নতুন ফিচার আসবে এটাই স্বাভাবিক। 

আমরা এই তিনটি স্মার্ট ফোন এর প্রসেসর শুধু নয় বা গেমিং এর জন্য পারফেক্ট তাই নয় এই স্মার্ট ফোন গুলির সব বিষয় কেমন রয়েছে ডিসপ্লে কেমন ক্যামেরা ভালো না খারাপ অন্য দিক গুলা কেমন সেই সব দিক বিবেচনা করে আজকের এই তিনটি স্মার্ট ফোন যাচাই করা হয়েছে। সুতরাং আশা করব আপনারা গেমিং স্মার্ট ফোন এর সাথে সাথে ভালো একটা প্যাকেজ পেয়ে যাচ্ছেন। চলুন তাহলে নিম্নে এই তিনটি স্মার্ট ফোন এর বিস্তারিত জেনে নিয়া যাক ঃ

VIVO U20
প্রথমে আমরা ১৫ হাজার টাকা বাজেট থেকে শুরু করি। ১৫ হাজার টাকা বাজেট এ বাংলাদেশ এ বর্তমানে আনফিসিয়ালই গেমিং মোবাইল ফোন হিসাবে যে মোবাইল ফোন টিকে আমরা পছন্দ হয় যা হচ্ছে VIVO U20। এই স্মার্ট ফোন টি অনন্যা সব বা নানা রকম এর দিক ভালো সাথে সাথে গেমিং এর জন্য ভালো স্মার্ট ফোন। 

এই মোবাইল ফোন ভালো এই কারনেই বলছি কেননা এই স্মার্ট ফোন স্নাপড্রাগন ৬৭৫ অক্টাকোর প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। যে প্রসেসর টি রেডমি নোট ৭ প্রো তে ব্যবহার করা হয়েছে। তো রেডমি নোট ৭ প্রো এই বাজেট এ আপনি নিতে পারবেন বা একটু কম দামে নিতে পারবেন। কিন্ত সেই স্মার্ট ফোনটিকে আপনি নিতে বলছি না। 

ওই স্মার্ট ফোন টিকে বাদ দিয়ে আপনি কিছু কারনে এই VIVO U20 স্মার্ট ফোনটিকে নিতে পারেন। যেমন VIVO U20 স্মার্ট ফোন এর পিছনে তিনটি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। এবং এই স্মার্ট ফোন টি একটু লেটেস্ট সময়ের মোবাইল ফোন। আমি আপনাদের সব সময় পরামর্শ দিয়ে থাকি তা হচ্ছে আপনারা পুরনো বা ব্যাকডেটেড মোবাইল ফোন কিনবেন না। 

সেই হিসাবে এই স্মার্ট ফোন টি ঠিক আছে। মোবাইল ফোন এর অনন্যা দিক আলোচনার আগে আমরা এই স্মার্ট ফোন এর গেমিং নিয়ে আলোচনা করি। এই স্মার্ট ফোন যে প্রসেসর টি ব্যবহার করা হয়েছে স্নাপড্রাগন ৬৭৫ অক্টাকোর প্রসেসর তা খুব ভালো একটি প্রসেসর এই বাজেট এর মধ্যে। কারন আপনি যদি অনেক ক্ষণ ধরে গেমিং করেন তাহলে এই প্রসেসর টি তার পারফরম্যান্স হারায় না।

যথেষ্ট ভালো পারফরম্যান্স ধরে রাখতে সক্ষম। আর যারা পাব্জি লাভার আছেন তাদের কে এই স্মার্ট ফোন টি ভালো পারফরম্যান্স দিবে বা ভালো সাপোর্ট দিবে। এই স্মার্ট ফোন টি থেকে আপনি খুব ভালো এক্সপ্রেসন নিতে পারবেন বা প্রসেসর থেকে খুব ভালো এক্সপ্রেসন নিতে পারবেন। 

ভালো বিষয় হচ্ছে এই স্মার্ট ফোন এর গ্রাফিক্স এর সাথে পাওয়ার করবে Adreno 612। ভালো বিষয় আর একটা হচ্ছে মোবাইল ফোন এর স্টোরেজ টাইপ হিসাবে রয়েছে UFS 2.1।এটাও ভালো বিষয় যে আমরা এই রকম বাজেট এ এতো কিছু পেয়ে যাচ্ছি। 

এই মোবাইল ফোন আমরা ডিসপ্লে হিসাবে পেয়ে যাচ্ছি ৬.৫৩ ইঞ্চি IPS LCD ফুল এইচডি ডিসপ্লে আর এর সাথে থাকছে একটি ইউসেপ নজ। আর র‍্যাম রম হিসাবে আমরা এই স্মার্ট ফোন টি দুই রকম ভাবে পেয়ে যাব। যেমন; ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রম, আবার ৬ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রম। আর এই স্মার্ট ফোন এর পিছন সাইট এ তিনটি ক্যামেরা পেয়ে যাবো। 

VIVO U20 এই স্মার্ট ফোন এর মেইন ক্যামেরা হিসাবে থাকছে ১৬ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা এবং ৮ মেগাপিক্সেল আল্টাওয়েড লেন্স আর এখানে আরও একটি ২ মেগাপিক্সেল এর ম্যাক্রো লেন্সও রয়েছে। এই মোবাইল ফোন এর ফন্ট সাইজ এ সেলফি ক্যামেরা হিসাবে আছে ১৬ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা। যা সেলফি ছবি তুলতে খুব ভালো হবে। 

আর এই স্মার্ট ফোন এ ব্যাটারি হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে ৫০০০ মিলিয়াম্পিয়ার এবং এটি ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সিস্টেম সাপোর্টেড। আর দুঃখের সাথে বলতে হয় এই স্মার্ট ফোন টি ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট সাপোর্টেড নয়। মাইক্রো ইউএসবি পোর্টেড। এখানে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট সাপোর্টেড দিলে ভালো হতো। যদি এটির কোন বিশেষ সুবিধা আছে তা নয়। 

এটি দিলে হয় কি দেখতে ভালো লাগে এবং এটি অনেক বেশি টেকসই। তো এই স্মার্ট ফোন নিয়ে আর বেশি কিছু বলতে চাই না। আপনি যদি ১৫ হাজার টাকা বাজেট এর মধ্যে গেমিং স্মার্ট ফোন নিতে চান তাহলে আমার সাজেশন থাকবে আপনি এই স্মার্ট ফোনটি নিতে পারেন বা চয়েস করতে পারেন। তবে রেডমি নোট ৭ পেতে পারেন আর যদি আর একটু বাজেট বাড়ালে আপনি পেয়ে জাবেন রিয়েল মি ৫ প্রো। 

Redmi Note 8 Pro 
এর পরে যদি আপনার বাজেট যদি আর একটু বাড়ান তাহলে আপনার বাজেট হয়ে যাচ্ছে ২০ হাজার টাকা। আর এই ২০ হাজার টাকা বাজেটে এই মুহূর্তে আমি আপনাকে বলব যে আপনি রেডমি নোট ৮ প্রো নিতে পারেন। রেডমি এর এই স্মার্ট ফোন এ নানা রকম ফিচার যুক্ত করা হয়েছে। যার ফলে ফোনটি অনেক বেটার পারফরম্যান্স দিতে পারেন। 

এই স্মার্ট ফোন প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে MideaTek helio G90T অক্টাকোর প্রসেসর। যেটা গেমিং এর জন্য খুব ভালো। এই মোবাইল ফোন টি একটু গরম হয়। তবে এতে ভয় এর কিছু নেই। প্রথম দিকে যে স্মার্ট ফোনটি ছিল সেগুলো একটু অতিরক্ত গরম হয়েছিল কিন্ত বর্তমান এ যে স্মার্ট ফোন গুলি আছে সেসব ফোন ওই রকম পরিমানে গরম হয় না। 

এই স্মার্ট ফোনে আপনি অনেক্ষন ধরে গেম খেলতে থাকলে কোন রকম প্রব্লেমে পরবেন না। হাই রেজুলিউসন যে সব গেম আছে এ সব গেম খেলতে পারবেন। পাব্জি বা অই রকম লেভেল এর গেম গুলি আপনি খুব ভালোভাবে খেলতে পারবেন বা গেমার যারা আছেন একেবারে প্রো লেভেল এর গেমার হয়ে থাকলেও ২০ হাজার টাকা আপনাকে খুব ভালো পারফরম্যান্স দিয়ে থাকবে বা খুব ভালো সাপোর্ট দিয়ে থাকবে। 

বর্তমান সময়ে এই স্মার্ট ফোন এর দাম আনঅফিসিয়াল এ প্রায় ২১ হাজার টাকা এর কাছাকাছি। এই স্মার্ট ফোন এর পিছনে আমরা পেয়ে যাব কোয়াটক্যামেরা সেটআপ। যার মেইন লেন্স হিসাবে থাকছে ৬৪ মেগাপিক্সেল এই মোবাইল ফোন এর এটাও কিন্ত একটা ভালো দিক। কারন এর ক্যামেরা দিয়ে ভালো ছবি পাওয়া সম্ভব।

 আর ৮ মেগাপিক্সেল এর আল্ট্রাওয়েডলেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল এর Depth লেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল এর ম্যাক্রো সুটার। সুতরাং ক্যামেরা এর জন্য হলেও এটি একটি ভালো প্যাকেজ বলা যায়। আর সেই সাথে আছে ২০ মেগাপিক্সেল এর সেলফি ক্যামেরা। যা দিয়ে অনায়েছে আপনি খুব ভালো সেলফি নিতে পারবেন। 

আর এই স্মার্ট ফোনটি UFS 2.1 সাপোর্টেড রয়েছে। এই মোবাইল ফোন এর ব্যাটারি হিসাবে আমরা ভালো ব্যাটারি পাচ্ছি ৪৫০০ মিলিয়াম্পিয়ার ব্যাটারি। যা দিয়ে অনায়েছে আপনি একদিন চালাতে পারবেন। স্মার্ট ফোন এর ডিসপ্লে হিসাবে থাকছে ৬.৫৩ ইঞ্চি IPS LCD ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। আরও থাকছে ইউসেফ নস। আর ডিসপ্লে কে প্রটেকশন দেয়ার জন্য থাকছে করনিং গরিলা গ্লাস ৫। 

এবং পিছন সাইটে মোবাইল কে প্রটেকশন করার জন্য আছে করনিং গরিলা গ্লাস ৫। সুতরাং এই মোবাইল ফোন এর বিল্ড কোয়ালিটি বেশ ভালো। যাহোক আপনারা এই স্মার্ট ফোন সম্পর্কে খুব ভালো করে জানেন। অনেক এই আছেন যারা প্রসেস্রর MideaTek helio G90T অক্টাকোর প্রসেসর দেখে কিনতে চাচ্ছেন না। এই স্মার্ট ফোন এর অপেরাটিং সিস্টেম হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে এন্ড্রয়েড ৯.০। 

তবে আমি সেক্ষেত্রে বলব আপনি যদি গেমিং এর জন্য এই বাজেট এ স্মার্ট ফোন কিনতে চান তাহলে এই স্মার্ট ফোন বর্তমান বাজারে বেস্ট বা এখনও বেস্ট। সেটা MideaTek helio G90T অক্টাকোর প্রসেসর হোক আর যাই হোক। MideaTek helio G90T অক্টাকোর প্রসেসর টি গেমিং বেশ প্রসেসর। তাই আপনি গেম খেলে অনেক মজা পাবেন। 

আর ফোন এর টুকটাক গরম কোন ব্যাপার না। এতে চিন্তার কোন কারন নাই। আর যদি ফোন এর টুকটাক গরম আপনার কাছে কোন কারন হয়ে না দারায় তাহলে এটি কোন ব্যাপার না। আপনি গেমিং এর জন্য এই স্মার্ট ফোন ব্যবহার করতে পারেন। আমি সাজেশন করলাম খুব ভালো হবে এই স্মার্ট ফোন গেম খেলার জন্য। 

Realme X2
তো ভাই ব্রাদার এবার আশা যাক ২৫ হাজার টাকা বাজেটে গেমিং স্মার্ট ফোন।আর আমরা ২৫ হাজার টাকা বাজেট এর মধ্যে ২ টি স্মার্ট ফোন কে বাছাই করেছি। আমরা তিন নম্বরে ৩টি স্মার্ট ফোন চয়েস করেছি। ৩টি স্মার্ট ফোন গুলি হলো রিয়েলমি এক্স২ আর হচ্ছে POCO X2, অথবা রেডমি কে৩০ Redmi K30। 

এই স্মার্ট ফোন এর থেকে আপনি যেকোন একটি স্মার্ট ফোন নিতে পারেন। কারন Realme X2 স্মার্ট ফোন এ যে প্রসেসর টি ব্যবহার করা হয়েছে তা হচ্ছে স্নাপড্রাগন ৭৩০ জি অক্টাকোর প্রসেসর। স্নাপড্রাগন ৭৩০ জি অক্টাকোর প্রসেসর টি খুব ভালো কেননা এই প্রসেসর টি গেমিং এর জন্য তৈরি করা হয়েছে। 

এর স্নাপড্রাগন ৭৩০ জি অক্টাকোর প্রসেসর থেকে আপনি গেমিং এর MideaTek helio G90T অক্টাকোর প্রসেসর সেম এক্সপ্রেশন পেয়ে থাকবেন। অর্থাৎ এই দুটি প্রসেসর এর গেম এর জন্য এক্সপ্রেশন এক রকম পেয়ে জাবেন। MideaTek helio G90T প্রসেসর টি গরম হয়ে যাওয়ার যে একটা প্রবণতা রয়েছে বা গরম হয়ে যেতে পারে ওই রকম জিনিস কিন্তু স্নাপড্রাগন ৭৩০ জি অক্টাকোর প্রসেসর এ নেই। 

গেমিং এর জন্য আপনারা এই তিনটি স্মার্ট ফোন এর যেকোন একটি মোবাইল ফোন নিতে পারেন। পারফরম্যান্স এর দিক থেকে তিনটি ফোনে এক রকম এক্সপ্রেশন পেয়ে জাবেন। এই তিনটি স্মার্ট ফোন এর যেকোন একটি আপনি চয়েস করতে পারেন।

তবে প্লাস পয়েন্ট POCO X2 এবং K30 এই দুটি স্মার্ট ফোনে কিন্ত রিফ্রেশ রেট একটু বেশি। অর্থাৎ ডিসপ্লে রিফ্রেশ রেট হিসাবে পাচ্ছেন ১২০ হার্জ। ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট থাকার ফলে হয় কি যেসমস্ত গেম এই রিফ্রেস রেট সাপোর্ট করে সেসব গেম আপনি খুব বাটার স্মুথ ভাবে খেলতে পারবেন। 

অবশ্যই আপনারা POCO X2 এবং K30 এই দুটি স্মার্ট ফোন নিতে পারেন। আর অনন্যা দিক যে সব ভালো আমরা যেহেতু এখানে তিনটি স্মার্ট ফোন নিয়ে কথা বলছি সেক্ষেত্রে যদি ক্যামেরা এর কথা বলেন তাহলে এখানে আমি বলবো এই তিনটি স্মার্ট ফোন এর মধ্যে POCO X2 তার ক্যামেরা ভালো আছে। 

এই তিনটি স্মার্ট ফোন এর প্রতেকটা ক্যামেরার মেইন ক্যামেরা ৬৪ মেগাপিক্সেল এর তার সাথে ৮ মেগাপিক্সেল এর আলট্রাওয়াল্ড লেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল Depth সেন্সর এবং ২ মেগাপিক্সেল এর ম্যাক্রো লেন্স। প্রতেকটার ক্যামেরা এক রকম কিন্ত এখানে ভালো রেজাল্ট করছে POCO X2। 

তো যারা চাচ্ছেন গেমিং করবেন এবং তার সাথে ফটোগ্রাফি ও ভালো করবেন তারা POCO X2 স্মার্ট ফোনটি চয়েস করতে পারেন। অভারঅল অনন্যা যে জিনিস গুলা রয়েছে সে সম্পর্কে আপনারা খুব ভালো করে জানেন। এই স্মার্ট ফোন গুলি নিয়ে অনেক পোস্ট লেখা হয়েছে। তাই আমি আর এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে চাই না। 

আপনারা শুধুমাত্র এই রকম বাজেট এর মধ্যে এসে অনেক সময় রিকুয়েস্ট করেন এই রকম কন্টেন্ট দেয়ার জন্য সেই কারনে আমি এসব স্মার্ট ফোন বা মোবাইল সাজেস্ট করলাম। এই বাহিরে আরও অনেক স্মার্ট ফোন আছে আর আপনাদের কি কি মতামত অবশ্যই নিচের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাবেন। 

আমার কাছে মনে হয়েছে বা আমি যতটুকু হিসাব করলাম তাতে আমার কাছে এ রকম বাজেটে এসব স্মার্ট ফোন কে মনে হয়েছে এছাড়া এর বাহিরে যেসব স্মার্ট ফোন রয়েছে সেসব আপনার কাছে ভালো লাগলে আমি নিয়ে নিতে পারেন। 

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া