হিট স্ট্রোক এর লক্ষণ? হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায়

শরীরের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে উঠলে হিট স্ট্রোক হয়। সাধারণভাবে, হিট স্ট্রোক গরম এবং আর্দ্র পরিবেশে অতিরিক্ত পরিশ্রমের কারণে ঘটে। জ্ঞান হারানো, দুশ্চিন্তা এবং খিঁচুনি হিট স্ট্রোকের প্রধান লক্ষণ। এই অবস্থার যত্ন নেওয়া না হলে, এটি অঙ্গ ফেইলর, কোমা বা এমনকি মৃ- ত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায়

হিটস্ট্রোক দুই ধরনের হয়: এক্সারশনাল হিটস্ট্রোক এবং নন এক্সারশনাল হিটস্ট্রোক। গরম এবং আর্দ্র পরিবেশে অতিরিক্ত শারীরিক পরিশ্রমের কারণে এক্সারশনাল হিটস্ট্রোক হয়। এটি অল্প সময়ের মধ্যে, সম্ভবত কয়েক ঘন্টার মধ্যে দেখা দিতে পারে। অন্যদিকে, বয়স বা অন্তর্নিহিত রোগের কারণে নন এক্সারশনাল হিটস্ট্রোক হতে পারে। এটি কয়েক দিনের মধ্যে প্রকাশ হতে পারে। 

গরমের মৌসুমে হিট স্ট্রোকের সমস্যা খুবই সাধারণ। এটি হিট-স্ট্রোক এবং সান-স্ট্রোক নামেও পরিচিত। এখানে আমরা হিট স্ট্রোক এর লক্ষণ, হিট স্ট্রোক হলে করনীয় ও হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায় নিয়ে কথা বলবো। হিট স্ট্রোক এর লক্ষণ এবং হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায় সম্পর্কে জানার আগে, আসুন আমরা সেই কারণগুলি সম্পর্কে কথা বলি যা হিট স্ট্রোক হওয়ার জন্য দায়ী।

হিট স্ট্রোক এর লক্ষণ, হিট স্ট্রোক হলে করনীয়, হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায়: হিট স্ট্রোক এর ক্ষেত্রে কী করবেন? জেনে নিন হিট স্ট্রোক এর লক্ষণ ও হিট স্ট্রোক প্রতিরোধের উপায়।

হিটস্ট্রোক বা সানস্ট্রোকঃ হিট স্ট্রোক এর পরে কি হয়, আপনি কিভাবে সনাক্ত করবেন যে আপনি বা পরিবারের কোনও সদস্য হিট স্ট্রোক করেছেন। একবার রোগ ধরা পড়লে, কীভাবে চিকিৎসা করা যায়, অনেক প্রশ্ন একবারে মাথায় আসে। কারণ হিট স্ট্রোক একটি মৌসুমি সমস্যা হতে পারে, কিন্তু সময়মতো এর চিকিৎসা না হলে জীবনের ঝুঁকি থাকে। প্রথমেই জেনে নিন হিট স্ট্রোক এর লক্ষণগুলো সম্পর্কে।

(toc) #title=(সুচিপত্র)

হিট স্ট্রোক এর লক্ষণ

  • মাথা ঝিম ঝিম করা
  • অবসাদ ও দুর্বলতা
  • চোখে ঝাপসা দেখা
  • দৃষ্টিভ্রম
  • অস্বাভাবিক পালস রেট। কখনো পালস রেটে বেড়ে যাওয়া এবং কমে যাওয়া
  • রক্তচাপ কমে যাওয়া
  • শ্বাস নিতে কষ্ট হয়
  • হিটস্ট্রোক হওয়ার পর শরীর তার তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না এবং শরীরের তাপমাত্রা ক্রমাগত বাড়তে থাকে
  • শরীরের তাপমাত্রা বাড়ার পরও ঘাম হয় না
  • ক্রমাগত বমি বমি ভাব এবং বমিও হতে পারে
  • ত্বকে লাল দাগ, ফুসকুড়ি দেখা যায়
  • হৃদস্পন্দন দ্রুত হতে থাকে
  • মাথাব্যথা চলতে থাকে
  • মানসিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে, কিছু ভাবার বা বোঝার শক্তি থাকে না
  • হিট স্ট্রোক করা ব্যাক্তি যদি কিছু মনে করার চেষ্টা করেন, তবে কিছু মনে করতে পারেন না
  • জ্বর বাড়তে থাকে
  • ত্বক শুষ্ক কিন্তু খুব নরম মনে হয়
  • পেশী দুর্বলতা
  • অপরিমিত ঘাম
  • সল্প পরিমাণে প্রসাব হওয়া বা তুলনামূলক প্রসাব কম

হিট স্ট্রোক এর লক্ষণগুলি কখনও কখনও হার্ট অ্যাটাকের মতো অন্যান্য অবস্থার মতো দেখতে পারে।

আরো পড়ুনঃ ঘামাচি পাউডার কোনটা ভালো

হিট স্ট্রোক এ কারা বেশি ঝুঁকিপূর্ণ?

বয়স্ক এবং শিশুদের হিটস্ট্রোকের প্রবণতা বেশি কারণ তাদের শরীর তাপমাত্রা ভালভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। মাঠকর্মী এবং খেলোয়ার যাদের গরম অবস্থায় শারীরিক পরিশ্রমের প্রয়োজন হয় তারা হিটস্ট্রোকের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। অন্যান্য কারণ যা হিট স্ট্রোকের সম্ভাবনা বাড়ায়:

  1. অ্যালকোহল পান করা
  2. দিনে পর্যাপ্ত পানি পান না করা
  3. গরমে অত্যাধিক পরিমাণে পরিশ্রম করলে হিট স্ট্রোক এর ঝুকি থাকে।
  4. হার্টের সমস্যা, কিডনির সমস্যা বা ঘুমের ব্যাধির মতো নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে ভুগছেন তাদের হিট স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বেশি।
  5. শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে এমন ওষুধ গ্রহণ। এগুলো হতে পারে রক্তচাপের ওষুধ, মূত্রবর্ধক, ব্যাথানাশক ইত্যাদি।

আরো পড়ুনঃ কিডনি ফেইলিওর এর লক্ষণ

হিট স্ট্রোক এর সমস্যা কেন হয়?

হিট স্ট্রোকের সমস্যার অনেক কারণ রয়েছে এবং বেশিরভাগ কারণ আপনার জীবনযাত্রার সাথে সম্পর্কিত।

১। হিটস্ট্রোক ঘটে যখন শরীর গরম তাপমাত্রার প্রতিক্রিয়ায় তার প্রাকৃতিক থার্মোরেগুলেটরি সিস্টেম (হাইপোথ্যালামাস) এর মাধ্যমে নিজেকে ঠান্ডা করতে অক্ষম হয়। সাধারণত হাইপোথ্যালামাস আপনার তাপমাত্রা প্রায় 98.6 ডিগ্রি ফারেনহাইট সেট করে। কিন্তু যদি শরীর এটি মুক্তির চেয়ে বেশি তাপ গ্রহণ করে, তবে অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা এই সেট পয়েন্টের উপরে বেড়ে যায় যার ফলে হিট স্ট্রোক হয়।

২। খুব গরম জায়গায় বেশিক্ষণ থাকা বা কাজ করলে হিট স্ট্রোক হতে পারে। সূর্যালোকের সাথে গরম বাতাসে অতিরিক্ত শারীরিক পরিশ্রম করা, পানিশূন্য হওয়া, ক্যাফেইন ও অ্যালকোহলের অতিরিক্ত সেবন ইত্যাদি হিট স্ট্রোকের প্রধান কারণ। 

৩। ঠাণ্ডা আবহাওয়ার কারণে বা ধরুন এসি রুম থেকে হঠাৎ প্রচণ্ড রোদ ও গরমে আসা। 

৪। গরম বাতাস এবং সূর্যের আলোতে বেশি সময় কাটালে হিট স্ট্রোক সমস্যা হয়।

৫। গরম আবহাওয়ায় বেশি ব্যায়াম করা।

৬। শরীরের প্রয়োজনের তুলনায় কম পানি পান করা।

৭। সঠিক পোশাক নির্বাচন না করা। এমন পোশাক পরিধান করা থেকে বিরত থাকুন যাতে শরীরে বাতাস যায় না। সুতি কাপড় পরলে ভালো হয়।

৮। গ্রীষ্মের মৌসুমে অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবনও একটি কারণ হয়ে দাঁড়ায় এবং হিট স্ট্রোক এর একটি কারণ। কারণ এটি শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়।

আরো পড়ুনঃ হঠাৎ শরীর দুর্বল হওয়ার কারণ কি

হিট স্ট্রোক হলে করনীয়? হিট স্ট্রোক এর প্রাথমিক চিকিৎসা

হিট স্ট্রোক একটি গুরুতর অবস্থা যার দ্রুত চিকিৎসা প্রয়োজন। যদি আপনি সন্দেহ করেন যে কেউ হিট স্ট্রোক করছে তা এখানে দেওয়া পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুনঃ

লোকটিকে একটি শীতল জায়গায় নিয়ে যানঃ যদি সম্ভব হয়, হিট স্ট্রোক করা ব্যক্তিকে একটি শীতল পরিবেশে নিয়ে যান, যেমন ছায়াযুক্ত স্থান বা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘরে। রোগীর চারপাশে বাতাস করুন।

অতিরিক্ত পোশাক শরীর থেকে খুলে নিনঃ শরীর ঠান্ডা করতে সাহায্য করার জন্য অপ্রয়োজনীয় পোশাক খুলে নিন।

হিট স্ট্রোক ব্যক্তির শরীরকে ঠান্ডা করুনঃ হিট স্ট্রোক ব্যক্তির শরীরকে শীতল করতে সাহায্য করার জন্য উপলব্ধ যেকোনও উপায় ব্যবহার করুন, যেমন ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল বা ঝরনায় রাখা সম্ভব হলে বরফের পানি দিয়ে গোসল করান বা ফ্যান ব্যবহার করে শরীর ঠান্ডা করুন। অথবা ভেজা কাপড় দিয়ে আলতো করে শরীর মুছে নিন।

হিট স্ট্রোক ব্যক্তিকে ঠান্ডা পানি পান করানঃ পুনরায় হাইড্রেট করতে সাহায্য করার জন্য হিট স্ট্রোক ব্যক্তিকে ঠান্ডা পানি বা নারিকেলের পানি খেতে দিন। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক করার চেষ্টা করুন এবং বিশুদ্ধ পানি পান করুন। লেবু জল পান করা সবচেয়ে উপকারী।

তারপর একটা ভেজা তোয়ালে মাথায় কিছুক্ষণ রেখে দিন যাতে মস্তিষ্ক শান্ত হয়। মাথা, ঘাড়, বগল এবং উরুতে একটি ভেজা কাপড় রাখুন।

বমি-পেটে ব্যথা ও লুজ মোশনের ক্ষেত্রে চিকিৎসডাক্রটাড় সঙ্গে যোগাযোগ করুন। জ্বর থাকলেও নিজে থেকে ওষুধ খাবেন না এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই ওষুধ খান। 

হিট স্ট্রোক কখনও কখনও একটি মেডিকেল ইমার্জেন্সি, এবং অবিলম্বে চিকিৎসা যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। জরুরি পরিষেবায় কল করুন বা ব্যক্তিকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যান।

আরো পড়ুনঃ কিস্তিতে ওয়ালটন এসি

হিট স্ট্রোক এর ঘরোয়া চিকিৎসা

কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে আপনি হিট স্ট্রোক থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারেন। হিট স্ট্রোকের চিকিৎসা নিম্নরূপ:

হিটস্ট্রোকের ক্ষেত্রে কী খাবেন জানেন? হিটস্ট্রোক এড়াতে আম, লেবু পানি, টমেটো, তরমুজ, শশা ইত্যাদি খেতে হবে। এতে পানির পরিমাণ বেশি।

হিটস্ট্রোক এড়াতে ও সুস্থ থাকতে বাটারমিল্ক-ডালও খেতে পারেন। এটি হিট স্ট্রোক থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারে।

গরম থেকে ঠান্ডা বা ঠান্ডা থেকে গরমে যাওয়া এড়িয়ে চলুন, এটি শরীরের তাপমাত্রা হঠাৎ বৃদ্ধি এবং আপনার স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।

হিট স্ট্রোক এড়াতে পেঁয়াজকে খুবই কার্যকরী প্রতিকার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। পেঁয়াজ কাঁচা বা ভাজাও খেতে পারেন। এছাড়াও পেঁয়াজের রসের সাথে লেবু খেতে পারেন, এটি হিট স্ট্রোক থেকে রক্ষা করে।

নারকেল জল আপনার শরীরের জন্য খুব স্বাস্থ্যকর। এটি স্বাভাবিকভাবেই আপনার শরীরের ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্য বজায় রেখে শরীরকে সুস্থ রাখে। শিশুদের কিছুক্ষণ পর পর পানি পান করতে হবে।

হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায়

খোলা শরীরে রোদে বের হবেন না। বাইরে যেতে হলে রোদে বের হওয়ার সময় অবশ্যই মাথা ঢেকে রাখতে হবে। আপনার চোখে সানগ্লাস রাখুন এবং সম্ভব হলে সাদা বা হালকা রঙের সুতির পোশাক পরুন।

হঠাৎ ঠান্ডা জায়গা থেকে খুব গরম জায়গায় যাবেন না। বিশেষ করে এসি-তে বসার পর সঙ্গে সঙ্গে রোদে বের হবেন না।

বেশি করে পানি পান করুন। যার কারণে নিয়মিত ঘামের মাধ্যমে শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয় করা যায় এবং শরীরে পানির ঘাটতি হতে পারে না। প্রচন্ড গরমে মৌসুমী ফল, ফলের রস, দই, বাটার মিল্ক, জিরা বাটার মিল্ক, জলজিরা, লস্যি, আমের পান্না বা আমের চাটনি খান।

হিট স্ট্রোকের ক্ষেত্রে অবিলম্বে একজন অভিজ্ঞসম্পন্ন ডাক্তার দেখাতে হবে। ডাক্তারের কাছে যাওয়ার আগে কিছু প্রাথমিক চিকিৎসা করার পরও হিট স্ট্রোকের রোগী স্বস্তি বোধ করতে থাকে। 

জ্বর বেশি হলে রোগীকে ঠান্ডা খোলা বাতাসে বিশ্রাম দিতে হবে। 104 ডিগ্রির বেশি জ্বর হলে মাথায় বরফের প্যাক রাখতে হবে। 

রোগীকে সাথে সাথে পেঁয়াজের রস মধুর সাথে মিশিয়ে খাওয়াতে হবে। রোগীর শরীর দিনে চার থেকে পাঁচ বার ভেজা তোয়ালে দিয়ে মুছতে হবে। গরম পানীয় যেমন চা-কফি ইত্যাদির ব্যবহার অনেকাংশে কমাতে হবে। 

তৃষ্ণা মেটাতে মাটির পাত্র বা জগ থেকে পানিতে লেবুর রস পান করতে হবে। বরফ জল দেওয়া উচিত নয় কারণ এটি উপকারের পরিবর্তে ক্ষতি করতে পারে।

হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচতে যা করবেন

  • প্রচণ্ড সূর্যালোক এবং গরম বাতাসে বাইরে যাওয়া এড়িয়ে চলুন। আপনার পক্ষে যতটা সম্ভব সূর্যের আলো এড়িয়ে চলা চেষ্টা করুন।
  • যদি কোনো কারণে গরমে ঘরের বাইরে যেতে হয়, তাহলে লেবু পানি খেয়ে বাইরে যান। প্রয়োজনে ছাতা নিয়ে রোদে বের হন।
  • শরীর হাইড্রেটেড রাখুন। বেশি বেশি পানি পান করুন। যেমন ডাবের পানি, ফলের রস ইত্যাদি। শরীরে প্রয়োজনীয় পানির পরিমাণ মেটাতে শুধুমাত্র বিশুদ্ধ পানির ওপর নির্ভর করবেন না। বরং ঠাণ্ডা দুধ এবং নারকেলের পানি মতো দেশি পানীয় পান করুন। 
  • সোডা, কোল্ড ড্রিংকস, কফি এবং চা থেকে যতটা সম্ভব দূরে থাকুন। এটি শরীরে পানির পরিমাণ কমাতে কাজ করে। এতে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে। অর্থাৎ হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচতে অ্যালকোহল এবং ক্যাফিন এড়ানোর চেষ্টা করুন।
  • ঢিলেঢালা ও হালকা রঙের পোশাক পরুন। রোদে বের হওয়ার আগে সুতি কাপড় পরুন এবং ফুল হাতা কাপড় পরুন। 
  • রোদ থেকে রক্ষা পেতে ছাতা ব্যবহার করুন।
  • হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচতে খালি পেটে কখনই রোদে বা গরম বাতাসে যাবেন না।
  • হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচতে গ্রীষ্মের ঋতুতে, ঠান্ডা জিনিস খাওয়া কম করবেন না। যেমন, দই, শসা, তরমুজ ইত্যাদি। এই জাতীয় খাবারগুলি বেশি বেশি খান।
  • রোদে বেরোনোর আগে সানস্ক্রিন, সানগ্লাস, চওড়া টুপি ইত্যাদি ব্যবহার করুন।

Disclaimer: এই আর্টিকেলে উল্লিখিত পদ্ধতি গুলিকে শুধুমাত্র পরামর্শ হিসাবে গ্রহণ করুন, টেকনিকাল কেয়ার বিডি সেগুলি নিশ্চিত করে না। এই ধরনের কোনো চিকিৎসা/ঔষধ/খাদ্য অনুসরণ করার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

শেষ কথাঃ হিট স্ট্রোক হলে করণীয় - হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায় নিয়ে

হিট স্ট্রোক, যা সানস্ট্রোক নামেও পরিচিত, দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করা বা খুব বেশি তাপমাত্রার সংস্পর্শে থাকার কারণে হয়। এতে শরীরের তাপমাত্রা ১০৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট ছাড়িয়ে যায় এবং শরীর পানিশূন্য হয়ে পড়ে। এর লক্ষণগুলো হলো বমি, জ্বর, মাথা ব্যাথা, অপরিমিত ঘাম ইত্যাদি। হিট স্ট্রোক প্রতিরোধ করতে, পুরো হাতা কাপড় পরিধান করুন, ছাতা নিয়ে রোদে বের হন, প্রচুর পানি পান করুন ইত্যাদি। হিট স্ট্রোকের ক্ষেত্রে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন, যা অবস্থা খারাপ হলে মারাত্মক হতে পারে।

পোষ্ট ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত দিন

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)