Technical Care BD https://www.technicalcarebd.com/2021/11/what-is-the-difference-between-email-and-gmail.html

ইমেইল ও জিমেইল এর পার্থক্য

ইমেইল ও জিমেইল এর পার্থক্য — আজকের ডিজিটাল যুগে প্রত্যেক স্মার্টফোন ব্যবহারকারী বা ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ইমেইল আইডি আছে, তারা খুব ভালো করেই জানে যে ব্যবসার ক্ষেত্রে অনলাইনে ডকুমেন্ট পাঠানো এবং গ্রহণ করার জন্য ইমেইল আইডি কতটা গুরুত্বপূর্ণ। যেকোনো ওয়েবসাইট কিংবা অ্যাপে লগইন/সাইন আপ করার জন্য যেখানে শুধুমাত্র ইমেইল আইডি ব্যবহার করতে হয়।

ইমেইল আইডির অনেক সুবিধা রয়েছে, এটি আপনার কাজকে সহজ করে তোলে, যেকোনো ডকুমেন্ট/ ফাইল অন্য ইমেইল এড্রেসে পাঠানো সম্পূর্ণ নিরাপদ। বন্ধুরা, ই-মেইল ছাড়াও আপনারা নিশ্চয়ই জিমেইল শব্দটি অনেকের মুখেই শুনেছেন। এখন প্রশ্ন, ইমেইল ও জিমেইল এর মধ্যে পার্থক্য কী, তাই আজকের আর্টিকেলে এই বিষয়ে ইমেইল ও জিমেইলের পার্থক্য জানুন।

ইমেইল ও জিমেইল এর পার্থক্য

ইমেইল কি

ই-মেইল যাকে ইলেকট্রনিক মেইলও বলা হয়ে থাকে, এটি এর পুরো নাম। এটি এক ধরনের আইডি বা ঠিকানা যার মাধ্যমে অনলাইন মেসেজিং (ইলেক্ট্রনিক মেসেজ) পাঠানো হয়, আপনি নিজের কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইসে একটি ইমেইল আইডি তৈরি করতে পারেন। ইমেইল কোনো ডকুমেন্ট বা ফাইল পাঠাতে এবং গ্রহণ করতে ব্যবহার করা হয়, একটি ইমেইল আইডি ব্যবহারকারীর নাম এবং ডোমেইন নাম দিয়ে তৈরি। ইমেইল আইডি থেকে যেকোনো ধরনের বার্তা আদান-প্রদানের জন্য দুই বা ততোধিক ইমেইল আইডি থাকা প্রয়োজন, তবেই আপনি একটি ইমেইল থেকে অন্য ইমেইল আইডিতে বার্তা পাঠাতে পারবেন।

জিমেইল কি

Gmail হল এক ধরনের ইমেইল পরিষেবা যার মাধ্যমে অন্য যেকোনো ইমেইল ঠিকানায় বার্তা পাঠানো যায়। এটি Google দ্বারা তৈরি একটি বিনামূল্যের ইমেইল পরিষেবা, আপনি একটি ওয়েব ব্রাউজার বা এর অফিসিয়াল মোবাইল অ্যাপে Gmail অ্যাক্সেস করতে পারেন এবং ইমেইল পাঠাতে এবং গ্রহণ করতে পারেন। যখন কোনো ব্যক্তি তার ইমেইল আইডির সাহায্যে আপনার ইমেইল আইডিতে কোনো ডকুমেন্ট বা মেসেজ পাঠায়, তখন তার নোটিফিকেশন আপনার ফোনে আসে, আপনি যদি সেই পাঠানো মেসেজটি দেখতে চান, তাহলে এর জন্য আপনাকে সেখানে জিমেইল অ্যাপ খুলতে হবে। সর্বশেষ মেসেজ তালিকা দেখানো হয়, আপনি জিমেইলকে একটি পোস্ট অফিসের মতো বিবেচনা করতে পারেন, যেমন গুরুত্বপূর্ণ চিঠি পোস্ট অফিসের মাধ্যমে অন্য রাজ্য, শহর বা দেশে পাঠানো হয়, ঠিক একইভাবে চিঠিগুলি ইলেকট্রনিকভাবে Gmail এর মাধ্যমে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় পাঠানো হয়। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে কিন্তু ইলেকট্রনিক মেইলটি ইমেইলে পৌঁছায়।

ইমেইল ও জিমেইল এর মধ্যে পার্থক্য

ইমেইল এবং জিমেইল কি? আপনি নিশ্চয়ই জেনে গেছেন যে ইমেইল এবং জিমেইলের মধ্যে প্রধান পার্থক্য কী? ওয়েল, এই দুটি মধ্যে পার্থক্য নীচে ব্যাখ্যা করা হয়েছেঃ

ইমেইল

ইমেইল হল এক ধরনের আইডি বা ঠিকানা যার সাহায্যে ডাটা অন্য আইডিতে পাঠানো হয়। ইমেইল আইডি ব্যবহারকারীর নাম এবং ডোমেইন নাম দিয়ে তৈরি, একটি নতুন ইমেইল আইডি তৈরি করার সময় এটির জন্য আপনার প্রথম নাম, পদবি, লিঙ্গ, জন্ম তারিখ, ফোন নম্বর প্রয়োজন। ইমেইল আইডি একটি পাসওয়ার্ড দিয়ে সুরক্ষিত, এটি আইডির নিরাপত্তার জন্য। অন্য কোনো ডিভাইসে লগ ইন করতে, আপনাকে ইমেইল আইডি এবং তার সঠিক পাসওয়ার্ড লিখতে হবে।

১৯৬০ এর দশকের প্রথম দিকে এর ব‍্যবহার স্বল্প পরিসরে শুরু হয়েছিল। ১৯৭১ সালে তদানিন্তন আর্পানেট সর্বপ্রথম ইলেক্ট্রনিক মেইল আবিষ্কার করে। ইমেইল পেতে প্রথম দিকের ই-মেইল ব্যবস্থায় প্রেরক এবং প্রাপক দুজনকেই অনলাইনে থাকতে হতো। পূর্বে ইমেইল পাঠাতে হলে প্রেরক ও প্রাপককে অনলাইনে থাকতে হতো। বর্তমানে ই-মেইল গুলোতে এই সমস্যা নেই। ইমেইল সার্ভারগুলো মেইল গ্রহণ করে এবং সেভ করে পরে পাঠায়। প্রাপককে অথবা কম্পিউটারকে অনলাইনে থাকার প্রয়োজন হয়না শুধুমাত্র কোন ইমেইল সার্ভারে থাকলেই সচল ইমেইল ঠিকানা থাকলেই হয়। ইমেইল এর মাধ্যমে শুধুমাত্র বার্তা প্রেরণ করা যেতো।

জিমেইল

Gmail হচ্ছে ইমেইল বা ইলেকট্রনিক মেইল পাঠানোর একটি মাধ্যম। যে বার্তাগুলি পাঠানো হবে তা Gmail অ্যাপেই তৈরি করা হয়, তারপর এটি একটি ইমেইল ঠিকানায় পাঠানো হয়। Gmail হল Google দ্বারা তৈরি একটি ইমেইল পরিষেবা যা একটি স্মার্টফোন বা কম্পিউটার ডিভাইসে অ্যাক্সেস করা যায়। ইমেইল প্রদানকারী পরিষেবা Yahoo মেইল, জোহো মেইল, প্রোটনমেইল, আইক্লাউড মেইল ইত্যাদি। জিমেইল অ্যাপটি পাসওয়ার্ড সুরক্ষিত নয়, আপনি সহজেই এটিকে এক ক্লিকে ওপেন করতে পারবেন, যদিও থার্ড পার্টি অ্যাপ লকিং অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে এবং বর্তমানে স্মার্টফোনের লকিং সিস্টেমের মাধ্যমে যেকোনো অ্যাপে পাসওয়ার্ড সেট করা যায়।

২০০৭ সালের ৭ই ফেব্রুয়ারি সর্ব সাধারণের জন্য জিমেইলকে উন্মুক্ত করা হয়। ২০০৯ সালের ৭ই জুলাই পরিপূর্ণ সংস্করণ প্রকাশ করা হয়। শুরুতে ব্যবহারকারীদের জন্য জিমেইল বিনামূল্যে ১ গিগাবাইট স্পেস দেয়। পরবর্তীতে সেটা ২ গিগা বাইট থেকে ৪ গিগা বাইট পর্যন্ত করা হয়। বর্তমান সময়ে জিমেইল ব্যবহারকারীদের বিনামূল্যে ব্যবহারের জন্য জিমেইলে ১৫ গিগাবাইট পর্যন্ত ফ্রি স্পেস সুবিধা রয়েছে যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। এর পাশাপাশি ইচ্ছে করলে জায়গা বাড়ানোর সুযোগও দিয়েছে। 

এক্ষেত্রে ২৫ গিগা বাইটের জন্য প্রতি মাসে ২.৪৯ ডলার, ১৬ টেরাবাইট স্পেসের জন্যে প্রতি মাসে ৭৯৯.৯৯ ডলার দিতে হবে। ২০১১ অক্টোবর পর্যন্ত জিমেইলের ব্যবহারকারী ছিলো ২৬০ মিলিয়ন। জিমেইলে POP3 ও IMAP সুবিধা রয়েছে। ডকুমেন্ট শেয়ার করার জন্য জিমেইলে প্রেরক ও প্রাপক কাউকেই অনলাইন থাকার প্রয়োজন হয়না। জিমেইলের সাহায্য মাল্টিমিডিয়া শেয়ার করা যায় ইত‍্যাদি ইত্যাদি।

আজকের এই আর্টিকেলে, আপনি ইতিমধ্যে বুঝতে পারছেন যে ইমেইল ও জিমেইলের এর পার্থক্য কী। যদি আপনি এই আর্টিকেলটি সহায়ক বলে মনে করেন, তাহলে এটি শেয়ার করুন, সংশ্লিষ্ট যেকোনো ধরনের প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে কমেন্ট করুন।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া