১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস

হাসিবুর
By -
0

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস - ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস ‍বা ভ্যালেন্টাইন্স ডে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা হয় এই নিয়ে অনেকের বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন রয়েছে। ভ্যালেন্টাইন্স ডে এর ইতিহাস বা ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস জানতে চাইলে আজকের পোস্টটি আপনি মনোযোগ সহকারে পড়তে পারেন।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি বা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস নিয়ে ইতিহাস রয়েছে ভালোবাসার জন্য মানুষের আত্মত্যাগের ইতিহাস। ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস নিয়েই সাজিয়েছি আজকের এই পোস্টটি। তাহলে চলুন জেনে নেই ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি নিয়ে কিছু কথা - ভালোবাসা দিবসের কিছু কথা

আপনি নিশ্চয়ই জানতে চাচ্ছেন ১৪ ই ফেব্রুয়ারি নিয়ে কিছু কথা বা ভ্যালেন্টাইন্স ডে এর ইতিহাস। ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা হয়? এই নিয়ে আপনারা বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন আছে। আজকে এই ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস সম্পর্কে আমি আপনাদের বলব। 

১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। আমরা এই দিনটাকে বেশী ভ্যালেন্টাইন্স ডে নামে চিনে থাকি। এর ইতিহাস কি এটা নিয়ে গুগলে সার্চ করে জানার চেষ্টা করি। তাহলে আপনি আজকে এই পোস্ট থেকে জেনে নিন ১৪ ই ফেব্রুয়ারি নিয়ে ইতিহাস।

আরো পড়ুন: ১৪ ফেব্রুয়ারি নিয়ে ফানি স্ট্যাটাস

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস - ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস রয়েছে, ভালোবাসা দিবস বা ভ্যালেন্টাইন্স ডে যাকে অন্যভাবে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন্স উৎসব বলা হয়ে থাকে। এটি একটি একটি বার্ষিক উৎসবের দিন যা প্রতিবছর ১৪ ফেব্রুয়ারি তারিখে ভালোবাসা এবং অনুরাগের মধ্য দিয়ে উৎযাপন করা হয়। 

শুরুতেই এটি সেন্ট ভ্যালেন্টাইন নামক একজন অথবা দুইজন খ্রিষ্টান শহীদকে সম্মান জানাতে খ্রিষ্টধর্মীয় উৎসব হিসেবে পালিত হয়ে আসছিল এবং কিছু বছর পর থেকে ঐতিহ্যর ছোঁয়ায় এটি বিভিন্ন দেশে আস্তে আস্তে প্রেম ও ভালোবাসার একটি আনুষ্ঠানিক দিবসে পরিণত হয়। 

যদিও পৃথীবির বিভিন্ন দেশে এই দিনটি ছুটির দিন ঘোষণা করা হয়েছে তবে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে এই দিবস সরকারিভাবে ছুটি নয়।

ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস

ইতালির রোম নগরীতে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন নামে একজন খ্রিষ্টান পাদ্রী ও চিকিৎসক ছিলেন। খ্রিষ্টান ধর্ম প্রচারের অভিযোগে তৎকালীন রোম সম্রাট দ্বিতীয় ক্রাডিয়াস তাকে ধরে জেল বন্দী করেন। 

এর কারণ হচ্ছে রোম শহরে খ্রিষ্টান ধর্ম প্রচার করা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ ছিল। বন্দী থাকা অবস্থায় তিনি জনৈক কারারক্ষীর দৃষ্টিহীন মেয়েকে তার চিকিৎসার মাধ্যেমে সুস্থ্য করে তোলেন। এতে করে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের জনপ্রিয়তা অনেক বেড়ে যায়। 

আর তাই রাজা ঈর্ষান্বিত হয়ে তাকে মৃ- ত্যুদণ্ড দেয় আর সেই দিনই ছিল ১৪ ফেব্রুয়ারি। অতঃপর ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিউও ১ম জুলিয়াস ভ্যালেন্টাইন স্মরণে ১৪ই ফেব্রুয়ারিকে ভ্যালেন্টাইন' দিবস ঘোষণা করেন। 

মূলত এটাই ছিল ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস। এর পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন ঐতিহ্য এর ছোয়ায় বিভিন্ন দেশে আস্তে আস্তে প্রেম ও ভালোবাসার একটি আনুষ্ঠানিক দিবসে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশে ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস

বর্তমানে বাংলাদেশেও এই ভালোবাসা দিবস পালন খুবই জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছে, বিশেষ করে তরুণ-তরুনীদের কাছে। তবে আপনি কি জানেন? বাংলাদেশে ১৪ ফেব্রুয়ারি বা ভ্যালেন্টাইন্স ডে কিভাবে শুরু হয়েছে। 

যদি না জেনে থাকেন তবে আজকের পোস্টের এই অংশ থেকে জানুন। পাশ্চাত্যর সংস্কৃতি ও বাংলাদেশের নিজস্ব সংস্কৃতির মিশ্রণে ভিন্নভাবে পালিত হয় "বিশ্ব ভালোবাসা দিবস"। 

বাংলাদেশের সর্বশেষ সংস্কৃত বাংলা ক্যালেন্ডার অনুসারে ১৪ ফেব্রুয়ারি বসন্ত উৎসব তথা পহেলা ফাল্গুন উদযাপন করা হয়। তবে এই দিন তরূণ সমাজ মিশ্রভাবে এই দিনটি উদযাপন করে থাকে। কবে এই ভালোবাসা দিবস বাংলাদেশে প্রচলন শুরু সেটা চলুন জেনে নেই। 

১৯৯৩ সালে যায় যায় দিন পত্রিকার সম্পাদক শফিক রহমান সর্বপ্রথম বাংলাদেশে ভালোবাসা দিবস পালন শুরু করেন। তিনি লন্ডনে পড়ালেখা করার সময়ে এই পশ্চিমা সভ্যতায় সংস্কৃতির সংস্পর্শে আসেন এবং পত্রিকায় ভালোবাসা দিবসের কথা উল্লেখ করেন। মূলত এভাবেই বাংলাদেশে ১৪ ফেব্রুয়ারি বা বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের প্রচলন শুরু হয়।

আরো পড়ুন: ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে কি দিবস

ভালোবাসা দিবসের কার্ড

ভ্যালেন্টাইন্স ডে তে প্রিয় মানুষকে উপহার দেওয়ার জন্য ভালোবাসা কার্ডের প্রয়োজন হতে পারে। তাই আপনি যদি আপনার প্রিয়তমার জন্য ভালোবাসার দিবসের কার্ড খুজে থাকেন তাহলে নিচে থেকে ভালোবাসা দিবসের কার্ড সংগ্রহ করে আপনার প্রিয় মানুষে উপহার দিতে পারেন।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
(ছবিগুলো wikipedia থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে)

শিশুদের ভ্যালেন্টাইন ডে - শিশুদের ভালোবাসা দিবস

ভালোবাসা দিবস সকলের মাঝে ছড়িয়ে পড়ুক। শিশুদের ভালোবাসা দিবসে উপহারে প্রয়োজন আছে। আপনার বাচ্চাকে আপনি ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন ধরনের উপহার কিনে দিতে পারেন। নিচে শিশুদের ভালোবাসা দিবসের কার্ড সংগ্রহ করতে পারেন।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস
১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস

(ছবিগুলো wikipedia থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে)

বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নসমূহ

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস কিংবা ভালোবাসা দিবস নিয়ে আপনার মনে বেশ কিছু প্রশ্ন উঁকি দিচ্ছে। তাহলে চলুন জেনে নেই সেই সমস্ত প্রশ্নে উত্তরগুলো।

১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে কি দিবস?

১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে বসন্ত উৎসব বা পহেলা ফাল্গুন উৎসব। তবে সমাজের তরুণ-তরূণীরা ১৪ ফেব্রুয়ারি দিবস বিশ্ব ভালোবাসা দিবস বলে অভিহিত করে থাকেন।

ভ্যালেন্টাইন্স ডে কবে?

ভ্যালেন্টাইন্স ডে বা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হচ্ছে ১৪ ফেব্রুয়ারি। সেন্ট ভ্যালেন্টাইন এর সৃত্মিচরণে ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালন করা হয়।

১৪ ফেব্রুয়ারি কি দিবস?

১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। তবে অনেকেই ভ্যালেন্টাইন্স ডে নামে বেশী চিনে থাকে।

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস সম্পর্কে ইসলাম কি বলে?

ইসলাম বিশ্ব ভালোবাসা দিবস সম্পর্কে নির্লজ্জ দিবস বলে অভিহিত করেছে। এছাড়াও এই দিবসের নামে সমাজের তরূণ-তরুণীরা অনৈতিক কার্যক্রম করে থাকেন যা সম্পূর্ণ ইসলামে হারাম।

শেষ কথা: ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস বা ভালোবাসা দিবস নিয়ে অনেকের বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন রয়েছে। আজকের পোস্ট পড়ে আপনি জানতে পারবেন ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস, বাংলাদেশে ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস। আজকে আমি ভ্যালেন্টাইন্স নিয়ে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। 

আশা করি আপনি আজকের এই ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস পোস্টটি পড়ে ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস সম্পর্কে কিছু তথ্য জানতে পারলেন। আপনার কাছে যদি এই পোস্টটি তথ্যবহুল হয়ে থাকে তবে আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে পারেন। ধন্যবাদ।

ব্লগ ক্যাটাগরি:

এখানে আপনার মতামত জানান

0মন্তব্যসমূহ

আপনার মন্তব্য লিখুন (0)

#buttons=(ঠিক আছে, ধন্যবাদ) #days=(20)

টেকনিক্যাল কেয়ার বিডি তে আপনাকে স্বাগতম. ❤️
Ok, Go it!